বেনাপোল কাস্টমসের ‘করোনা’ গুজবে বিব্রত যশোর স্বাস্থ্য বিভাগ

Send
যশোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৯:৫০, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:১৮, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার কর্তৃক করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্তের গুজবে বিব্রত যশোরের স্বাস্থ্য বিভাগ। দায়িত্বশীল পদে থেকে এ ধরনের বিভ্রান্তকর তথ্য প্রচার না করতে সবার প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে বেনপোল কাস্টমস কমিশনারের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য অধিদফতর ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন।
বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিকালে সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, ভারত থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে আসা এক ট্রেনযাত্রী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে তাকে আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পরীক্ষা- নিরীক্ষা করা হয়েছে। এ সময় অপর এক যাত্রীকেও পরীক্ষা করা হয়। তবে, আতঙ্কিত হওয়ার মতো কোনও উপসর্গ পাওয়া যায়নি।
সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন বলেন, ওই ট্রেনযাত্রী বুধবার দর্শনা সীমান্ত দিয়ে ভারতে যান। এর আগে গত ২৯ জানুয়ারি তিনি চীন থেকে বাংলাদেশে আসেন। ভারতীয় ইমিগ্রেশন তার পাসপোর্টে চীন থেকে ফেরত আসার প্রমাণ পাওয়ায় তাকে ডিপোর্ট করে। এরপর বাংলাদেশে আসা বন্ধন এক্সপ্রেসে বিনা টিকিটে উঠিয়ে দেয়। এ খবর ট্রেন যাত্রীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তারা আতঙ্কিত হয়ে যায়। বিষয়টি জানার পরই তারা ওই যাত্রীর সব ধরনের পরীক্ষা ও তথ্য সংগ্রহ করেন। এরপর স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরামর্শ মতে তাকে তার বাড়িতে চলে যেতে বলা হয়েছে এবং ১৪ দিন বাড়িতে অবস্থানের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে যদি তার শারীরিক অসুস্থতা পরিলক্ষিত হয়, তবে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।
তবে, বেনাপোল বন্দরে করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত মর্মে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরীর দেওয়া ফেসবুক স্ট্যাটাসে বিব্রত হয়েছে যশোর স্বাস্থ্য বিভাগ। দায়িত্বশীল ওই কর্মকর্তার স্ট্যাটাসটি গুজব আকারে ছড়িয়ে পড়ে। যাতে সারাদেশে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।
সিভিল সার্জন আরও বলেন, কাস্টমস কমিশনার স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে কথা না বলে ভুল তথ্য প্রচার করে ঠিক কাজ করেননি। দায়িত্বশীল পদে থেকে এ ধরনের বিভ্রান্তকর তথ্য প্রচার না করতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সিভিল সার্জন। একই সঙ্গে বেনপোল কাস্টমস কমিশনারের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য অধিদফতর ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।
প্রসঙ্গত, ভারত থেকে আসা ওই ব্যক্তির বাড়ি কুমিল্লায়। 

/এআর/

লাইভ

টপ