X
শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
২০ মাঘ ১৪২৯

নওগাঁয় পরিবহন ধর্মঘটে সীমাহীন ভোগান্তি মানুষের

নওগাঁ প্রতিনিধি
০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭:৩৮আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১৭:৪০

১০ দাবিতে রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় পরিবহন ধর্মঘট চলছে। বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) সকাল ৬টা থেকে পরিবহন মালিক সমিতির ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের কারণে নওগাঁতেও বাস চলছে না। সকাল থেকে কোনও বাস ছেড়ে যায়নি। এতে সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

এদিকে বিএনপি নেতারা বলছেন, আগামী ৩ ডিসেম্বর তাদের বিভাগীয় গণসমাবেশকে বাধা দিতেই ধর্মঘট ডাকা হয়েছে। আর বাস মালিক সমিতির নেতারা বলছেন, গণসমাবেশের সঙ্গে ধর্মঘটের কোনও সম্পৃক্ততা নেই। 

নওগাঁ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব বায়েজিদ হোসেন পলাশ বলেন, ‘এটা সারা দেশেই হচ্ছে। বিএনপির গণসমাবেশের দুই-একদিন আগে থেকেই পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হচ্ছে। আমাদের এখানেও হবে জেনেই আমরা সেভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমাদের কেউ কোনোভাবেই আটকে রাখতে পারবে না। ইতোমধ্যে  নেতাকর্মীরা রাজশাহী যেতে শুরু করেছেন। সমাবেশ সফল করতে যেকোনোভাবে আমরা রাজশাহী যাবো।’

আরও পড়ুন: ২ দিন আগেই সমাবেশস্থলে জড়ো হচ্ছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা

জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি শহিদুল ইসলাম বলেন, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ সংশোধন, হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে নছিমন, করিমন, ভটভটিসহ অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধ ও জ্বালানি তেলসহ যন্ত্রাংশের মূল্য হ্রাস করাসহ বেশকিছু দাবি সরকারের কাছে ছিল। এই দাবির কারণেই রাজশাহী বিভাগের সব জেলায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছে। গত ২৬ নভেম্বর মটর মালিক শ্রমিক মিলে নাটোরে একটি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সরকারের পক্ষ থেকে দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত বা আশ্বাস না পর্যন্ত পরিবহন ধর্মঘট চলবে। 

বিএনপির সম্মেলনের সঙ্গে ধর্মঘটের কোনও সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমরা গত দুই মাস আগে থেকে এসব বিষয় নিয়ে মিটিং করা হচ্ছিল। গত ২৬ নভেম্বর নাটোরে একটি মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এখানে নওগাঁর একক কোনও বিষয় না। পুরো রাজশাহী বিভাগের বিষয়।’

উল্লেখ্য, রাজশাহী নগরীর মাদ্রাসা মাঠে আগামী ৩ ডিসেম্বর বিভাগীয় গণসমাবেশ করবে বিএনপি। কিন্তু এর আগেই ১০ দাবিতে আজ থেকে রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় পরিবহন ধর্মঘট ডেকেছে পরিবহন মালিক সমিতি। ভোর ৬টা থেকে বিভাগের সব জেলার বাস-ট্রাক চলাচল অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে।

/এসএইচ/
সর্বশেষ খবর
উপাচার্যের আশ্বাসে হলে ফিরে গেলেন অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা
উপাচার্যের আশ্বাসে হলে ফিরে গেলেন অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা
রাজশাহীতে ৩ জনকে হত্যা
রাজশাহীতে ৩ জনকে হত্যা
নার্সদের যৌন হয়রানি: দুই চিকিৎসককে বদলি
নার্সদের যৌন হয়রানি: দুই চিকিৎসককে বদলি
ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত পার্বত্য মন্ত্রীর এপিএস
ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত পার্বত্য মন্ত্রীর এপিএস
সর্বাধিক পঠিত
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
টিকিট কাটতে বলায় সন্তানকে বিমানবন্দরে রেখেই চলে যান দম্পতি!
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
পিন নম্বর ছাড়াই সব কার্ডে লেনদেনের সুযোগ
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
নির্বাচন অফিসে গিয়ে আপ্যায়ন চাইলেন হিরো আলম, পেলেন মিষ্টি
ইয়েমেনে যাচ্ছিল ইরানের বিপুল অস্ত্র-গোলাবারুদ, আটকালো ফ্রান্স-যুক্তরাষ্ট্র
ইয়েমেনে যাচ্ছিল ইরানের বিপুল অস্ত্র-গোলাবারুদ, আটকালো ফ্রান্স-যুক্তরাষ্ট্র
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ
সাত পদে ১১৭ জনের সরকারি চাকরির সুযোগ