ভুয়া ওয়ারেন্ট জারির সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করতে নির্দেশ

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:৫৯, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:১৭, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

হাইকোর্ট

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কৃষি বিভাগের প্রোগ্রাম অফিসার আওলাদ হোসেনকে ১৫ জানুয়ারি হাইকোর্টে হাজির হতে বা হাজির করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ভুয়া পরোয়ানা তৈরিতে জড়িতদের খুঁজে বের করতে সিআইডিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়াও শেরপুরের পরোয়ানা যাচাই সাপেক্ষে আওলাদ হোসেনকে জামিন দিতে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। জামিন পেলে তাকে শেরপুর কারাগার থেকে মুক্তি দিতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এর মধ্যে যদি নতুন কোনও পরোয়ানা আসে তার সতত্যও যাচাই করতে বলেছেন হাইকোর্ট।  

মঙ্গলবার (১০ ডিসেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।
আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। সঙ্গে ছিলেন এমাদুল হক বশির। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।  

পরে জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘আওলাদ যদি আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে কারাগারের বাইরে থাকেন তাহলে তিনি নিজেই হাইকোর্টে হাজির হবেন। আর যদি কারাগারে থাকেন তাহলে তাকে কারা কর্তৃপক্ষ হাইকোর্টে হাজির করবেন।’

গত ৩০ অক্টোবর আওলাদের বিরুদ্ধে কক্সবাজার থেকে পরোয়ানা আছে বলে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর একের পর এক পরোয়ানা মাথায় নিয়ে প্রথমে কক্সবাজার পরে রাজশাহী তারপর বাগেরহাট হয়ে বর্তমানে তিনি শেরপুরের মামলায় কারাগারে আছেন।
তবে আওলাদের আইনজীবীর দাবি, এসব পরোয়ানা জাল জালিয়াতির মাধ্যমে করা। তাই তাকে বেআইনিভাবে আটক রাখা হয়নি তা নিশ্চিতে হাইকোর্টে হাজির করতে নির্দেশনা চেয়ে রিট করেন আওলাদের স্ত্রী।


/বিআই/এসটি/

লাইভ

টপ