X
শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

রেণু হত্যা মামলা: সাক্ষ্য দিলেন বাদীসহ ৩ জন

আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৭

রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে  তাছলিমা বেগম রেণু নামে এক নারীকে পিটিয়ে হত্যার  অভিযোগে দায়ের করা মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন মামলার বাদী রেণুর ভাগ্নে সৈয়দ নাসির উদ্দিন টিটুসহ ৩ জন।

অপর দু’জন হলেন— রেণুর আরেক ভাগ্নে অনিকুর রহমান এবং সুরতহাল প্রস্তুতকারী বাড্ডা থানার এসআই  গোলাম মোস্তফা।

রবিবার (২৪ অক্টোবর) ঢাকা ষষ্ঠ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফাতিমা ইমরুজ কনিকার আদালতে এই তিন জন সাক্ষ্য দেন। তাদের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হওয়ায় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরা করেন। এরপর আদালত পরবর্তী সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ১১ জানুয়ারি তারিখ ধার্য করেন।

এর আগে গত ১ এপ্রিল একই আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে মামলাটি বিচারের জন্য আদেশ দেন।

এর আগে গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর  আদাললতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের ইন্সপেক্টর আব্দুল হক।

মামলার আসামিরা হলেন—  মো. শাহীন (৩১), মো. রাচ্চু মিয়া (২৮),  মো. বাপ্পি (২১), ইব্রাহিম ওরফে হৃদয় মোল্লা (২০) মুরাদ মিয়া (২২),  মো. সোহেল রানা (৩০),  মো. বিল্লাল (২৮),  মো. আসাদুল ইসলাম (২২),  মো. রাজু (২৩),  আবুল কালাম আজাদ (৫০),  মো. কামাল হোসেন (৪০),  মো. ওয়াসিম (১৪),  রিয়া বেগম ময়না (২৭) ও মো. জাফর হোসেন (২০)।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২০ জুলাই  সকালে রাজধানীর উত্তর বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিজের সন্তানের ভর্তির বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়েছিলেন তাসলিমা বেগম রেণু। ছেলেধরা সন্দেহে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে বিক্ষুব্ধ জনতা। ওইদিন সকাল পৌনে ৯টার দিকে উত্তর বাড্ডা কাঁচাবাজারের সড়কে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই রাতেই বাড্ডা থানায় অজ্ঞাত ৪শ’-৫শ’ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন নিহতের ভাগিনা সৈয়দ নাসির উদ্দিন।

 

/এমএইচজে/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ বড় কঠিন’

‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ বড় কঠিন’

তিন মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ১৩.০৬ শতাংশ

তিন মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ১৩.০৬ শতাংশ

নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত, সাগরে ২ নম্বর সংকেত

নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত, সাগরে ২ নম্বর সংকেত

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা করতো তারা

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা করতো তারা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ বড় কঠিন’

‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ বড় কঠিন’

তিন মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ১৩.০৬ শতাংশ

তিন মাসে এডিপি বাস্তবায়ন ১৩.০৬ শতাংশ

নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত, সাগরে ২ নম্বর সংকেত

নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত, সাগরে ২ নম্বর সংকেত

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা করতো তারা

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা করতো তারা

ঢাবির শতবর্ষের সাজ হতে পারতো আরও জমকালো 

ঢাবির শতবর্ষের সাজ হতে পারতো আরও জমকালো 

প্রতিবন্ধীদের পরিচর্যা করলে তারা সম্পদে পরিণত হবে: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

প্রতিবন্ধীদের পরিচর্যা করলে তারা সম্পদে পরিণত হবে: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

ওমিক্রনে কতটা ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

ওমিক্রনে কতটা ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ঢাবির যত আয়োজন

বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ঢাবির যত আয়োজন

রামপুরায় আজও শিক্ষার্থীদের অবস্থান 

রামপুরায় আজও শিক্ষার্থীদের অবস্থান 

দুর্ঘটনা তহবিলে ১০০ কোটি টাকা চায় বিআরটিএ

দুর্ঘটনা তহবিলে ১০০ কোটি টাকা চায় বিআরটিএ

সর্বশেষ

তেলের দাম: শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের সমঝোতা

তেলের দাম: শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের সমঝোতা

জেডিসি সনদ পেতে ফরম পূরণের বিজ্ঞপ্তি

জেডিসি সনদ পেতে ফরম পূরণের বিজ্ঞপ্তি

সম্রাটের সহযোগী মেহেদী অস্ত্রসহ গ্রেফতার

সম্রাটের সহযোগী মেহেদী অস্ত্রসহ গ্রেফতার

আমরা শিক্ষিত বেকার তৈরি করতে চাই না: শিক্ষামন্ত্রী

আমরা শিক্ষিত বেকার তৈরি করতে চাই না: শিক্ষামন্ত্রী

অ্যান্ড্রয়েডে নতুন ফিচার আনছে গুগল

অ্যান্ড্রয়েডে নতুন ফিচার আনছে গুগল

© 2021 Bangla Tribune