যিনি দর্জি, তিনিই ডাক্তার!

Send
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
প্রকাশিত : ০৫:১৫, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৫:২৩, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০

নাঈম নয়ন মেডিকেল হাউস নামের এই দোকানটির নেই নিবন্ধন। ডাক্তারের নেই কোনও ডিগ্রি।



দোকানের সাইনবোর্ডে লেখা ‘এখানে সকল প্রকার রোগের ওষুধ পাওয়া যায়’। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওই দোকানে ঢুকে দেখলেন ভিন্ন চিত্র। ওই ফার্মেসিতে নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে যিনি রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি গলায় স্টেথোস্কোপের বদলে ফিতা ঝুলিয়ে কাপড় কাটছেন!
চিত্রটি চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার বুড়িশ্চর এলাকার ‘নাঈম নয়ন মেডিকেল হাউস’-এর। ওই ফার্মেসির মালিক নার্গিস আক্তার নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে সেখানে ফার্মেসি ব্যবসা এবং কথিত ডাক্তারি পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন। অথচ তার ন্যূনতম নার্সিং কোর্সেরও অভিজ্ঞতা নেই।
এ সম্পর্কে জানতে চাইলে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বুড়িশ্চর এলাকায় এক নারী সকল প্রকার রোগের চিকিৎসা করেন এমন গোপন সংবাদ পেয়ে আজ (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তার ফার্মেসিতে যাই। ফার্মেসিতে ডাক্তার সাহেবের চেম্বারে গিয়ে দেখি, তিনি গলায় স্টেথোস্কোপের বদলে ফিতা ঝুলিয়ে কাপড় কাটছেন! শুধু তা-ই নয়; যেখানে তিনি ‘ডাক্তারি’ করেন তার পাশেই আবার ‘টেইলার্স’ ব্যবসা, সেখানে তিনিই কারিগর! নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে ভিজিটিং কার্ডও ছাপিয়েছেন। অথচ তিনি এ সম্পর্কিত কোনও কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।’

এই দর্জি দোকানটিও লাগোয়া ওই ওষুধের দোকানের। যিনি ডাক্তার পরিচয় দেন তিনি এই দোকানে দর্জিগিরি করেন।
তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনায় ওই নারীকে শাস্তি দিতে গিয়ে শুনি ওই নারীর সঙ্গে তার স্বামীর ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। তাদের ৫/৬ বছরের দুইটা সন্তান আছে। তারা ওই নারীর সঙ্গে থাকেন। তাই মানবিক দিক বিবেচনায় তাকে জেল জরিমানা না করে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছি। পাশাপাশি হয় লাইসেন্স নিয়ে ফার্মেসি ব্যবসা, অন্যথায় টেইলার্স পরিচালনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর এখন থেকে যেন ভুয়া ডাক্তারি করতে না পারে, সেটি দেখাশোনার জন্য জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ওই ঘটনার পর অত্র এলাকার চেয়ারম্যান ও তিন মেম্বারকে ডেকে আনা হয়। তাদেরকে বিষয়টি তদারকির জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।’

/টিএন/

লাইভ

টপ