মুম্বাইয়ের কাছে কেকেআরের বাজে হার

Send
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত : ০১:৫৫, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৪:০১, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

মুম্বাইয়ের দারুণ জয়                  -ছবি:টুইটারআইপিএলের ইতিহাসে নির্দিষ্ট দুটি দলের লড়াইয়ের ইতিহাস এত একপেশে আর নেই! ২৫ বার মুখোমুখি হয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্স ১৯ বার হেরেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের কাছে। সর্বশেষ জয়, মানে ষষ্ঠ জয়টা ছয় বছর আগে আরব আমিরাতের মাটিতেই। তাছাড়া মুম্বাইও এখানে আগের পাঁচটি ম্যাচেই হেরেছে। তাই আবার যখন আমিরাতেরই মাঠে মুম্বাইয়ের মুখোমুখি হলো কলকাতা, জয়ের উচ্চাশাই ছিল তাদের। কিন্তু হা হতোস্মি! কেকেআরকে একেবারে গুঁড়িয়ে দিল মুম্বাই। বুধবার আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে রোহিত শর্মার মুম্বাই ৪৯ রানে হারালো দিনেশ কার্তিকের কলকাতাকে।

ম্যাচে ব্যবধান গড়ে উঠেছে মুম্বাইয়ের দুর্দান্ত ব্যাটিং ও আর কলকাতার বাজে বোলিংয়ে। কলকাতার বোলিংকে কচুকাটা করে ১৯৫ রানের পাহাড়ে উঠে গিয়েছিল মুম্বাই। যে অভিযানে নেতৃত্ব দিয়েছেন অধিনায়ক ও ওপেনার রোহিত শর্মা নিজেই। তরুণ পেসার শিভম মাভির শিকার হওয়ার আগে তিন চার ও ছয় ছক্কায় ৫৪ বল থেকে করেছেন ৮০ রান। যা তাকে দিয়েছে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারও। তবে রোহিতের আগে ব্যাটিংয়ে ঝড় তুলেছিলেন তিনে নামা সুরিয়া কুমার যাদব। ২৮ বলে ৪৬ করে যাদবের রান আউট হওয়ার আগে মুম্বাইয়ের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে আসে ৯০ রান।

কলকাতার মূল শক্তি  আন্দ্রে রাসেল-ইয়ন মরগান-কার্তিকদের নিয়ে গড়া ব্যাটিং লাইনআপ। এটির জোরেই তারা জয়ের স্বপ্ন দেখছিল। কিন্তু তারা মুখ থুবড়ে পড়লো অত বড় রান তাড়ায়। সাড়ে ১৫ কোটি রুপির (আইপিএলের সবচেয়ে দামি বিদেশি) প্যাট কামিন্সের কাছে বোলিংয়েই বেশি চাওয়া ছিল কলকাতার। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ান  পেসার যাচ্ছেতাই বোলিং করে তিন ওভারে দিয়েছেন ৪৯ রান। আর ম্যাচটি যখন হাতের মুঠো গলে বেরিয়ে গেছে, তখন তিনি কিনা ব্যাটসম্যান! আট নম্বরে নেমে দলীয় সর্বোচ্চ ৩৩ রান করেছেন ১২ বল খেলে। যশপ্রীত বুমরার শেষ ওভারে চারটি ছয়সহ নিয়েছেন ২৬ রান। অথচ এই বুমরাই আগের তিন ওভারে মাত্র ৫ রান দিয়ে আউট করেছেন কলকাতার সবচেয়ে বিপজ্জনক দুই ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল (১১ বলে ১১)  ও ইয়ন মরগানকে (২০ বলে ১৬ রান)।

শেষ ১২ বলে জেতার জন্য দরকার ছিল ৫৭ রান। তার মানে প্রতি বল থেকে নিতে হতো প্রায় পাঁচ রান! অসম্ভব এই সমীকরণ মেলানো সম্ভব ছিল না কামিন্সের পক্ষে, আউট হয়ে যান ১০ বল বাকি থাকতে। কলকাতা ৯ উইকেট হারিয়ে তুলতে পেরেছে ১৪৬ রান। অথচ ১৯৬ রান তাড়া করে তাদের শুরুটা যখন হলো ধীর গতিতে, ভাষ্যকাররা বলছিলেন কলকাতা জয়ের জন্য ছুটবে। আগের রাতে হায়দরাবাদের বিপক্ষে চেন্নাই যেমন রান তাড়ায় ভীরুতার পরিচয় দিয়েছে তেমনটি এরা করবে না! সেই কলকাতার রান তাড়াটা হলো আরও জঘন্য।

‘আমিরাতের অভিশাপ’ মুছে কাইরন পোলার্ডকে তার ১৫০তম আইপিএল ম্যাচে জয় উপহার দিল মুম্বাই। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী চেন্নাইয়ের কাছে এবার প্রথম ম্যাচে হারের পর ঘুরে দাঁড়ালো দুর্দান্তভাবে। কলকাতার শুরু পরাজয়ে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

মুম্বাই: ২০ ওভারে ১৯৫/৫ (রোহিত ৮০, যাদব ৪৭, তিওয়ারি ২১, মাভি ২/৩২, রাসেল ১/১৭, নারাইন ১/২২) ও  কলকাতা: ২০ ওভারে ৯/১৪৬ (কামিন্স ৩৩, কার্তিক ৩০, রানা ২৪, প্যাটিনসন ২/২৫, চাহার ২/২৬, বোল্ট ২/৩০, বুমরা ২/৩২)।

/পিকে/

লাইভ

টপ
X