X
বৃহস্পতিবার, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

সরকারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টায় হেফাজত

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২১, ২২:৪০

সরকারের কঠোর অবস্থানের কারণে কোণঠাসা হেফাজতে ইসলামের শীর্ষ নেতারা সমঝোতার চেষ্টা করছেন। এরই ধারাবাহিকতায় সোমবার (১৯ এপ্রিল) দুপুরে সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে হেফাজতের পাঁচ শীর্ষ নেতা বৈঠক করেছেন। হেফাজতের পক্ষ থেকে বৈঠকে নেতৃত্ব দিয়েছেন সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা নূরুল ইসলাম জেহাদী। হেফাজতের নেতারা চাইছেন, আর কোনও নেতাকর্মীকে যেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেফতার না করে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে একাধিকবার চেষ্টা করেও হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা নূরুল ইসলাম জেহাদীর সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হেফাজতের একজন মধ্যম সারির নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব নূরুল ইসলাম জেহাদীর নেতৃত্বে তিন জন সহকারী মহাসচিব ও একজন নায়েবে আমির ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তারা হেফাজতের নির্দোষ ব্যক্তিদের মুক্তি, বয়স্কদের হয়রানি না করা, পুলিশের গুলিতে নিহতদের ক্ষতিপূরণ, কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়াসহ কয়েকটি দাবি জানান।

হেফাজতের ওই নেতা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সরকার হেফাজতকে বিরোধী দল মনে করে কোণঠাসা করার চেষ্টা করছে। কিন্তু হেফাজত একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। যেভাবে হেফাজতের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে তাতে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হতে পারে। এছাড়া হেফাজতের অরাজনৈতিক আন্দোলনে তৃতীয় পক্ষ ঢুকে গিয়ে পরিস্থিতি খারাপ করার চেষ্টা করছে। সরকারকে আমরা এই বার্তাটিই দিতে চেয়েছি।’

এদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্রও বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও নাম প্রকাশ করে কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি। কারণ হিসেবে একজন ঊর্ধ্বতন গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, বৈঠকে যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের বিরুদ্ধেও একাধিক মামলা রয়েছে। একদিকে গ্রেফতার অভিযান, আরেকদিকে এজাহারভুক্ত আসামিদের সঙ্গে বৈঠক নিয়ে সরাসরি বক্তব্য দেয়াটা সমীচীন হবে না বলে মন্তব্য করেন ওই কর্মকর্তা।

যোগাযোগ করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘তাদের সমঝোতার প্রস্তাবের বিষয়টি আমার জানা নেই। আমাদের কাছে কেউ এ ধরনের প্রস্তাব নিয়েও আসেনি। হেফাজতে ইসলামের মধ্যে যারা সহিংসতার সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে যেভাবে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে, তা অব্যাহত থাকবে। আইন ভঙ্গকারীদের সঙ্গে সমঝোতার কোনও প্রশ্নই আসে না।’

২০১০ সালে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত হেফাজতে ইসলাম প্রথম আলোচনায় আসে ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষানীতি ও নারী উন্নয়ন নীতির বিরোধিতা করে। ২০১৩ সালে হেফাজত ব্লগারদের বিরুদ্ধে আন্দোলনের পাশাপাশি ১৩ দফা দাবি জানায়। ওই বছরের ৫ মে শাপলা চত্বরে সমাবেশের নামে ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। এরপর ধীরে ধীরে হেফাজতে ইসলামের ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে সরকার।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, হেফাজতের আমির আহমদ শফীর মৃত্যুর পর সংগঠনটির ওপর সরকারের যে নিয়ন্ত্রণ ছিল তা নষ্ট হয়ে যায়। হেফাজতের নতুন আমির মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরীসহ শীর্ষ নেতারা কথায় কথায় সরকারের বিরোধিতা করতে থাকে। গত বছরের নভেম্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনে বিরোধিতা করার পর এই বিষয়টি সামনে আসে। এরপর এ বছরের ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের বিরোধিতা করে আন্দোলনের নামে তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলাম। তখনও হেফাজতের শীর্ষ নেতাকর্মীদের নাম উল্লেখ না করেই একাধিক মামলা দায়ের করা হয়। তবে ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে হেফাজতের প্রভাবশালী নেতা মাওলানা মামুনুল হক এক নারী সঙ্গীসহ আটক হলে নড়েচড়ে বসে সরকার।

হেফাজতের একজন মধ্যম সারির নেতা এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘মামুনুল হকের বিষয়টিতে সরকার সুযোগ নিয়েছে। তার ব্যক্তিগত বিষয়টিকে সামনে এনে হেফাজতকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা কখনোই সরকার উৎখাতের চেষ্টা করিনি। আমাদের সাংগঠনিক মতাদর্শ থেকে আমরা আন্দোলন করে আসছিলাম।’

ওই হেফাজত নেতার ভাষ্য, ‘এখন যেভাবে হেফাজতের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গ্রেফতারি অভিযান শুরু হয়েছে, তাতে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা না করে উপায় নেই। এ জন্য শীর্ষ নেতারা সরকারের উচ্চপর্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছেন। হেফাজত আপাতত আর কোনও কর্মসূচি দেবে না—এই শর্তে সমঝোতার চেষ্টা চলছে।’

কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা বলছেন, হেফাজতকে আর ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই। তারা আগে তো অনেক তাণ্ডব চালিয়েছেই, সম্প্রতি রাজধানী ঢাকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে যা করেছে তাতে তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাওয়ার কোনও বিকল্প নেই। সহিংসতার ঘটনায় জড়িত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত রাজধানী ঢাকাতেই হেফাজতের মধ্যম ও শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সর্বশেষ রবিবার (১৮ এপ্রিল) মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে গ্রেফতার করা হয় হেফাজতের প্রভাবশালী নেতা মাওলানা মামুনুল হককে। সোমবার তাকে ৭ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে গোয়েন্দা পুলিশ। এর আগে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সভাপতি জুনায়েদ আল হাবিবসহ আরও কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, ইতোমধ্যে তারা হেফাজতের ৩০ জন সক্রিয় নেতার একটি তালিকা তৈরি করেছেন। এরমধ্যে কয়েকজনকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গোয়েন্দা নজরদারি করা হচ্ছে। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে রাজধানী ঢাকা ও ঢাকার বাইরে একাধিক মামলা রয়েছে। মামলার এজাহারভুক্ত আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

/আইএ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বন্ধুদের স্মৃতিতে অমলিন শেখ কামাল

বন্ধুদের স্মৃতিতে অমলিন শেখ কামাল

মাহমুদুল্লাহদের রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

মাহমুদুল্লাহদের রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট কেনার সিদ্ধান্ত

৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট কেনার সিদ্ধান্ত

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৫:৪৫

বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল বাংলাদেশে ২ কোটি ২৯ লাখ টাকা মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট পরিশোধ করেছে।  গত মে ও জুন মাসের ভ্যাটের বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) রিটার্ন দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি সরকারি কোষাগারে এ টাকা জমা করেছে।

ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারেট সূত্রে জানা গেছে, গত মে মাসের ভ্যাট রিটার্নের বিপরীতে ৫৫ লাখ ৭৭ হাজার ৭০৪ টাকা ভ্যাট দিয়েছে গুগল। আর জুন মাসের রিটার্নের বিপরীতে দিয়েছে ১ কোটি ৭৩ লাখ ৭৬ হাজার ৮৩২ টাকা। সিঙ্গাপুরের সিটি ব্যাংক-এনএ এর শাখা থেকে ভ্যাটের টাকা পরিশোধ করা হয়েছে।

গত ২৩ মে প্রথম অনাবাসী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গুগল ভ্যাটের নিবন্ধন নেয়। কিন্তু প্রস্তুতির জন্য মে ও জুন মাসের রিটার্ন জমার জন্য সময় চেয়েছিল গুগল। ভ্যাট বিভাগ সেই আবেদনে সাড়া দেয়। এখন ওই দুই মাসের রিটার্ন জমা দিল গুগল।

ঢাকা দক্ষিণ ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার এস এম হুমায়ন কবির বলেন, ‘গুগলের কাছ থেকে মে ও জুন মাসের ভ্যাট রিটার্ন এসেছে।

এর আগে গত মাসে প্রথমবারের মতো কোনও অনাবাসী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ফেসবুক ভ্যাট রিটার্ন দিয়ে ২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়।

/জিএম/এমএস/

সম্পর্কিত

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৫:৫৯

বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠপুত্র, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ১০ টাকা মূল্যমানের স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকার উদ্বোধনী খাম ও ৫ টাকা মূল্যের ডাটাকার্ড অবমুক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এগুলো উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

এ সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. আফজাল হোসেন এবং ডাক অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

/পিএইচসি/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

দেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

হত্যার বিচার করেছি, ষড়যন্ত্রের পেছনে কারা এখনও আবিষ্কার হয়নি: প্রধানমন্ত্রী

হত্যার বিচার করেছি, ষড়যন্ত্রের পেছনে কারা এখনও আবিষ্কার হয়নি: প্রধানমন্ত্রী

ড. সৈয়দ আব্দুস সামাদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

ড. সৈয়দ আব্দুস সামাদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৫:১৩

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমার আব্বা যেমন সারাজীবন এই দেশের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন, সন্তান হিসেবে আমরাও। একদিকে যেমন পিতৃস্নেহ বঞ্চিত হয়েছি, কিন্তু আমরা কখনও সেটাকে কষ্ট মনে করিনি। আমার মা সেটা করতে দেননি। 

তিনি বলেন, কোনও হা-হুতাশ বা অতিরিক্ত চাওয়া- সেগুলো আমাদের ছিল না। খুব সাধারণভাবে জীবন-যাপন করা, একটা আদর্শ নিয়ে চলা, দেশ ও দেশের মানুষকে ভালোবাসা এবং মানুষের কল্যাণে কাজ করা- এটাই আমাদের শিক্ষা। সেই শিক্ষাই কামাল সবসময় অনুসরণ করেছে। 

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) ‘ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন এবং শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার, ২০২১’ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন,  ৭৪ সালের ১৬ ডিসেম্বর একটা চক্রান্ত করে কামালকে গুলি করা হয়। তাকে হত্যারও চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু সে যখন বেঁচে যায়, তখন তার বিরুদ্ধে নানা ধরণের অপপ্রচার চালানো হয়। 

প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের শেখ কামাল অডিটোরিয়ামে যুক্ত হন তিনি। 

শেখ হাসিনা বলেন, অথচ শেখ কামাল রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীর ছেলে, জাতির পিতার ছেলে। অত্যন্ত সাদাসিধে জীবন-যাপন করতো সে। কখনও বাবা প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি সে জন্য অর্থ সম্পদের দিকে তার কোনও দৃষ্টি ছিল না। ব্যবসা-বাণিজ্যের দিকেও তার কোনও দৃষ্টি ছিল না। 

তিনি বলেন, দেশকে গড়ে তোলা, দেশের মানুষের পাশে থাকা বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা সাংস্কৃতিক অঙ্গন; এসব কিছুই ছিল শেখ কামালের কাছে সব থেকে বড়। সে একজন সংস্কৃতিমনা আবার রাজনীতিবিদ। কখনও বিলাস-ব্যসন- এসব দিকে তার দৃষ্টি ছিল না। এটা আমার বাবা-মায়ের শিক্ষা ছিল। তাছাড়া একটা যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ, সেখানে তো বিলাসিতা করার সুযোগ নেই।  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যে জাতির জন্য আমার বাবা এত ত্যাগ স্বীকার করলেন, বছরের পর বছর জেল খাটলেন; সেখানে এই দেশের কিছু সংখ্যক মানুষই ষড়যন্ত্র করে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করলো। 

তিনি বলেন, নূর আর কামাল একসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় কর্নেল ওসমানীর এডিসি হিসেবে কাজ করেছে। যখন বাসা আক্রমণ করে কামাল নিচের বারান্দায় চলে যায়। সে যখন দেখে নূর-হুদা একসঙ্গে ঢুকছে, তাদেরকে তখন বলেছিল যে; আপনারা এসে গেছেন? খুব ভালো হয়েছে। দেখেন বাসা কারা আক্রমণ করেছে। এই কথা শেষ করতে পারেনি ওই নূরের হাতের অস্ত্রই গর্জে ওঠে। ওরা ওখানেই কামালকে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করে। 

শেখ হাসিনা বলেন, এত বড়ো বিশ্বাসঘাতকতা এই বাংলাদেশে ঘটে গেছে। ১৫ আগস্ট যদি আজকে বাঙালির জীবনে না ঘটতো তাহলে এই জাতি অনেক আগেই বিশ্বে একটা মর্যাদা নিয়ে চলতো। এই হত্যার পর বাংলাদেশকে ইসলামিক রিপাবলিক অফ বাংলাদেশ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিল। যদিও সেটা টিকেনি। কাজেই চক্রান্তটা কোথায়, কীভাবে ছিল সেটা নিশ্চয়ই দেশের মানুষ এত দিনে উপলব্ধি করতে পারে। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি আর রেহানা দুজনে বিদেশে ছিলাম তাই বেঁচে গিয়েছি। কিন্তু হারিয়েছি আমাদের সবাইকে। তবুও দেশের মানুষের জন্য যদি কিছু করে যেতে পারি সেটাই হবে সব থেকে বড় পাওয়া। 

 

/পিএইচসি/এনএইচ/

সম্পর্কিত

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৩:২৪

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মেয়াদ আগামী মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। প্রজ্ঞাপনে দেশের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শিল্প, কল-কারখানা বিধিনিষেধের আওতা বহির্ভুত থাকবে।

এর আগে মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে করণীয় নির্ধারণে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নীতিনির্ধারকদের এক সভায় লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

সচিবালয়ে সভা শেষে তিনি জানান, আগামী ১১ আগস্ট থেকে দোকানপাট ও অফিস-আদালত খুলে দেওয়া হবে, সীমিত পরিসরে চলবে গণপরিবহনও। তবে এর আগেই সব কর্মজীবী মানুষকে করোনার টিকা গ্রহণ করতে হবে।

টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি জানান, ৭ আগস্ট থেকে সারা দেশে ১৪ হাজার কেন্দ্রে টিকা দেওয়া হবে। ৭ থেকে ১০ আগস্ট, তিন দিনের মধ্যে ১ কোটি কর্মজীবী মানুষ টিকা পাবেন। কোনও শ্রমজীবী মানুষ টিকা গ্রহণ না করে কর্মস্থলে যেতে পারবেন না, দোকানদার দোকান খুলতে পারবেন না, চালক গাড়ি চালাতে পারবেন না। টিকা গ্রহণের ক্ষেত্রে পঞ্চাশোর্ধ্ব দোকানদার, গণপরিবহনের চালক, সহকারী ও সুপারভাইজাররা অগ্রাধিকার পাবেন বলেও জানান মন্ত্রী।

ভ্যাকসিন না নিয়ে কেউ আর কর্মস্থলে আসতে পারবে না উল্লেখ করে আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, এখন ওয়েবসাইটে ভ্যাকসিনের তথ্য আছে, কেউ মিথ্যা তথ্য দিতে পারবে না।

প্রসঙ্গত, গেলো বছর মার্চের ৮ তারিখ করোনার প্রথম সংক্রমণ দেশে ধরা পড়ে। দ্বিতীয় ধাক্কায় চলতি বছরের জুন মাসে অবস্থা আশঙ্কাজনক পর্যায়ে পৌঁছালে ১ জুলাই থেকে সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে সরকার। এ সময় গণপরিবহনের সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ রয়েছে সরকারি বেসরকারি অফিস এবং ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানও। ঈদুল আজহা উপলক্ষে আট দিনের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করে সরকার। পরে ২৩ জুলাই থেকে আবারও বিধিনিষেধ জারি হয়েছে, যা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলার কথা ছিল।

 

/এসআই/ইউআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত

আপডেট : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১১:২৮

বাংলাদেশের সঙ্গে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়ন চায় ভারত। পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেনের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর লিখেন, সম্প্রতি স্বাক্ষরিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমঝোতা স্মারকের বাস্তবায়ন আমাদের অবশ্যই করতে হবে। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জয়শংকর আশা করেন ভবিষ্যতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে দুই দেশকে এটি সহায়তা করবে। 

এ ছাড়া মহারাষ্ট্রে বন্যায় মানুষ মারা যাওয়ার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন যে শোকবার্তা পাঠিয়েছেন তার জন্য জয়শংকর ধন্যবাদ জানান। 

 

/এসএসজেড/এনএইচ/

সম্পর্কিত

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে স্মারক ডাকটিকিট উদ্বোধন

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

আব্বার মতো আমরাও ত্যাগ স্বীকার করেছি: প্রধানমন্ত্রী

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

সর্বশেষ

সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করতে হবে: মেয়র আতিক

কোনও অত্যাচারের পরিণতি ভালো হয় না: নওশাবা

কোনও অত্যাচারের পরিণতি ভালো হয় না: নওশাবা

বিসিবি অ্যাওয়ার্ড নাইট চালু প্রসঙ্গে যা বললেন পাপন

বিসিবি অ্যাওয়ার্ড নাইট চালু প্রসঙ্গে যা বললেন পাপন

কারখানায় নামাজ আদায় ও টুপি পরতে মানা, শ্রমিকদের ‘বিক্ষোভ’

কারখানায় নামাজ আদায় ও টুপি পরতে মানা, শ্রমিকদের ‘বিক্ষোভ’

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষায়িত ল্যাব স্থাপন করা হবে: ইউজিসি

শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট

শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট

শেখ কামালের জন্মদিনে বিসিবিতে মিলাদ ও দোয়া

শেখ কামালের জন্মদিনে বিসিবিতে মিলাদ ও দোয়া

খুলনায় প্রস্তুত ৩০৭ বুথ, টিকা পাবে ৬১৪০০ জন

খুলনায় প্রস্তুত ৩০৭ বুথ, টিকা পাবে ৬১৪০০ জন

ভয়ংকর এলএসডি-আইস: যা ঘটেনি সেটাই দেখেন আসক্তরা

ভয়ংকর এলএসডি-আইস: যা ঘটেনি সেটাই দেখেন আসক্তরা

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

সোয়া দুই কোটি টাকা ভ্যাট দিলো গুগল

ডা. এম এ মোহায়মেন মারা গেছেন

ডা. এম এ মোহায়মেন মারা গেছেন

শেখ কামাল ক্রীড়া পুরস্কারে সালাউদ্দিন-রোমানদের উচ্ছ্বাস

শেখ কামাল ক্রীড়া পুরস্কারে সালাউদ্দিন-রোমানদের উচ্ছ্বাস

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বন্ধুদের স্মৃতিতে অমলিন শেখ কামাল

বন্ধুদের স্মৃতিতে অমলিন শেখ কামাল

মাহমুদুল্লাহদের রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

মাহমুদুল্লাহদের রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

টানা দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে টাইগারদের প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট কেনার সিদ্ধান্ত

৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট কেনার সিদ্ধান্ত

ঢাকার ‍তিন হাসপাতালে অতিরিক্ত রোগী ২১৪ জন

ঢাকার ‍তিন হাসপাতালে অতিরিক্ত রোগী ২১৪ জন

‘এম ভি ইকরামকে’ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রূপান্তর করা হবে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

‘এম ভি ইকরামকে’ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে রূপান্তর করা হবে: আ ক ম মোজাম্মেল হক

ঢাকার সরকারি ৯ হাসপাতালে আইসিইউ ফাঁকা নেই

ঢাকার সরকারি ৯ হাসপাতালে আইসিইউ ফাঁকা নেই

ডেঙ্গু পরিস্থিতি আশঙ্কাজনক রূপ নিতে পারে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

ডেঙ্গু পরিস্থিতি আশঙ্কাজনক রূপ নিতে পারে: স্বাস্থ্য অধিদফতর

বঙ্গবন্ধুর আবারও উদ্বেগ

বঙ্গবন্ধুর আবারও উদ্বেগ

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সিউলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপরে দ্বিতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী

© 2021 Bangla Tribune