X
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২
১৭ আশ্বিন ১৪২৯
বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদ

যে মসজিদ ঘিরে গড়ে উঠেছে আজকের চকবাজার

আতিক হাসান শুভ
২৮ মে ২০২১, ১০:০০আপডেট : ২৯ মে ২০২১, ১৩:৩৭

বাংলাদেশের যে স্থাপনাশৈলী এখনও বিমোহিত করে চলেছে অগণিত মানুষকে, তার মধ্যে আছে দেশজুড়ে থাকা অগণিত নয়নাভিরাম মসজিদ। এ নিয়েই বাংলা ট্রিবিউন-এর ধারাবাহিক আয়োজন ‘বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদ’। আজ থাকছে ঢাকার চকবাজার শাহী মসজিদ।

সবাই ডাকে চক মসজিদ নামে। আশপাশের আধুনিক সভ্যতার দাপটে বোঝার উপায় নেই যে, মাঝের মসজিদটি চার শ’ বছরের পুরনো।

সংস্কারের কারণে অবকাঠামোয় পরিবর্তন এসেছে কয়েকদফা। তবে মূল কাঠামো গড়ে ওঠে ১৬৭৬ সালে সুবাদার শায়েস্তা খানের আমলে। চকবাজারের পশ্চিম প্রান্তে মসজিদটি নির্মাণ করেন তিনি। মূলত চকবাজার শাহী মসজিদকে কেন্দ্র করেই চকবাজারের উদ্বোধন হয়েছিল। পরে এ মসজিদকে ঘিরেই বাজারের সম্প্রসারণ হয়।

যে মসজিদ ঘিরে গড়ে উঠেছে আজকের চকবাজার যুগের পর যুগ সমহিমায় ঐতিহ্য বহনকারী মসজিদটির কয়েক দফা সংস্কার হয়েছে। মসজিদটির উত্তর দেয়াল ভেঙে সম্প্রসারণ করা হয়। পূর্বদিকের বাড়তি অংশে নির্মাণ করা হয় বহুতল ভবন। পূর্বের তিনটি গম্বুজ ভেঙে নির্মাণ করা হয়েছে আরেকটি তলা। নতুন করে দ্বিতলা ছাদের ওপর বানানো হয়েছে তিনটি গম্বুজ।

এত এত সংস্কারের চাপে চক মসজিদটি ঠিক আগের চেহারায় নেই আর। মসজিদটির দেয়াল ছিল মুঘল রীতি অনুযায়ী পুরু। প্রবেশ দরজার খিলানগুলো ছিল চওড়া ও প্রশস্ত।

চকবাজার শাহী মসজিদটির মূল অবকাঠামো ছিল মাটি থেকে প্রায় দশ ফুট উঁচুতে। আদিতে এর দৈর্ঘ্য ছিল ৫০ ফুট, প্রস্থ ২৬ ফুট। মসজিদের দুই পাশে দুটি আর মাঝে চারটি খিলান। চারকোণে বুরুজের ওপর ছোট ছোট মিনারও ছিল।

উত্তর-পূর্ব কোণে ছিল সুউচ্চ মিনার। এখন অবশ্য এর উচ্চতা আরও বাড়ানো হয়েছে। মিনারের নিচে ছিল মসজিদের প্রধান প্রবেশদ্বার। দক্ষিণ দিক দিয়েও প্রবেশ করা যেত। মুঘল আমলে চক মসজিদই ছিল ঢাকার কেন্দ্রীয় মসজিদ। তখন মাইক ছিল না বলে আজান দেওয়া হতো মিনার থেকে। কাছাকাছি অন্যান্য মসজিদের মুয়াজ্জিনরা এই চক মসজিদের আজান শুনেই আজান দিতেন।

যে মসজিদ ঘিরে গড়ে উঠেছে আজকের চকবাজার মুঘল রীতিতে ঈদের চাঁদ দেখা দিলে এই মসজিদের সামনে থেকেই দেওয়া হতো তোপধ্বণি। রমজান মাসে তারাবির নামাজের সময় কিংবা বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবে মসজিদটি ঝাড়বাতির আলোয় আলোকিত হতো। ইফতারির সময় বিভিন্ন বাড়ি ও দোকানপাট থেকে ইফতারি আসতো।

আরেকটি সামাজিক রীতি ছিল এ চক মসজিদ ঘিরে। জুমার নামাজের দিন চারপাশের বাড়ি থেকে মিষ্টান্ন পাঠানো হতো এখানে। নামাজ শেষে যা বিতরণ করা হতো মুসুল্লিদের মাঝে।

বতর্মানে চকবাজার শাহী মসজিদের আয়তন আগের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ বাড়ানো হয়েছে। আগের সেসব রীতিও আর নেই। এখন মূল প্রবেশপথের সামনে একটি অর্ধগম্বুজ ভল্ট আছে। তাতে দেখা যায় চমৎকার নকশা।

যে মসজিদ ঘিরে গড়ে উঠেছে আজকের চকবাজার মসজিদে প্রবেশের জন্য পূর্ব দিকে তিনটি প্রবেশপথ রয়েছে। প্রবেশপথগুলোর সমান্তরালে পশ্চিম দেয়ালে রয়েছে তিনটি মিহরাব। আগের মিহরাবগুলো প্রায় নষ্টই হয়ে গিয়েছিল। এখন নতুন করে নির্মাণ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় মিহরাবটি আদি বৈশিষ্ট্য রেখেই অষ্টকোণাকৃতি করা হয়েছে। বাকি দুটো আয়তকার।

/এফএ/
সম্পর্কিত
পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিললো প্রায় ৪ কোটি টাকা
পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিললো প্রায় ৪ কোটি টাকা
পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ১৫ বস্তা টাকা, চলছে গণনা
পাগলা মসজিদের দানবাক্সে ১৫ বস্তা টাকা, চলছে গণনা
বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর উদ্যোগে আলো-বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রেখে মসজিদের নকশা
বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর উদ্যোগে আলো-বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রেখে মসজিদের নকশা
বঙ্গবন্ধুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা মসজিদে শোক দিবস পালন
বঙ্গবন্ধুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা মসজিদে শোক দিবস পালন
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
গাজীপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ী ও কলেজছাত্র নিহত
গাজীপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ব্যবসায়ী ও কলেজছাত্র নিহত
হেফাজতে ইসলাম নেতা মাওলানা জুনায়েদের জামিন
হেফাজতে ইসলাম নেতা মাওলানা জুনায়েদের জামিন
রাতে ভক্তদের ভিড় পূজামণ্ডপে
রাতে ভক্তদের ভিড় পূজামণ্ডপে
৭ ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ডের
৭ ম্যাচের সিরিজ ইংল্যান্ডের
এ বিভাগের সর্বশেষ
করোনা: মসজিদে প্রবেশে বিধিনিষেধ জারি
করোনা: মসজিদে প্রবেশে বিধিনিষেধ জারি
টানা ৯৫ বছর কোরআন তিলাওয়াত হচ্ছে যে মসজিদে
বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদটানা ৯৫ বছর কোরআন তিলাওয়াত হচ্ছে যে মসজিদে
বায়তুল মোকাররমের খতিব নিয়োগে সময় নেবে সরকার?
বায়তুল মোকাররমের খতিব নিয়োগে সময় নেবে সরকার?
এখনও স্বমহিমায় শায়েস্তা খাঁর লালমাটিয়া শাহী মসজিদ
বাংলাদেশের প্রসিদ্ধ মসজিদএখনও স্বমহিমায় শায়েস্তা খাঁর লালমাটিয়া শাহী মসজিদ
ইন্টারন্যাশনাল আর্কিটেকচার অ্যাওয়ার্ড জিতলো দ্য গ্রেট মস্ক অব আলজিয়ার্স
ইন্টারন্যাশনাল আর্কিটেকচার অ্যাওয়ার্ড জিতলো দ্য গ্রেট মস্ক অব আলজিয়ার্স