X
মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

সেকশনস

দারিও ফো ও তার বাঘের কেচ্ছা

আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২১, ১১:১৭

নাট্যকার দারিও ফো শতবর্ষে পদার্পণ করতে যাচ্ছেন। তিনি জন্মেছেন ইতালির সান জানোতে, ১৯২৬ সালের সালের ২৪ মার্চ। ফো একাধারে কমোডিয়ান, নাট্যপরিচালক, মঞ্চ-নির্দেশক, গায়ক, গীতিকার, চিত্রশিল্পী, রাজনৈতিক প্রচারক—নানা গুণে গুণান্বিত। আশিটিরও অধিক নাকট লিখেছেন। রাজনীতিকে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করা তার স্বাভাবিক বিষয়। তিনি আধুনিক নাটক থেকে হারিয়ে যেতে বসা ব্যঙ্গাত্মক বিষয়কে ‘সিরিয়াস’ দর্শক-পাঠকের সামনে এনেছেন। ১৯৯৭ সালে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। দারিও ফো গল্প বলার ক্ষমতা পেয়েছিলেন তার নানার কাছ থেকে এবং ইতালির লোম্বার্ডি এলাকার জেলেদের কাছ থেকে।

তার উল্লেখযোগ্য কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘অ্যাক্সিডেন্টাল ডেথ অব অ্যান অ্যানার্কিস্ট’ ‘মিস্টারো বুফো’ এবং ‘ক্যান্ট পে ওন্ট পে’। অ্যানার্কিস্টের টেলিভিশন সংস্করণ ১৯৭৭ সালে প্রচারিত হবার পর এই নাটকটিকে গির্জা ঘোষণা করে জঘন্য ঈশ্বরবিরোধী নাটক হিসেবে। শুধু তাই নয়, এই নাটকে পুলিশকে ‘ধোয়া তুলসিপাতা’ হিসেবে উপস্থাপন না করায় ইতালির ফেডারেল পুলিশের নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন তার স্ত্রী। নাটকটি এতটাই নন্দিত ও নিন্দিত হয়েছিল যে, নোবেল ভাষণে তিনি বিব্রতকর পরিস্থিতি উল্লেখ করতে ভোলেননি।  

বামপন্থী ফো ইতালির উপভাষা, বুলি ইত্যাদি ব্যবহার করে শ্রমজীবী তথা অনভিজাত জীবনের চিত্র অংকন করেছেন। ডানপন্থী রাজনীতির প্রতি তার ঘৃণা প্রকাশ পায় নানা বক্তব্যে। তিনি ২০০৬ সালে মেয়র পদে নির্বাচনে অংশ নেন। এসময় বার্লুসকোনির সহায়তা পাওয়া ‘অর্থলোভী জারজরা দশকের পর দশক ধরে এই শহর শাসন করে আসছে।’ বলে মন্তব্য করতেও ছিলেন দ্বিধাহীন। তিনি সমকালীন রাজনৈতিক প্রসঙ্গ এড়িয়ে চলা দূরে থাক বরং চাছাছোলা মন্তব্য করতে ছিলেন সিদ্ধহস্ত। আমেরিকায় ৯/১১-এর হামলার পর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আমেরিকার অর্থনীতি প্রতিবছর দারিদ্র্যের অস্ত্রে কোটি মানুষকে হত্যা করে।

দারিও ফো ক্যারিয়ার সচেতন বা প্রচার-প্রতিষ্ঠা ও অর্থলোভী ছিলেন না, সেটা তার আত্মস্থ করা সহজই ছিল। ফলে অর্থভাব তার পিছু ছাড়েনি। দিবাস্বপ্নের মতো পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন নাটককে। একইসঙ্গে ছিলেন বুর্জোয়া থিয়েটারের বিরুদ্ধে। তার মননভূমি ছিলো বেকট প্রভাবিত। ২০১৬ সালের ১৩ অক্টোবর ৯০ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

প্রচ্ছদ দারিও ফো’র একটি কম আলোচিত মনোলগ রীতিতে রচিত নাটক The Tale of a Tiger—বা বাঘের কেচ্ছা। এই বাঘ আসলে কী বা কে? এই রূপকথার হেতুই বা কী? এইসব প্রশ্নের সূত্র ধরে নাটকের ভেতর-দরোজা খুলতে গেলে চীনা নেতা চিয়াং-কাই-শেক এসে বাস্তবজগতে হাজির হন। চিয়াং-কাই-শেকের সৈন্যরা, নাট্যকারের ভাষায় সাদা ডাকাতের দল ‘আমাদের’ দিকে গুলি ছুঁড়ছিলো। তাড়া খেয়ে ‘আমরা’ সাংহাই এসে পৌঁছানোর পর গিরিখাতের মাথায় চড়ে জান বাঁচাতে ব্যস্ত। নাটকের ‘আমি’ গুলিবিদ্ধ পায়ে গ্যাংগিনে আক্রান্ত হন। তার কমরেডরা তাকে বাঁশের সঙ্গে হাতপা বেঁধে বহন করতে শুরু করলেও, একইসঙ্গে যন্ত্রণা থেকে চিরমুক্তি দিতে তার খুলিতে গুলি করার উদ্যোগ নিলেও ‘আমি’ নিজেকে ঘটানার স্রেতে ছেড়ে দেন। তিনি কমরেডদের অনুরোধ করেন তার মাকে যেন বলা হয় তিনি বীরের মতো যুদ্ধ করে শহিদ হয়েছেন। এভাবে গ্যাংগিনে পচে মরেছেন তা যেন প্রকাশ না করে।

এই ঘটনার স্রোতের অন্ধকারে হাতরাতে হাতরাতে নাটকের ‘আমি’ বাঘের গুহায় প্রবেশ করেন এবং যেখানে একটি বাঘিনী বাচ্চা-কাচ্চা নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করছে। বাঘিনী তার গ্যাংগিন চেটে তাকে সুস্থ করে তার স্তন্য পান করিয়ে বাঁচিয়ে রাখে। অপরদিকে তিনিও কিছুটা সুস্থ হবার পর বাঘের শিকার করে আনা মাংস মানুষের রেসিপিতে রান্না করে বাঘদের খাওয়ান। এমনই রূপকথা।

নাটকের ‘আমি’ সুস্থ হয়ে বাঘের গুহা ফেলে মানুষের সমাজে চলে যান, বা বলা যায় পালান। কিন্তু বাঘিনী তাকে নিস্তার দেয় না, সপরিবারে হাজির হন গ্রামে। গ্রামের মানুষ বাঘ দেখে ভীত হলেও ‘আমি’র সঙ্গে বাঘের পূর্বেকার সখ্য ও বন্ধুবাৎসল বাঘিনী হয়ে ওঠে গ্রামের মানুষের মতো। ধীরে ধীরে এই বাঘেরা হয়ে ওঠে নিরীহ মানুষের ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের প্রতীক। বাঘ দেখে শত্রুসৈন্যরা এই গ্রামে নাকগলাতে আসে না। বাঘও তাদের হুঙ্কার দিয়ে ভয়ভীতি দেখাতে পারঙ্গম। বাঘের অনুপস্থিতিতে নাটকের ‘আমি’ও বাঘের পোশাক পরে বাঘের চরিত্রে অভিনয় করে শত্রুসৈন্য তাড়িয়ে দেয়।  

১৯৭৫ সালের জুনে তিনি সস্ত্রীক এবং থিয়েটার সংস্থার সদস্যদের সাথে চীন সফর করেন। সেসময় চীনে চলছে মাওয়ের লং মার্চ। একজন বিপ্লবী সৈন্যর আহত হওয়ার ঘটনা নিয়েই গড়ে ওঠে এই নাটক। যা কৌতুককর ও দিবাস্বপ্নে ঠাসা।

/জেডএস/

সর্বশেষ

বাড়ি ফিরলেন ঝিনাইদহে কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতফেরত ৮৬ জন

বাড়ি ফিরলেন ঝিনাইদহে কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতফেরত ৮৬ জন

দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন

দুই লাখ ৩৬ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন

শনাক্ত বেড়ে আবারও হাজার ছাড়ালো

শনাক্ত বেড়ে আবারও হাজার ছাড়ালো

রাজধানীতে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

রাজধানীতে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

মাত্র ২০ ঘণ্টায় মিলিয়ন ক্লাবে তারা! (ভিডিও)

মাত্র ২০ ঘণ্টায় মিলিয়ন ক্লাবে তারা! (ভিডিও)

শ্রীলঙ্কা সিরিজ টি-স্পোর্টস ও গাজী টিভিতে

শ্রীলঙ্কা সিরিজ টি-স্পোর্টস ও গাজী টিভিতে

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা রাষ্ট্রের ভয়ংকর চিত্র: রব

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা রাষ্ট্রের ভয়ংকর চিত্র: রব

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তি দাবি এইচআরএসএস’র

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তি দাবি এইচআরএসএস’র

এডিপিতে গুরুত্ব পাওয়া শীর্ষ ১০ মন্ত্রণালয়

এডিপিতে গুরুত্ব পাওয়া শীর্ষ ১০ মন্ত্রণালয়

নির্যাতনের কথা অস্বীকার, পাল্টা অভিযোগ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

নির্যাতনের কথা অস্বীকার, পাল্টা অভিযোগ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ভারতের বিপক্ষে খেলার আগে মোটিভেশন আসবে: জামাল

ভারতের বিপক্ষে খেলার আগে মোটিভেশন আসবে: জামাল

বিএনপি একটি দায়িত্বজ্ঞানহীন রাজনৈতিক দল: ওবায়দুল কাদের

বিএনপি একটি দায়িত্বজ্ঞানহীন রাজনৈতিক দল: ওবায়দুল কাদের

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বাংলা ট্রিবিউন ঈদসংখ্যা ২০২১

বাংলা ট্রিবিউন ঈদসংখ্যা ২০২১

নিজের স্বপ্নপুরুষের সঙ্গে কয়েক জন্মের তফাতে জুলেখার মিলন

নিজের স্বপ্নপুরুষের সঙ্গে কয়েক জন্মের তফাতে জুলেখার মিলন

অবিশ্বাস্য গল্প বলেছি বিশ্বাসযোগ্য ভঙ্গিতে : রাশিদা সুলতানা

অবিশ্বাস্য গল্প বলেছি বিশ্বাসযোগ্য ভঙ্গিতে : রাশিদা সুলতানা

নিঃসঙ্গ জীবনের গল্প

নিঃসঙ্গ জীবনের গল্প

লকডাউন
বাঁকা জলের খেলা

বাঁকা জলের খেলা

কারাগারে বঙ্গবন্ধুর ঈদ

কারাগারে বঙ্গবন্ধুর ঈদ

বড়সায়েব ঘোল খেলেন!

বড়সায়েব ঘোল খেলেন!

শহীদ কাদরীর সঙ্গে, মধ্যরাতের আলাপনে

শহীদ কাদরীর সঙ্গে, মধ্যরাতের আলাপনে

দাফন
© 2021 Bangla Tribune