X
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সেকশনস

রংপুরে যুবকের মৃত্যু নিয়ে পুলিশের ধোঁয়াশা!

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০১৬, ১৫:৪৪

রংপুর

রংপুর নগরীর দেওডোবা এলাকায় সাঈদ (৪০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধোঁয়াশা তৈরির অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। পুলিশ একবার বলেছে, অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরে আবার বলেছে পুলিশকে দেখে মোটসাইকেল ফেলে পালিয়ে যাওয়ার সময় দৌড়াতে গিয়ে ওই যুবক হার্টফেল করে মারা গেছেন। রংপুর কোতোয়ালি থানা পুলিশ ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার রাত ৮টার দিকে সাঈদের মৃত্যু হয়। তার কাছে ১০ বোতল ফেনসিডিল ছিল বলেও দাবি করেছে পুলিশ।

এদিকে সাঈদের স্বজনরা অভিযোগ করেছেন, পুরো ঘটনা ধামাচাপা দিতে তাদের কাছ থেকে ময়নাতদন্ত না করে লাশ নিয়ে যাওয়ার আবেদনপত্র নেওয়ার চেষ্টা করে পুলিশ। তবে মঙ্গলবার সকাল থেকে গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে শেষ পর্যন্ত লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে নিয়ে গেছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৮টার দিকে রংপুর নগরীর দেওডোবা এলাকায় মোটরসাইকেলে এক যুবককে দেখে কোতোয়ালি থানার এসআই মিজান ও পুলিশের সোর্স মশিউর তাকে ধাওয়া করেন। এ সময় ওই ব্যক্তি মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যাওয়ার জন্য দৌড় দিলে কিছুদূর যাওয়ার পর রাস্তার পাশে একটি ধানখেতে পড়ে যান এবং সেখানেই মারা যান।

পুলিশ অবস্থা বেগতিক দেখে দ্রুত তার লাশ রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিন্তু জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তারপরও পুলিশ লাশ নিয়ে হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে আবারও মৃত ঘোষণা করলে পুলিশ তড়িঘড়ি করে লাশ হাসপাতালের হিমঘরে নিয়ে আসে এবং সেখানেই রেখে চলে যায়। এ সময় সেখানে কর্তব্যরত ধাপ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই কিবরিয়া জানান, এক অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ হাসপাতালে নিয়ে এসেছে। লাশের পরিচয় জানা যায়নি।

তবে এই খবর জানাজানি হয়ে যায়। গভীর রাতে জানা যায়, মৃত ব্যক্তির নাম সাঈদ। তার বাবার নাম মতিয়ার রহমান। বাড়ি রংপুরের বদরগজ্ঞ উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের শালবাগান গ্রামে।

এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানার ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এক যুবক মোটরসাইকেলে করে ফেনসিডিল নিয়ে বদরগজ্ঞ থেকে রংপুরে আসার সময় নগরীর ডেওডোবা এলাকায় পুলিশ তাকে চ্যালেঞ্জ করলে তিনি মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যান। এ সময় তার কাছে থাকা ফেনসিডিলের ব্যাগ যেখানে ৫০ বোতল ফেনসিডিল ছিল সেই ব্যাগটি ধানখেতে ফেলে দেন। অনেক খোঁজাখুঁজি করে ১০ বোতল ফেনসিডিল পাওয়া যায়। বাকি ৪০ বোতল নাকি পাওয়া যায়নি। পরে তাকে ধানখেত থেকে অজ্ঞান অবস্থায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। ওসি স্বীকার করেন হাসপাতালে আনার আগেই সম্ভবত ওই যুবক মারা গিয়েছিলেন।

তিনি জানান, মৃত সাঈদের বিরুদ্ধে বদরগজ্ঞ থানায় মাদক আইনে একটি মামলা আছে। বিস্তারিত খবর নিয়ে জানানো হবে।

এদিকে, এসআই মিজান ও পুলিশের সোর্স মশিউর কোনও ডিউটি ছাড়াই কেন সেখানে গেলেন তার কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি। এব্যাপারে একাধিক পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কেউ ফোন রিসিভ করেননি।

রংপুরে যুবকের মৃত্যু নিয়ে পুলিশের ধোঁয়াশা

এদিকে, মঙ্গলবার সকাল থেকে মৃত সাঈদের স্বজনদের ম্যানেজ করার জন্য পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য সাদা পোশাকে হাসপাতালের ডেড হাউজের আশেপাশে অবস্থান নেওয়ায় এ বিষয়ে কেউ কথা বলতে রাজি হননি।

তবে সাঈদের বন্ধু সালাম জানান, পুলিশ তাকে হত্যা করে সাজানো গল্প তৈরি করেছে। তিনি এর বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে এসআই মিজানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

 

/বিটি/এফএস/ 

সম্পর্কিত

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা মামলায় জামিন মিলেনি আসামির

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা মামলায় জামিন মিলেনি আসামির

তথ্য গোপন করে এমবিবিএস উত্তীর্ণদের ফল বাতিলের নির্দেশ

তথ্য গোপন করে এমবিবিএস উত্তীর্ণদের ফল বাতিলের নির্দেশ

গ্রেফতার এড়াতেই এএসআই সালাহ উদ্দিনকে হত্যা?

গ্রেফতার এড়াতেই এএসআই সালাহ উদ্দিনকে হত্যা?

চার শিশুর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা: ওসিসহ ৭ পুলিশকে বরখাস্তের নির্দেশ

চার শিশুর বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা: ওসিসহ ৭ পুলিশকে বরখাস্তের নির্দেশ

গাঁজার কেকসহ গ্রেফতার ৩ শিক্ষার্থী রিমান্ড শেষে কারাগারে

গাঁজার কেকসহ গ্রেফতার ৩ শিক্ষার্থী রিমান্ড শেষে কারাগারে

ছুটি না নিয়েই খুলনা থেকে কুষ্টিয়ায় যান এএসআই সৌমেন

ছুটি না নিয়েই খুলনা থেকে কুষ্টিয়ায় যান এএসআই সৌমেন

কিশোর-সামিসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

কিশোর-সামিসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

কুড়িগ্রামে বাড়ছে সংক্রমণ, জোন ভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত

কুড়িগ্রামে বাড়ছে সংক্রমণ, জোন ভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত

আলু চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার

আলু চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার

করোনায় ওদের আশা দেখাচ্ছে আম

করোনায় ওদের আশা দেখাচ্ছে আম

সর্বশেষ

আফগানিস্তান ত্যাগের পর তুরস্ককে হিসাব করবে যুক্তরাষ্ট্র: এরদোয়ান

আফগানিস্তান ত্যাগের পর তুরস্ককে হিসাব করবে যুক্তরাষ্ট্র: এরদোয়ান

পরীমণি জানালেন ধর্ষণচেষ্টায় অভিযুক্তর নাম

পরীমণি জানালেন ধর্ষণচেষ্টায় অভিযুক্তর নাম

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

৩০ জুন পর্যন্ত ভারতীয় সীমান্ত বন্ধ

৩০ জুন পর্যন্ত ভারতীয় সীমান্ত বন্ধ

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

ব্যবসা সহজীকরণের উদ্যোগ চায় বিজিএমইএ

ব্যবসা সহজীকরণের উদ্যোগ চায় বিজিএমইএ

কিস্তি মেয়াদোত্তীর্ণ গ্রাহকরা আমদানি পরবর্তী ঋণ পাবেন না

কিস্তি মেয়াদোত্তীর্ণ গ্রাহকরা আমদানি পরবর্তী ঋণ পাবেন না

পুতিনই ঠিক, বললেন বাইডেন

পুতিনই ঠিক, বললেন বাইডেন

শিশুদের দিয়ে যৌনব্যবসা বন্ধে কঠোর নজরদারি চায় নারী আইনজীবী সমিতি

শিশুদের দিয়ে যৌনব্যবসা বন্ধে কঠোর নজরদারি চায় নারী আইনজীবী সমিতি

তামাকপণ্য সহজলভ্য হলে হুমকির মুখে পড়বে জনস্বাস্থ্য: প্রজ্ঞা

তামাকপণ্য সহজলভ্য হলে হুমকির মুখে পড়বে জনস্বাস্থ্য: প্রজ্ঞা

মুক্তিযুদ্ধের সব দলিল অবমুক্ত করবে ভারত

মুক্তিযুদ্ধের সব দলিল অবমুক্ত করবে ভারত

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিমান বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিমান বাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

দিনাজপুর সদর উপজেলা লকডাউন

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

স্ত্রী-সন্তানসহ ৩ জনকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ

গ্রেফতার এড়াতেই এএসআই সালাহ উদ্দিনকে হত্যা?

গ্রেফতার এড়াতেই এএসআই সালাহ উদ্দিনকে হত্যা?

ছুটি না নিয়েই খুলনা থেকে কুষ্টিয়ায় যান এএসআই সৌমেন

ছুটি না নিয়েই খুলনা থেকে কুষ্টিয়ায় যান এএসআই সৌমেন

কুড়িগ্রামে বাড়ছে সংক্রমণ, জোন ভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত

কুড়িগ্রামে বাড়ছে সংক্রমণ, জোন ভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত

আলু চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার

আলু চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার

করোনায় ওদের আশা দেখাচ্ছে আম

করোনায় ওদের আশা দেখাচ্ছে আম

৩০ টাকার ভর্তি ফি ১০০ নেওয়ায় প্রতিবাদ, দুই ভাইকে মারধর

৩০ টাকার ভর্তি ফি ১০০ নেওয়ায় প্রতিবাদ, দুই ভাইকে মারধর

বিরক্তিকর মনে হওয়ায় মাস্ক পরি না

বিরক্তিকর মনে হওয়ায় মাস্ক পরি না

হিমাগারের ভাড়া‌ বৃ‌দ্ধি, চাষি‌দের বি‌ক্ষোভ

হিমাগারের ভাড়া‌ বৃ‌দ্ধি, চাষি‌দের বি‌ক্ষোভ

© 2021 Bangla Tribune