নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে উত্তেজনা, সাবেক সেনা সদস্যদের ডিগ্রি ফেরতের হুমকি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৫৫, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৫৫, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৬

দিল্লিতে বিক্ষোভ করছেন এবিভিপি নেতারাজওহর লাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড সংঘটিত হয় অভিযোগ করে নিজেদের বিশ্ববিদ্যালয় ডিগ্রি ফেরত দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন ভারতের সাবেক সেনা সদস্যরা। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আফজাল গুরুর ফাঁসির বর্ষপূর্তি পালন এবং ফাঁসির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হওয়ার প্রেক্ষাপটে এমন হুমকি দেন তারা। এদিকে ওই বিক্ষোভের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া ছাত্রনেতা কানহাইয়া কুমারকে তিনদিনের জন্য পুলিশি হেফাজতে পাঠানো হয়েছে। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে নির্দোষ ছাত্রদের হয়রানি না করার আহ্বান জানিয়েছেন বামপন্থী নেতারা।
মঙ্গলবার ভারতের পার্লামেন্টে হামলার দায়ে দোষী সাব্যস্ত আফজাল গুরুকে ২০১৩ সালে ফাঁসিতে ঝোলানোর বর্ষপূর্তি পালন করে ভারতের জওহরলাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল শিক্ষার্থী। সেসময় তারা আফজাল গুরুকে ফাঁসিতে ঝোলানোর বিরুদ্ধে স্লোগান দেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় প্রবল আপত্তি জানিয়ে বৃহস্পতিবার বসন্ত কুঞ্জ (উত্তর ) থানায় ভারতীয় দ্ণ্ডবিধির ১২৪ এ (দেশদ্রোহিতা) ও ১২০ বি (ফৌজদারি চক্রান্ত) মামলা দায়ের করেন বিজেপি নেতা মহেশ গিরি ও বিজেপির ছাত্র শাখা এবিভিপি। আর শুক্রবার গ্রেফতার হন ছাত্র সংসদের সভাপতি কানহাইয়া কুমার।
বিশ্ববিদ্যালয়ে আফজালের সমর্থনে বিক্ষোভ হওয়ায় শনিবার ক্ষোভ জানান সাবেক সেনা সদস্যরা। এ ধরনের ঘটনাকে রাষ্ট্রদ্রোহী কর্মকাণ্ড হিসেবে উল্লেখ করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বরাবর একটি চিঠি দেন তারা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ ধরনের কর্মকাণ্ড চললে নিজেদের ডিগ্রি ফেরত দেবেন বলে হুমকি দেন সেনা সদস্যরা।

এদিকে জওহর লাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে শনিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেন বামপন্থী দলের নেতারা। রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় ছাত্রনেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানান তারা। সিপিআইয়ের সাধারণ সচিব সিতারাম ইয়েচুরি বলেন, ‘নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ একেবারেই ভুল। সরকার মূলত রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবকের মতাদর্শকে বাস্তবায়িত করছে।’

পুলিশের অভিযোগের তালিকায় যেসব শিক্ষার্থীদের নাম রয়েছে তারা কেউ ভারতবিরোধী স্লোগান দেননি বলেও দাবি করেন তিনি।

জবাবে কোনও নির্দোষ ব্যক্তিকে হয়রানি করা হবে না বলে বাম নেতাদের আশ্বস্ত করেন রাজনাথ।

এদিকে কানহাইয়াকে গ্রেফতারের ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের কেন সন্ত্রাসীদের মতো করে ক্যাম্পাস থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা। এদিকে ইন্ডিয়া গেটের কাছে পাল্টা বিক্ষোভ করেন এবিভিপি নেতারা। সূত্র: এনডিটিভি

/এফইউ/

লাইভ

টপ