X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

৫০ বছরের চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ

আপডেট : ৩১ মে ২০২১, ১১:৩১

‘...এই বাংলাদেশকে আমি বড়ই ভালোবাসি। তোদের কাছে আমার একটাই অনুরোধ, যদি পারিস- এই সোনার বাংলাদেশকে নিয়ে ছবি তৈরি করিস’—১৯৭৩ সালে চলচ্চিত্রকর্মীদের উদ্দেশে কথাগুলো বলেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

অনুপম হায়াতের ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের চলচ্চিত্র’ বইয়ে যার উল্লেখ পাওয়া যায়। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে তাই নির্মিত হয়েছে অনেক চলচ্চিত্রও। তবে আশ্চর্যজনকভাবে স্বাধীনতার ৫০ বছরেও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কোনও পূর্ণাঙ্গ চলচ্চিত্র মুক্তি পায়নি!

অন্যদিকে, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ, যা বাংলাদেশিদের বেঁধেছিল এক সুতোয়। নয় মাস চলা সেই রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে পাক হানাদারের ধ্বংসলীলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল প্রায় প্রতিটি পরিবার। তাই অনেক দামে পাওয়া এই বাংলা যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে হয়ে ওঠে প্রতিটি কাজের অনুপ্রেরণা। এমনকি চলচ্চিত্রগুলোর বড় প্রেক্ষাপট হয়ে ওঠে দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধ।

সত্তরের দশকে মুক্তিযুদ্ধের ওপর সবচেয়ে বেশি ছবি তৈরি হয়েছিল। আশির দশকটা ছিল হতাশার। নব্বইয়ে এসে তা ক্রমশ বাড়তে থাকে।

ধীরে ধীরে সরকারি অনুদানসহ নানা সুবিধা যুক্ত হলে বাড়ে মুক্তিযুদ্ধের চলচ্চিত্র নির্মাণ। অন্যদিকে, নিয়মিতই স্বদেশ প্রেম ও নীতির চলচ্চিত্র এসেছে। বিশেষ করে সত্তর পরবর্তী সময়ে অসংখ্য ছবি হয়েছে দেশ, মাটি ও মানুষকে ঘিরে। তবে শূন্য দশকের পর তা কমতে থাকে আবার।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র আর্কাইভ থেকে বাংলা ট্রিবিউন জানতে পারে, ১৯৭১ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত মাত্র ৪৫টির মতো মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র তৈরি হয়েছে।

আর্কাইভের মহাপরিচালক মো. নিজামুল কবীর জানালেন আশার কথা। বললেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে রেকর্ড পরিমাণ ছবি তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অনেক ছবিই ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে। হচ্ছে আরও। আগে একটা ধারণা ছিল, মুক্তিযুদ্ধের ছবি মানেই যুদ্ধ থাকতে হবে। সেই ধারণাটা নতুন পরিচালকরা ভেঙে দিয়েছেন। তারা যুদ্ধের বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল নিয়ে কাজ করছেন এখন। বিশেষ করে যারা একটু ভিন্ন ধারার ছবি তৈরি করতে চান, তারা এটি করছেন।’

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সাবেক এ কর্মকর্তা মনে করেন, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতাও এর প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে।

অনুদান ও মুজিব জন্মশতবর্ষ নিয়ে চলচ্চিত্র আহ্বান কমিটি এ বিষয়ে নতুন ছবি তৈরিতে উদ্বুদ্ধ করছে।

মুক্তিযুদ্ধের ছবি:

৭০’র দশকের প্রায় প্রতিটি ছবিই আলোচিত ও প্রশংসিত। এগুলোর মধ্যে আছে- ওরা ১১ জন, রক্তাক্ত বাংলা, বাঘা বাঙালি, জয় বাংলা, অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী, ধীরে বহে মেঘনা, আমার জন্মভূমি, সংগ্রাম, আবার তোরা মানুষ হ, আলোর মিছিল, বাংলার ২৪ বছর, কার হাসি কে হাসে ও মেঘের অনেক রঙ।

৮০’র দশকে নির্মাণ হয়েছে সবচেয়ে কম ছবি। সামরিক শাসনের কারণে মুক্তিযুদ্ধের ছবি নির্মাণ কমে গিয়েছিল বলে মনে করা হয়। এ দশকের ছবির মধ্যে আছে- বাঁধন হারা, কলমিলতা ও চিৎকার।

৯০’র দশকে যেন আবারও জোয়ার ফিরে আসে। মুক্তি পায়- নদীর নাম মধুমতি, আগামী, মেঘের অনেক রঙ, একাত্তরের যীশু, নদীর নাম মধুমতি, আগুনের পরশমণি, মুক্তির গান, এখনো অনেক রাত, হাঙ্গর নদীর গ্রেনেড, মুক্তির কথা’র মতো চলচ্চিত্র।

২০০০-এর দশকে এসেছে মাটির ময়না, জয়যাত্রা, শ্যামল ছায়া, মেঘের পরে মেঘ, ধ্রুবতারা, খেলাঘর ও রাবেয়া।

২০১০-এর দশকে মুক্তিযুদ্ধকে আধুনিক ঢঙে দেখা গেছে সেলুলয়েডে। মুক্তি পেয়েছে মেহেরজান, খণ্ড গল্প ১৯৭১, অনিল বাগচীর একদিন, আমার বন্ধু রাশেদ, গেরিলা, পিতা, জীবনঢুলী, ৭১-এর গেরিলা, ৭১-এর সংগ্রাম, মেঘমল্লার, অনুক্রোশ, হৃদয়ে-৭১, ৭১-এর মা ও জননী।

চলতি বছর ও বঙ্গবন্ধু:
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন জানালেন চমকপ্রদ তথ্য। তার ভাষ্য, ‘স্বাভাবিকভাবেই বিগত কয়েক বছরের তুলনায় চলতি বছর মুক্তিযুদ্ধর অনেক ছবি মুক্তি পাবে বা পেতো যদি না মহামারি থাকতো। মার্চ পর্যন্ত ১০টির মতো পূর্ণদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র আমরা সেন্সর দিয়েছি। সেই হিসেবে চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে ছবি মুক্তি হচ্ছে।’

স্বাভাবিক কারণেই পরিমাণটি উল্লেখ না করলেও ধারণা করা হচ্ছে, চলতি দশকে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে ঘিরে রেকর্ড পরিমাণ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, প্রেক্ষাগৃহ চালু থাকলে চলতি বছরের বাকি ৭ মাসে অর্ধশতাধিক ছবি মুক্তি পাবে দেশ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে। অর্থাৎ গত ৪৯ বছরে এই ঘরানার যে ক’টি ছবি মুক্তি পেয়েছিল, সেটি এবার এক বছরেই দেখবেন সিনেপ্রেমীরা!

এদিকে, এবারই প্রথম বঙ্গবন্ধুর তারুণ্য উঠে এসেছে সেলুলয়েড পর্দায়। ছবির নাম ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’। শাপলা মিডিয়া প্রযোজিত ছবিটি মুক্তি পেয়েছে ২ এপ্রিল। যেখানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কিশোর বয়স তুলে ধরা হয়েছে। এতে অভিনয় করেছেন নতুন দুই মুখ শান্ত খান ও দীঘি।

গত ২৬ মার্চ মুক্তি পেয়েছে মুক্তিযুদ্ধের গল্প নিয়ে- ‘স্ফুলিঙ্গ’। তৌকীর আহমেদের পরিচালনায় এই ছবিটির প্রধান চরিত্রগুলোয় অভিনয় করেছেন জাকিয়া বারী মম, শ্যামল মাওলা ও পরীমনি।

পরিচালক তৌকীর আহমেদ বলেন, ‘এটি মূলত গানের, প্রতিবাদের ছবি। তবে পুরো প্রেক্ষাপট মুক্তিযুদ্ধের। সবার মনের ভেতরেই আছে স্ফুলিঙ্গ। ছবিতে মুক্তিযুদ্ধ ও বর্তমান প্রজন্মের স্ফুলিঙ্গের গল্প তুলে ধরেছি।’

রাষ্ট্রীয়ভাবে তৈরি হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু’ নামের বায়োপিক। প্রধান চরিত্রে আরিফিন শুভ অভিনীত এ ছবিটির পরিচালক ভারতের শ্যাম বেনেগাল। বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে এ ছবিটি বঙ্গবন্ধুর সবচেয়ে বড় ক্যানভাস হিসেবে সামনে আসবে চলতি বছরেই।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে ‘টুঙ্গিপাড়ার দুঃসাহসী খোকা’ চলচ্চিত্র তৈরি করছেন মুশফিকুর রহমান গুলজার। এপ্রিলে যার শুটিং। সালমান হায়দারের শিশুতোষ চলচ্চিত্র ‘শেখ রাসেলের আর্তনাদ’ও নির্মিতব্য। এখানেও বঙ্গবন্ধুর চরিত্রটি থাকছে।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে সোহেল রানা বয়াতি তৈরি করছেন ‘তর্জনী’ চলচ্চিত্র। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা থেকে দাফন পর্যন্ত সময়টুকু উঠে আসবে ‘৫৭০’ নামের এক অজানা গল্পের চলচ্চিত্রের মাধ্যমে। তৈরি করছেন আশরাফ শিশির। বাপ্পি অভিনীত এ ছবির কাজ শেষ পর্যায়ে।

এছাড়া ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের অন্ধকারতম ঘটনাটি নিয়ে তৈরি হয়েছে ‘আগস্ট ১৯৭৫’। পরিচালক সেলিম খান। এর অন্যতম চরিত্রে অভিনয় করেছেন তাসকিন রহমান।

চলচ্চিত্র নির্মাতা ও পরিচালক নেতা মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বলিউড নির্মাতা শ্যাম বেনেগাল ও হলিউডের আরও একটি ছবি আছে। এ দুটিতেই মূলত বঙ্গবন্ধু পূর্ণাঙ্গভাবে উঠে আসবেন। বাকিগুলো বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন অংশ ও বয়সভিত্তিক। সব মিলিয়ে পূর্ণদৈর্ঘ্য ৭-৮টি ছবি এই মুহূর্তে তৈরির পথে আছে।’

জানা যায়, পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবির কয়েকগুণ স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র তৈরি হচ্ছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবুর রহমানকে ঘিরে। যার সবগুলোই প্রকাশের কথা রয়েছে চলতি বছর।

তাই মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীকে ঘিরে চলতি বছরেই সর্বাধিক মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকেন্দ্রিক চলচ্চিত্র মুক্তি পাচ্ছে। যা গত ৫০ বছরেও সম্ভব হয়নি নানা কারণে। চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এর দায়টা যতটা না চলচ্চিত্রের মানুষদের, ততধিক রাজনৈতিক।

/এমএম/এমওএফ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ঢাবিতে ছাত্রলীগ-ছাত্রদল দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষ
ঢাবিতে ছাত্রলীগ-ছাত্রদল দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষ
সড়কে ফসল মাড়াই, দুর্ঘটনার শঙ্কা
সড়কে ফসল মাড়াই, দুর্ঘটনার শঙ্কা
লঙ্কানদের পথে বাধা হয়ে থাকলেন মুশফিক
লঙ্কানদের পথে বাধা হয়ে থাকলেন মুশফিক
৩১ মে থেকে পিছিয়ে হজ ফ্লাইট শুরু ৫ জুন
৩১ মে থেকে পিছিয়ে হজ ফ্লাইট শুরু ৫ জুন
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বরিশালে থাকতে হচ্ছে বুবলীকে
বরিশালে থাকতে হচ্ছে বুবলীকে
‘টপ গান’ নিয়ে টম ক্রুজ আসছেন ঢাকায়
‘টপ গান’ নিয়ে টম ক্রুজ আসছেন ঢাকায়
লালগালিচায় কালো ধোঁয়া!
কান উৎসব ২০২২লালগালিচায় কালো ধোঁয়া!
একসঙ্গে উন্মুক্ত হলো আসাফ্উদ্দৌলাহর ১৩ গান
একসঙ্গে উন্মুক্ত হলো আসাফ্উদ্দৌলাহর ১৩ গান
ট্রেলারে বাবা প্রসেনজিৎ মা মিথিলা
ট্রেলারে বাবা প্রসেনজিৎ মা মিথিলা