X
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮
সেকশনস

ডিআরএস নিয়ে ক্ষুব্ধ কোহলি-অশ্বিনরা, কাঠগড়ায় সুপারস্পোর্ট!

আপডেট : ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৩০

ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম বা ডিআরএসের পক্ষে কোনও দিনই ছিল না ভারত। প্রযুক্তির ওপর দলটির ক্রিকেটারদেরও যে আদৌ ভরসা নেই, তার প্রমাণ মিললো কেপটাউন টেস্টে। প্রোটিয়া ব্যাটার ডিন এলগার রিভিউ নিয়ে বেঁচে যাওয়ায় সরাসরি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। তারা তো দক্ষিণ আফ্রিকার সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান সুপারস্পোর্টকেই দায়ী করেছেন পুরো ঘটনার জন্য!

ঘটনাটি ঘটেছে, গতকাল ২১তম ওভারে। ২১২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নামা দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর তখন ১ উইকেটে ৬০। অশ্বিনের একটি ওভারে বল সরাসরি গিয়ে আঘাত হানে এলগারের প্যাডে। ভারত আবেদন করলে সরাসরি আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার মারাইস এরাসমাস। অবশ্য বলের গতিপথ যেমনটা ছিল, তাতে স্পষ্ট এলবিডাব্লিউ মনে হচ্ছিল তখন। কিন্তু রিভিউতে দেখা গেছে বল বাড়তি বাউন্সে গতিপথ পাল্টে চলে যাচ্ছে স্টাম্পের ওপর দিয়ে! তাতে বেঁচে যান এলগার। পরে অবশ্য দিনের শেষ বলে ঠিকই সাজঘরে ফিরতে হয়েছে প্রোটিয়া ব্যাটারকে।

এখানে একটা বিষয় উল্লেখযোগ্য বলের গতিপথ বা ট্র্যাকিং প্রযুক্তি সরবরাহ করে থাকে হক আই নামের একটি স্বাধীন সংস্থা। যাবতীয় তথ্য-উপাত্ত তারাই স্বাগতিক সম্প্রচারকারী প্রতিষ্ঠানকে সরবরাহ করে। এক্ষেত্রে সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান ছিল সুপারস্পোর্ট।

রিভিউতে হতাশ হয়ে স্টাম্প মাইকে ক্ষোভ উগড়ে দিতে দেখা যায় ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। তিনি বলে বসেন, ‘নিজের দলের দিকে নজর দাও, যখন ওরা বল উজ্জল করার চেষ্টায় থাকে। প্রতিপক্ষের দিকে নজর না দিলেও চলবে। সব সময় শুধু প্রতিপক্ষকে ধরার চেষ্টা।’

ক্ষোভ উগড়ে দেওয়াদের মাঝে শুধু কোহলিই ছিলেন না। ভাইস ক্যাপ্টেন লোকেশ রাহুলও তাতে যোগ দেন। কোহলির পর তাকেও বলতে শোনা যায়, ‘পুরো দেশটা ১১ জনের বিপক্ষে খেলছে।’ এর পর রবিচন্দ্রন অশ্বিন সম্প্রচার প্রতিষ্ঠানকে দোষারোপ করে বলেছেন, ‘সুপারস্পোর্ট, জয়ের জন্য তোমাদের ভালো কোনও পথ অবলম্বন করা উচিত।’

অবশ্য রিভিউয়ের এই হাল দেখে যে ভারতীয় ক্রিকেটাররাই মন্তব্য করেছেন এমন নয়। বিস্ময় প্রকাশ করতে দেখা যায় অনফিল্ড আম্পায়ার এরাসমাসকেই। অবিশ্বাসের ভঙ্গিতে মাথা নেড়ে বলেছেন, ‘এটা তো অসম্ভব।’  

এই ডিআরএস প্রসঙ্গ উঠে আসে দিনের শেষ ভাগে সংবাদ সম্মেলনে। প্রোটিয়া পেসার লুঙ্গি এনগিদিকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, ডিআরএসে তার আস্থা আছে কিনা। জবাবে বলেছেন, ‘হ্যাঁ, অবশ্যই। আমরা দেখেছি পৃথিবীর সবখানেই এটা বিভিন্ন সময় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। পদ্ধতিটা যেহেতু প্রয়োগের জন্য রাখা, আমরা ক্রিকেটাররাও সেটা ব্যবহার করি।’

তবে ভারতীয় দলের পক্ষ থেকে সন্তোষজনক উত্তর পাওয়া যায়নি। দলটির বোলিং কোচ পরশ মামব্রে বলেছেন, ‘আমরা যেমন দেখেছি, আপনারও দেখেছেন। বিষয়টা ম্যাচ রেফারির ওপর ছেড়ে দিচ্ছি। এখন কোনও মন্তব্য করতে রাজি নই।’

/এফআইআর/   
সম্পর্কিত
বল টেম্পারিংয়ের শাস্তি পেলেন ডাচ পেসার
বল টেম্পারিংয়ের শাস্তি পেলেন ডাচ পেসার
নিষেধাজ্ঞা শেষে অস্ট্রেলিয়া সফরের দলে গুনাথিলাকা
নিষেধাজ্ঞা শেষে অস্ট্রেলিয়া সফরের দলে গুনাথিলাকা
মোস্তাফিজের যে পার্থক্য চোখে পড়েছে রোডসের
মোস্তাফিজের যে পার্থক্য চোখে পড়েছে রোডসের
ম্যাচ না খেলেই বিপিএল শেষ আল আমিনের
ম্যাচ না খেলেই বিপিএল শেষ আল আমিনের
সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
বল টেম্পারিংয়ের শাস্তি পেলেন ডাচ পেসার
বল টেম্পারিংয়ের শাস্তি পেলেন ডাচ পেসার
নিষেধাজ্ঞা শেষে অস্ট্রেলিয়া সফরের দলে গুনাথিলাকা
নিষেধাজ্ঞা শেষে অস্ট্রেলিয়া সফরের দলে গুনাথিলাকা
মোস্তাফিজের যে পার্থক্য চোখে পড়েছে রোডসের
মোস্তাফিজের যে পার্থক্য চোখে পড়েছে রোডসের
ম্যাচ না খেলেই বিপিএল শেষ আল আমিনের
ম্যাচ না খেলেই বিপিএল শেষ আল আমিনের
শ্রীলঙ্কার জার্সিতে আর খেলবেন না পেরেরা
শ্রীলঙ্কার জার্সিতে আর খেলবেন না পেরেরা
© 2022 Bangla Tribune