X
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২
২৩ আষাঢ় ১৪২৯

নতুন ইসির প্রথম পরীক্ষা কুমিল্লা সিটি নির্বাচন

আপডেট : ১৬ মে ২০২২, ১৫:৫৯

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে আটঘাঁট বেঁধে নামছে নতুন নির্বাচন কমিশন (ইসি)। দায়িত্ব নেওয়ার পর এটিই ইসির প্রথম ‘নির্বাচনি পরীক্ষা’ হতে যাচ্ছে। এ পরীক্ষায় ভালোভাবে উত্তীর্ণ হয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চায় কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন কমিশন। এজন্য এই ভোটটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানে আগেভাগেই পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে এই সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। এদিকে কুমিল্লা সিটি ছাড়াও একইদিনে অনুষ্ঠেয় উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন গ্রহণযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ করতে জোরালো পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

নির্বাচন কমিশন গত ২৫ এপ্রিল কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১৭ মে, বাছাই ১৯ মে, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৬ মে এবং প্রতীক বরাদ্দ ২৭ মে। একই দিন থেকে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণাও শুরু হবে। নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৫ জুন। কুমিল্লা সিটি ছাড়াও একই তফসিলে দেশের ১৩৮টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি), তিনটি উপজেলা ও সাতটি পৌরসভার ভোট হবে।

আইনি বিধান অনুযায়ী, কুমিল্লা সিটির ভোট ১৬ মে’র মধ্যে অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও কাজী হাবিবুল আউয়ালের কমিশন ওই সময়ের মধ্যে তা সম্পন্ন করতে পারেনি। কমিশন সূত্রে জানা গেছে, তাদের প্রস্তুতিতে কিছুটা ঘাটতি ও রমজানের মধ্যে নির্বাচনি কার্যক্রম এড়াতে ইসি ভোট পেছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। 

নতুন ইসির দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম ভোটের প্রস্তুতি দেখে মনে হচ্ছে, কমিশন নিজেদের শুরুটা সুন্দর করতে চায়। এই পরীক্ষায় ভালোভাবে উত্তীর্ণ হতে চায়। যার জন্য সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে তারা। প্রথমবারের মত একটি বড় ভোটের পুরোটাই সিসিটিভির আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। ১০৫টি কেন্দ্রের বাইরে একটি করে এবং ৬৪০টি ভোট কক্ষের প্রতিটিতে একটি করে সিসিটিভি স্থাপনের মাধ্যমে পুরো নির্বাচনটি মনিটরিংয়ের আওতায় আনার উদ্যোগ নিয়েছে ইসি। নির্বাচনি এলাকায় ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) কুমিল্লা সিটি এলাকায় তিনজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে নেমেছে। রবিবার (১৫ মে) মাঠে নেমেছে এক প্লাটুন বিজিবি। ইসির যুগ্ম সচিব আসাদুজ্জামান বলেছেন, নির্বাচনি এলাকায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখা ও সব ধরনের শোডাউন বন্ধ করার জন্য স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

এদিকে তফসিল ঘোষণার পর থেকেই সেখানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং নাশকতা ঠেকাতেই এ ব্যবস্থা। এছাড়া নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পুলিশের তল্লাশি অভিযান জোরদার করা হয়েছে। অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রসহ বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ও র‌্যাব। নিবন্ধন ও লাইসেন্সবিহীন মোটরসাইকেলের বিরুদ্ধে পুলিশকে বেশি তৎপর হতে দেখা গেছে।

এদিকে যেকোনও অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তাদেরও তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এরই মধ্যে গত শনিবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে একটি সভাকে কেন্দ্র করে দলটির মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতকে ডেকে সতর্ক করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আবার কেন্দ্রীয় পর্যায়েও নির্বাচন কমিশন থেকে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও রিটার্নিং কর্মকর্তাকে চিঠি দিয়ে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন নতুন নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব গ্রহণ করে। দায়িত্ব নেওয়ার পর সাড়ে তিন মাসের মাথায় কুমিল্লা সিটি করপোরেশনসহ স্থানীয় সরকার পরিষদের এসব প্রতিষ্ঠানের ভোট হতে যাচ্ছে। নতুন কমিশনের অধীনে এটিই প্রথম এবং বড় নির্বাচন। কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রথম ভোটটি সুন্দর ও সুচারুভাবে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নিজেদের অবস্থানের জানান দিতে চায় এই কমিশন। একইসঙ্গে তাদের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে দেশবাসীকেও বার্তা দিতে চায় তারা।

ইভিএমে (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) অনুষ্ঠিতব্য এই ভোটে ভোটারদের ইভিএমে ভোটদানে প্রশিক্ষিত করতে দুই দিন আগে ১৩ জুন সব ক্ষেত্রে মক ভোটিং অনুষ্ঠিত হবে।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে ইসির প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আপনাদের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের ‘ব্যাপক’ প্রস্তুতির কথা শুনতে পাচ্ছি। তারা সব কেন্দ্রে সিসিটিভির কথা বলছে। এজন্য যে ৮শ’র মত সিসিটিভি লাগবে এটা অন্য সোর্সে হয়তো সংগ্রহ করতে পারেন। কিন্তু সরকারি অর্থে এটা সত্যিই কঠিন। আমি তথ্য প্রযুক্তির একজন অভিজ্ঞ হিসেবে বলতে পারি এত সংখ্যক সিটিটিভি বসিয়ে সেটার মনিটরিংসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনাটা সহজ নয়। তাছাড়া রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্তরা কতটা দক্ষ সেটাও বিবেচনায় নিতে হবে।

বিজিবি মোতায়েন প্রসঙ্গে সাবেক এই কমিশনার বলেন, আগেভাগে বিজিবি মোতায়েন হলেই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে এটা বিশ্বাস করি না। তারা যে স্বচ্ছভাবে দায়িত্ব পালন করবেন তা গ্যারান্টি কী?

কুমিল্লার প্রস্তুতির প্রসঙ্গ টেনে ইসির সাবেক এই কর্মকর্তা আরও বলেন, একটি প্রতিষ্ঠানের ভোটের জন্য আমরা ব্যাপক তোড়জোড় করছি। কিন্তু একইদিনে আরও অনেক ভোট আছে। তার জন্য প্রস্তুতি কী? একটি ভোট ভালো হলেই কী আমরা খুশি হয়ে যাবো? 

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু  ও নিরপেক্ষ করতে নির্বাচনি আইন অনুসারে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে অতিরিক্ত কিছু ব্যবস্থা নেওয়ারও পরিকল্পনা আছে। আচরণবিধির ব্যাপারে কোনও শিথিলতা বরদাশত করা হবে না। প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় কেউ যাতে শোডাউন করতে না পারে, তার জন্য আগে থেকে বিজিবিসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী মোতায়েন রাখা হচ্ছে। এরই মধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, তারা কাজ শুরু করেছে। প্রার্থিতা চূড়ান্ত হওয়ার পর প্রধান নির্বাচন কমিশনার কুমিল্লায় যাবেন এবং সেখানে সব প্রার্থীর সঙ্গে বৈঠক করবেন।

তারা কুমিল্লায় সব ক্ষেত্রে সিসিটিভি স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে উল্লেখ করে কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, প্রতিটি ভোটকক্ষে ও ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে কমিশন নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রতিটি কক্ষে একটি করে এবং কেন্দ্রের বাইরে একটি সিসিটিভি থাকবে। একজন পোলিং কর্মকর্তা তার চেয়ারে বসে যেভাবে সবকিছু পর্যবেক্ষণ করেন, সিসি ক্যামেরার মাধ্যমেও সেভাবেই পর্যবেক্ষণ করা হবে এবং সব ভিডিও ফুটেজ সংরক্ষণ ও পর্যালোচনা করা হবে। কোনও কেন্দ্র সম্পর্কে অভিযোগ পাওয়া গেলে সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কুমিল্লা সিটি ছাড়াও একই দিনে বেশ কিছু ইউপিসহ স্থানীয় সরকার পরিষদের ভোট রয়েছে সেগুলো কী সমান গুরুত্ব পাচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে এই কমিশনার বলেন, আমরা কোনও ভোটকেই কম গুরুত্ব দিচ্ছি না। ইউনিয়ন পরিষদসহ সব ভোটই আমাদের কাছে সমান। সেইভাবে সবগুলোকেই আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি। কোনওটি বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে না আবার কোনওটিকে কম গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না।

নতুন ইসির প্রথম ভোট হিসেবে এটাকে আপনারা অগ্নিপরীক্ষা মনে করছেন কী না- এ প্রশ্নের জবাবে ইসি আলমগীর বলেন, আমরা কোনও পরীক্ষাই মনে করছি না। কমিশন হিসেবে ভোট করা আমাদের সাংবিধানিক দায়িত্ব। আমরা এটাকে মনে করে সেটা পালন করছি।

রিটার্নিং কর্মকর্তার ৯ নির্দেশনা

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের জন্য নয়টি নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। শনিবার এ নির্দেশনা দিয়ে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়। নির্বাচন কমিশনের নয়টি নির্দেশনা হলো মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও দাখিলের সময় মিছিল বা শোডাউন করা যাবে না; পাঁচজনের বেশি সমর্থক নিয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা দেওয়া যাবে না; প্রতীক বরাদ্দের আগে কোনও প্রচারণা শুরু করা যাবে না; পথসভা ও ঘরোয়া সভা ছাড়া কোনও জনসভা ও শোভাযাত্রা করা যাবে না; পোস্টার হতে হবে নির্ধারিত মাপের এবং সাদাকালো; পোস্টার ও লিফলেটে প্রার্থী নিজের ছবি ও প্রতীক ছাড়া অন্য কারও নাম, ছবি বা প্রতীক ছাপাতে পারবেন না (তবে দলীয় মনোনীত প্রার্থীর দলের প্রধানের ছবি ছাপানো যাবে); মেয়র প্রার্থী প্রত্যেক থানা এলাকায় সর্বোচ্চ দুটি ও কাউন্সিলর প্রার্থী সর্বোচ্চ একটি ক্যাম্প বা অফিস স্থাপন করতে পারবেন; নির্বাচনি প্রচারণায় কোনও ফটক, তোরণ ও আলোকসজ্জা করা যাবে না; সিটি করপোরেশন (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা–২০১৬–এর অন্যান্য বিধিবিধান অনুসরণ করে নির্বাচনি প্রচার–প্রচারণা চালাতে হবে।

/এমআর/ইউএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ভাড়া নিয়ে বিরোধ, হেলপারের ধাক্কায় চাকার নিচে যাত্রী
ভাড়া নিয়ে বিরোধ, হেলপারের ধাক্কায় চাকার নিচে যাত্রী
ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পার হচ্ছে মোটরসাইকেল 
ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পার হচ্ছে মোটরসাইকেল 
চার বছর পর এলো সুযোগ
চার বছর পর এলো সুযোগ
‘মলমপার্টি চক্রের’ ১৪ সদস্য গ্রেফতার
‘মলমপার্টি চক্রের’ ১৪ সদস্য গ্রেফতার
এ বিভাগের সর্বশেষ
কোন দলের সংলাপ কবে
কোন দলের সংলাপ কবে
ইসির সঙ্গে সাক্ষাতে সহযোগিতার আশ্বাস ওইসিডির
ইসির সঙ্গে সাক্ষাতে সহযোগিতার আশ্বাস ওইসিডির
ওইসিডি’র প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে ইসি
ওইসিডি’র প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে ইসি
৪ কেন্দ্রে আবার ভোট চেয়ে সাক্কুর আবেদন
৪ কেন্দ্রে আবার ভোট চেয়ে সাক্কুর আবেদন
‘আমরা বাজে মতলব নিয়ে আসিনি’
আগস্ট থেকে সংলাপ‘আমরা বাজে মতলব নিয়ে আসিনি’