X
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

সিসিটিভির ফুটেজ বিশ্লেষণ

মুনিয়ার বাসায় আনভীরের যাতায়াতের তথ্য পেয়েছে পুলিশ

আপডেট : ০৪ মে ২০২১, ০৪:১৪

রাজধানীর গুলশানের আলোচিত মোসারাত জাহান মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার আলামত হিসেবে জব্দ করা সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করছে পুলিশ। গুলশানের ওই বাসার মূল গেইটে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ বিশ্লেষণ করে মুনিয়ার বাসায় বসুন্ধরার এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের যাতায়াতের তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

ঘটনার একদিন আগে মুনিয়া নিজেও বাসার বাইরে গিয়েছিলেন। রাতে মুনিয়া একাই ওই বাসায় প্রবেশ করেন। এসময় সন্দেহভাজন অন্য কারও যাতায়াতের তথ্য পাওয়া যায়নি। তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা সিসিটিভি ফুটেজের প্রতিটি সেকেন্ড বিশ্লেষণ করছি। ফুটেজে অনেক তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। মামলার তদন্ত ও সাক্ষ্য-প্রমাণে এগুলো কাজে লাগবে।’

গত ২৬ এপ্রিল গুলশানের ১২০ নম্বর সড়কের ১৯ নম্বর বাসার একটি ফ্ল্যাট থেকে মোসারাত জাহান মুনিয়া নামে এক তরুণীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে এ ঘটনায় মুনিয়ার বড় বোন বাদি হয়ে গুলশান থানায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করে। মামলায় একমাত্র আসামি করা হয় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরকে।

ঘটনার দিন বের হয়নি মুনিয়া

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বাসার সামনের গেটের সিসিটিভি ফুটেজে তারা ঘটনার আগের দিন রাতে স্বাভাবিকভাবেই মুনিয়াকে ওই অ্যাপার্টমেন্টে ফিরতে দেখেন। তবে ঘটনার দিন মুনিয়া বাসা থেকে বের হয়নি। বসুন্ধরার এমডি সায়েম সোবহান আনভীরকে সর্বশেষ ২০ এপ্রিল বিকালে ওই অ্যাপার্টমেন্টে প্রবেশ করতে এবং বের হয়ে যেতে দেখা গেছে। তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশ কর্মকর্তারা ফুটেজের বিস্তারিত বিবরণ প্রকাশ করতে চাননি।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা জানান, সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ ছাড়াও মুনিয়ার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ফরেনসিক পরীক্ষা করিয়ে তার সঙ্গে সায়েম সোবহান আনভীরের প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি জানার চেষ্টা চলছে। ঠিক কী কারণে তাদের মধ্যে ‘ঝামেলা’ হয়েছিল এবং ভিকটিমকে মোবাইলে ফোনে ক্ষুদেবার্তার মাধ্যমে কী ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হয়েছিল তা জানার চেষ্টা চলছে।

এ ছাড়া মুনিয়ার ব্যবহৃত ছয়টি ডায়েরিতে সায়েম সোবহান আনভীরকে উদ্দেশ্য করে লেখা অভিমান ও হতাশার কথাগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

মামলার এজাহারে মুনিয়ার বড় বোন অভিযোগ করেছেন, বসুন্ধরার এমডির সঙ্গে তার বোন মুনিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গুলশানের বাসাটি তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে মাসিক এক লাখ টাকায় ভাড়া নেওয়া হলেও এর ভাড়া পরিশোধ করতেন আনভীর। ফেসবুকে একটি ছবি আপলোড করাকে কেন্দ্র করে সায়েম সোবহান আনভীর তার বোনের (মুনিয়া) ওপর ক্ষুব্ধ হয়। আনভীরের প্ররোচনায় তার বোন আত্মহত্যা করেছে বলে তিনি মামলায় অভিযোগ করেন।

সুরতহালে যা আছে

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ঘটনার দিন গুলশানে মুনিয়ার বাসায় প্রথম যান তার বড় বোন নুসরাত জাহান ও তার দুই স্বজন। মামলার এজাহারে তারা এই ঘটনার বিশদ বিবরণ দিয়েছেন। এজাহার সূত্রে জানা গেছে, সকালে মুনিয়া তার বড় বোনকে দ্রুত ঢাকায় আসতে বলে। সকাল নয়টার দিকে একবার ও পরে এগারোটার দিকে তার সর্বশেষ কথা হয়। এরপর থেকে নুসরাত তার একাধিকবার মোবাইলে কল দিলেও মুনিয়া তা রিসিভ করেনি।

নুসরাত জানান, ২৬ এপ্রিল বিকাল সোয়া ৪টার দিকে তারা গুলশানের ওই বাসায় পৌঁছান। বাইরে থেকে একাধিকবার কলিং বেল বাজালেও ভেতর থেকে কোনও সাড়া পাননি। পরে তিনি নিচের কেয়ারটেকারের মাধ্যমে বাসার ইন্টারকম টেলিফোনে ফোন করেও সাড়া পাননি। বিষয়টি ফ্ল্যাট মালিককে জানালে তার পরামর্শে মিস্ত্রি ডেকে দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন তারা।

নুসরাত বলেন, ‘ফ্ল্যাটে প্রবেশ করে শয়নকক্ষে মুনিয়াকে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখি। এ সময় তার পা দুটো বিছানার সঙ্গে কিছুটা ভাঁজ করা ছিল। মামলার এজাহারে আত্মহত্যায় প্ররোচনার কথা উল্লেখ করেছি। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে তাকে হত্যার পর লাশ সিলিং ফ্যানে ঝুলিয়ে রাখা হতে পারে।’

গুলশান থানা পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে তারা সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ওই বাসা থেকে মুনিয়ার লাশ উদ্ধার করেন। এরপর সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন গুলশান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামীম হোসেন। সুরতহাল প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, জান্নাতুল ফেরদৌস নামে একজন নারী কনস্টেবল ও ভিকটিমের বোন নুসরাত জাহানসহ উপস্থিত স্বাক্ষীদের সামনে তিনি সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকা মুনিয়ার লাশ নামিয়ে বিছানায় শুইয়ে দেন। উদ্ধারের সময় লাশের নাক ও কান স্বাভাবিক অবস্থায় ছিল। চোখ দুটি বন্ধ ছিল। জিব আধা ইঞ্চি বাইরে বের করা এবং দাঁত দিয়ে কামড়ানো অবস্থায় ছিল।

সুরতহাল রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, লাশ উদ্ধারের সময় জিহ্বা দিয়ে সামান্য লালা বের হতে দেখা গিয়েছে। গলার বাম দিকে অর্ধাচন্দ্রাকৃতি গভীর কালোদাগ ছিল। হাত দুটি শরীরের সঙ্গে লম্বা অবস্থায় অর্ধেক মুষ্ঠিবদ্ধ অবস্থায় ছিল। সুরতহাল প্রতিবেদনে পুলিশ আরও বলছে, একজন নারী কনস্টেবল ও মুনিয়ার বড় বোন নুসরাতের মাধ্যমে মৃতদেহ ওলট-পালট করে বুক, পেট ও পিঠ স্বাভাবিক দেখতে পাওয়া যায়। দুই পা লম্বালম্বি অবস্থায় ও পায়ের আঙুল নিম্নমুখী অবস্থায় পাওয়া যায়। এ ছাড়া মৃতদেহের যৌনাঙ্গ দিয়ে লালচে রঙের পদার্থ নির্গত হতে দেখা গেছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, ভিকটিম ধর্ষিত হয়েছেন কি না, ধর্ষিত হয়ে থাকলে ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ বা ভিকটিমকে কোনও প্রকার বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে কি না তা নির্ণয়ের জন্য ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চিকিৎসক জানান, ‘বিষয়টি সেনসেটিভি। ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হলেও পুরোপুরি মন্তব্য করার সময় আসেনি। ডিএনএ নমুনা ও ভিসেরা প্রতিবেদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। এগুলো পুলিশের অপরাধ তদন্ত সংস্থা- সিআইডি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে। এসব প্রতিবেদন হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করে বলা যাবে। আগামীকাল (৩ মে) শুধু ময়নাতদন্তের প্রাথমিক প্রতিবেদন পুলিশের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

যোগাযোগ করা হলে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধ্যান অধ্যাপক মাকসুদুর রহমান বলেন, ‘সোমবার প্রাথমিক ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পুলিশের কাছে দেওয়া হবে। প্রতিবেদনে কী রয়েছে এটা আমার বলা সমীচিন হবে না। তদন্ত সংশ্লিষ্টরাই বলবেন।’


এদিকে তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশের এক কর্মকর্তা বলছেন, প্রাথমিকভাবে তারা ঘটনটি আত্মহত্যা বলে নিশ্চিত হয়েছেন। হত্যার পর কেউ লাশ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখলে শরীরে আরও ইনজুরি দেখা যেত। এ ছাড়া সিসিটিভি ফুটেজেও ওই বাসায় ঘটনার দিন সন্দেহভাজন কাউকে যাতায়াত করতে দেখা যায়নি। তারা আত্মহত্যার প্ররোচনার তথ্য-উপাত্ত প্রমাণের জন্য অনুসন্ধান করছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

/এনএল/এফএ/

সম্পর্কিত

আইনজীবী তালিকাভুক্তির চূড়ান্ত ফল ২৫ সেপ্টেম্বর

আইনজীবী তালিকাভুক্তির চূড়ান্ত ফল ২৫ সেপ্টেম্বর

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৪৮

রাজধানীসহ সারাদেশে দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপনের লক্ষ্যে সরকারি চাকরিজীবীদের বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) সন্তানদের নিয়ে জরিপ করছে সরকার। প্রাথমিক পর্যায়ে রাজধানী ঢাকায় একটি দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করতে ভবন ভাড়া করারও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। 

জানতে চাইলে বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক (প্রশাসন) এ কে এম ফজলুজ্জোহা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে রাজধানী ঢাকায় একটি দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করে পাইলটিং করা হবে। এ জন্য ভবন ভাড়া নেওয়ার বিজ্ঞপ্তিও দেওয়া হয়েছে। পাইলটিং শেষ হলে সারাদেশেই দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করা সম্ভব হবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালের ১৭ জানুয়ারি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই সময় তিনি সরকারি কর্মচারীদের বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) সন্তানদের পুনর্বাসনের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব উপস্থাপনের নির্দেশ দেন।

প্রধানমন্ত্রীর ওই নির্দেশেনার পর ঢাকা মহানগরে কর্মরত, অবসরপ্রাপ্ত সকল সরকারি কর্মচারীর বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন সন্তানদের কিংবা তাদের ওপর নির্ভরশীলদের জন্য একটি জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে এসব সন্তানের জন্য ঢাকা মহানগরে একটি দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর তথ্য সংগ্রহ করার উদ্যোগ নেয় সরকারি কর্মচারী কল্যাণ বোর্ড।  গত ১৪ সেপ্টেম্বর একটি নির্দেশনা দিয়ে জরিপ ফরম বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের ফরম পূরণের নির্দেশনা দেওয়া হয়। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে [email protected] ই-মেইলে সরাসরি তথ্য পাঠাতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে অনুরোধ জানান সরকারি কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক (সচিব) ড. নাহিদ রশীদ।

তথ্য সংগ্রহ ফরমে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) ব্যক্তির নাম, মায়ের নাম, অথবা বৈধ অভিভাবকের নাম, পিতার নাম অথবা বৈধ অভিভাবকের নাম, পিতা বা মায়ের কর্মস্থলের পদবি ও ঠিকানা উল্লেখ করতে হবে।

বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) ব্যক্তির বর্তমান ও  স্থায়ী ঠিকানা, জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর (যদি থাকে), জন্মনিবন্ধন সনদ নম্বর, জন্ম তারিখ (খ্রিস্টব্দে), ২০২১ সালের ১ অক্টোবর তার বয়স কত, কোন লিঙ্গ, কোন ধর্ম তা উল্লেখ করার কথা বলা হয়েছে ফরমে।

এছাড়া অটিজম বা অটিজম স্পেকট্রাম ডিজঅর্ডারস বৈশিষ্ট্য, সেরিব্রাল পালসিজনিত প্রতিবন্ধী মাঝারি নাকি বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন, তার (প্রতিবন্ধী) ধরণ উল্লেখ করতে হবে। বিশেষ চাহিদা সম্পন্নতার (প্রতিবন্ধী) মাত্রা এবং কোন কোন ধরনের সহায়তা প্রয়োজন,  তা উল্লেখ করতে বলা হয়েছে।

ক্র্যাচ, শ্রবণযন্ত্র, সাদাছড়ি, ওয়াকার, আতশীকাঁচ, হুইল চেয়ার, বিশেষ জুতা, মানসিক অসুস্থতাজনিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, ডাউন সিনড্রোমজনিত প্রতিবন্ধী, বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধী কিনা, তারও তথ্য জানাতে হবে।

এছাড়া পিতামাতার ফোন নম্বর, ই-মেইল আইডি, মোবাইল নম্বর উল্লেখ করতে হবে নির্ধারিত ফরমে।

এর আগে দেশের বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) সকল ব্যক্তির সেবা ও শিক্ষা উন্নয়নে জরিপসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয় সরকার। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) ব্যক্তিদের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে। তবে সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য এবার আলাদা করে দিবাযত্ন কেন্দ্র স্থাপন করার উদ্যোগ নেওয়া  হলো।

 

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

রাজারবাগ দরবারের বিরুদ্ধে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ বহাল

রাজারবাগ দরবারের বিরুদ্ধে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ বহাল

রোহিঙ্গাদের জন্য ১৮ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

রোহিঙ্গাদের জন্য ১৮ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

নেদারল্যান্ডস ভ্রমণের শর্ত শিথিল

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:২৬

সম্পূর্ণভাবে টিকা গ্রহণকারী ভ্রমণকারীদের নেদারল্যান্ডসে আসার পর তাদের আর হোম কোয়ারেন্টিন করার প্রয়োজন পড়বে না। বাংলাদেশ থেকে নেদারল্যান্ডস ভ্রমণকারীদের জন্য এমন নির্দেশনা দিয়েছে ওই দেশের সরকার।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশ দূতাবাসের ফেসবুক পেজে এ তথ্য জানানো হয়।

সেখানে আরও বলা হয়, ‘কিন্তু, ভ্রমণকারীদের বাংলাদেশ থেকে যাত্রা শুরু করার পূর্বে অবশ্যই করোনা পরীক্ষা করাতে হবে (সম্পূর্ণভাবে টিকা গ্রহণ করা সত্ত্বেও)। তবে যারা টিকা গ্রহণ করেননি বা আংশিক গ্রহণ করেছেন, তাদের অবশ্যই কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।’

 

 

 

/এসএসজেড/আইএ/

সম্পর্কিত

অনলাইনে কারিগরির অ্যাডভান্সড কোর্সে নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

অনলাইনে কারিগরির অ্যাডভান্সড কোর্সে নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে টিউশন-ফি মওকুফের দাবি

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে টিউশন-ফি মওকুফের দাবি

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের জবাব দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী

সাবলেট বাসা থেকে নারীর লাশ উদ্ধার, পাওয়া যাচ্ছে না স্বামীকে

সাবলেট বাসা থেকে নারীর লাশ উদ্ধার, পাওয়া যাচ্ছে না স্বামীকে

৫ দিনের মধ্যে বড় পরিসরে টিকাদান কর্মসূচি

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১৯

আগামী চার থেকে পাঁচদিনের মধ্যে বড় পরিসরে টিকাদান কর্মসূচি পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ১ কোটির বেশি মানুষকে এসময়ে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে বিশেষ প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন, ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম উদ্বোধন ও পুষ্টির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ ‑ জাতীয় পুষ্টি পরিষদ বিষয়ক প্রচারণা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ইতোমধ্যেই পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মাধ্যমে কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় ফাইজার বায়োএনটেকের আরও ৭১ লাখ ডোজ টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ।

আজ জাহিদ মালেকও বলেন, আমরা কোভ্যাক্স থেকে টিকা পাচ্ছি। এর মধ্যে বিভিন্ন টিকা পেয়েছি। ফাইজারের ৬০ লাখ ডোজের মধ্যে ইতোমধ্যে ১০ লাখ বাংলাদেশকে দেওয়া হয়েছে। ৬০ লাখের বাইরে ফাইজারের আরও ৭১ লাখ ডোজ টিকা পাব, এমন আশ্বাস পেয়েছি।

এর আগে, গত ১৯ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমও টিকাদান কর্মসূচি বড় পরিসরে হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছিলেন।

সেদিন তিনি বলেন, ‘আমাদের হাতে পর্যাপ্ত টিকা মজুত রয়েছে। ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় টিকা পাওয়ার উৎস নিশ্চিত করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতি মাসে ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে এক কোটিসহ প্রায় দুই কোটির মতো টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আর এ জন্য মাঠ পর্যায়ের টিকাদান কর্মসূচি আরও কীভাবে বাড়ানো যায় বা সম্প্রসারণ করা যায়, সে বিষয়ে সচেষ্ট রয়েছি।’

/জেএ/এমএস/

সম্পর্কিত

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

বিমানবন্দরে ল্যাবের অবকাঠামোর কাজ শেষ হবে আজ

বিমানবন্দরে ল্যাবের অবকাঠামোর কাজ শেষ হবে আজ

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

দেশে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৭

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন অভিযোগ করেছে, দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার ষড়যন্ত্র দীর্ঘ সময় থেকেই চলে আসছে। সমাজে এক শ্রেণির সুবিধাবাদী মহল সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দিয়ে নিজেদের হীনস্বার্থ হাসিল করতে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপাসনালয়, বাড়িঘর, দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আক্রমণ ও নারী-শিশু নির্যাতনের মতো জঘন্য ঘটনায় লিপ্ত হয়ে দেশকে অস্থিতিশীলতার দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটি ঢাকার নেতাদের এক সভায় বক্তারা এসব অভিযোগ করেন। কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় দলের  নেতারা বক্তব্য রাখেন।

সভায় বলা হয়, কক্সবাজারের টেকনাফের হরিখোলা গ্রামে এক আদিবাসী নারীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে তার মাথা ফাঁটিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ইতোমধ্যে সনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় দুর্গা উৎসবের প্রস্তুতিমূলক কাজ চলছে। গত ২২ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়ায় দুর্গা পূজার প্রস্তুতি মুর্হূতে প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা দেশব্যাপী সনাতন ধর্মালম্বীদের মাঝে নিরাপদে দুর্গা উৎসব সম্পন্ন করা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

দেশব্যাপী সকল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসবসহ সার্বিক নিরাপত্তা বিধানের দাবি জানান আন্দোলনের নেতারা। পাশাপাশি এ ধরনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুষ্কৃতিকারীদের কঠোর হস্তে দমনের দাবিও করেন সংগঠনের নেতারা।

সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার হোসেন সামছি, জহিরুল ইসলাম জহির, কেন্দ্রীয় নেতা ড. সেলু বাসিত, আব্দুল ওয়াহেদ, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অলক দাশগুপ্ত, অ্যাডভোকেট পারভেজ হাসেম, ইয়াছরেমিনা বেগম সীমা, সাজেদুল আলম রিমন, মইনুল আবেদিন খান সুমন, ঢাকা মহানগর কমিটির সদস্য সচিব জাহাঙ্গির আলম ফজলু, ঢাকা মহানগর সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব জুবায়ের আলম  প্রমুখ।

/এসটিএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

অনূর্ধ্ব ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

রাজারবাগ দরবারের বিরুদ্ধে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ বহাল

রাজারবাগ দরবারের বিরুদ্ধে দুদক, সিটিটিসি ও সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ বহাল

রোহিঙ্গাদের জন্য ১৮ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

রোহিঙ্গাদের জন্য ১৮ কোটি মার্কিন ডলার সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

আইনজীবী তালিকাভুক্তির চূড়ান্ত ফল ২৫ সেপ্টেম্বর

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪৫

আইনজীবী তালিকাভুক্তির (এনরোলমেন্ট) মৌখিক পরীক্ষা শেষে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করবে বাংলাদেশ বার কাউন্সিল।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ও এনরোলমেন্ট কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সুপ্রিম কোর্ট অডিটোরিয়াম ও সুপ্রিম কোর্ট জাজেস স্পোর্টস কমপ্লেক্সে ধাপে ধাপে এ মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় প্রায় ৬ হাজারের মতো শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এই ফলাফল ঘোষণার পর উত্তীর্ণরা সংশ্লিষ্ট জেলা আদালতে আইনজীবী হিসেবে প্রাকটিস করতে পারবেন।

তবে এর আগে গত ২৫ জুলাই থেকে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত ১৫ জুলাই এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে তা স্থগিত করা হয়েছিলো।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ১৯ ডিসেম্বর ও চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সেখান থেকে উত্তীর্ণ এবং বিগত দুই পরীক্ষার মৌখিক পর্যায়ে আটকে পড়ারা এবার মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। কেননা, তিন ধাপের নৈর্ব্যক্তিক, লিখিত এবং মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণরাই আইনজীবী হিসেবে প্রাকটিস করতে পারেন। একবার লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে তারা তিনবার সরাসরি মৌখিক পরীক্ষার জন্য বিবেচিত হন।

/বিআই/এমএস/

সম্পর্কিত

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

ইভ্যালির রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

ইভ্যালির রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আইনজীবী তালিকাভুক্তির চূড়ান্ত ফল ২৫ সেপ্টেম্বর

আইনজীবী তালিকাভুক্তির চূড়ান্ত ফল ২৫ সেপ্টেম্বর

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভানার পাশে কেউ ছিল না

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

ইভ্যালির রাসেলের রিমান্ড ও জামিন শুনানিতে যা বললেন আইনজীবীরা

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতির নাম চেয়ে চিঠি

ইভ্যালির রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

ইভ্যালির রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

মাদক মামলায় হাইকোর্টে জামিন পেলেন মৌ 

মাদক মামলায় হাইকোর্টে জামিন পেলেন মৌ 

আরেক মামলায় রাসেলের ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

আরেক মামলায় রাসেলের ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

স্বাস্থ্যের সেই ড্রাইভার মালেকের স্ত্রী কারাগারে

স্বাস্থ্যের সেই ড্রাইভার মালেকের স্ত্রী কারাগারে

রিমান্ড শেষে আদালতে রাসেল

রিমান্ড শেষে আদালতে রাসেল

অর্থপাচার মামলা: ফরিদপুরের আশিকের ঠিকাদারি লাইসেন্স দাখিলের নির্দেশ

অর্থপাচার মামলা: ফরিদপুরের আশিকের ঠিকাদারি লাইসেন্স দাখিলের নির্দেশ

সর্বশেষ

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

অকাস জোটে ভারত-জাপানকে রাখছে না যুক্তরাষ্ট্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে পাশে থাকবে জার্মানি: তাজুল ইসলাম

রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে পাশে থাকবে জার্মানি: তাজুল ইসলাম

গাজীপুর মেয়রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, অগ্নিসংযোগ

গাজীপুর মেয়রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ, অগ্নিসংযোগ

© 2021 Bangla Tribune