X
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২ মাঘ ১৪২৮
সেকশনস

দেশের প্রতিনিধিত্ব করার চেয়ে বড় কিছু ছিল না: মাশরাফি

আপডেট : ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৮:১৯

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেছেন, ‘খেলার কারণে আমি ঠিকমতো লেখাপড়া করতে পারিনি। আমি খেলা ভালোবাসি। তার থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমি কী খেলছি, বাংলাদেশের জন্য খেলছি। আমার কাছে আর কোনও বিষয় গুরুত্ব ছিল না। আমি আমার দেশকে প্রতিনিধিত্ব করছি। এটার থেকে বড় জিনিস আমার কাছে আর কিছু ছিল না।’

সোমবার (২৯ নভেম্বর) বিকালে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) ষষ্ঠ সমাবর্তনে সমাবর্তন বক্তার বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার ইউল্যাবের সমাবর্তন ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মাশরাফি নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন, ‘আমাদের একটা স্বপ্ন থাকে। এটা হতে চাই ওটা হতে চাই। আপনারা আসলেই কেউ নিশ্চিত না যে কী হবেন। আপনাকে যে সেটা করেই সফল হতে হবে এমন না। এমন অনেক কিছুই আছে যেটা করে সফল হতে পারবেন। সফলতার হিসাব আমি এভাবেই করি যে আপনি জীবনকে উপভোগ করছেন কিনা। সেটাই সফলতার মানদণ্ড আমার কাছে। আমি খুব ছোট জেলা নড়াইল থেকে এসেছি। আমি যখন ক্রিকেট খেলা শুরু করি তখন অনূর্ধ্ব ১৭, ১৯ হয়ে জাতীয় দলে আসি। আমরা যখন নড়াইলে ছিলাম আমাদের সেই সুযোগ সুবিধাগুলো ছিল না। সারাদেশে এখন কোচ আছে, ফিটনেস ট্রেইনার আছে, আমাদের সময় এগুলো ছিল না। আমার কাছে মনে হয়েছে আমি উপভোগ করেছি, খুব প্রাথমিক পর্যায়ে বুঝতে পেরেছি ক্রিকেট খেলা পছন্দ করি, এটা আমি খেলতে চাই। এই কারণে আমার কাছে এটা সম্ভব হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘জীবনের কঠিন সময় এসেছিল আমার ইনজুরির টাইমে। আমার যখন অপারেশন হলো, আমার এখনও মনে আছে ২০০১ সালে তখন আমি মাত্র ৪টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছি আর মাত্র ৩টি ওয়ান ডে ম্যাচ খেলেছি। আমার চিকিৎসক দেখে এমআরআই করলো। দেখে বললো লিগামেন্ট ছিঁড়ে গেছে। সার্জারি করতে হবে। এক বছর খেলার বাইরে থাকতে হবে। আমার কাছে মনে হয়েছিল যে পুরো আকাশ আমার মাথার ওপর। সেখানে থেকে ধীরে ধীরে ফিরে আসার পর ২০০৮ সাল পর্যন্ত আমি ভালোভাবে খেলতে পেরেছি। ২০০৮ থেকে ২০১১ পর্যন্ত আমার পর পর ৪টি সার্জারি হয়। তারপর সেখান থেকে ফিরে এসে বল করতাম ৪৪ কি.মি. প্রতি ঘণ্টায়। সেখানে ১৪৪ কি.মি.-তে চলে, আসা সেটাকে ম্যানেজ করা, খেলা , পায়ে সাতটি সার্জারি , সব মিলিয়ে যখন মাঠে নামতাম আমি একটা জিনিস বুঝতাম যে আমি কী করছি।’

মাশরাফি বলেন, ‘খেলার মাঝে সার্জারি গুরুত্বপূর্ণ না, এরপর যে ৬টা মাস রিহ্যাবিলিটেশন প্রক্রিয়া সেটি পার করে আসা বেশ কঠিন। দিন শেষে কী হলো - আমার চাওয়া পাওয়া, ডেডিকেশন ছিল শুধু খেলা। ২০১৫ সালের আগে আমি দুবার অধিনায়কত্ব পেয়েছি। ২০১৫ সালে এসে পাঁচ বছরের জন্য অধিনায়কত্ব পেলাম। আমি এটাই বোঝাতে চাচ্ছি যে আমার ২০ বছরের ক্রিকেট ক্যারিয়ারকে আমি বিভিন্নভাবে ভাগ করলে দেখতে পাই, আমি হয়তো অনেক বেশি কিছু করতে পারতাম। সুস্থ থাকলে টেস্ট ক্রিকেটে ৩০০ উইকেট নিয়ে শেষ করতে পারতাম। হয়তো ওয়ানডে ক্রিকেটে আরও বেশি কিছু করতে পারতাম। তবে সত্য কথা যে আমার এটি নিয়ে কোনও দুঃখ নাই। কারণ আমি জানি যে আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। আমার কষ্ট থাকতো যদি আমি চেষ্টা না করতাম। আপনারা কখনও হাল ছেড়ে দেবেন না।’

সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর ও রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদের পক্ষে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি সভাপতিত্ব করেন। সমাবর্তনে আরও উপস্থিত ছিলেন ইউল্যাব বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য ও সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ। অনলাইনে যুক্ত ছিলেন ইউল্যাব বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সহ-সভাপতি কাজী আনিস আহমেদ।  এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন ইউল্যাবের উপাচার্য অধ্যাপক ইমরান রহমান , উপ- উপাচার্য অধ্যাপক সামসাদ মর্তুজা, রেজিস্ট্রার লে. কর্নেল (অব) ফয়জুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মিলন কুমার ভট্টাচার্যসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রধান, কর্মকর্তারা ও শিক্ষার্থীরা।

/এসও/এমআর/
সম্পর্কিত
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি গঠন ও নির্বাচন বন্ধের নির্দেশ
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি গঠন ও নির্বাচন বন্ধের নির্দেশ
শাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিক, এগুলো বাস্তবায়ন করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
শাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিক, এগুলো বাস্তবায়ন করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষার্থী-শিক্ষক সম্পর্ক: কেন সন্দেহ আর বিদ্বেষ?
শিক্ষার্থী-শিক্ষক সম্পর্ক: কেন সন্দেহ আর বিদ্বেষ?
শিক্ষা আইন পুনর্গঠনে সভা বুধবার
শিক্ষা আইন পুনর্গঠনে সভা বুধবার
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি গঠন ও নির্বাচন বন্ধের নির্দেশ
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি গঠন ও নির্বাচন বন্ধের নির্দেশ
শাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিক, এগুলো বাস্তবায়ন করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
শাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থীদের দাবি যৌক্তিক, এগুলো বাস্তবায়ন করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী
শিক্ষার্থী-শিক্ষক সম্পর্ক: কেন সন্দেহ আর বিদ্বেষ?
শিক্ষার্থী-শিক্ষক সম্পর্ক: কেন সন্দেহ আর বিদ্বেষ?
শিক্ষা আইন পুনর্গঠনে সভা বুধবার
শিক্ষা আইন পুনর্গঠনে সভা বুধবার
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার সময়সূচি ঘোষণা
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার সময়সূচি ঘোষণা
© 2022 Bangla Tribune