X
শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

খেজুর গাছ পরিচর্যায় ব্যস্ত চুয়াডাঙ্গার গাছিরা

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৮

শিশির ভেজা ঘাস ও কুয়াশা জানান দিচ্ছে, শীত আসছে। আগমনী বার্তা পেয়ে খেজুর গাছ প্রস্তুতে কাজ শুরু করে দিয়েছেন দেশের সীমান্তবর্তী জেলা চুয়াডাঙ্গার গাছিরা। কারণ খেজুরের রস ও পিঠা না হলে শীত জমে না। তাই শীতের মৌসুম শুরু হতে না হতেই খেজুরের রস আহরণে গাছ প্রস্তুত করছেন গাছিরা।

শীতের আবহে সবকিছুই যেন বদলাতে শুরু করেছে। এখন থেকেই ব্যস্ততা বেড়েছে চুয়াডাঙ্গার খেজুর গাছিদের। গাছ কাটা ও রস সংগ্রহের তোড়জোর শুরু করেছেন তারা। সকাল হলেই গাছিরা গাছ কাটা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। হাতে দা নিয়ে ও কোমরে দড়ি বেঁধে নিপুণ হাতে গাছ চাঁচা-ছোলা ও নলি বসানোর কাজ করছেন।

কয়েকদিন পরেই গাছে বাঁধানো হবে ভাড়। এরপর রস সংগ্রহ। সেই রস থেকেই খেজুরের গুড় পাটালি তৈরির দৃশ্যও চোখে পড়বে। চুয়াডাঙ্গার খেজুরের গুড়ের উৎকৃষ্টমান ও স্বাদ ভিন্ন হওয়ায় এর কদর দেশ বিদেশে ছড়িয়ে রয়েছে। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় চুয়াডাঙ্গার গুড় রফতানি হয়ে থাকে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলায় আড়াই লাখ খেজুর গাছ প্রস্তুত করা হয়েছে। এসব গাছ থেকে আড়াই হাজার মেট্রিক টন গুড় উৎপাদন হবে। এখন গাছ কাটা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছে গাছিরা। 

গাছি সেলিম শেখ বলেন, শীত আসার আগে এই সময় থেকে গাছ পরিচর্যা ও কাটা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করি। এরপর গাছ থেকে রস সংগ্রহ ও গুড় তৈরির কাজ শুরু হবে।

কয়েকদিন পরেই গাছে বাঁধানো হবে ভাড়

কৃষক রহমত আলী বলেন, প্রতিদিন আমরা ১৫ থেকে ১৬টি গাছ প্রস্তুত করি। একটি গাছ থেকে এক ভাড় রসে এক কেজি গুড় তৈরি হয়। ১০-১২ ভাড় রস পেলেই ১০ কেজি গুড় উৎপাদন করা যায়। এতে হাজার খানেক টাকা আয় হয়। 

সদর উপজেলার আলুকদিয়া ইউনিয়নের কৃষক বিল্লাল আলী বলেন, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য খেজুর রস ও গুড় আজ বিলুপ্তির পথে। আগের মতো খেজুর গাছ আর নেই। প্রতিদিন ইট ভাটায় জ্বালানির কাজে নিধন হচ্ছে এলাকার শত শত খেজুর গাছ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. আব্দুল মাজেদ বলেন, চুয়াডাঙ্গার গুড়ের স্বাদ যেমন ঠিক তেমনি দেশজুড়ে চাহিদাও অনেক বেশি। এখানকার কৃষকরা ভেজাল গুড় উৎপাদন করে না। গুড়ে ভেজাল মেশানোর অপকারিতাও কৃষকদের মধ্যে অবহিত করা হয়। এ ছাড়া প্রতিবছর শীতের ছয় মাস প্রায় ২-৩ হাজার পরিবার গুড় উৎপাদনের উপার্জন দিয়ে জীবনযাপন করে।

/এসএইচ/

সম্পর্কিত

ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি অবৈধ ঘোষণা

ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি অবৈধ ঘোষণা

হিলিতে বাড়ছে শীতজনিত রোগ

হিলিতে বাড়ছে শীতজনিত রোগ

মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ

মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি অবৈধ ঘোষণা

ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি অবৈধ ঘোষণা

হিলিতে বাড়ছে শীতজনিত রোগ

হিলিতে বাড়ছে শীতজনিত রোগ

মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ

মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়িতে হামলার অভিযোগ

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

দেড় বছর পর চালু হলো বেনাপোল এক্সপ্রেস

দেড় বছর পর চালু হলো বেনাপোল এক্সপ্রেস

সেলিমের মৃত্যুর বিচার দাবিতে কুয়েট শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন

সেলিমের মৃত্যুর বিচার দাবিতে কুয়েট শিক্ষকদের ক্লাস বর্জন

মোটরসাইকেলে বাসের ধাক্কা, প্রাণ গেলো যুবকের

মোটরসাইকেলে বাসের ধাক্কা, প্রাণ গেলো যুবকের

যশোর বোর্ডে এইচএসসি দিচ্ছেন ১ লাখ ৩১ হাজার শিক্ষার্থী

যশোর বোর্ডে এইচএসসি দিচ্ছেন ১ লাখ ৩১ হাজার শিক্ষার্থী

মানসিক নির্যাতনে কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যুর অভিযোগ

মানসিক নির্যাতনে কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যুর অভিযোগ

গরম কাপড় কিনতে ভিড় বাড়ছে নীলফামারীর ফুটপাতে

গরম কাপড় কিনতে ভিড় বাড়ছে নীলফামারীর ফুটপাতে

সর্বশেষ

দুর্ঘটনা তহবিলে ১০০ কোটি টাকা চায় বিআরটিএ

দুর্ঘটনা তহবিলে ১০০ কোটি টাকা চায় বিআরটিএ

ঘূর্ণিঝড়ের নাম কেন ‘জাওয়াদ’?

ঘূর্ণিঝড়ের নাম কেন ‘জাওয়াদ’?

বিজয় দিবসে দেশব্যাপী শপথ বাক্য পাঠ করাবেন প্রধানমন্ত্রী

বিজয় দিবসে দেশব্যাপী শপথ বাক্য পাঠ করাবেন প্রধানমন্ত্রী

নভেম্বরে সীমান্ত এলাকা থেকে ১৩ লাখ ইয়াবা জব্দ

নভেম্বরে সীমান্ত এলাকা থেকে ১৩ লাখ ইয়াবা জব্দ

বাড়ির সামনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেলো বৃদ্ধের

বাড়ির সামনে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেলো বৃদ্ধের

© 2021 Bangla Tribune