X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

‘ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স’ সংশোধন চেয়ে আইনি নোটিশ

আপডেট : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১২:২৫

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রায় অনুযায়ী রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রম (ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স) সংশোধন চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এবং সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে এ নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) অ্যাডভোকেট আবু তালেব নোটিশ প্রেরণের তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মুসতাসীম তানজিরের পক্ষে নোটিশটি প্রেরণ করা হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, অ্যাটর্নি জেনারেল, জেলা জজ, বিচারকগণ, বীর উত্তম, বীর বিক্রম, বীর প্রতীক এবং অন্যান্য জাতীয় বীরত্ব পদক পাওয়া মুক্তিযোদ্ধা এবং একুশে পদক ও স্বাধীনতা পদক জয়ী জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগণকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিদ্যমান রায় অনুযায়ী ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্সে (রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রম) ক্রম প্রদান করতে বলা হয়েছে।

'২০১৬ সালের ১০ নভেম্বর ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স আপিল বিভাগের রায় প্রকাশিত হয়। ওই রায়ে বলা হয়- ১. সংবিধান যেহেতু রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন, সেহেতু রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রমের শুরুতেই সাংবিধানিক পদাধিকারীদের গুরুত্ব অনুসারে রাখতে হবে। ২. জেলা জজ ও সমমর্যাদার বিচার বিভাগীয় সদস্যরা রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রমের ২৪ নম্বর থেকে ১৬ নম্বরে সরকারের সচিবদের সমমর্যাদায় উন্নীত হবেন। জুডিশিয়াল সার্ভিসের সর্বোচ্চ পদ জেলা জজ। অন্য প্রশাসনের সর্বোচ্চ স্তরে সচিবরা রয়েছেন। ৩. অতিরিক্ত জেলা জজ ও সমমর্যাদার বিচার বিভাগীয় সদস্যদের অবস্থান হবে জেলা জজদের ঠিক পরেই, রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রমের ১৭ নম্বরে।'

রায়ে আরও বলা হয়েছে, রাষ্ট্রীয় পদমর্যাদাক্রম কেবল রাষ্ট্রীয় আচার-অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে। নীতিনির্ধারণী ক্ষেত্র বা অন্য কোনও কার্যক্রমে যেন এর ব্যবহার হয় না।

নোটিশ পাওয়ার ৭ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৬ সালের ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্সের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০০৬ সালে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের তৎকালীন মহাসচিব মো. আতাউর রহমান একটি রিট দায়ের করেন। রিটের শুনানি নিয়ে জেলা জজদের পদমর্যাদা সচিবদের নিচে দেখানো কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট।

রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে ২০১০ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি দেওয়া রায়ে আটটি নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট। সে অনুসারে নতুন তালিকা তৈরি করতে সরকারকে ৬০ দিন সময় বেঁধে দেওয়া হয়। পরে ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।  আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে রাষ্ট্রীয় পদ মর্যাদাক্রমে নতুন কয়েকটি বিষয় সংযোজন কর হয়। একুশে ও স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত, বীর উত্তম খেতাবপ্রাপ্তদের ‘যথাযথ সম্মান’ দিতে রায়ে বলা হয়।

ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্স বা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের পদমর্যাদাক্রম হচ্ছে একটি প্রোটোকল তালিকা বা রাষ্ট্রের নির্বাহী, আইন ও বিচার বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের পদগুলোর ক্রমবিন্যাস। তবে একজন ব্যক্তি যখন একের অধিক পদে অধিষ্ঠিত থাকেন তখন সর্বোচ্চ পদটিই বিবেচনা করা হয়।

/বিআই/ইউএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
প্রচারণার শুরুতেই ইসিরা যাচ্ছেন নির্বাচনি এলাকায়
প্রচারণার শুরুতেই ইসিরা যাচ্ছেন নির্বাচনি এলাকায়
টেক্সাসের স্কুলে হামলা: ‘ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিল পুলিশ’
টেক্সাসের স্কুলে হামলা: ‘ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিল পুলিশ’
বাটলারের ব্যাটে স্বপ্নভঙ্গ কোহলিদের
বাটলারের ব্যাটে স্বপ্নভঙ্গ কোহলিদের
ইঞ্জিনসহ বগি লাইনচ্যুত, ঢাকা-রাজশাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ
ইঞ্জিনসহ বগি লাইনচ্যুত, ঢাকা-রাজশাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত