প্রাথমিকের দফতরি পদ রাজস্ব খাতে নেওয়ার প্রস্তাব জনপ্রশাসনে

Send
এস এম আববাস
প্রকাশিত : ১৯:২৮, অক্টোবর ১৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২৮, অক্টোবর ১৭, ২০২০

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দফতরি কাম প্রহরীদের চাকরি রাজস্ব খাতে নিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি পাঠানো ওই প্রস্তাবে ২৭ হাজার ৮৪৫টি পদ সৃষ্টির কথা বলা হয়। জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘দফতরি কাম প্রহরীর ২৭ হাজার ৮৪৫টি পদ সৃষ্টির প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন। ’
আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দফতরি কাম প্রহরী চাকরি রাজস্ব খাতে স্থানান্তরের জন্য আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে আসছিল দফতরি কাম প্রহরীরা। আন্দোলনের এক পর্যায়ে গত ১৪ সেপ্টেম্বর শেষ কর্ম দিবসে সাবেক মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ্ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবকে তাদের পদ রাজস্ব খাতে নিতে প্রস্তাব করে চিঠি দেন।
পদ সৃষ্টির ওই প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি ভবন, স্থাপনা, মেশিনারিজ, ল্যাপটপ, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ও ইকুইপমেন্ট রক্ষণাবেক্ষণের বিষয়টি বিবেচনা করে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্ব খাতে পদ সৃষ্টি ৬৮টি ছাড়া অবশিষ্ট ৩৬ হাজার ৯৮৮টি বিদ্যালয়ে একটি করে দফতরি কাম প্রহরী পদ আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে সৃষ্টি করা হয়।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আউটসোর্সিং হিসেবে সৃষ্টি ও প্রস্তাবিত ‘দফতরি কাম প্রহরী’ পদগুলোকে আউটসোর্সিংয়ের পরিবর্ততে রাজস্ব খাতে মোট ৬৪ হাজার ৮৪৩টি পদ সৃষ্টির জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত চেকলিস্ট অনুযায়ী ছক তৈরি পূরণ করে গত ২২ আগস্ট প্রস্তাব পাঠানো হয়। ওই প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছিল।
কিন্তু জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি পদটি আউটসোর্সিং প্রক্রিয়ায় ‘সেবা গ্রহণ নীতিমালা, ২০১৮’ -এর তফশিলভুক্ত বিধায় ওই পদ রাজস্ব খাতে সৃষ্টির সুযোগ নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে গত ১৯ মার্চ পাঠানো চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে অধিদফতরকে তা জানায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার কারণে দফতরি কাম প্রহরীরা আন্দোলনে নেমেছিলেন। আন্দোলনের পর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর নতুন করে মন্ত্রণালয়ে রাজস্ব খাতে নেওয়ার প্রস্তাব পাঠালে আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেন তারা।
সম্প্রতি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হলেও তা প্রত্যাহার করা হতে পারে এমন সন্দেহ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের সামনে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঐক্য পরিষদ। রবিবার (১৮ অক্টোবর) সকাল ৯টা থেকে অধিদফতরের সামনে অবস্থান কর্মসূচি শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের আহ্বায়ক খলিলুর রহমান।
উল্লেখ্য, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দফতরি কাম প্রহরী পদে অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা আউটসোর্সিংয়ের নীতিমালা অনুযায়ী জনবল নিয়োগ না করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বরের স্মারকমূলে অনুমোদিত নীতিমালা অনুযায়ী দফতরি কাম প্রহরী পদে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে জনবল নিয়োগ করা হয়।

/এমআর/

লাইভ

টপ