যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে গরম খুন্তি ও সিগারেটের ছ্যাঁকা

Send
গাইবান্ধা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:১০, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:১৪, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

যৌতুকের দাবিতে শিউলি বেগম (২২) নামে এক গৃহবধূকে ঘরে আটকে রেখে লোহার গরম খুন্তি ও সিগারেটের ছ্যাঁকা দিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। রংপুরের পীরগঞ্জে এ ঘটনা ঘটেছে। স্বজনদের অভিযোগ স্বামী বিপুল মিয়া ও গৃহবধূর শ্বশুর-শাশুড়ি মিলে তার ওপর নির্যাতন চালিয়েছেন। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ হলেও এখনও অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকালে গৃহবধূর স্বজনরা স্থানীয়দের সহায়তায় শিউলিকে উদ্ধার করে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন।

এরআগে, রবিবার রাতে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার জাহাঙ্গীরাবাদ ইউনিয়নের মোজাফরপুর গ্রামে স্বামীর বাড়িতে শিউলিকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ শিউলি বেগম সাদুল্লাপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের উত্তর ফরিদপুর গ্রামের ফেরদৌস মিয়ার মেয়ে।

গৃহবধূ শিউলী বেগম জানান, তিন বছর আগে বিয়ের সময় স্বামী বিপুলকে নগদ দুই লাখ টাকাসহ আসবাবপত্র দেয় তার বাবা-মা। এরপর যৌতুকলোভী স্বামী বিপুল মিয়া কিছুদিন ধরে আবারও তার কাছে যৌতুকের টাকা দাবি করছেন। কিন্তু টাকা দিতে না পারায় স্বামী বিপুল ও তার বাবা-মা প্রায়ই তাকে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন করতো। এক পর্যায়ে গত রবিবার রাতে তাকে বেধড়ক মারধর করে স্বামী বিপুল মিয়া। শুধু তাই নয়, লোহার গরম খুন্তি এবং সিগারেটের আগুন দিয়ে তার দুই হাত ও দুই পাসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছ্যাঁকা দেয় স্বামী বিপুল ও তার শ্বশুর-শাশুড়ি। এক পর্যায়ে জ্ঞান হারালে তাকে ঘরের মধ্যে আটকে রাখা হয় বলেও অভিযোগ শিউলি বেগমের।

শিউলির স্বজনদের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের টাকাসহ নানা বিষয় নিয়ে বিপুল ও শিউলির মধ্যে দাম্পত্য কলহ চলছিলো। বিভিন্ন সময় শিউলির স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি তাকে মারধর করতো। সর্বশেষ ২০ সেপ্টেম্বর রাতে মারধরের পর শিউলির হাত-পা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে সিগারেট দিয়ে ছ্যাঁকা দেয় স্বামীসহ শ্বশুর-শাশুড়ি। এতে শিউলি গুরুত্বর অসুস্থ হলেও তার চিকিৎসা না দিয়ে বাড়িতে আটকে রাখে স্বামী বিপুল মিয়া। পরে ঘটনার একদিন পর লোকমুখে খবর পেয়ে শিউলিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান স্বজনরা।

সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মহিলা ওয়ার্ডের দায়িত্বরত নার্স মো. আবু তাহের জানান, নির্যাতিত গৃহবধূকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ভর্তির পর থেকে এখন তার অবস্থা অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। তবে সিগারেটে পোড়া ঘাগুলো শুকাতে একটু সময় লাগবে।

গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল করীম। তিনি জানান, অভিযোগের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। এ বিষয়ে দ্রুত মামলা দায়েরসহ আসামিদের গ্রেফতারের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

/টিটি/

লাইভ

টপ
X