জ্বর ও রক্ত বমির পর তরুণের মৃত্যু, নমুনা ঢাকায়

Send
নোয়াখালী প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৫:১৭, মার্চ ২৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৩৯, মার্চ ২৭, ২০২০

নোয়াখালীনোয়াখালীর বেগমগঞ্জে জ্বর ও রক্ত বমিতে আক্রান্ত এক তরুণের (২৪) মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নোয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার পাবলিক হল এলাকার আজিজিয়া প্লাজার চতুর্থ তলায় তিনি ভাড়া থাকতেন। করোনা ভাইরাস সন্দেহে ওই তরুণের দেহের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়েছে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অসীম কুমার দাস মেডিসিন বিশেষজ্ঞ আবদুল আউয়ালের বরাত দিয়ে বলেন, ওই তরুণ এক দন্ত চিকিৎসকের চেম্বারে সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। সাত দিন আগে থেকে তিনি জ্বরে ভুগছিলেন। গত মঙ্গলবার বিকালে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ আবদুল আউয়ালকে দেখান এবং তার ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী তার চিকিৎসা চলছিল। গতকাল সন্ধ্যায় এই তরুণের একাধিকবার বমি হয় এবং সঙ্গে রক্ত যায়। এসময় পরিবারের সদস্যরা তাকে নোয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। দেশের বর্তমান পরিস্থিতির বিবেচনায় তারা বিষয়টি সিভিল সার্জনকে জানান।

জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম বলেন, ‘গতকাল রাতে হাসপাতালে এক তরুণকে মৃত অবস্থায় আনা হয়। পরবর্তীতে স্বজনরা লাশ নিয়ে যায়।’

সিভিল সার্জন মো. মোমিনুর রহমান বলেন, ‘জ্বরে আক্রান্ত ওই তরুণের মৃত্যুর বিষয়টি আইইডিসিআরকে জানানো হলে তরুণের লাশ থেকে আলামত সংগ্রহ করে তা ঢাকায় পাঠাতে বলা হয়। সে অনুযায়ী আলামত সংগ্রহ করে আজ সকালে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।’

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহবুব আলম জানান, চৌমুহনী পৌরসভার পাবলিক হল এলাকায় যে ভবনে থাকত, সে ভবনটিতে বসবাসকারী সব বাসিন্দাকে পুলিশী হেফাজতে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। তিনি আরও জানান, ওই তরুণের লাশ দাহ করার প্রক্রিয়া চলছে এবং লাশ দাহকারীদের ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। 

 

/এফএস/

লাইভ

টপ