ইউপি নির্বাচন : নরসিংদী স্টাইল‘কারে মারবেন কারে ধরবেন জানি না, শুধু নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে’ (অডিও)

Send
নরসিংদী প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:১৭, এপ্রিল ১৯, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:০৩, এপ্রিল ১৯, ২০১৬

নরসিংদী‘কাকে মারবেন কাকে ধরবেন আমরা জানি না। শুধু জানি নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করে আনতে হবে।’ দলের কর্মীদের উদ্দেশে এভাবেই কথাগুলো বললেন নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সাদেক।

গত ১৭ এপ্রিল মরজাল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী সানজিদা খাতুন নাসিমার নৌকা প্রতীকের পক্ষে কর্মীসভায় তিনি এসব কথা বলেন। গত রবিবার বিকালে রায়পুরা উপজেলার মরজাল বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন স্থানে অনুষ্ঠিত ওই কর্মীসভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের হুমকি দিয়ে বলেন, ‘যদি বিজয়ী করতে না পারেন, আপনাদের কাউকে ছাড়ব না। কার পা ভাঙবেন কার হাত ভাঙবেন আমরা জানি না। নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করে আনতে হবে। শেখ হাসিনার নৌকা মার্কা নিয়ে শুধু চুপ করে বসে থাকলে চলবে না, চা এর দোকানে আড্ডা দিলে চলবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি নৌকাকে ভোট দিতে না পারেন, আগামী দিন এই ইউনিয়নের উন্নয়নে জন্য একটি টাকাও দেওয়া হবে না। কীভাবে আনবেন সেটা আপনারা জানেন। তবে যেভাবেই নৌকাকে বিজয়ী করেন,আমাদের কোনও আপত্তি নাই।

তিনি আরও বলেন, ‘প্রত্যেক সেন্টারে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করুন। কোনও সেন্টার থেকে যদি নৌকা ফেল করে ওই ৫১ জনকে জিজ্ঞাসা করবো। জানি না কী করবেন, সিল মারবেন, না কী করবেন, জানি না, এটা আপনাদের বিষয়। শুধু আমরা যাকে মনোনয়ন দিয়েছি তাকে উঠাইয়া আনতে হবে।’

এসময় তিনি দলের নেতাকর্মীদের অভয় দিয়ে বলেন,  আওয়ামী লীগের তরফ থেকে যে কোনও সহযোগিতা লাগলে দেব। সোজা কথা পাস চাই, আমার মনে হয় সকাল ১১টার আগে সেরে ফেললেই (সিলমারা) ভালো হয়।  নির্বাচন বন্ধ হোক আপত্তি নাই, সকাল ১১টায় নির্বাচন শেষ করতে হবে। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

এসময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফজাল হোসাইন, সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী ভূঁইয়া, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মিলন মাস্টার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এম এ রব, চেয়ারম্যান প্রার্থী সানজিদা খাতুন নাসিমা প্রমুখ।

আরও পড়তে পারেন: 

প্রতিবাদের ভিন্নস্বর: ‘রংবাজি’ থেকে মোবাইলফোনে স্লোগানপ্রতিবাদের ভিন্নস্বর

ওই নেতার এধরনের বক্তব্য শুনে সিনিয়র অনেক নেতাকর্মীকে নীরবে সভাস্থল ছেড়ে চলে যেতে দেখা যায় বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

উল্লেখ্য, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সাদেক রাধানগর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান। এবারের নির্বাচনেও তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী। তবে এই ইউনিয়নে কেউ প্রার্থী না হওয়ায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হতে যাচ্ছেন।

তিনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে তিনি দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে এই ধরনের হুমকিমূলক বক্তব্য রাখছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

/জেবি/

লাইভ

টপ