অর্থ ব্যয় হবে যেভাবে

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৯:৪৫, জুন ১৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৩৯, জুন ১৩, ২০১৯





pie-chartআগামী অর্থবছরের (২০১৯-২০) জন্য  ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল। তিনি ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা ঘাটতি রেখে তৈরি করেছেন এই বাজেট। জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শরমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে অর্থমন্ত্রী এই বাজেট উপস্থাপন করেন।

অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় বলেন, ‘এ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে অবকাঠামো উন্নয়ন খাতে। নতুন বছর এডিপিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকা।’

জানা গেছে, দক্ষতা উন্নয়ন, কর্মসৃজন ও মানব সম্পদকে গুরুত্ব দিয়ে তৈরি হচ্ছে এবারের বাজেট। ২০২০ সালে পালিত হবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী আর বাংলাদেশের স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে পূর্তি হবে ২০২১ সালে। এ কারণেই ২০১৯- ২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটটি হবে সব দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

প্রস্তাবিত বাজেটে দক্ষতা বাড়াতে জনপ্রশাসন খাতে পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে এক লাখ ৫৪ হাজার ১ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ১৮ দশমিক ৫ শতাংশ। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ২৯ হাজার ৭৬৯ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। জনশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা খাতে ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে ২৭ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা। যা মুল বাজেটের ৫ দশমিক ৩ শতাংশ। শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে বরাদ্দের প্রস্তাব রা হয়েছে ৭৯ হাজার ৪৮৪ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ১৫ দশমিক ১৫ দশমিক ২ শতাংশ। কৃষিখাতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ২৫ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ৩ দশমিক ৭ শথাংশ। স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন খাতে পরিচালন ও উন্নয়ন বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ৬৭ হাজার ৮৮৪ কোটি টাকা।

যা মোট বাজেটের ৭ দশমিক ২ শতাংশ। বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা থেকে সরকারের নেওয়া ঋণ পরিশোধ বাবদ ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে ৫৭ হাজার ১১৯ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ১০ দশমিক ৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ২৫ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটর ৪ দশমিক ৯ শতাংশ। গৃহায়ন খাতে ব্যয় বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ৬ হাজার ৬শ কোটি টাকা। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ব্যয় বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ২৮ হাজার ৫০ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। পরিবহন ও যোগাযোগ খাতে পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয় বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ৩৪ হাজার ৮২৯ কোটি টাকা। যা মোট বাজেটের ১২ দশমিক ২ শতাংশ।

এর আগে জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে অনুমোদন দেওয়া হলেও সে বৈঠকেও আধঘণ্টা দেরিতে পৌঁছান অর্থমন্ত্রী। দুপুর ১টা ২১ মিনিটে বৈঠকে যোগ দেন তিনি। এবার অর্থমন্ত্রী হিসেবে আ হ ম মুস্তাফা কামালের এটিই প্রথমবারের মতো বাজেট পেশ। এটি দেশের ৪৮তম ও আওয়ামী লীগ সরকারের ২০তম বাজেট। বাজেট পেশ করার সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল অসুস্থ হয়ে পড়লে তার পক্ষ থেকে সংসদে বাজেট বক্তৃতা পেশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট সংসদে পেশ করা হয়েছে। প্রস্তাবিত নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের আকার চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের মূল বাজেটের তুলনায় ৫৮ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় করতে না পারা ও উন্নয়ন প্রকল্পে পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থ খরচ করতে না পারায় চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকার নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেটের আকার চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ৮০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকা বেশি। আর চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের চেয়ে ১২ দশমিক ৬২ শতাংশ ও সংশোধিত বাজেটের আকারের চেয়ে ১৮ দশমিক ২২ শতাংশ বড়।

আরও পড়ুন...

দিস ইজ নিউ ট্র্যাডিশন: মুহিত

অর্থ আসবে যেসব খাত থেকে

এই বাজেট ঋণনির্ভর: আমীর খসরু

বছরে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন ভ্যাটমুক্ত

সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ জনপ্রশাসনে, কম শিল্প ও অর্থনৈতিক সার্ভিসে

বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে আ.লীগের আনন্দ মিছিল

জিডিপির আকার ২৮ লাখ ৮৫ হাজার ৮৭২ কোটি টাকা

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দ ১ হাজার ৩৩৮ কোটি টাকা

ডাক ও টেলিযোগাযোগে বরাদ্দ সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা

নির্বাচনি ইশতেহারের আলোকে এই বাজেট অসম্পূর্ণ: সিপিডি

মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক ভাতা বাড়বে ২ হাজার টাকা

যেসব পণ্যের দাম বাড়তে পারে, কমতে পারে

সুনীল অর্থনীতিতে জিডিপি বাড়বে ২ শতাংশ

প্রতিরক্ষায় বরাদ্দ ৩২ হাজার ৫২০ কোটি টাকা

 

 

/এসআই/এমএনএইচ/

লাইভ

টপ