X
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪
৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সিলেটে ‘উজান বইযাত্রা’

সাহিত্য ডেস্ক
১৪ নভেম্বর ২০২২, ১৯:৪৭আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০২২, ১৯:৪৭

‘গল্প ও কবিতার মতোই অনুবাদও আলাদা একটি সাহিত্য মাধ্যম। কোনো অনুবাদ শতভাগ হয় না। শতভাগ সফল অনুবাদ বলেও কিছু নেই।’ উজান বইযাত্রায় সিলেটের মঞ্চে দাঁড়িয়ে এই কথাগুলো বলছিলেন অতিথি আলোচক কবি, প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক রাজু আলাউদ্দিন।

ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহের পর বিভাগীয় শহর সিলেটে অনুষ্ঠিত হলো ‘উজান বইযাত্রা’। নগরীর জিন্দাবাজারে নজরুল একাডেমিতে শনিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত এই বইযাত্রার আলোচনায় রাজু আলাউদ্দিন আরও বলেন, ‘মানুষ হিসেবে আমরা সবাই অপর-প্রাণ। আমাদের সেই জিনিস ভালো লাগে যা আমার মতো নয়, যা অন্যরকম। এই কারণেই আমাদের বিদেশি খাবার, বিদেশি চলচ্চিত্র ও শিল্প-সাহিত্য ভালো লাগে। অনুবাদ আমাদের অপরকে নিজের করে নেওয়ার এবং অন্যের সঙ্গে সংযোগ ও সমন্বয়ের মাধ্যমে সমৃদ্ধ হওয়ার সুযোগ করে দেয়।’ কোরিয়ার সাহিত্য অনুবাদের মাধ্যমে সেই ধরনের সংযোগ ও সমন্বয়ে আমরা সমৃদ্ধ হব বলে জানান তিনি।

‘উজান বইযাত্রা’র এই আয়োজনেও ছিল আলোচনা, কবিতাপাঠ, আবৃত্তি ও বইমেলা। আলোচকরা প্রকাশনা সংস্থা উজানের অনুবাদ বই ‘কোরিয়ার গল্প’ ও ‘কোরিয়ার কবিতা’ নিয়ে আলোচনা করেন। বই দুটি আধুনিক কোরীয় সাহিত্যের প্রতিনিধিত্বশীল কবি ও কথাসাহিত্যিকদের সেরা লেখার অনুবাদ সংকলন। ‘কোরিয়ার কবিতা’ অনুবাদ করেছেন ছন্দা মাহবুব এবং ‘কোরিয়ার গল্প’ সম্পাদনা করেছেন ষড়ৈশ্বর্য মুহম্মদ। সংকলনগুলোর প্রত্যেক মূল কবি ও লেখকের সাথে যোগাযোগ করে অনুমতি নিয়েই সব লেখা অনুবাদ ও প্রকাশ করেছে উজান। প্রকাশনা সংস্থা উজানকে এ ব্যাপারে এবং প্রকাশনা সংক্রান্ত ব্যাপারে সহযোগিতা দিয়েছে এলটিআই কোরিয়া। সিলেটে উজান বইযাত্রার আলোচনার শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে এসব তথ্য দেন লেখক ও সাংবাদিক ষড়ৈশ্বর্য মুহম্মদ। তিনি বলেন, ‘প্রায় তিরিশ কোটি মানুষের, বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম জাতিগোষ্ঠীর ভাষা বাংলা হলেও বাংলাদেশে অধিকাংশ বই সচরাচর ছাপা হয় খুব কম, তিনশ থেকে পাঁচশ কপি। যে দেশে শিক্ষার হার বাড়ছে সেখানে বইকে কীভাবে আরও গ্রহণযোগ্য ও অপরিহার্য করা যায়, কীভাবে পাঠাভ্যাস বাড়ানো যায় সে লক্ষ্যে উজান শুরু করেছে এই বইযাত্রা। এবার দুটি বইকে কেন্দ্র করে উজান বইযাত্রার আয়োজন। আগামীতে অন্যান্য বই নিয়েও নতুন নতুন উদ্যোগ নেবে উজান।’

অনুষ্ঠানে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক কবি ও প্রাবন্ধিক ড. জফির সেতু বলেন, ‘চরম দারিদ্র্য ও বিপর্যয় থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে উন্নতির শীর্ষের দিকে যাত্রা করা দেশ দক্ষিণ কোরিয়ার মন ও মননের হদিস নিতে আমরা তাদের চলচ্চিত্র, নাটক, সংস্কৃতি ও সাহিত্যের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছি।’ তিনি বলেন, ‘অনেক দিন আমাদের এশিয়ার সাহিত্যের দিকে খেয়াল ছিল না। আমরা দূরের খবর নিয়েছি, কিন্তু আমাদের মনিপুরী, চাকমা, মারমাদের সাহিত্যের খবর নিইনি। এখন এসে সেই অবস্থার পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। নানা জনজাতির শিল্প-সাহিত্যের প্রতি নজর ও মনোযোগ পড়ছে আমাদের। কোরিয়ার প্রাচীন সাহিত্যে মহাকাব্যিক রচনা আছে। আগামীতে কোরিয়া বা এই অঞ্চলের প্রাচীন ও মধ্যযুগের সাহিত্যের অনুবাদ পেলে হয়তো আমরা সেখানেও সার্ভেন্তেসের মতো লেখক পেতে পারি, যার খবরই হয়তো এখনও আমরা জানি না।’

লিডিং ইউনিভার্সিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক কবি ও প্রাবন্ধিক মোস্তাক আহমাদ দীন বলেন, ‘বাংলাসাহিত্যের কবি ও লেখকদের বিশ শতকের নব্বই ও শূন্য দশকের পরে একটা পরিবর্তন এসেছে। তারা তাদের স্থানিক বৈশিষ্ট্যকে সাহিত্যে তুলে ধরতে চাইছেন। কোরিয়ার গল্প এবং কোরিয়ার কবিতায় আমরা সেই স্থানিকতার প্রতিফলন দেখছি। উজান প্রকাশনের কাছে আমরা ভবিষ্যতে কোরিয়ার সাহিত্যের শুরু দিকের রচনাগুলোর অনুবাদ চাইব।’

অনুষ্ঠানে সভাপতি সিলেট ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক অনুষদের ডিন লেখক অধ্যাপক ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ বলেন, ‘অনুবাদ আমাদের সত্তাকে সম্প্রসারিত করে।’ অন্যান্য অনুবাদ গ্রন্থের মতোই এই দুটি অনুবাদ বইও আমাদের পাঠকদের সত্তাকে সম্প্রসারিত করবে এবং পাঠককে আরও বেশি পাঠে উদ্বুদ্ধ করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘কোরিয়ার জনগোষ্ঠী বিরাট পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে এখন সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায়। তাদের সংস্কৃতি ও জাতিগত ভিন্নতা আছে, কিন্তু তাদের অগ্রযাত্রায় যে নিষ্পেষণ, নির্যাতন, বিপর্যয়, শ্রম ও সংগ্রাম আছে তা আমাদের মানুষের জন্য হতে পারে উদ্দীপনার।’

অনুষ্ঠানে লোকগবেষক ও সাংবাদিক সুমনকুমার দাশ বলেন, অনুবাদ সাহিত্য আমার চর্চার ক্ষেত্র নয়। তারপরও পাঠক হিসেবে এই বই দুটি বইয়ে আমার ভালো লাগার জায়গাটি হচ্ছে, বাংলার প্রাচীন সাহিত্য এবং লোকসাহিত্যের অনেক উপাদানের মিল পেয়েছি। এই মিল আমাকে খুশি করেছে। যেসব সাহিত্য আমরা জানি না, সেসব আরও জানতে চাই।’

কবি মুহম্মদ ইমদাদ বলেন, ‘কোরিয়ার সাহিত্য তথা দূরপ্রাচ্যের সাহিত্য অনেক সমৃদ্ধ। এই সাহিত্যে বৌদ্ধ ও কনফুসিয়াসের মতো প্রাচীন মনীষীদের চিন্তাধারার প্রভাব এবং ভৌগলিক কারণেও একটা ধীর, শান্ত ব্যাপার আছে, বিশুদ্ধ সাহিত্য সৃষ্টির একটা ব্যাপার আছে এবং বিশুদ্ধ সাহিত্য সৃষ্টিও হয়েছে সেখানে। কোরিয়াতে জাপানি আগ্রাসন হয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, দুই কোরিয়ার যুদ্ধ হয়েছে, রাজনৈতিক এত উত্থানপতন, তারপরও কোরিয়ার কবিতা কিন্তু উচ্চকণ্ঠ নয়। আধুনিকতার পশ্চিমা ধারণার মতো নয় কোরিয়ার সাহিত্য। এই অনুবাদগুলোর মাধ্যমে আমাদের সামনে সাহিত্যের স্বর্ণভাণ্ডার তুলে ধরা হয়েছে।’

সিলেটের ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহকারী অধ্যাপক কবি প্রণবকান্তি দেব বলেন, অনুবাদ সাহিত্য নিয়ে এক অতৃপ্তি আমাদের পাঠকদের মধ্যে রয়ে গেছে। আমরা মনে হয়, এই বইগুলো তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ ও উৎসাহিত করবে। উজান বইযাত্রার এই আয়োজন কোরিয়ার সাহিত্যের প্রতি আমাদের লেখক ও গবেষকদের আগ্রহী করে তুলবে বলেও জানান তিনি। উজান বইযাত্রায় আলোচকরা কোরিয়ার গল্প ও কবিতা থেকে উদাহরণ তুলে ধরে তাদের ভালো লাগা লেখাগুলোর ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। এই লেখাগুলোর বিষয়বস্তু ও আঙ্গিকের প্রসঙ্গ উত্থাপন করে সেগুলো নিয়ে তারা বাংলাসাহিত্যের নানা প্রসঙ্গ টেনে তুলনামূলক আলোচনা করেন।

‘উজান বইযাত্রা ও বইমেলা’র এই আয়োজনে আলোচনার পাশাপাশি ছিল ‘কোরিয়ার কবিতা’ বই থেকে আবৃত্তি। আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী আল আমিন এবং সান্ত্বনা দাস। স্বরচিত কবিতা পড়েন গায়ত্রী রায়। পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সঞ্জয় কুমার নাথ। এই আয়োজনে ছিল উজান প্রকাশনের বই নিয়ে বিশেষ বইমেলা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের কবি-সাহিত্যিক এবং শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনের লোকজন।

উজান বইযাত্রায় আলোচক রাজু আলাউদ্দিন তাঁর বক্তব্যের শুরুতেই বলছিলেন, ‘অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের সঙ্গে বিশ্বের সরাসরি সংযোগের সেতু সিলেট।’ সিলেটের মানুষের কয়েক শত বছরের ইংল্যান্ড যাত্রা ও অভিবাসনের ইতিহাসের সূত্র ধরে একথা বলেন তিনি। সিলেটের মানুষের এই বিশ্বমন্যতার কাছে কোরিয়ার সাহিত্যকে উপস্থাপন এক উল্লেখযোগ্য উদ্যোগ বলে প্রশংসা করেন প্রায় সব আলোচকই।

বাংলাভাষায় অনূদিত ‘কোরিয়ার গল্প’ ও ‘কোরিয়ার কবিতা’ বই দুটি নিয়ে ‘উজান বইযাত্রা ও বইমেলা’র আয়োজন এর আগে অনুষ্ঠিত হয়েছে ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও ঢাকায়। পরবর্তীতে একই ধরনের আয়োজন থাকবে রাজশাহীতে।

/জেড-এস/
সম্পর্কিত
সর্বশেষ খবর
সংকট থেকে উত্তরণে তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্বান মেননের
সংকট থেকে উত্তরণে তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্বান মেননের
কানে ঝুলছে বাংলাদেশের দুল!
কান উৎসব ২০২৪কানে ঝুলছে বাংলাদেশের দুল!
ধোনি-জাদেজার লড়াই ছাপিয়ে প্লে অফে বেঙ্গালুরু
ধোনি-জাদেজার লড়াই ছাপিয়ে প্লে অফে বেঙ্গালুরু
হীরকজয়ন্তীর পর সংগঠনে মনোযোগ দেবে আ.লীগ
হীরকজয়ন্তীর পর সংগঠনে মনোযোগ দেবে আ.লীগ
সর্বাধিক পঠিত
মামুনুল হক ডিবিতে
মামুনুল হক ডিবিতে
৩০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি তৃতীয় শ্রেণির সরকারি কর্মচারীদের
৩০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির দাবি তৃতীয় শ্রেণির সরকারি কর্মচারীদের
আমেরিকা যাচ্ছেন ৩০ ব্যাংকের এমডি
আমেরিকা যাচ্ছেন ৩০ ব্যাংকের এমডি
নির্মাণের উদ্দেশ্যে ভালো সড়ক কেটে ২ বছর ধরে খাল বানিয়ে রেখেছে
নির্মাণের উদ্দেশ্যে ভালো সড়ক কেটে ২ বছর ধরে খাল বানিয়ে রেখেছে
গরমে সুস্থ থাকতে কোন কোন পানীয় খাবেন? ইলেক্ট্রোলাইট পানীয় কখন জরুরি?
গরমে সুস্থ থাকতে কোন কোন পানীয় খাবেন? ইলেক্ট্রোলাইট পানীয় কখন জরুরি?