আলোচনায় মীর ব্রাদার্সের ‘বাবু খাইছো?’ (ভিডিও)

Send
সুধাময় সরকার
প্রকাশিত : ১৪:০৮, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২৪, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০

মীর ব্রাদার্স: মীর মারুফ ও মীর মাসুমসোলস ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য মীর মাসুম। স্বাধীন সংগীত পরিচালক হিসেবেও তার নাম বেশ বিকশিত। অন্যদিকে তার আপন ছোট ভাই মীর মারুফ। বড় ভাই ব্যান্ড ও আধুনিক বাংলা গান নিয়ে কাজ করলেও ছোট ভাইয়ের পথটা খানিক ভিন্ন। তিনি জড়িয়েছেন ডিজে মিউজিকে। পরিচিতি ডিজে মারুফ হিসেবে।
এবার দুই ভাই এক হয়ে চমকে দিলেন সবাইকে। মীর ব্রাদার্স নাম দিয়ে যৌথ উদ্যোগে প্রকাশ করলেন র‌্যাগে টোন ফরমেটের একটি র‌্যাপ গান। ঈগল মিউজিকের ব্যানারে সদ্য প্রকাশিত ‘বাবু খাইছো?’ নামের গানচিত্রটি এরমধ্যে রূপ নিয়েছে ভাইরালে। না, শুধু নামের জন্য নয়- গানটির লিরিক, টিউন, কম্পোজিশন এবং ভিডিও প্রেজেন্টেশন আভাস দিয়েছে নতুন কিছুর।
৫ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত এই গানটি ইউটিউবে ১৩ সেপ্টেম্বর দুপুর নাগাদ ভিউ অতিক্রম করেছে ১৪ লাখ ৮২ হাজারেরও বেশি। দুই ভাইয়ের যৌথ সংগীতায়োজনে গানটির কথা লিখেছেন ও কণ্ঠ দিয়েছেন মীর মারুফ। এরমধ্যে গানটির ব্রিজ লাইন বা কোরাস অংশটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন তাসনিম আনিকা। মীর মাসুম জানান, পুরো গান না শুনিয়ে অনেকটা মজার ছলেই এই কোরাস অংশটি তাসনিম আনিকার কণ্ঠ থেকে উদ্ধার করে নেন তিনি। যার ফলে গানটির ক্রেডিট লাইনেও তার নামটি উল্লেখ নেই।
এদিকে গানটির সুবাদে ডিজে মারুফ এখন সবার প্রশংসায় ভাসছেন। আর এমন ঘটনায় তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন বড় ভাই মীর মাসুম। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মারুফ আর আমার বেড়ে ওঠা একসঙ্গে। ও তবলা শিখতো, আমি গান। এরপর আমি চলে গেলাম ব্যান্ড হয়ে কম্পোজিশনে। মারুফ নিজেকে নিয়ে গেলো ডিজে মিউজিকে। ফলে দুই ভাই মিউজিকে থাকলেও পথটা ছিল আলাদা। এই গানটির মাধ্যমে আমরা আবার শৈশবে ফিরে গেলাম!’
মীর মাসুম জানান, গানটি নিয়ে প্রায় এক বছর কাজ করেছেন দুই ভাই। কয়েক দফা লিরিক ও কম্পোজিশন বদলিয়েছেন। মীর ব্রাদার্স চেষ্টা করেছে গানটি দিয়ে এই প্রজন্মের প্রেমিক-প্রেমিকাদের মন ও মুখের ভাষাগুলোকে স্যাটায়ারের মাধ্যমে তুলে ধরার।
মীর ব্রাদার্স: মীর মারুফ ও মীর মাসুমমীর মারুফ বলেন, ‘‘নাগরিক প্রেমিক-প্রেমিকাদের মুখে প্রায়শই শোনা যায় ‘বাবু খাইছো?’ প্রশ্নটি। এটা এই সময়ের ভালোবাসার গান। তবে সেটা নেগেটিভ ভালোবাসা। গানটির মাধ্যমে আমরা এই সময়ের প্রেমের প্রেক্ষাপট তুলে ধরার চেষ্টা করেছি স্যাটায়ার ভঙ্গিতে।’’
মীর ব্রাদার্সের পরিকল্পনা, এভাবে আরও বেশ কিছু মজার গান উপহার দেওয়া। কারণ, তাদের প্রথম কাজেই বাজিমাত। অথচ গানটি তৈরি করার সময় দুই ভাই বারবার ভাবছিলেন একটাই, ‘কী বলবে মানুষ!’
মীর মাসুম বলেন, ‘দুই ভাই মিলে নিজেদের গায়েনবাড়ি স্টুডিওতে গানটি বানিয়েছি বেশ মজা করে। কিন্তু প্রকাশের সময় বড় দ্বিধা কাজ করেছে। বারবার মনে হয়েছে, পরিচিতরা বকা দেবে। বলবে, এগুলা কীসব বাজে গান করলা! এই ভয়ে গানটি প্রকাশের পর কাউকে বলিনি। চুপচাপ বসে ছিলাম। ভাবলাম, আমার নাম যেহেতু ক্রেডিট লাইনে না, বোধ হয় সমালোচনা থেকে বেঁচে যাবো! এরপর দেখলাম, সবাই আমাদের খুঁজে বের করছে! প্রশংসা করছে। গানটি প্রকাশের এক সপ্তাহ পর দ্বিধা কাটলো। শ্রোতাদের কাছ থেকে আশাতীত সাড়া পাচ্ছি। মীর ব্রাদার্সের জন্য এটা আশীর্বাদের মতো। আমরা একসঙ্গে আরও কয়েকটি প্রজেক্টের প্ল্যান করছি এখন।’

বাবু খাইছো?:

/এফএস/এমএমজে/

লাইভ

টপ