X
বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২
২০ আশ্বিন ১৪২৯

ইয়াসের প্রভাব: আশাশুনির ২৫ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি

আসাদুজ্জামান সরদার, সাতক্ষীরা
১৫ জুন ২০২১, ০৯:৫৩আপডেট : ১৫ জুন ২০২১, ০৯:৫৩

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে বাঁধ ভেঙে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন সাতক্ষীরা আশাশুনির প্রতাপনগরের পাঁচ হাজার পরিবারের ২৫ হাজার সদস্য। জলোচ্ছ্বাসে প্রতাপনগরের ভেঙে পড়া কয়েকটি বেড়িবাঁধ মেরামত করা সম্ভব হয়নি। এতে করে ২০ দিন আগে ঝড় চলে গেলেও এখনও স্থানীয়দের বাড়ির উঠানে চলছে জোয়ার-ভাটার খেলা। খাবার ও সুপেয় পানির হাহাকার সবখানে। ভেঙে পড়েছে স্যানিটেশন ব্যবস্থা। এতে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকির মধ্যে রয়েছে উপজেলার বিশাল জনগোষ্ঠী। সবচেয়ে বেশি সমস্যায় শিশু, নারী এবং বৃদ্ধরা।

প্রতাপনগরের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাইদুল ইসলাম বলেন, ইয়াসের আজ ২০ দিন অতিবাহিত হচ্ছে। তবু আমাদের চারপাশ পানিতে ডুবে আছে। কোনোভাবে ঘরে থাকছি। নৌকায় চলাফেরা করতে হয়। চারিদিকে পানি থাকলেও সুপেয় পানির তীব্র সংকট। গোসল ও বাথরুমও করা যাচ্ছে না। আম্পানের সময় ভাটায় পানি সরে যেতো। কিন্তু এবার পানি সরছে না। আমার এলাকার পাঁচ হাজার পরিবার পানির মধ্যে হাবুডুবু খাচ্ছি। পানিবন্দি অবস্থায় জ্বর, কাশি, সর্দি, ডায়েরিয়াসহ দেখা দিচ্ছে নানান পানিবাহিত রোগ। রাস্তার পাশে যাদের বাড়ি তারা ত্রাণ পেলেও দুর্গম এলাকায় ত্রাণ পৌঁছাচ্ছে না।

ইয়াসের প্রভাব: আশাশুনির ২৫ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি তিনি আক্ষেপ করে বলেন, কেউ কথা রাখে না, তাই বলি না। বলে লাভ কী? আমাদের দুঃখ কষ্ট আমাদের ভেতরেই রাখতে চাই। প্রতিবছর এই রকম হলে এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়া ছাড়া কোনও উপায় থাকবে না। অনেক মানুষ এলাকা থেকে চলে গেছে, আরও অনেকে চলে যাচ্ছে। বাঁধের ভাঙন দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কাজ করলে ভাঙন বড় হয় না। কিন্তু এই কাজটি করার কেউ নেই। বাঁধ ভাঙলে পানি উন্নয়ন বোর্ড তখন আসে।

প্রতাপনগরে ইউনিয়নের কুড়িকাহুনিয়া এলাকার মিলন বিশ্বাস বলেন, আম্পানের সময় জোয়ার-ভাটা চললেও মানুষ কিছুটা স্বস্থিতে ছিল। কারণ ভাটায় এলাকা জেগে উঠতো। কিন্তু ইয়াসের পর পানি কমার কোনও লক্ষণ নেই। স্থানীয় স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ দিলেও সেটা ৬ ঘণ্টা পরে ভেঙে আবারও গ্রামে পানি প্রবেশ করছে। রাস্তাঘাট ডুবে আছে। এখানকার মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই। ইয়াসের ২০ দিন পরও আমাদের দিকে কারও নজর নেই।

ইয়াসের প্রভাব: আশাশুনির ২৫ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি তিনি আরও বলেন, শুধু মানুষ নয়, গরু-ছাগলসহ গবাদিপশুরাও কষ্টে আছে। অনেকে কম দামে গরু ছাগল বিক্রি করে দিয়েছে।

আশাশুনির প্রতাপনগর ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন জানান, গত বছরের ২০ মে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত হয় হাজার হাজার গাছপালা, গবাদি পশু। জোয়ারের পানিতে ভেসে গেছে কোটি কোটি টাকার মৎস্য সম্পদ। সেই ক্ষত কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছিল উপকূলের মানুষ। তবে এ বছর ইয়াসের আঘাতে আমার ইউনিয়নের ছয়টি ওয়ার্ডের ১৭ গ্রামের ২৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। কাজ নেই, খাবার নেই। কেউ মারা গেলে কবর দেওয়ার পর্যন্ত জায়গা নেই। ধনী-গরিব সবাই সমান হয়ে গেছে। এসব এলাকায় খাবার পানির তীব্র সংকটে ডায়েরিয়াসহ পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। রান্নার ব্যবস্থা না থাকায় অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে বহু মানুষ। সরকারিভাবে যে সকল ত্রাণ সহয়তা পেয়েছিলাম সব মানুষের মাঝে বিতরণ করেছি। কিন্তু কাজ না থাকলে চেয়ে হাত পেতে দিন চলে না।

তিনি আরও বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড ঠিকাদার নিয়োগ করেছে। তার কাজ করছে। তবে খুব ধীরগতি। দ্রুত স্থায়ী টেকসই বাঁধ নির্মাণ না করা হলে এই স্থান বসবাসের অনুপযোগী হয়ে যাবে। দেশের মানচিত্র থেকে বিলিন হয়ে যাবে আমার ইউনিয়ন।

আশাশুনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল ইসলাম খান বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে আশাশুনি সদর, প্রতাপনগর, বড়দল, আনুলিয়া, খাজরা ইউয়িনের ১৪টি পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত হয়। অধিকাংশ পয়েন্টে স্থানীয় মানুষ-পানি উন্নয়ন বোর্ড ও প্রশাসনের সহয়তায় বাঁধা দেওয়া সম্ভব হলেও প্রতাপনগরের চারটি পয়েন্টে বাঁধ দেওয়া সম্ভব হয়নি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রতাপনগর। প্রতাপনগরের হরিষখালি, বন্যতলাসহ কুড়িকাহুনিয়া, চারটি পয়েন্ট ভেঙে এলাকায় পানি প্রবেশ করছে। পাঁচ থেকে ছয় হাজার পরিবার এখনও পানিবন্দি হয়ে আছে।

তিনি আরও বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ করছে, এলাকাবাসী দ্রুত পানিবন্দি অবস্থা থেকে মুক্তি পাবে বলে আশা করি।

ইয়াসের প্রভাব: আশাশুনির ২৫ হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড-২ নির্বাহী প্রকৌশলী (অতিরিক্ত দায়িত্বে) রাশেদুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে সাতক্ষীরা এবং খুলনার কয়রার ২৫টি পয়েটে বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করেছিল। ইতোমধ্যে ২০টি পয়েন্ট বাঁধ দেওয়া হয়ে গেছে। খুলনার কয়রার দুটি ও সাতক্ষীরার প্রতাপনগরের তিনটি পয়েন্টে বাঁধ দিয়ে এলাকায় পানি প্রবেশ করেছে। এর মধ্যে প্রতাপনগরের কুড়িকাহুনিয়া ও হরিষখালী আমাদে কাজ চলছে। বন্যতলা পয়েন্টে জাইকার অর্থায়নে কাজ হবে। ওদের কাজ এখন শুরু হয়নি। জুন মাসের ২৬ তারিখে পূর্ণিমার কারণে নদীতে পানি বৃদ্ধি পেতে পারে। আশা করছি তার আগে সব বাঁধের কাজ শেষ হবে।

/টিটি/
সম্পর্কিত
‌‘অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে আজকের মাসুরা হয়েছি’
‌‘অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে আজকের মাসুরা হয়েছি’
আগাম জাতের ব্রি-৭৫ ধানে কৃষকের মুখে হাসি
আগাম জাতের ব্রি-৭৫ ধানে কৃষকের মুখে হাসি
একটি ঘর চাইলেন সাফজয়ী মাসুরার বাবা
একটি ঘর চাইলেন সাফজয়ী মাসুরার বাবা
নিজ এলাকায় ফিরেই মাঠে নামলেন মাসুরা, পেলেন জয়
নিজ এলাকায় ফিরেই মাঠে নামলেন মাসুরা, পেলেন জয়
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
রেস্তোরাঁর খাবার বেশি সুস্বাদু লাগে কেন?
রেস্তোরাঁর খাবার বেশি সুস্বাদু লাগে কেন?
প্রধানমন্ত্রীর নামে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে গ্রেফতার ১
প্রধানমন্ত্রীর নামে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে গ্রেফতার ১
বিয়েবাড়িতে যাওয়ার পথে বাস খাদে, নিহত ২৫
বিয়েবাড়িতে যাওয়ার পথে বাস খাদে, নিহত ২৫
আগামীকাল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন
আগামীকাল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন
এ বিভাগের সর্বশেষ
‌‘অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে আজকের মাসুরা হয়েছি’
‌‘অনেক প্রতিকূলতা পেরিয়ে আজকের মাসুরা হয়েছি’
আগাম জাতের ব্রি-৭৫ ধানে কৃষকের মুখে হাসি
আগাম জাতের ব্রি-৭৫ ধানে কৃষকের মুখে হাসি
একটি ঘর চাইলেন সাফজয়ী মাসুরার বাবা
একটি ঘর চাইলেন সাফজয়ী মাসুরার বাবা
নিজ এলাকায় ফিরেই মাঠে নামলেন মাসুরা, পেলেন জয়
নিজ এলাকায় ফিরেই মাঠে নামলেন মাসুরা, পেলেন জয়
মেয়েদের জন্য আলাদা খেলার মাঠ চাইলেন সাবিনা
মেয়েদের জন্য আলাদা খেলার মাঠ চাইলেন সাবিনা