বঙ্গবন্ধু সুস্থ, অভিনন্দন বাণী পাঠালেন দেশবাসীকে

Send
উদিসা ইসলাম
প্রকাশিত : ০৭:৫০, আগস্ট ১৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৫০, আগস্ট ১৪, ২০২০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ওই বছরের ১৪ আগস্টের ঘটনা।)

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশবাসীকে অভিনন্দন বাণী পাঠিয়ে দেশ গঠনের জন্য অধিক কঠোর পরিশ্রম করতে বলেন। লন্ডনে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার আব্দুস সুলতান ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদের সঙ্গে আলোচনাকালে প্রধানমন্ত্রী একথা জানান। রোগশয্যা থেকে বঙ্গবন্ধু দেশবাসী, সহকর্মী, দলীয় নেতা, দলীয় কর্মী ছাত্র ও চাষিদের প্রতি অভিনন্দন জানান। তাদের বাণী পাঠিয়ে বিধ্বস্ত দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, দেশের বহু সমস্যা আছে এবং জাতীয় পুনর্গঠনে আন্তরিক সহযোগিতা ও কঠোর পরিশ্রমের দ্বারা এসব সমস্যার সমাধান করা হবে। জনসাধারণকে দেশের সমস্যাকে নিজেদের সমস্যা বলে ভাবতে হবে এবং জাতির শান্তি প্রগতি ও সমৃদ্ধির জন্য নিজেদের সাধ্যমতো কাজ করতে হবে।

দৈনিকবাংলা, ১৫ আগস্টদুই দেশের ক্রমবর্ধমান বন্ধুত্ব বিশ্বশান্তির সহায়ক হবে
প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর পাঠানো এক বাণীতে জানান, বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের পক্ষ থেকে আপনাকে এবং আপনার মাধ্যমে ভারতীয় জনগণকে স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী উপলক্ষে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। আমাদের জাতীয় সংকটকালে আপনারা যে সাহায্য দিয়েছেন সেই জন্য আমরা কৃতজ্ঞ। আমি আপনার সুখী ও দীর্ঘ জীবন এবং ভারতীয় জনগণের শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করছি। ভারতের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশের নেতারা ভারতীয় জনগণের সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বাণী দেন। বাসস পরিবেশিত খবরে বলা হয়, ভারতের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপ্রধান আবু সাঈদ চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, অস্থায়ী প্রধানমন্ত্রী সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ ভারতীয় নেতাদের কাছে অভিনন্দন বাণী পাঠান। ভারতের স্বাধীনতা লাভের এই ক্ষণ স্মরণ করে ভারতের রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো এক অভিনন্দন বার্তায় রাষ্ট্রপ্রধান আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের পক্ষ থেকে আমি আপনাকে ও আপনার মাধ্যমে ভারতের জনগণকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই। আমি বিশ্বাস করি, দুই দেশের মধ্যকার বন্ধুত্ব আরও সুদৃঢ় হবে এবং বিশ্বশান্তি বিশেষ করে এই অঞ্চলে শান্তিরক্ষায় সহায়ক হবে।

হাসপাতাল ছাড়লেন বঙ্গবন্ধু
পিত্তকোষের অস্ত্রোপচারের পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এইদিন একটি হোটেলে স্থানান্তর করা হয়। চিকিৎসকদের সুপারিশ অনুযায়ী আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। ইংল্যান্ডের রানীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক এডওয়ার্ড মুর প্রধানমন্ত্রীর অস্ত্রোপচার করেন। হোটেলে এক সপ্তাহ অবস্থানের পর পরিপূর্ণ সুস্থতার জন্য প্রধানমন্ত্রী সুইজারল্যান্ডে ১০ দিন অবস্থান করবেন বলে আশা করা হয়। এদিকে প্রধানমন্ত্রী গুরুত্বপূর্ণ ফাইলপত্র দেখেন এবং বাংলাদেশের হাইকমিশনার, পররাষ্ট্র সেক্রেটারি ও অন্যান্য অফিসারের সঙ্গে আলোচনা করেন। তিনি প্রতিদিন কতিপয় লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

বন্যা নিয়ন্ত্রণের মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে ২০ বছর লাগবে

প্রধান প্রধান নদী ও বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য বাংলাদেশ ও ভারত কর্তৃক গঠিত যৌথ নদী কমিশন দুই দেশের সরকারের নিকট রিপোর্ট পেশ করার সিদ্ধান্ত হয়। সরকার ব্যাপক ধ্বংস বন্ধ করতে একটি মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করবে এবং এটি যথার্থ ও বিশাল পরিকল্পনা হওয়ায় পাঁচ বছর আগে এর প্রথম পর্বের কাজ শেষ হবে না বলে আন্দাজ করেন সংশ্লিষ্টরা।

১০০ নয়, জমিসীমা হোক ৫০ বিঘা

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান দাবি করেন, প্রত্যেক পরিবারের সর্বোচ্চ জমির পরিমাণ ১০০ বিঘার স্থলে ৫০ বিঘা করা হোক। তিনি কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর এলাকায় এক জনসভায় বক্তৃতাকালে বলেন, একথা সত্য নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বেড়েছে। এজন্য সরকারি নীতি দায়ী নয়। এটি নতুন কোনও ঘটনা নয়। সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে মুক্ত সব দেশেই এমন আর্থিক সংকট দেখা গেছে। পাকিস্তান বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল।

/এনএস/এমওএফ/

লাইভ

টপ