গাজীপুরে দুই পোশাক শ্রমিক করোনা আক্রান্ত

Send
গাজীপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১১:৩২, মে ০৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৪৪, মে ০৪, ২০২০

করোনাভাইরাসগাজীপুর মহানগরীর দু’টি পোশাক কারখানার দু’জন শ্রমিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের একজনকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং অপরজনকে টঙ্গীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় প্রথমবারের মতো পোশাক শ্রমিকের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হলো। এতে করে ওই এলাকায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে গেলো বলে শিল্প পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা মনে করেন। 

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডিশনাল এসপি) সুশান্ত সরকার বলেন, 'গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাছা থানার কেবি বাজার বড়বাড়ি এলাকার ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় পার্কস্টার অ্যাপারেলস লিমিটেড পোশাক কারখানায় চাকরি করেন এক শ্রমিক (২৮)। তার বাড়ি রংপুরের পীরগাছা উপজেলার হরনাথপুর কাদিরাবাদ এলাকায়।

আক্রান্ত ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের কারণে কারখানাগুলো ছুটি ঘোষণার পর তিনি গত ২৩ এপ্রিল গ্রামের বাড়ি যান। সেখানে গিয়ে তার বুক ও গলা জ্বালাপোড়া শুরু হয়। পরে স্বাস্থ্যকর্মীরা বাসায় গিয়ে তার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা নিয়ে যান। কিন্তু রিপোর্ট আসার আগেই তিনি গত ২৮ এপ্রিল গাজীপুরের বাসায় ফেরেন। পরে শুক্রবার (১ মে) রংপুর থেকে ফোনে তাকে জানানো হয়, তার করোনাভাইরাসের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। পরে শনিবার (২ মে) রাতে তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

হাসপাতালটির উপ-পরিচালক (ডেপুটি ডাইরেক্টর) ডা. তপন কুমার সরকার জানান, এই হাসপাতালে শুধু করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। করোনা পজিটিভ ছাড়া অন্য কাউকে এখানে ভর্তি করা হয় না।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের ওই কর্মকর্তা আরও জানান, অপরজন টঙ্গীর শান্তা এক্সপ্রেশন লিমিটেড পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। তিনি গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানার মুদাফা এলাকায় বসবাস করেন। তিনি করোনার ছুটিতে গত ২০ এপ্রিল গ্রামের বাড়ি যান। সেখান থেকে শুক্রবার (১ মে) গাজীপুরের মুদাফা এলাকার বাসায় ফিরেন। করোনাভাইরাসের লক্ষণ দেখা দেওয়ায় তার নমুনা সংগ্রহ করে টঙ্গীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে পরীক্ষা করা হলে ফল পজিটিভ আসে।

আক্রান্ত ওই ব্যক্তি জানান, করোনার ছুটিতে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পর গত ২৪ এপ্রিল নমুনা পরীক্ষা করতে দেওয়া হলে রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। শুক্রবার (১ মে) গ্রামের বাড়ি থেকে টঙ্গীর বাসায় ঢুকতে গেলে বাসার মালিক করোনা পরীক্ষা ছাড়া ঢুকতে দেবেন না বলে জানান।এমতাবস্থায় টঙ্গী গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে করোনা সংক্রমণ পরীক্ষার জন্য নমুনা দিই। তখন সেখানকার ডাক্তাররা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানান, তার দেহে করোনা পজিটিভ। বাড়ি থেকে আসার পর তিনি কারখানায় যোগ দেননি।

টঙ্গীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের চিকিৎসক এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. নাজিম উদ্দিন আহমদ জানান, তারা র‌্যাপিড এন্টিবডি দিয়ে একাধিকবার পরীক্ষা করে তার দেহে করোনা সংক্রমণ পজিটিভ পেয়েছেন। তাই তাকে এই হাসপাতালেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

গাজীপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভাপাতি এস এম তরিকুল ইসলাম জানান, খবরটি শুনেছি। এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। ওই শ্রমিকদের করোনা সংক্রমণের প্রকৃত উৎস ও বিস্তারের তথ্য খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

/আইএ/

লাইভ

টপ