চলছে নাঈমের ভেলকি

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৫:১৩, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৭, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০

নাঈমের উইকেট উৎসব চলছেবাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ে জিম্বাবুয়ে। মিরপুর টেস্টের প্রথম দিনের তৃতীয় সেশনে তাদের স্কোর ৫ উইকেটে ১৯৯।

মারুমা ৭ রানে  এলবিডাব্লিউ করে আবু জায়েদ পেয়েছেন তাঁর দ্বিতীয় উইকেট। আর জিম্বাবুয়েকে ৫ উইকেটে ১৯৯ রানে পরিণত করে বাংলাদেশের প্রধান স্ট্রাইক বোলার টেস্টের প্রথম দিনটিকে অনেকটাই টেনে এনেছেন নিজেদের দিকে। নতুন ব্যাটসম্যান চাকাভা এখনও রানের খাতা খুলতে পারেননি, জিম্বাবুয়ের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ক্রেগ আরভিন ব্যাট করছেন ৯১ রানে। 

বিসিএলে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে বার্তা দিয়ে রেখেছিলেন নাঈম হাসান। তারই ছাপ মিরপুর টেস্টে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে চলছে নাঈমের ভেলকি। চা বিরতির পর তার তৃতীয় শিকার সিকান্দার রাজা।

দ্বিতীয় সেশনে ২ উইকেট পাওয়া নাঈমের আবারও উইকেট উদযাপন। তার বল সিকান্দারের ব্যাট ছুঁয়ে গিয়ে জমা পড়ে উইকেটকিপার লিটন দাসের গ্লাভসে। জিম্বাবুয়ের চতুর্থ ‍ব্যাটসম্যান হিসেবে প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ১৮ ‍রান।

দ্বিতীয় সেশনে এসেছে ২ উইকেট

প্রথম সেশন কেটেছিল হতাশায়। তবে দ্বিতীয় সেশন খারাপ যায়নি বাংলাদেশের। লাঞ্চের পর ২ উইকেট  তুলে নিয়ে চা বিরতি গেছে বাংলাদেশ। দুটো উইকেটই নিয়েছেন নাঈম হাসান। তার আগে দিনের শুরুতে আবু জায়েদের সাফল্যে এসেছিল প্রথম উইকেট।

লাঞ্চ থেকে ঘুরে এসেও ছন্দ ধরে রেখেছিল জিম্বাবুয়ে। চমৎকার ব্যাটিংয়ে রান বাড়িয়ে নিচ্ছিলেন প্রিন্স মাসভাউরি ও ক্রেগ আর্ভিন। অবশেষে তাদের প্রতিরোধ ভাঙেন নাঈম। হাফসেঞ্চুরি করা মাসভাউরিকে ফেরানোর পরপরই এই স্পিনার তুলে নেন ব্রেন্ডন টেলরের উইকেট। তাতে স্বস্তি ফেরে স্বাগতিক ক্যাম্পে।

চা বিরতির সময় জিম্বাবুয়ের স্কোর ৬০ ওভারে ৩ উইকেটে ১৫০। ৬০ রানে অপরাজিত আর্ভিন, আর সিকান্দার রাজা অপরাজিত ৭ রানে।

এবার নাঈমের শিকার টেলর

আবারও উইকেট আনন্দে মাতলেন নাঈম হাসান। প্রিন্স মাসভাউরিকে আউট করার পরের ওভারেই ফিরিয়েছেন ব্রেন্ডন টেলরকে। জিম্বাবুয়ের সাবেক অধিনায়ক উইকেটটা একরকম দিয়েই গেছেন। রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে বল টেনে লাগিয়েছেন স্টাম্পে।

এর আগেও রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে ব্যর্থ হন টেলর। তবু ওই শটটা আবার খেলতে চাইলেন এবং নিজের বিপদ ডেকে আনলেন। নাঈমের অফ স্টাম্পের বাইরে পিচ করা বল ঘুরিয়ে খেলতে চাইলে ঠিকমতো হয়নি। বল তার ব্যাটে লেগে ঘুরে স্টাম্পে আঘাত করে। তাতে ১০ রানে শেষ হয় টেলরের ইনিংস।

সেই নাঈমই ফেরালেন মাসভাউরিকে

আগেই উইকেট উদযাপন করতে পারতেন নাঈম হাসান। লিটন দাস ও নাজমুল হাসান শান্তর ভুলে পারেননি। লিটনের গ্লাভস হয়ে শান্তর হাত গলে বেরিয়ে গিয়েছিল যার ক্যাচ, সেই প্রিন্স মাসভাউরিকে আউট করে নিজের প্রথম উইকেট পেয়েছেন নাঈম।

এবার আর কারও ওপর নির্ভর করেননি ডানহাতি স্পিনার। নিজের বলে নিজেই নিয়েছেন মাসভাউরির ক্যাচ। টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি করে জিম্বাবুইয়েন ওপেনার আউট হয়েছেন ৬৪ রানে। ১৫২ বলের ধৈর্যশীল ইনিংসটি সাজিয়েছেন ৯ বাউন্ডারিতে। তার বিদায়ে জিম্বাবুয়ে হারায় দ্বিতীয় উইকেট।

উল্টো বাংলাদেশই এখন চাপে

শুরুর ধাক্কা সামলে দারুণভাবে এগিয়ে যাচ্ছে জিম্বাবুয়ে। চাপ কাটিয়ে উল্টো বাংলাদেশকেই চেপে ধরেছে তারা। প্রথম সেশনে মাত্র ১ উইকেট হারানো আফ্রিকান দেশটির স্কোর ১০০ ছাড়িয়েছে।

তাদের ঘুরে দাঁড়ানোর পথে হাফসেঞ্চুরি করেছেন প্রিন্স মাসভাউরি। টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি করে দলকে এগিয়ে নিচ্ছেন এই ওপেনার। ১০৪ বলের মাইলফলকটি ছুঁতে মেরেছেন ৮ বাউন্ডারি। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিচ্ছেন অধিনায়ক ক্রেগ আর্ভিন।

প্রথম সেশনে বাংলাদেশের প্রাপ্তি ১ উইকেট

দিনের শুরুর বোলিং দারুণ কিছুরই ইঙ্গিত দিচ্ছিলো। জিম্বাবুয়ের দুই ওপেনার মোটেও সুবিধা করতে পারছিলেন না। বাংলাদেশের সাফল্য আসতেও সময় লাগেনি। দলীয় ৭ রানে প্রথম উইকেট হারায় সফরকারীরা। কিন্তু পরের সময়টা হতাশায় কেটেছে মুমিনুল হকদের। লাঞ্চের আগে আর কোনও উইকেট পায়নি স্বাগতিকরা।

আবু জায়েদ এনে দেন প্রথম উইকেট। তার বলে ব্যক্তিগত ২ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন কেভিন কাসুজা। শুরুর ওই ধাক্কা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়েছে জিম্বাবুয়ে। ওপেনার প্রিন্স মাসভাউরি ও অধিনায়ক ক্রেগ আর্ভিন প্রতিরোধ গড়েছেন। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তারা অবিচ্ছিন্ন ৭৩ ‍রানে।

লাঞ্চের আগে মাসভাউরি অপরাজিত ৪৫ রানে, আর আর্ভিন অপরাজিত ২৬ রানে। তাদের ব্যাটে ভর দিয়ে জিম্বাবুয়ের স্কোর ৩০ ওভারে ১ উইকেটে ৮০।

জায়েদের হাত ধরে প্রথম উইকেট

বাংলাদেশকে প্রথম উইকেট এনে দিলেন আবু জায়েদ। ধীরগতিতে শুরু করা জিম্বাবুয়েকে আরও চাপে ফেলেছেন তিনি ওপেনার কেভিন কাসুজাকে আউট করে।

শুরু থেকেই বাংলাদেশের পেস আক্রমণের সামনে পরীক্ষা দিতে হয়েছে সফরকারী দুই ওপেনারকে। সতর্ক শুরুতেও কাজ হয়নি। জায়েদের বলে গালিতে নাঈম হাসানের হাতে ধরা পড়েন কাসুজা। ২৪ বল খেলে তিনি করেন ২ রান।

টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে টস হেরে ফিল্ডিংয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। আজ (শনিবার) সকাল সাড়ে ৯টায় মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হয়েছে দুই দলের শততম আন্তর্জাতিক ম্যাচটি।

বাংলাদেশ নেমেছে দুই পেসার ও দুই স্পিনার নিয়ে। পেস আক্রমণে আবু জায়েদ ও ইবাদত হোসেন। আর স্পিনে তাইজুল ইসলামের সঙ্গী নাঈম হাসান।

টেস্ট ক্রিকেটে সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশের। শেষ ছয় টেস্টের সবক’টিতে হেরেছে মুমিনুল-তামিমরা। এর মধ্যে ৫টিতে আবার ইনিংস ব্যবধানে হার! তাই হারের বৃত্ত থেকে বেরোতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় ছাড়া কিছু ভাবছে না স্বাগতিকেরা।

নতুন অভিযানে নামার আগে আফ্রিকার দেশটির বিপক্ষে পরিসংখ্যান আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে বাংলাদেশকে। সাম্প্রতিক ইতিহাস বেশ সমৃদ্ধ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ পাঁচ টেস্টের চারটিতেই জয় পেয়েছে স্বাগতিকেরা। যদিও ঘরের মাঠে আগের সিরিজে সিলেটে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টে হারের লজ্জায় ডুবতে হয়েছিল।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সাইফ হাসান, মুমিনুল হক (অধিনায়ক), নাজমুল হোসেন শান্ত, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, লিটন দাস (উইকেটকিপার), তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান, ইবাদত হোসেন, আবু জায়েদ।

জিম্বাবুয়ে একাদশ: প্রিন্স মাসভাউরি, কেভিন কাসুজা, সিকান্দার রাজা, রেগিস চাকাভা (উইকেটকিপার), ক্রেগ আর্ভিন (অধিনায়ক), টিমাইসেন মারুমা, ব্রেন্ডন টেলর, ভিক্টর নায়াউচি, এইন্সলি এনদোলভু, ডোনাল্ড তিরিপানো, চার্লটন শুমা।

/কেআর/পিকে/

লাইভ

টপ