বুমরাকে ছাপিয়ে মুম্বাইয়ের নায়ক শেষে সুরিয়াকুমার

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০১:৩৭, অক্টোবর ২৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০১:৫৩, অক্টোবর ২৯, ২০২০

মুম্বাইকে ম্যাচ জেতানোর পর সুরিয়াকুমার                -টুইটার শেষ ওভারটি করতে এলেন মোহাম্মদ সিরাজ। দরকার মাত্র ৩ রান। সুরিয়াকুমার যাদবের এক্সট্রা কভার ড্রাইভে চার, মামলা খতম। কিন্তু মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের জয়োচ্ছ্বাসে এমন সংকেত কেন দিলেন জয়ের রূপকার! বুকে হাত ছুঁইয়ে দেখালেন, তিনি শান্ত আছেন। আসলে কাকে যেন বললেন, ‘বলেছিলাম না আমার ওপর আস্থা রাখুন, আমি পারবো।’ সুরিয়াকুমার পেরেছেন। বিরুদ্ধ স্রোতের মধ্যে পড়ে যাওয়া জয়ের নৌকাটিকে তীরে ভিড়িয়েছেন ৪৩ বলে ৭৯ রানের ইনিংস খেলে। মুম্বাইয়ের ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানই ম্যান অব দ্য ম্যাচ।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের জয় মুম্বাইকে আপাতত শীর্ষে তো রাখলোই, এমনকি এ নিশ্চয়তাও দিলো যে শীর্ষ দুইয়ে থেকেই প্লে-অফে যাচ্ছে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। ১২ ম্যাচে ৮ জয়। বাকি দুটি ম্যাচ জিতে ৯টি জয় নিয়ে শীর্ষে যেতে পারে আর দুটি দল- এই ব্যাঙ্গালোর ও দিল্লি ক্যাপিটালস। কিন্তু ফিরতি পর্বের ব্যাঙ্গালোর-দিল্লি ম্যাচটি এখনও বাকি। আর দু’দলের একটি দল হারবে। সুতরাং ১৮ পয়েন্ট নিয়ে মুম্বাইকে টপকাতে পারবে একটিই দল, যদি ধরেও নেওয়া যায় মুম্বাই তাদের বাকি দুটি ম্যাচই হারবে।

ভারতীয় দলে অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও সহ-অধিনায়ক রোহিত শর্মার মধ্যে একটা দ্বন্দ্ব আছে বলে শোনা যায়। বুধবার সেই জল্পনায় আরও ঢেউ উঠলো, যখন দেখা গেল আগামী অস্ট্রেলিয়া সফরের জন্য ঘোষিত ৩২ জনের ভারতীয় দলে রোহিত শর্মার জায়গা হয়নি। দৃশ্যমান কারণ গত ১৬ অক্টোবর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ম্যাচে পাওয়া রোহিতের চোট। কিন্তু চার টেস্ট এবং তিনটি করে ওয়ানডে টি-টোয়েন্টি ম্যাচের অস্ট্রেলিয়া সফর শুরু ২৭ নভেম্বর ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে। সফরের  প্রায় একমাস বাকি থাকতে রোহিতের মতো একজন ব্যাটসম্যানকে ভারত দলে রাখবে না! অনেকেই অবাক। অবাক সুনীল গাভাস্কার, সঞ্জয় মাঞ্জরেকাররা। রোহিত-ভক্তরা এর মধ্যে খুঁজছেন ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’। বুধবার আবুধাবিতে ব্যাঙ্গালোরের সঙ্গে মুম্বাইয়ের ম্যাচটিকে তারা ‘দেখিয়ে দেওয়ার ম্যাচ’ হিসেবে নিয়েছিলেন। পাঁচ বল বাকি থাকতে ম্যাচটি জিতে ‘দেখিয়ে দিয়েছে’ মুম্বাই।

টসে হেরে ব্যাটিংয়ে যাওয়া ব্যাঙ্গালোর ৬ উইকেটে করেছিল ১৬৪ রান। পাওয়ার প্লেতে বিনা উইকেটে ৫৪ রান তুলে জশুয়া রায়ান ফিলিপ্পে ও দেবদূত পাড়িক্কাল ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক কাইরন পোলার্ডকে দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছিলেন। লেগস্পিনার রাহুল চাহার যখন স্টাম্পিংয়ের শিকার বানান ফিলিপ্পেকে( ২৪ বলে ৩৩), ৮.৫ ওভারে ব্যাঙ্গালোরের রান ৭১। এমন দুর্দান্ত শুরুর পরও যে কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সরা ১৬৪ রানের বেশি করতে পারেননি, কারণ মাঝের ওভারগুলোতে যশপ্রীত বুমরার বোলিং। কোহলি (৯), শিভম ‍দুবে (২) ও সর্বোচ্চ স্কোরার পাড়িক্কালকে ড্রেসিংরুমে পাঠিয়ে ওদের কোমর ভেঙে দিয়েছেন ভারতের অন্যতম সেরা পেসার। পোলার্ড আউট করেছেন এবি ডি ভিলিয়ার্সকে (১৫ রান)। চার ওভারে মাত্র ১৪ রান খরচায় ৩ উইকেট নেওয়া বুমরাকে ম্যাচ সেরার পুরস্কার থেকে বঞ্চিত করেছেন সুরিয়াকুমার। রান তাড়ায় নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট খোয়াতে থাকা মুম্বাইকে তিনিই জিতিয়েছেন তিনে নেমে একটা প্রান্ত আকঁড়ে থেকে। আঁকড়ে থাকাই তো শুধু নয়, নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রেখে প্রয়োজনের সময়টিতে চার-ছয় মেরে প্রতিপক্ষ বোলারদের শাসনও করেছেন। সুরিয়াকুমারে ৪৩ বলে অপরাজিত ৭৯ রানের ইনিংসটি সাজানো ১০ চার ও ৩ ছক্কায়।

শেষ ৮ ওভারে ৭৯ রান দরকার ছিল মুম্বাইয়ের। ১৩তম ওভারে ডেল স্টেইনকে দুর্দান্ত তিনটি চার মেরে সমীককরণ সহজ করে আনেন সুরিয়াকুমার। তার পাশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৫ রান ঈশান কিষাণের। তারপর অবদান রেখেছেন ডি কক (১৮) ও হার্দিক পান্ডিয়া (১৭)। অস্ট্রেলিয়া সফরের ভারতীয় দলে সুযোগ পাওয়া পেসার মোহাম্মদ সিরাজ ২৮ রানে ও লেগস্পিনার যুজবেন্দ্রে চাহাল ৩৭ রানে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন।

হারলেও ১২ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট পাওয়া ব্যাঙ্গালোর পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় স্থানেই আছে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ব্যাঙ্গালোর: ২০ ওভারে ১৬৪/৬ (পাড়িক্কাল ৭৪, ফিলিপ্পে ৩৩, ডি ভিলিয়ার্স ১৫, বুমরা ৩/১৪, পোলার্ড ১/৫) ও মুম্বাই: ১৯.১ ওভারে ১৬৬/৫(সুরিয়াকুমার ৭৯*, কিষাণ ২৫, ডি কক ১৮, সিরাজ ২/২৮, চাহাল ২/৩৭)।    

/পিকে/

লাইভ

টপ