মধ্যপাড়া পাথর খনিতে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু

Send
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৭:৪২, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৪৫, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

মধ্যপাড়া পাথর খনি, দিনাজপুর

দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া পাথরখনিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুরোদমে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু হয়েছে।

বুধবার থেকে খনিতে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু করে খনিটির ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জার্মানীয়া-টেস্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি)।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, তিন শিফটে এই খনি থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন হবে।

জানা গেছে, মধ্যপাড়া পাথর খনির রক্ষণাবেক্ষণ, ব্যবস্থাপনা এবং উৎপাদন এর দায়িত্বে নিয়োজিত বর্তমান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি’র সঙ্গে চুক্তির পর মধ্যপাড়া পাথর খনি থেকে পাথর উত্তোলনের রেকর্ড তৈরি হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত অর্থবছরে মধ্যপাড়া পাথর খনি প্রথমবারের মতো লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। তবে করোনার কারণে গত ২৬ মার্চ থেকে এই খনিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।

খনি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেকার হয়ে পড়ে প্রায় ৮শ’ শ্রমিক। তারা বিভিন্ন সময়ে খনিতে পাথর উত্তোলন শুরু করা ও বকেয়া বেতন-ভাতা প্রদানের দাবিতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ ও অবস্থান ধর্মঘট পালন করে। এ সময় তারা মূল বেতনের ৫ শতাংশ বৃদ্ধি, ছুটিকালীন বেতন-ভাতা প্রদান, শ্রমিকদের ঝুঁকি ভাতা প্রদান, ৪ শিফটে পাথর উত্তোলন, শ্রমিকদের জীবনবীমা প্রদানেরও দাবি জানায়। পরে দীর্ঘ ৪ মাস পর আগস্ট মাসের ১৩ তারিখ থেকে পাথর উত্তোলন শুরু হয়।

পরে দেশের উন্নয়নে মধ্যপাড়া পাথর খনির পাথর ব্যবহারের কথা মাথায় রেখে পাথর উত্তোলনকে সর্বোচ্চ

গুরুত্ব দিয়ে চলতি সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে দুই শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু করে কর্তৃপক্ষ। দুই শিফটে পাথর উত্তোলন হচ্ছিল গড়ে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মে.টন। তবে জিটিসি মাসিক এক লাখ ২০ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বুধবার থেকে পুরোদমে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন ও উন্নয়ন কাজ শুরু করে।

বুধবার থেকে খনিতে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু হয়। জিটিসি’র বেলারুশিয়ান খনি বিশেষজ্ঞ, দেশীয় প্রকৌশলী এবং প্রায় সাড়ে ৭ শত খনি শ্রমিক নিরলস ভাবে

কাজ করে খনিতে তিন শিফট চালু করে প্রতিদিন গড়ে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করবে।

মধ্যপাড়া পাথর খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবিএম কামরুজ্জামান ৩ শিফটে পাথর উত্তোলনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত ১৩ আগস্ট থেকে খনিতে এক শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু করা হয়। পরে চলতি সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে দুই শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু করা হয়। দুই শিফটে দৈনিক পাথর উত্তোলন হচ্ছিল সাড়ে ৩ হাজার মে.টন। এখন তিন শিফটে পাথর উত্তোলন শুরু হলো। এতে করে দৈনিক প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মে.টন পাথর উত্তোলন করা সম্ভব হবে। যাতে করে এ পাথর খনিটি লাভবান প্রতিষ্ঠান হিসেবে ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে পারবে।

উল্লেখ্য, দেশের একমাত্র পাথর খনি দিনাজপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড (এমজিএমসিএল) বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু করে ২০০৭ সালের ২৫ মে। প্রথম অবস্থায় খনি থেকে দৈনিক ১ হাজার ৫শ’ থেকে ১ হাজার ৮শ’ টন পাথর উত্তোলন হলেও পরে তা নেমে আসে মাত্র ৫শ’ টনে। এমন অবস্থায় উৎপাদন বাড়াতে ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ৯২ লাখ মেট্রিক টন পাথর উত্তোলনের

বিপরীতে ১৭১.৮৬ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি করে খনির উৎপাদন ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয় বেলারুশের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জার্মানিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম-জিটিসি’কে।

/টিএন/

লাইভ

টপ
X