X
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২
২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ঢাকায় ভোরে বজ্রপাত, ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে সতর্ক থাকার আহ্বান

সঞ্চিতা সীতু
০২ অক্টোবর ২০২২, ১০:১৮আপডেট : ০২ অক্টোবর ২০২২, ১০:২০

রবিবার (২ অক্টোবর) ভোরে আকাশে মুহুর্মুহু বিদ্যুতের ঝলকানি আর বিকট বজ্রপাতের শব্দে ঘুম ভাঙে রাজধানীবাসীর। একদিকে বজ্রপাতের বিকট আওয়াজ অন্যদিকে মুষলধারে বৃষ্টি। গত প্রায় দেড় মাস ধরেই মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে রাজধানীসহ সারাদেশেই প্রায়শই বৃষ্টি হচ্ছে। তবে আজ ভোরে রাজধানীতে যে বজ্রপাতের আওয়াজ, তা ছিল ভয়ঙ্কর। প্রায় আধাঘণ্টা ধরে টানা একের পর এক বিদ্যুৎ চমকানোর আলো, আর শব্দে কেঁপে ওঠে রাজধানীর মানুষ। 

অবশ্য এতে এখন পর্যন্ত কোনও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। বিদ্যুৎ চমকানো ভোর ৬টা নাগাদ কমে এলেও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি এখনও পড়ছে। তবে পরিমাণ কমে গেছে অনেক।

এদিকে বৃষ্টির কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েন সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে অফিসগামী সাধারণ মানুষ। একদিকে যানবাহন সংকট, অন্যদিকে রাস্তায় রাস্তায় পানি জমে দুর্ভোগ আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস

আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ২৪ ঘণ্টায় খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের দু'এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া ও বিজলি চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও বিচ্ছিন্নভাবে মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে।

বজ্রপাতের ঘটনা

২০২১ সালের মে-জুন মাসে বজ্রপাতে জেলায় ২৪ জন নারী পুরুষের মৃত্যু হয়। এ কারণে সিরাজগঞ্জ জেলাকে বজ্রপাতের হট স্পট ঘোষণা করা হয়। চলতি বছরের ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জেলায় বজ্রপাতে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।

সর্বশেষ গত ২৯ সেপ্টেম্বর বজ্রপাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় অবস্থিত বধ্যভূমির। এ সময় বধ্যভূমির মূল অংশের ওপর বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। মুহূর্তেই ভেঙে যায় বধ্যভূমির বেদী, কিছু ভাস্কর্য ও পাকা দেয়াল। পুড়ে যায় সৌরবিদ্যুৎ প্যানেল।

এর আগে গত ২৪ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচংয়ে বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। গত  মাসে সবচেয়ে বড় ঘটনা ঘটে ৯ সেপ্টেম্বর। সেদিন সিরাজগঞ্জ, উল্লাপাড়া উপজেলার পঞ্চক্রোশী ইউনিয়নের মাটিকোড়া গ্রামে বজ্রপাত এর শিকার হয়ে একই পরিবারের সাত জনসহ মোট ১২ জন নিহত হন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্ষা ও এ মৌসুমের আগে-পরে খুব বেশি বজ্রপাত হয়। কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তন ও আবহাওয়ার ধরনের কারণে এ মৌসুমের সময়টা অনেক বেড়ে গেছে। এমন সব সময়ে বজ্রপাত হচ্ছে- যা সাধারণ মানুষের প্রত্যাশারও বাইরে। এসব বজ্রপাতে মৃত্যুর ৭২ শতাংশই কৃষক।

বিশেষজ্ঞ মতামত 

বজ্রপাতের বিষয়ে আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, দেশে এখন মৌসুমি বায়ু সক্রিয়। এই বায়ুর প্রভাবে আকাশে গভীর সঞ্চারনশীল মেঘের আনাগোনা বেড়ে যায়। আজ ভোরেও একই ঘটনা ঘটে। এই ধরনের মেঘের দ্রুত নড়াচড়ায় ঘর্ষণের সৃষ্টি হয়। এতে ঘন ঘন বিদ্যুৎ চমকানোসহ বজ্রপাত ঘটেছে। এটি অস্বাভাবিক মনে হলেও বাস্তবে পরিবেশের পরিবর্তনে এই ধরনের ঘটনা স্বাভাবিক। 

বজ্রপাতের পূর্বাভাসের বিষয়ে আরেক আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, বজ্রপাতের পূর্বাভাসের ব্যবস্থা আছে। আমরা লিখে দিচ্ছি, কোন কোন জেলায় বজ্রপাত হতে পারে। তবে এটাকে আরও কার্যকর করতে মোবাইল সিস্টেমে এলার্ট বা সতর্ক করার ব্যবস্থা থাকা দরকার। 

তিনি বলেন, গাছপালা কম থাকার কারণে এমনটি হচ্ছে। তালগাছের মতো বড় গাছগুলো কমে গেলে বজ্রপাতের ঝুঁকি বেশি থাকে। যে কারণে লোকজনকে আরও বেশি সতর্ক থাকা দরকার। পাশাপাশি বজ্রপাতে করণীয় বিষয়ে সবাইকে অবহিত করা জরুরি।  

ঝড়বৃষ্টির সময় বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে ৯টি পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর:

১. পাকা বাড়ির নীচে আশ্রয় নিন। ঘন ঘন বজ্রপাত হতে থাকলে কোনো অবস্থাতেই খোলা বা উঁচু জায়গায় না থাকাই ভালো। এ অবস্থায় সবচেয়ে ভালো হয় যদি কোনও দালানের নীচে আশ্রয় নিতে পারেন।

২. উঁচু গাছপালা ও বিদ্যুতের লাইন থেকে দূরে থাকুন। উঁচু গাছপালা বা বিদ্যুতের খুঁটিতে বজ্রপাতের সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই এ সব জায়গায় যাবেন না বা কাছাকাছি থাকবেন না। ফাঁকা জায়গায় কোনও যাত্রী ছাউনি বা বড় গাছ ইত্যাদিতে বজ্রপাত হওয়ার সম্ভাবনা অত্যন্ত বেশি থাকে।

৩. জানালা থেকে দূরে থাকুন। বজ্রপাতের সময় বাড়িতে থাকলে জানালার কাছাকাছি থাকবেন না। জানালা বন্ধ রাখুন এবং ঘরের ভেতর থাকুন।

৪. ধাতব বস্তু এড়িয়ে চলুন। বজ্রপাত ও ঝড়ের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিঁড়ির রেলিং, পাইপ ইত্যাদি স্পর্শ করবেন না। এমনকি ল্যান্ড লাইন টেলিফোনও স্পর্শ করবেন না। বজ্রপাতের সময় এগুলোর সংস্পর্শ এসে অনেকে আহত হন।

৫. টিভি-ফ্রিজ থেকে সাবধান। বজ্রপাতের সময় বৈদ্যুতিক সংযোগযুক্ত সব যন্ত্রপাতি স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। টিভি, ফ্রিজ ইত্যাদি বন্ধ করা থাকলেও ধরবেন না। বজ্রপাতের আভাষ পেলে আগেই এগুলোর প্লাগ খুলে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করুন। অব্যবহৃত যন্ত্রপাতির প্লাগ আগেই খুলে রাখুন।

৬. বজ্রপাতের সময় রাস্তায় গাড়িতে থাকলে যত দ্রুত সম্ভব বাড়িতে ফেরার চেষ্টা করুন। যদি প্রচণ্ড বজ্রপাত ও বৃষ্টির সম্মুখীন হন তবে গাড়ি কোনো পাকা ছাউনির নীচে নিয়ে যান। এ সময় গাড়ির কাঁচে হাত দেওয়া বিপজ্জনক হতে পারে।

৭. ঝড়-বৃষ্টির সময় রাস্তায় জল জমা আশ্চর্য নয়। তবে বজ্রপাত অব্যাহত থাকলে সে সময় রাস্তায় বের না হওয়াই মঙ্গল। একে তো বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা থাকে। উপরন্তু কাছাকাছি কোথাও বাজ পড়লে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়ার সম্ভাবনাও থেকে যায়।

৮. বজ্রপাতের সময় চামড়ার ভেজা জুতা বা খালি পায়ে থাকা খুবই বিপজ্জনক। যদি একান্ত বেরোতেই হয় পা ঢাকা জুতো পরে বের হোন। রবারের গাম্বুট এ ক্ষেত্রে সব থেকে ভালো কাজ করবে।

৯. বজ্রপাতের সময় রাস্তায় চলাচলের সময় আশেপাশে খেয়াল রাখুন। যে দিকে বজ্রপাতের প্রবণতা বেশি, সেই দিক বর্জন করুন। কেউ আহত হলে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন।

/ইউএস/
পটুয়াখালীতে সাংবাদিকের ওপর সন্ত্রাসী হামলা, আটক ২
পটুয়াখালীতে সাংবাদিকের ওপর সন্ত্রাসী হামলা, আটক ২
শিবচরে দাদন চোকদার হত্যা: আরও দুই অভিযুক্ত গ্রেফতার
শিবচরে দাদন চোকদার হত্যা: আরও দুই অভিযুক্ত গ্রেফতার
সেনেগালকে গুঁড়িয়ে শেষ আটে ইংল্যান্ড
সেনেগালকে গুঁড়িয়ে শেষ আটে ইংল্যান্ড
জবিতে ৪ সাংবাদিকের ওপর ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে হামলার অভিযোগ
জবিতে ৪ সাংবাদিকের ওপর ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে হামলার অভিযোগ
সর্বাধিক পঠিত
১১ মাসে নাগরিকত্ব ছাড়লেন ৪০১ বাংলাদেশি
১১ মাসে নাগরিকত্ব ছাড়লেন ৪০১ বাংলাদেশি
আজ অব্দি শাকিব খানের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা নিইনি: বুবলী
আজ অব্দি শাকিব খানের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা নিইনি: বুবলী
হাসপাতালে কী হয়েছিল মাইশার সঙ্গে?
আঙুলের অপারেশন করতে গিয়ে মৃত্যুহাসপাতালে কী হয়েছিল মাইশার সঙ্গে?
‘ঘটনার পেছনের ঘটনা’ জেনে ফারিণের দুঃখপ্রকাশ
‘ঘটনার পেছনের ঘটনা’ জেনে ফারিণের দুঃখপ্রকাশ
শাকিব-অপুর সংসার নিয়ে মুখ খুললেন বুবলী (ভিডিও)
শাকিব-অপুর সংসার নিয়ে মুখ খুললেন বুবলী (ভিডিও)