X
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
১০ আশ্বিন ১৪২৯

ওয়ানডেতে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স কি তাহলে ‘ফ্লুক’?

রবিউল ইসলাম
০৭ আগস্ট ২০২২, ২৩:৪০আপডেট : ০৭ আগস্ট ২০২২, ২৩:৪১

ওয়ানডে অভিজ্ঞতায় ভরপুর বাংলাদেশ। তারপরও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৯ বছর পর সিরিজ হারতে হলো তামিম ইকবালদের। তামিম-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহদের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের নিয়েও জিম্বাবুয়ের মতো খর্বশক্তির একটি দলের বিপক্ষে সিরিজ জিততে না পারায় ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স প্রশ্নবিদ্ধ হলো! প্রশ্ন উঠেছে তবে কি গত কয়েক বছর ধরে ওয়ানডে ক্রিকেটের সাফল্য ‘ফ্লুক’ ছিল?

তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহদের সমান ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতাই নেই জিম্বাবুয়ের পুরো দলের। একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে দেড়শর বেশি ম্যাচ খেলেছেন সিকান্দার রাজা। অধিনায়ক রেগিস চাকাভা খেলেছেন ৫৫ ম্যাচ। অথচ বাংলাদেশের এনামুল, তাসকিন ও মিরাজ মিলেই খেলে ফেলেছেন প্রায় দেড়শ ম্যাচ। কিন্তু এত অভিজ্ঞতা মোটেও কাজে লাগলো না। এমনিতেই অনভিজ্ঞ তার মধ্যে প্রথম ম্যাচের ৫ ক্রিকেটার ছাড়া মাঠে নেমেছিল জিম্বাবুয়ে। অথচ তাদের বিপক্ষেও বাংলাদেশের অভিজ্ঞরা মাথা নিচু করে মাঠ ছাড়লো।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে যে বাংলাদেশ হারতে ভুলে গিয়েছিল, সেই বাংলাদেশ অসহায় আত্মসমর্পণ করলো। ৯ বছর পর হারের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে এসে সিরিজ জয়ের আনন্দে মাতলো জিম্বাবুয়ে। লাল-সুবজ জার্সিধারীদের দুই ম্যাচের কোণঠাসা করে জয় কোনওভাবেই জিম্বাবুয়ের পারফরম্যান্সকে ‘ফ্লুক’ বলা যাবে না। যোগ্য দল হিসেবেই তারা সিরিজ জিতেছে। বরং ফ্লুক ছিল বাংলাদেশের পারফরম্যান্স! ঘরের মাঠের স্লো উইকেট কিংবা দেশের বাইরের ‘টিপিকাল বাংলাদেশ’ টাইপের উইকেটে নিয়মিত সাফল্য পাচ্ছিল বাংলাদেশ। এতেই ‘মিথ্যা’ আত্মবিশ্বাস বয়ে বেড়াচ্ছিল গোটা দল। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এভাবে ‘ছিন্নভিন্ন’ হওয়ার পর নিশ্চিতভাবেই ভুলটা ভাঙবে তামিমদের।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের আগে চলতি বছর বাংলাদেশ দল ৯টি ওয়ানডে খেলেছে। তার মধ্যে আফগানিস্তানের বিপক্ষে চট্টগ্রামে তিন ম্যাচের মধ্যে দুটিতে জিতেছিল। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সেঞ্চুরিয়ানে স্পোর্টিং উইকেটে জয়টি বাংলাদেশের জন্য বিশেষ অর্জন। আজকের পারফরম্যান্সের পর ওই জয়টিকে ফ্লুকই বলতে হয়! এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গায়নার প্রভিডেন্সে তিনটি ম্যাচের সবকটিতেই জেতে বাংলাদেশ। ক্যারিবীয় মাঠ হলেও বাংলাদেশ দল যেন খেলছিল মিরপুরে। ফলে স্লো ও টার্নিং উইকেটে বাংলাদেশের স্পিনারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেখানে থেকে রবিবার বাংলাদেশকে মাটিতে নামিয়ে আনলো জিম্বাবুয়ে।

অথচ ওয়ানডে সুপার লিগে বাংলাদেশের অবস্থান দুই নম্বরে। ওখানে ১৩ দলের পয়েন্ট জিম্বাবুয়ে কেবল নেদারল্যান্ডের ওপরে। এমনকি আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে দুই দলের অবস্থানে ব্যাপক পার্থক্য। বাংলাদেশ ৭ নম্বরে থাকলেও জিম্বাবুয়ে আছে ১৫ নম্বরে! যে র‌্যাঙ্কিংয়ে নেদারল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরাত, স্কটল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের নিচে অবস্থান জিম্বাবুয়ের। শুধু তাই নয় এই জিম্বাবুয়ে চলতি বছর হারারেতেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিনটি ম্যাচ খেলে সবগুলো ম্যাচ হেরেছে। এভাবে মাঠের ক্রিকেটে পিছিয়ে থাকা একটি দলের বিপক্ষে সিরিজ হারে প্রশ্ন উঠতেই পারে এতদিনে বাংলাদেশের সবকিছুই ছিল ‘ফ্লুক’?

হারারে স্পোর্টস ক্লাবের গ্রাউন্ড এমনিতেই ব্যাটিং বান্ধব। এখানে ৩০০ রানও নিরাপদ নয়। প্রথম ম্যাচে ৩০৩ রান করেও জিততে পারেনি বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে স্কোরবোর্ডে আরও রান তোলার সুযোগ থাকলেও সেটি পারেনি বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ব্যাটাররা। ৩০০ বলের ম্যাচে তামিম-মাহমুদউল্লাহ-শান্তরা ডট দিয়েছেন ১৫১টি! অথচ জিম্বাবুয়ে বোলিং আক্রমণে তেমন কেউই ছিলেন না। তারপরও বাংলাদেশের ব্যাটাররা খেললেন নেগেটিভ ক্রিকেট। জিম্বাবুয়ে তাদের ইনিংসে দেখিয়েছে কিভাবে ফেয়ারলেস ক্রিকেট খেলতে হয়।

২৯১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে জিম্বাবুয়ে ৪৯ রানেই চার উইকেট হারায়। এরপর পঞ্চম উইকেটে ২০১ রানের রেকর্ড জুটি গড়েছে। এই ম্যাচের আগে অধিনায়ক চাকাভার গড় ছিল ১৯। সেই চাকাভা ৭৫ বলে ১০২ রানের ইনিংস খেললেন। তার সঙ্গে জুটি বাঁধা সিকান্দার রাজা তো ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। আগের ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও হয়েছেন ম্যাচ সেরা, খেলেছেন ১২৭ বলে ১১৭ রানের অপরাজিত এক ইনিংস। কিভাবে বুক চিতিয়ে লড়াই করতে হয়ে সেটাই দেখিয়ে দিয়েছেন রাজা-চাকাভারা।

এমন ব্যাটিং বান্ধব উইকেটে বোলারদের কোনওভাবেই কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর সুযোগ নেই। ১৫১ ডট বলই মূলত বাংলাদেশকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দিয়েছে।  দ্বিতীয় ওয়ানডেতে তামিম ৩০টি ডট দিয়েছেন। এনামুল ২৫ বলে ২০ রান করেছেন, বাউন্ডারি ছিল তিনটি। মানে দাঁড়াচ্ছে ৩ বলে ১২ রান করা এনামুল বাকি ৮ রান করেছেন ২২ বলে! ৫৫ বলে ৩৮ রান করেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, যা তার ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ রান। অথচ ৫ বাউন্ডারিতে ২০ রান করা শান্ত বাকি ১৮ রান করেছেন ৫০ বলে।

৮৪ বলে ৮০ রান করা মাহমুদউল্লাহও মেরেছেন তিনটি চার ও তিনটি ছয়। ৬ বলে মাহমুদউল্লাহর ব্যাট থেকে এসেছে ৩০ রান। বাকি ৪২ বলে নিয়েছেন ৫০ রান। ৩৬ বলে কোনও রান নিতে পারেননি। অথচ এই ৩৬ বলে অল্প কিছু সিঙ্গেল-ডাবলস এলেও বাংলাদেশের রান অনায়াসেই তিনশ’ ছাড়িয়ে যেতে পারতো। মূলত মাঝের ওভারগুলোতে মন্থর ব্যাটিংয়ের কারণেই স্কোরবোর্ড যথেষ্ট সমৃদ্ধ হয়নি।

/এমআর/
সম্পর্কিত
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
পড়েছে ৪ উইকেট, হাল ধরেছেন ‘জীবন’ পাওয়া আফিফ  
পড়েছে ৪ উইকেট, হাল ধরেছেন ‘জীবন’ পাওয়া আফিফ  
খোলা ট্রাকে সংবর্ধনা পাচ্ছেন রুপনা ও ঋতুপর্ণা
খোলা ট্রাকে সংবর্ধনা পাচ্ছেন রুপনা ও ঋতুপর্ণা
নাগরিকদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছেন পুতিন: জেলেনস্কি
নাগরিকদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছেন পুতিন: জেলেনস্কি
অপারেশন থিয়েটারে ২ চিকিৎসকের হাতাহাতি 
অপারেশন থিয়েটারে ২ চিকিৎসকের হাতাহাতি 
এ বিভাগের সর্বশেষ
পড়েছে ৪ উইকেট, হাল ধরেছেন ‘জীবন’ পাওয়া আফিফ  
পড়েছে ৪ উইকেট, হাল ধরেছেন ‘জীবন’ পাওয়া আফিফ  
শুরুতে সাজঘরে সাব্বির-লিটন
শুরুতে সাজঘরে সাব্বির-লিটন
টস হেরেছে বাংলাদেশ
টস হেরেছে বাংলাদেশ
‘হৃদয় থেকে বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানাতে চাই’
‘হৃদয় থেকে বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানাতে চাই’
৫৭ বছর বয়সী শিব শঙ্করের ৪২ কিলোমিটার দৌড়
৫৭ বছর বয়সী শিব শঙ্করের ৪২ কিলোমিটার দৌড়