ভল্ট ভেঙে টাকা চুরি: সতর্ক করার পরও সিসি ক্যামেরা ছিল না সেই ব্যাংকে

Send
মাসুদ আলম, কুমিল্লা
প্রকাশিত : ১৪:৫৪, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:২২, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯

কুমিল্লায় কৃষি ব্যাংকের ভল্ট ভেঙে টাকা চুরিকুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে উপজেলার ২ নম্বর উজিরপুর ইউনিয়নের মিয়াবাজারে কৃষি ব্যাংকের শাখায় ভল্ট ভেঙে ১১ লাখ টাকা চুরি হয়েছে। পুলিশ বলছে, সতর্ক করে দেওয়ার পরও ব্যাংকে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়নি এবং এর নিরাপত্তা ব্যবস্থাও দুর্বল ছিল। আর ব্যাংকের ম্যানেজার জানান, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার বলার পরও এই ব্যাংকে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো বা নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

মিয়াবাজারের সালমান হায়দার মার্কেটের তৃতীয় তলায় অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের মিয়াবাজার শাখায় মঙ্গলবার গভীর রাতে জানালা কেটে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা। পরে ভল্টের তালা ভেঙে ১১ লাখ ১৫ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ ব্যাংকের দুই গার্ড ও এক পিয়নকে আটক করে। তবে পিয়নকে পরে ছেড়ে দেওয়া হয়। এই চুরির ঘটনায় বুধবার (৪ ডিসেম্বর) বিকালে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপক (ম্যানেজার) সাকিব সালেহীন।

চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মাহফুজ মামলার খবর নিশ্চিত করে জানান, ‘মঙ্গলবার রাতে চৌদ্দগ্রামের মিয়াবাজারে কৃষি ব্যাংকের শাখায় টাকা চুরি ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি মামলা হয়েছে। ঘটনার পর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্যাংকের দুই গার্ড ও এক পিয়নসহ তিন জনকে আটক করা হলেও পিয়নকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বাকি দুই গার্ড পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। ব্যাংক চুরির ঘটনায় জড়িত আসামিদের আইনের আওতায় আনতে আমরা তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।’  

ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক সাকিব সালেহীন জানান, ‘১১ লাখ ১৫ হাজার টাকা চুরির ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মামলা করেছি। ঘটে যাওয়া চুরির ঘটনার পর পুলিশসহ প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা এসে পরিদর্শন এবং তদন্ত করছেন বিষয়টি।’

তিনি আরও জানান, ‘মঙ্গলবার ব্যাংকের কাজ শেষে গার্ড শাহজাহানকে রেখে বের হই। রাত ৮টার পর থেকে ব্যাংকটির পাহারার দায়িত্ব ছিল মো. সেলিম নামে আরেক গার্ডের ওপর। বুধবার সকালে জানতে পারি ব্যাংকের উত্তর দিকের জানালা কেটে ও ব্যাংকের ভল্টের তালা ভেঙে টাকা চুরি হয়েছে। ওই রাতে পাহারার দায়িত্বে থাকা পিমা লিমিটেডের গার্ড সেলিম (৪৯) প্রথমে স্বীকার না করলেও পরে জানান, তিনি শারীরিক অসুস্থতার কারণে রাত ১০টার পর বাড়িতে চলে যান। কিন্তু তার জায়গায় আর কেউ ছিল না। এরপর গভীর রাতে কোনও এক সময় জানালা কেটে ভেতরে প্রবেশ করে ভল্টের তালা ভেঙে দুর্বৃত্তরা ১১ লাখ ১৫ হাজার ২১৫ টাকা চুরি করে নিয়ে যায়।’
অভিযোগের সুরে তিনি আরও জানান, ‘ব্যাংকের শাখায় সিসি ক্যামরার ব্যবস্থা ছিল না। প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে শাখাটি সিসি ক্যামরার আওতায় আনার জন্য আগে ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে একাধিকবার লিখিত দিয়েছি। নিরাপত্তার স্বার্থে জেলা পুলিশ সুপারের দেওয়া কাগজ সংযুক্ত করেও সিসি ক্যামেরার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাবর লিখেছি। কিন্তু তারপরও সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়নি।’

চুরির ঘটনা জানার পর কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলাম জানান, তিনি কুমিল্লার সব ব্যাংকের কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করে ব্যাংকে সিসি ক্যামেরা স্থাপনসহ নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু কৃষি ব্যাংকের ওই ব্যাংকটিতে কোনও সিসি ক্যামেরা ছিল না। নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল দুর্বল।

এ বিষয়ে কৃষিব্যাংক কুমিল্লা অঞ্চলের জিএম মো. আমিনুল বাহার বলেন, ‘কুমিল্লায় যোগদান করেছি বেশি দিন হয়নি। সিসি ক্যামেরার জন্য ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক একাধিকবার লিখেছেন বলে শুনেছি। আমি মিয়াবাজার শাখাসহ জেলার সব কৃষি ব্যাংকের শাখায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনের জন্য কাজ করবো।’

তিনি বলেন, ‘ব্যাংক থেকে ভল্টের তালা ভেঙে ১১ লাখ ১৫ হাজার ২১৫ টাকা চুরির ঘটনা দায়িত্বে অবহেলার কারণে ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ব্যাংকটিতে ছয় জন কর্মকর্তা, এক জন কর্মচারী ও দুই জন গার্ড কর্মরত আছেন। দুই গার্ড এখনও পুলিশের কাস্টডিতে রয়েছেন।’
এর আগে গত মে মাসে কুমিল্লার দেবিদ্বারে রাতে কৃষি ব্যাংকের জানালার গ্রিল কেটে ব্যাংকে প্রবেশ করে ভল্ট ভেঙে প্রায় পাঁচ লাখ টাকা লুট করে নিরাপদে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটে দেবিদ্বার উপজেলার ধামতী ইউনিয়নের ধামতী আলিয়া কামিল মাদ্রাসা কৃষি ব্যাংক শাখায়। এখন পর্যন্ত ওই ঘটনায় কোনও আসামি আটক বা চুরি হওয়া টাকা উদ্ধার হয়নি।

আরও পড়ুন- ব্যাংক ভল্টের তালা ভেঙে ১১ লাখ টাকা চুরি

/এফএস/এমএমজে/

লাইভ

টপ