সরকারের তৎপরতায় মানুষ করোনা সংকট মোকাবিলা করছে

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১২:৩১, জুন ০৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩১, জুন ০৩, ২০২০

মাহবুব উল আলম হানিফআওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন,  সরকারের তৎপরতায় মানুষ করোনায় সংকট মোকাবিলা করছে। জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর নিয়েছে। যে কারণে দেশের কোথাও খাদ্যের অভাব হয়নি।

মঙ্গলবার (২ জুন) রাতে ‘বিয়ন্ড দ্য প্যানডেমিক’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানের চতুর্থ পর্বে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। ‘করোনা সংকটে জনপ্রতিনিধিদের করণীয়’ শীর্ষক ডিজিটাল এ আলোচনার আয়োজন করে আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিআরআই।

আলোচনায় আরও অংশ নেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-১ এর সংসদ সদস্য সৈয়দা জাকিয়া নুর লিপি এবং ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা।

হানিফ বলেন, ‘করোনা সংকটে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের পাশে সরকারের ত্রাণের পাশাপাশি দলীয়ভাবে আমরা সারাদেশে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করেছি। প্রত্যেকটি নির্বাচনি এলাকায় সংসদ সদস্যরা এমনকি আমাদের দলীয় পর্যায়ের নেতারা জেলা থানা সভাপতি সাধারণ সম্পাদক এবং ইউনিয়ন সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ আমাদের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগসহ সবাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। সরকারের পাশাপাশি প্রত্যেকটা ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে আমরা খাদ্য ও নগদ অর্থ সহায়তাকরা হয়েছে। কৃষকের ধান কাটা থেকে শুরু করে হাসপাতালে রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। কর্মহীন ও অসহায় মানুষের পাশে দলীয় জনপ্রতিনিধিরা সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রেখেছেন, খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন। আর এ কারণেই দেশের কোথাও খাদ্যের অভাব হয়নি।’

ত্রাণে অনিয়ম সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘সরকারের ত্রাণের বাইরে দলীয় এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ৯০ লাখ ২৫ হাজার ৩২৭টি পরিবারকে দলীয় নির্বাচতি প্রতিনিধিরা সহায়তা দিয়েছে। নগদ টাকা দিয়েছেন প্রায় ৯ কোটি, যা ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ৭২ জন জনপ্রতিনিধির অনিয়ম ধরা পড়েছেন, যা ০.১৩ শতাংশ।’

সিনিয়র সাংবাদিক ও জিটিভির প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বলেন, ‘প্রান্তিকের এমন খবর যখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার হয়, তখন বড় ধরনের  প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়। তিনি তৃণমূলে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার জন একটি সংসদীয় কমিটি গঠনের সুপারিশ জানান। এ সাংবাদিক সচিবদের ৬৪ জেলায় ত্রাণ মনিটর নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।’

জবাবে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, সচিবদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন জেলার। এটা জনপ্রতিনিধিদের কাজের সঙ্গে মোটেই সাংঘর্ষিক নয়। এটা যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত। ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ আসা অনেক নেতাই নিজের টাকায় ত্রাণের চাল এনেও অভিযোগে ফেঁসেছেন।

ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি করোনা আক্রান্তদের প্রতি সদয় আচরণের আহ্বান জানান।

 

 

 

/এমএইচবি/এসটি/

লাইভ

টপ