X
সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২
২৪ শ্রাবণ ১৪২৯

সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাস আর নেই

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
০৩ নভেম্বর ২০১৭, ২১:০৮আপডেট : ০৪ নভেম্বর ২০১৭, ০১:৩২



আব্দুর রহমান বিশ্বাস সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাস আর নেই (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)। শুক্রবার রাত  ৮ টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন। তার মেজ ছেলে মাহমুদ হাসান বিশ্বাসের বরাত দিয়ে বিএনপির মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
ইউনাইটেড হাসপাতাল থেকে  ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এনডিপি) ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা জানান,  ‘আশঙ্কাজনক অবস্থায় অবস্থায় বনানীর গ্র্যান্ড প্রেসিডেন্ট প্যালেস বাসভবন থেকে সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাসকে গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছিল। এরপর রাত ৮.৪০ মিনিটে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’ 

মরহুমের নামাজে জানাজা শনিবার (৪ নভেম্বর) প্রথমে ঢাকায় ও পরে বরিশালে অনুষ্ঠিত হবে। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাসের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। রাষ্ট্রপতি শুক্রবার (৩ নভেম্বর) এক শোক বার্তায় তার আত্মার শান্তি কামনা এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে গভীর শোক এবং সমবেদনা জানিয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার এই তথ্য জানিয়েছেন। 

উল্লেখ্য, ১৯২৬ সালে ১ সেপ্টেম্বর আবদুর রহমান বিশ্বাস বরিশালের শায়েস্তাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে স্নাতক (সম্মান) ও এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৫০-এর দশকে আইন পেশায় দেন তিনি।  এরপর ১৯৬২ ও ১৯৬৫ সালে পূর্ব পাকিস্তান আইন সভার সদস্য নির্বাচিত হন।

১৯৬৭ সালে আবদুর রহমান বিশ্বাস পাকিস্তান প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে জাতিসংঘের ২২ তম অধিবেশনে যোগ দেন। 

১৯৭৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বরিশাল থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৯-৮০ সালে তিনি জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভায় পাটমন্ত্রী ও ১৯৮১-৮২ সালে বিচারপতি আব্দুস সাত্তারের মন্ত্রিসভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছিলেন। ১৯৯১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ৪ এপ্রিল ১৯৯১ তিনি জাতীয় সংসদের স্পিকার নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯১ সালে তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালের ৮ অক্টোবর তার মেয়াদ শেষ হয়।

 

/এসটিএস/এমএনএইচ/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
বঙ্গমাতা বেঁচে আছেন কোটি মানুষের প্রাণে: ওবায়দুল কাদের
বঙ্গমাতা বেঁচে আছেন কোটি মানুষের প্রাণে: ওবায়দুল কাদের
শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ
শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ
রাশিয়াকে ‘নিশ্চিহ্ন’ করতে চায় পশ্চিমারা: মেদভেদেভ
রাশিয়াকে ‘নিশ্চিহ্ন’ করতে চায় পশ্চিমারা: মেদভেদেভ
বঙ্গবন্ধুর সফলতার পেছনে ছিলেন বঙ্গমাতা: পরিকল্পনামন্ত্রী
বঙ্গবন্ধুর সফলতার পেছনে ছিলেন বঙ্গমাতা: পরিকল্পনামন্ত্রী
এ বিভাগের সর্বশেষ
বঙ্গমাতা বেঁচে আছেন কোটি মানুষের প্রাণে: ওবায়দুল কাদের
বঙ্গমাতা বেঁচে আছেন কোটি মানুষের প্রাণে: ওবায়দুল কাদের
চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ অনেকটা মানুষের সৃষ্টি: প্রধানমন্ত্রী
চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষ অনেকটা মানুষের সৃষ্টি: প্রধানমন্ত্রী
নাই কথাটা তিনি কখনও বলতেন না, মায়ের স্মৃতিচারণে প্রধানমন্ত্রী 
নাই কথাটা তিনি কখনও বলতেন না, মায়ের স্মৃতিচারণে প্রধানমন্ত্রী 
বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক পেলেন ৫ নারী
বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক পেলেন ৫ নারী
হত্যাকাণ্ডের ২ মাস পর ঢাবিতে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’
হত্যাকাণ্ডের ২ মাস পর ঢাবিতে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’