X
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
১৯ আষাঢ় ১৪২৯

বসুন্ধরার সোনার ব্যবসায় বেসরকারি ব্যাংককেও রাখার পরামর্শ 

আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ০৯:০৪

বসুন্ধরা গ্রুপের সোনা পরিশোধনাগার প্রকল্পের সিন্ডিকেশন ঋণে সরকারি ব্যাংকগুলোর পাশাপাশি বেসরকারি ব্যাংকগুলোকেও অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ পরামর্শ দেন গভর্নর ফজলে কবির। এ সময় অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়, ব্যাংকগুলো এ প্রকল্পে মোট ব্যয়ের ৬০ শতাংশ টাকা দেবে, বাকি ৪০ শতাংশ বসুন্ধরা গ্রুপ মূলধন হিসেবে দেবে।

প্রসঙ্গত, দেশে প্রথমবারের মতো সোনা পরিশোধনাগার কারখানা নির্মাণ করবে বসুন্ধরা গ্রুপ। বসুন্ধরা গোল্ড রিফাইনারি লিমিটেড নামের এই পরিশোধনাগার নির্মাণে প্রাথমিকভাবে ৫ হাজার ৭৯০ কোটি টাকা ব্যয়ের পরিকল্পনা করা হয়েছে। যার অর্থায়ন করতে চায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাঁচ ব্যাংক।

তবে প্রকল্পটি নতুন হওয়ায় এই বিনিয়োগে ঝুঁকি বেশি। ঝুঁকি কমাতে সিন্ডিকেট ঋণে বেসরকারি ব্যাংকগুলোকেও সম্পৃক্ত করার পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিকভাবে প্রজেক্টের মেশিনারি কেনা বাবদ ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এখানে ব্যাংক ও গ্রাহকের বিনিয়োগের পরিমাণ ৬০ এবং ৪০ শতাংশ হারে নির্ধারণ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তবে ব্যাংকগুলোর দাবি ছিল ৭০ ও ৩০ শতাংশ।

জানা গেছে, ৩০০ ফুট ঢাকা-পূর্বাচল হাইওয়ের পাশে ভাটারা থানার জোয়ার সাহারা মৌজায় ৪৭০ শতক জমিতে গড়ে তোলা হবে বসুন্ধরা গোল্ড রিফাইনারি লিমিটেড। সেখানে ভূমি উন্নয়ন শেষে এখন নির্মাণকাজ চলছে।

বসুন্ধরার এই কারখানা চালু হলে সোনা পরিশোধনের যুগে প্রবেশ করবে বাংলাদেশ। অপরিশোধিত ও আংশিক পরিশোধিত সোনা আমদানির পর তা দিয়ে কারখানাটিতে সোনার বার ও কয়েন উৎপাদন করা হবে। সেগুলো রফতানির পাশাপাশি দেশেও অলংকার তৈরিতে ব্যবহৃত হবে।

জানা গেছে, সোনা পরিশোধনাগার কারখানা নির্মাণ সিন্ডিকেট ঋণের নেতৃত্বে রয়েছে রাষ্ট্রমালিকানাধীন অগ্রণী ব্যাংক। সবচেয়ে বেশি ঋণ দিচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ও জনতা ব্যাংক। সিন্ডিকেট বা ঋণজোটের অপর দুই ব্যাংক হলো সরকারি খাতের রূপালী ও বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল)।

নিয়ম অনুযায়ী সরকারি ব্যাংকগুলো এই প্রকল্পে তাদের মোট সম্পদের ১০ শতাংশের বেশি বিনিয়োগ করতে পারবে না। কারণ খেলাপি ঋণের হার বেশি হওয়ায় বাৎসরিক সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) অনুযায়ী মোট সম্পদের ১০ শতাংশের বেশি একক গ্রাহককে দেওয়ার অনুমতি নেই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর। তবে যেসব ব্যাংকের খেলাপি ঋণের হার কম তারা একজন গ্রাহকের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ দিতে পারবে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

বসুন্ধরা গোল্ড রিফাইনারি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান। তিনি সম্প্রতি বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সভাপতি হয়েছেন।

/জিএম/ইউএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ফের হ্যাঙ্গারে সংঘর্ষ, বিমানের দুই উড়োজাহাজে ক্ষতিগ্রস্ত
ফের হ্যাঙ্গারে সংঘর্ষ, বিমানের দুই উড়োজাহাজে ক্ষতিগ্রস্ত
রেষারেষিতে চাপা দেওয়ার ঘটনায় বাসচালক আটক
রেষারেষিতে চাপা দেওয়ার ঘটনায় বাসচালক আটক
নারায়ণগঞ্জে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নকালে হামলা, দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে
নারায়ণগঞ্জে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নকালে হামলা, দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে
আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজের
আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজের
এ বিভাগের সর্বশেষ
ডলারের দাম বাড়ানো হলেও রেমিট্যান্স কমেছে
ডলারের দাম বাড়ানো হলেও রেমিট্যান্স কমেছে
ঈদের আগে শুক্র ও শনিবার ব্যাংক খোলা
ঈদের আগে শুক্র ও শনিবার ব্যাংক খোলা
নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানদের জন্য নতুন নির্দেশনা
নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানদের জন্য নতুন নির্দেশনা
দুগ্ধ উৎপাদন খামারিদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো
দুগ্ধ উৎপাদন খামারিদের ঋণ পরিশোধের সময় বাড়লো
আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের অভিযোগ দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ
আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের অভিযোগ দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ