X
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ‘অপহরণ’, রাজধানীতে প্রবাসী যুবক গ্রেফতার

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৩৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষার্থী এক কিশোরীকে অপহরণের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় জসিম উদ্দিন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর বাড্ডা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে আজ দুপুরে কাওরান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানান।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বরাত দিয়ে তিনি বলেন, গ্রেফতার হওয়া জসিম উদ্দিন মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী। সে ওই শিক্ষার্থীকে অনেকদিন ধরেই প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। স্কুলে যাওয়া এবং প্রাইভেট পড়তে আসা যাওয়ার সময় ওই যুবক প্রায়ই ওই তরুণীকে উত্ত্যক্ত করতো। সে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে জসিম উদ্দিন অপহরণসহ বিভিন্ন ভয়-ভীতিও দেখাতো।

অপহরণের দিনের ঘটনা তুলে ধরে এই র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, গত ৯ অক্টোবর আনুমানিক দুপুর আড়াইটার দিকে স্কুল থেকে বাসায় ফেরার পথে জসিম উদ্দিন ও তার কয়েকজন সহযোগী ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে জোর করে একটি প্রাইভেটকারে উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে বিকাল পর্যন্ত তাকে আটকে রেখে বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করে সন্ধ্যার দিকে জসিম উদ্দীন তার এক নিকট আত্মীয়ের বাসায় ওই তরুণীকে নিয়ে যায়। ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেলে জসিম উদ্দিন ওই শিক্ষার্থীকে সেখানে রেখে পালিয়ে যায়। পরে সে রাজধানীর বাড্ডায় আরেক আত্মীয়ের বাসায় আত্মগোপনে থাকে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জসিম জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত জসীমউদ্দীন প্রাইভেটকারটি তার এক আত্মীয়ের কাছ থেকে ভাড়া নিয়েছিল। 

অপহরণের অভিযোগে ৯ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় জসিম উদ্দিনসহ পাঁচজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন ওই শিক্ষার্থীর মা।

/আরটি/ইউএস/

সম্পর্কিত

যাত্রাবাড়ীতে ৩ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ৩ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

যাত্রাবাড়ীতে ৫ কেজি আইসসহ দু’জন গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ৫ কেজি আইসসহ দু’জন গ্রেফতার

‘ঢাকামুখী অভিবাসন বন্ধ না হলে কোনও পরিকল্পনাই কার্যকর হবে না’ 

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৯:০৫

ঢাকামুখী অভিবাসন রোধ করা না গেলে যত পরিকল্পনাই নেওয়া হোক তা কার্যকর হবে না বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। 

শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের বলরুমে স্থানীয় সরকার বিভাগ ও ওয়াটার এইড বাংলাদেশের উদ্যোগে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত ‘পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন ও হাইজিন (ওয়াশ) সেক্টরে ৫০ বছরের অর্জন ও ভবিষ্যৎ করণীয়’ শীর্ষক এক সেমিনারে ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এই মন্তব্য করেন। 

মেয়র বলেন, ঢাকা ২ কোটি ১০ লাখ মানুষের শহর। ২০৩০ সালে কি এটা ৩ কোটি হবে, ২০৪১ সালে কি ৫ কোটি হবে? তাহলে কিন্তু সমস্যার সমাধান হবে না। আমাদেরকে আগে ২ কোটি ১০ লক্ষ মানুষের সকল নাগরিক সুবিধা, উন্নত ঢাকার সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। সেজন্য আমাদেরকে দেশের গ্রামগুলোতে চাকরি, কর্মসংস্থান ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। যখন ঢাকার দিকে এই গতি (গ্রাম হতে শহরে অভিবাসন) রোধ করতে পারবো, তখনই আমরা ২০৩০ সালে ঢাকার ২ কোটি ১০ লাখ মানুষের যথার্থ সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে পারবো। কিন্তু আমরা যদি ধরেই নিই যে, ঢাকার দিকে এই অভিবাসনের গতি চলতে থাকবে, তাহলে আমরা যতই পরিকল্পনা করি না কেন, ২০৩০ সালে গিয়ে দেখা যাবে আমাদের কোনও পরিকল্পনা কার্যকর হয়নি।

ঢাকা শহরের ৯৫ শতাংশ বাড়িতে সেপটিক ট্যাংক ও ৯৯.৯৯ শতাংশ বাড়িতে সোক ওয়েল নেই কিন্তু বাড়ির মালিকদের সেগুলো নিশ্চিত করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করতে বাধ্য করতে হবে জানিয়ে শেখ তাপস বলেন, স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইনে ইমারত নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণের আবেদন ও অনুমতি সিটি করপোরেশনের কাছ থেকে নিতে হবে বলে উল্লেখ আছে। কিন্তু আজ অবধি সেটা রাজউক দিয়ে থাকে। আমরা একটি নীতিমালা প্রণয়ন করে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছি। মন্ত্রণালয় সেটা পর্যালোচনা করছে। আমি আশাবাদী যে, ডিসেম্বরের মধ্যে সেটা পেয়ে যাবো। পেয়ে গেলে আগামী বছর থেকে সেটা বাস্তবায়ন করব।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। 

/এসএস/এমআর/

সম্পর্কিত

‘ভবনে রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং থাকলে ১০ শতাংশ হোল্ডিং কর রেয়াত’

‘ভবনে রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং থাকলে ১০ শতাংশ হোল্ডিং কর রেয়াত’

হানিফ ফ্লাইওভারে বাস উল্টে দুই কাবাডি খেলোয়াড় আহত

হানিফ ফ্লাইওভারে বাস উল্টে দুই কাবাডি খেলোয়াড় আহত

‘দোলায় চড়ে’ দুর্গার বিদায় (ফটোস্টোরি)

‘দোলায় চড়ে’ দুর্গার বিদায় (ফটোস্টোরি)

যাত্রাবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

৬২ জেলায় শনাক্ত এক অঙ্কের ঘরে

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫৪

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনাতে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ২৯৩ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনাতে সরকারি হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৬৫ হাজার ১৭৪ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০০ এর নিচে রোগী কমার সঙ্গে সঙ্গে দৈনিক শনাক্ত হার নেমে এসেছে দুই এর নিচে। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানাচ্ছে, এ সময়ে রোগী শনাক্তের হার এক দশমিক ৮৮ শতাংশ। অধিদফতর জানাচ্ছে, দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মাত্র দুই জেলায় রোগী শনাক্ত সংখ্যা দুই অঙ্কের ঘরে। বাকি ৬২ জেলায় শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা এক অঙ্কের ঘরে।

দুই জেলার মধ্যে  ঢাকা বিভাগের ঢাকা মহানগরসহ ঢাকা জেলায় ১৭৫ জন আর চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম জেলায় শনাক্ত হয়েছেন ২২ জন।

এছাড়া ঢাকা বিভাগের মানিকগঞ্জ জেলা, ময়মনসিংহ বিভাগের শেরপুর, চট্টগ্রাম বিভাগের বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া, রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ ও জয়পুরহাট, রংপুর বিভাগের নীলফামারী, লালমনিরহাট ও গাইবান্ধা, খুলনা বিভাগের বাগেরহাট, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, মাগুরা, নড়াইল ও সাতক্ষীরা, বরিশাল বিভাগের বরিশাল, পটুয়াখালী, পিরোজপুর ও ঝালকাঠি এবং সিলেট বিভাগের সিলেট, সুনামগঞ্জ ও মৌলভীবাজার জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন শনাক্ত নেই।

/জেএ/এমআর/

সম্পর্কিত

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

ডেঙ্গু: ১ থেকে ২০ বছর বয়সী রোগী বেশি

ডেঙ্গু: ১ থেকে ২০ বছর বয়সী রোগী বেশি

৫৯ জেলায় শনাক্তের সংখ্যা কমে এক অঙ্কে

৫৯ জেলায় শনাক্তের সংখ্যা কমে এক অঙ্কে

এবার ৫ বিভাগে মৃত্যু নেই

এবার ৫ বিভাগে মৃত্যু নেই

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩৮

করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ছয় জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৩ জন আর ১ জন করে চট্টগ্রাম, খুলনা ও সিলেট বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। বাকি চার বিভাগ অর্থাৎ রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার কারণে কারও মৃত্যু হয়নি। স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

আগের ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহের পাশাপাশি খুলনা বিভাগেও মারা যাননি কেউ। ১৫ অক্টোবর সকাল ৮টা থেকে ১৬ অক্টোবর সকাল ৮টা পর্যন্ত হিসাবে মৃত্যুহীন বিভাগের তালিকা থেকে খুলনা বাদ পড়লো। 

চলতি বছরের মার্চ মাসের পর থেকে করোনায় দৈনিক মৃত্যু ক্রমে বাড়তে থাকে। করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনের দাপটে জুলাই মাসে দৈনিক মৃত্যু দুইশ’র ঘর ছাড়িয়ে যায়। গত আগস্টের দুই দিন সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়। তবে কিছুদিন ধরে সংক্রমণের হার কমে আসার সঙ্গে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও কমছে।

ডেল্টার তাণ্ডবের পর গত ২৩ সেপ্টেম্বর দেশে প্রথমবারের মতো তিন বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। সেদিন ২৪ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছিল, দেশের আট বিভাগের মধ্যে রাজশাহী, বরিশাল ও ময়মনসিংহে গত ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু হয়নি।

এরপর থেকে প্রায় প্রতিদিনই কোনও না কোনও বিভাগ করোনায় মৃত্যুহীন থাকছে। তিন বিভাগ থেকে মৃত্যুহীন বিভাগের তালিকা বেড়ে চার সংখ্যায় উন্নীত হয় গত ২৯ সেপ্টেম্বর। সেদিন ১৭ জনের মৃত্যুর কথা জানায় অধিদফতর। এর মধ্য দিয়ে প্রথমবার চার মাস পর মৃতের সংখ্যা নেমে আসে ২০-এর নিচে। একইসঙ্গে বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। এভাবে এখন প্রতিদিনই এক বা একাধিক বিভাগে মৃত্যুহীন দিন দেখা যাচ্ছে।

দেশে সরকারি হিসাবে করোনায় মারা গেছেন ২৭ হাজার ৭৫২ জন।

/জেএ/জেএইচ/

সম্পর্কিত

জানুয়ারি থেকে দুই সেমিস্টারে ভর্তি নিতে ইউজিসির নতুন কৌশল

জানুয়ারি থেকে দুই সেমিস্টারে ভর্তি নিতে ইউজিসির নতুন কৌশল

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

জানুয়ারি থেকে দুই সেমিস্টারে ভর্তি নিতে ইউজিসির নতুন কৌশল

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪৫

২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে নতুন কৌশল অবলম্বন করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। সম্প্রতি শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরির চিঠিতে দুই সেমিস্টারে ভর্তির শর্ত জুড়ে দিয়েছে ইউজিসি। এ নিয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। এতদিন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন সেমিস্টারে ভর্তি হয়েছে শিক্ষার্থীরা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নতুন কোর্স খোলার ক্ষেত্রে কোনও আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তির শর্ত ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে ‘ইউনিক স্টুডেন্ট আইডেন্টিফিকেশন নম্বর’ তৈরির চিঠিতে। যদিও নতুন কোর্স খোলার ক্ষেত্রে এটি কার্যকর হবে কিনা তা চিঠিতে উল্লেখ নেই। বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে স্বাভাবিকভাবে তিন সেমিস্টার চালু আছে, কোথাও চার সেমিস্টারও চালু আছে। সেখানে একটি সুনির্দিষ্ট বিষয়ক চিঠিতে অন্য একটি বিষয় যুক্ত করে বলা হলো, ‘২০২১ সালের পর দুই সেমিস্টার ছাড়া শিক্ষার্থী ভর্তি হলে কমিশনের কাছে তা গ্রহণযোগ্য হবে না।’

জানা গেছে, শিক্ষাক্রম পরিচালনার বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে আলোচনা করা হয়নি। আলোচনা ছাড়াই এমন সিদ্ধান্ত জোর করে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টদের মন্তব্য, ‘কোনও সিদ্ধান্ত জোর করে চাপিয়ে দিয়ে মানসম্মত শিক্ষা অর্জন সম্ভব হয় না। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যলয়গুলোর ওপর চাপ সৃষ্টির জন্য নতুনভাবে অপকৌশল শুরু করেছে ইউজিসি।’

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যরা বলছেন, ‘দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অ্যকাডেমিক বিষয় অনুমোদন দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল। দুই সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তির শর্তারোপ আইনের ব্যত্যয়, যা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওপর অযথা চাপ সৃষ্টির জন্য করা হয়েছে।’

সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষার্থীদের ইউনিক পরিচিতি নম্বর তৈরির জন্য গত ৯ আগস্ট দেশের সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারদের চিঠি দেয় ইউজিসি।

শিক্ষার্থী পরিচিতি নম্বর তৈরির চিঠির একাংশে লেখা হয়েছে, ‘যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে বছরে তিন সেমিস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়েছিল সেগুলোতে দুই সেমিস্টার ছাড়া কোনও সেমিস্টার থাকলে সেটির কোড হবে ৩। তবে কোনোক্রমেই ২০২১ সালের পর বছরে দুই সেমিস্টার ছাড়া শিক্ষার্থী ভর্তি কমিশনের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না।’

ইউজিসি’র নতুন শর্ত জুড়ে দেওয়ার বিষয়ে বাংলা ট্রিবিউনের কাছে নিজের অভিমত ব্যক্ত করেছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির সভাপতি শেখ কবির হোসেন। তার মন্তব্য, ‘যারা নতুন বিষয় খুলতে চাচ্ছে তাদের এই শর্ত দিয়ে দিচ্ছে, যা আইনের মধ্যে পড়ে না। এ নিয়ে আমরা কথা বলবো।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীর বলেন, ‘দুই সেমিস্টারে ভর্তি করানোর পর কোনও শিক্ষার্থী যদি অকৃতকার্য হয় বা সেমিস্টার চালিয়ে নিতে ব্যর্থ হয় সেক্ষেত্রে তখন ওই শিক্ষার্থী তিন সেমিস্টারে ভর্তি হবে।’

/এসএমএ/জেএইচ/

সম্পর্কিত

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন

ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

অ্যানেস্থেসিওলজিস্ট সংকটে চালু হয় না আইসিইউ

খাদ্যে ভেজাল বন্ধে বৈষম্য ছাড়াই আইন প্রয়োগের সুপারিশ

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২৭

তৈরি পোশাক শিল্পের পর কৃষি পণ্য খাতকে সবচেয়ে সম্ভাবনাময় রফতানির খাত হিসেবে দেখছে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা)। জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে খাদ্যে বিষ বা ভেজাল রোধে সরকারের প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করাসহ ১১ দফা সুপারিশ জানিয়েছে সংগঠনটি থেকে। 

শনিবার (১৬ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে পবা আয়োজিত বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২১ উপলক্ষে এক সেমিনার থেকে এসব সুপারিশ জানানো হয়।

সেমিনারে লিখিত বক্তব্যে সেন্টার ফর ইনডিজিনিয়াস নলেজের (বারসিক) সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বাংলাদেশ আয়তনে ছোট ও দুর্যোগপূর্ণ দেশ হলেও বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ধান, মাছ ও সবজি উৎপাদনে এগিয়ে চলেছে। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যমতে বিগত চার বছরে বাংলাদেশ থেকে কৃষিপণ্য রফতানি প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। 

সংগঠনটির পক্ষ থেকে, খাদ্যে রাসায়নিক দ্রব্যাদি মেশানোর সঙ্গে জড়িত এবং রাসায়নিক দ্রব্যাদিযুক্ত ও ভেজাল খাদ্য বিক্রয়কারীদের মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দণ্ড প্রদান অব্যাহত রাখা, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কঠোরভাবে বাস্তবায়ন এবং অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করার দাবি জানানো হয়। একইসঙ্গে নিষিদ্ধ রাসায়নিক পদার্থের আমদানিকারক ও ব্যবহারকারী এবং লেবেল ছাড়া বা ভুয়া লেবেলের অধীন কীটনাশক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা এবং গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে কৃষক, উৎপাদনকারী ব্যবসায়ী ও ভোক্তাদের রাসায়নিক দ্রব্যাদি, কীটনাশক, ভেজাল মিশ্রণের ক্ষতিকর দিক এবং আইনে বর্ণিত দণ্ড তুলে ধরে সচেতন করাসহ ১১ দফা দাবি করেন।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন পবার চেয়ারম্যান আবু নাসের খান, সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী  আব্দুস সোবাহান, নাসফের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ, বারসিকের পরিচালক সৈয়দ আলী বিশ্বাস প্রমুখ।

/জেডএ/এমআর/

সম্পর্কিত

৬২ জেলায় শনাক্ত এক অঙ্কের ঘরে

৬২ জেলায় শনাক্ত এক অঙ্কের ঘরে

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

ফের ৪ বিভাগে মৃত্যু নেই

জানুয়ারি থেকে দুই সেমিস্টারে ভর্তি নিতে ইউজিসির নতুন কৌশল

জানুয়ারি থেকে দুই সেমিস্টারে ভর্তি নিতে ইউজিসির নতুন কৌশল

খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্সফ্যাটি এসিড নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্ত করার দাবি

খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্সফ্যাটি এসিড নিয়ন্ত্রণ প্রবিধানমালা চূড়ান্ত করার দাবি

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

যাত্রাবাড়ীতে ৩ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ৩ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

আইস ধরা পড়লে দাম নেয় না মিয়ানমারের সরবরাহকারীরা

যাত্রাবাড়ীতে ৫ কেজি আইসসহ দু’জন গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ৫ কেজি আইসসহ দু’জন গ্রেফতার

মিরপুরে ১১৬ লিটার চোলাই মদসহ একজন গ্রেফতার

মিরপুরে ১১৬ লিটার চোলাই মদসহ একজন গ্রেফতার

আরও নাশকতার আশঙ্কায় সতর্ক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

আরও নাশকতার আশঙ্কায় সতর্ক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

‘প্রযুক্তির সঙ্গে বদলাচ্ছে সাইবার অপরাধ’

‘প্রযুক্তির সঙ্গে বদলাচ্ছে সাইবার অপরাধ’

যাত্রাবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

যাত্রাবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জে মাদকসহ ৩ জন আটক

নারায়ণগঞ্জে মাদকসহ ৩ জন আটক

সর্বশেষ

‘ঢাকামুখী অভিবাসন বন্ধ না হলে কোনও পরিকল্পনাই কার্যকর হবে না’ 

‘ঢাকামুখী অভিবাসন বন্ধ না হলে কোনও পরিকল্পনাই কার্যকর হবে না’ 

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

‘দেশে ধর্মীয় দাঙ্গা বাধানোর চক্রান্ত হচ্ছে’

৬২ জেলায় শনাক্ত এক অঙ্কের ঘরে

৬২ জেলায় শনাক্ত এক অঙ্কের ঘরে

লোকালয় থেকে অসুস্থ ঈগল উদ্ধার

লোকালয় থেকে অসুস্থ ঈগল উদ্ধার

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

বিশ্বকাপে অনন্য এক রেকর্ডের সামনে সাকিব

© 2021 Bangla Tribune