চমক নিয়ে আসছে বিয়েবাড়ির গান ‘কাবাবের হাড্ডি’

Send
সুধাময় সরকার
প্রকাশিত : ১৮:২৬, অক্টোবর ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৪, অক্টোবর ১৯, ২০২০

 

‘কাবাবের হাড্ডি’র পাত্র-পাত্রীহাসান ব্রাদার্স। প্রতীক হাসান ও প্রীতম হাসান—সংগীতে নিজ নিজ স্বকীয়তা গড়ে তুলেছেন দুজনে। আবার জুটি হিসেবেও তৈরি করেছেন আলাদা অবস্থান।
বিয়েবাড়িকেন্দ্রিক দুই ভাইয়ের যৌথ গান ‘বেয়াইনসাব’ ও ‘গার্লফ্রেন্ডের বিয়া’ তারই প্রতিধ্বনি। দুটো গানই সুপার হিট।
সেই ধারাবাহিকতায় আবারও বিয়েবাড়ির গান নিয়ে হাজির হচ্ছেন নন্দিত শিল্পী খালিদ হাসান মিলুর যোগ্য দুই উত্তরসূরি। এবার তারা বাঁধলেন ‘কাবাবের হাড্ডি’।
রেকর্ডিং ও ভিডিও শুটিং এরমধ্যেই শেষ। নাম থেকে আভাস পাওয়া যায়, এবারের গানটিতেও থাকছে আগের দুটির রেশ। সংগীত পরিচালক প্রীতম হাসান জানান, এবারের আয়োজন আরও সমৃদ্ধ ও ব্যতিক্রম।
তবে এর প্রমাণের জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২৫ অক্টোবর নাগাদ। এদিন গানচিল মিউজিকের ইউটিউব চ্যানেলে উন্মুক্ত হবে এটি, জানান প্রযোজক আসিফ ইকবাল। ধারণা করা যায়, গানটির ভিডিও এবার সব পুরনো চমককে হার মানাবে, আয়োজনের গল্প থেকে সেটুকু স্পষ্ট। কারণ, এটি নির্মাণ করেছেন সময়ের হিট নির্মাতা কাজল আরেফিন অমি। যেটি আবার সুপারভাইজ করেছেন আরেক দামি নির্মাতা আদনান আল রাজীব। আর এতে দুই ভাইয়ের পাশাপাশি মডেল হিসেবে কাজ করেছেন সময়ের আলোচিত তিন অভিনেতা মারজুক রাসেল, জিয়াউল হক পলাশ ও শবনম ফারিয়া। সঙ্গে আরও আছেন হিট ইউটিউবার কেটো ভাই।
গানটি প্রসঙ্গে প্রীতম হাসান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‌‘এটা আমার সর্বশেষ ওয়েডিং সং। যেটাতে আমি পারফর্ম করলাম। এরপর আর করার ইচ্ছা নেই। এটা আমি কম্পোজ করলাম। গেয়েছেন প্রতীক ভাই। সত্যি বলতে, গানটি করার কারণ বিষণ্নতা থেকে মুক্তি পাওয়া ও দেওয়া। কারণ, করোনায় আমরা সবাই খুব বিষাদের মধ্যে যাচ্ছি। সেখান থেকে নিজেদের বের করে আনার জন্যই মজা করে কাজটি করা।’
এদিকে ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’-খ্যাত নির্মাতা কাজল আরেফিন অমি নাটক বানিয়ে তারকা বনে গেলেও এর আগে মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেননি। ফিরিয়েছেন অসংখ্য প্রস্তাব। তবে এই কাজটি করার প্রথম কারণ গানটি পছন্দ হওয়া।
আদনান আল রাজীব, আসিফ ইকবাল ও কাজল আরেফিন অমি
অমি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আদনান আল রাজীব ভাই একদিন ফোন করে গানটি শোনালেন। শুনেই মুগ্ধ হই। ভাই বললেন, এই কাজটি করে দাও। আমি সুপারভাইজ করবো। দুটো বিষয় মিলিয়ে মনে হলো, সম্ভবত এই কাজটির জন্যই এতদিন মিউজিক ভিডিও করিনি!’

কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অমি বলেন, “বিশাল আয়োজন ছিল। ৭৩ জন শিল্পী ছিলেন ইউনিটে। প্রায় দেড়শ’ লোকের ইউনিট। কাজটি করে খুব মজা পেয়েছি। টেকনো মোবাইল ও গানচিল মিউজিকের সহযোগিতায় এত বড় কাজ সুন্দরভাবে শেষ করতে পারলাম। আর আদনান ভাই তো ছাতা হিসেবে ছিলেনই। আমার ধারণা, দর্শক খুব মজা পাবে।’

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ
X