বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ আকবরকে শিখিয়েছে অনেক

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৩২, অক্টোবর ৩১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৩৯, অক্টোবর ৩১, ২০২০

আকবর আলীআকবর আলীর হাত ধরে প্রথমবারের মতো কোনও বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। হোক না তা অনূর্ধ্ব-১৯ যুব বিশ্বকাপ ক্রিকেট, তবু বিশ্বকাপই তো! দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিত ২০২০ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে হারাতে ব্যাট হাতে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছিলেন আকবর। ঠান্ডা মাথায় ম্যাচ জেতানো অপরাজিত ৪৩ রানের ইনিংস খেলেছিলেন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান।

আকবরকে নিয়ে তাই প্রত্যাশা অনেক। তাকে দ্রুতই সিনিয়র দলে জায়গা করে দেওয়ার একটা পরিকল্পনা আছে বাংলাদেশ ক্রিকে বোর্ডের (বিসিবি)।  কিন্তু বিশ্বকাপ জেতানো আকবর বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে দুটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়ে ব্যাট হাতে কিছুই করতে পারেননি।

বয়সভিত্তিক ক্রিকেট আর বড়দের ক্রিকেটের মধ্যে কতটা পার্থক্য সেটি এখান থেকে উপলব্ধি করতে পারছেন এই তরুণ, ‘আমার মনে হয় যে পার্থক্যটা হলো ইনটেনসিটিতে, আর এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা একটু বেশি। এখানে বয়সের সীমাবদ্ধতা কম, সিনিয়র ক্রিকেটারদের সঙ্গে খেলছি। আমার মনে হয় এখানে আমাদের (তরুণদের) আরও প্রতিদ্বন্দ্বী হতে হবে।’ দুই ম্যাচে তিন রান করা আকবর বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ থেকে অনেক কিছু শিখেছেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে একটা কঠিন অভিজ্ঞতা হয়েছে কিন্তু অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। আমরা এক সপ্তাহের বেশি সময় ছিলাম একসঙ্গে, অনেক ইতিবাচক জিনিস আমরা শিখতে পেরেছি।’ টুর্নামেন্ট চলাকালে অভিজ্ঞ বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারের কাছ থেকে শেখার চেষ্টা করেছেন, ‘আমি তামিম ভাইয়ের দলে ছিলাম, তামিম ভাই, মিঠুন ভাই, বিজয় ভাই উনাদের সাথে অনেক কথা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে যতটা সম্ভব আমি জানার চেষ্টা করেছি। তারাও অনেক ভালো ভালো ভাবনা দিয়েছেন। আমি আশা করি তাদের কথাগুলো কিংবা তাদের সে অভিজ্ঞতা আমরা কাজে লাগাতে পারবো।’

ওয়ানডে টুর্নামেন্ট শেষে জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা বিশ্রাম পেলেও তরুণ ক্রিকেটাররা হাইপারফরম্যান্স ইউনিটে (এইচপির) ক্যাম্পে নিজেদের স্কিল নিয়ে কাজ করছেন। এই ক্যাম্পে আকবরসহ বিশ্বকাপজয়ী দলের ৮ ক্রিকেটার আছেন। কেমন চলছে ক্যাম্প? আকবর জানালেন, ‘ক্যাম্প তো আসলে উন্নতির জন্য। আগে যেখানে ছিলাম সেখান থেকে উন্নতি করাটাই মূল লক্ষ্য। কয়েকদিন হলো, ভালোই যাচ্ছে আলহামদুলিল্লাহ।’ আকবর আরও যোগ করেন, ‘আমার যেটা মনে হয় ফিল সেটা হলো, যেখানেই থাকি সেখানেই উপভোগ করার চেষ্টা করা। সেখান থেকেই বেশিরভাগ শেখার চেষ্টা করি, এখন এইচপিতে আছি, তো এখান থেকেই সর্বোচ্চটা শেখার চেষ্টা করছি, এখানেই যতটা সম্ভব উপভোগ করার চেষ্টা করছি।’ 

/আরআই/পিকে/

লাইভ

টপ