X
সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

আসছে বজ্রঝড়, হতে পারে বন্যাও

আপডেট : ০২ জুন ২০২১, ২১:৪৮

আগামী দুই-একদিনের মধ্যেই বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকতে পারে মৌসুমি বায়ু। শুরু হবে বর্ষা। গ্রীষ্মের তাপদাহ থেকে মুক্তি পাবে দেশের মানুষ। তবে বর্ষা শুরুর পরপরই হতে পারে বজ্রঝড়। চলতি মাসে দুই থেকে তিনটি বজ্রঝড় হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। একইসঙ্গে ভারী বৃষ্টির কারণে উত্তরাঞ্চলের দিকে বন্যারও শঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত, বজ্রঝড় হচ্ছে ভারী বৃষ্টি বা শিলাবৃষ্টির সঙ্গে প্রচুর বজ্রপাত।

আবহাওয়াবিদ আফতাব উদ্দিন বলেন, প্রতিবছরই এই সময় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে আকাশে বজ্রমেঘ সৃষ্টি হয়। সেই কারণে হয় বজ্রঝড়। তিনি বলেন, এই সময় বৃষ্টি হলে খোলা আকাশে নিচে থাকা খুবই বিপজ্জনক। তাই খুবই সাবধানে থাকতে হবে। বজ্রপাতের হাত থেকে বাঁচতে হলে সতর্ক থাকা বেশি জরুরি।

আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে বলা হয়, জুন মাসে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। জুন মাসের প্রথমার্ধে সারা দেশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বিস্তার লাভ করতে পারে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে দুটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এরমধ্যে একটি নিম্নচাপ বা গভীর নিম্নচাপে রূপ নিতে পারে। এ মাসে দেশের উত্তর থেকে মধ্যাঞ্চল পর্যন্ত ২ থেকে ৩ দিন মাঝারি বা তীব্র বজ্রঝড় ও দেশের অন্য এলাকায় ৩ থেকে ৪টি হালকা বা মাঝারি বজ্রঝড় হতে পারে। একই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে। এই বৃষ্টির কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল, উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের কিছু এলাকায় স্বল্পমেয়াদি আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। 

এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও আশপাশের এলাকায় অবস্থান করছে। এর বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। লঘুচাপের প্রভাবে বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং ময়মনসিংহ, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা ও খুলনা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে সীতাকুণ্ডে ১৯৩ মিলিমিটার। এছাড়া ফেনীতে ৯৯, সন্দ্বীপে ৮৮, ঢাকায় ৮৫, চট্টগ্রামে ৭৩, মাইজদি কোর্টে ৭২, নেত্রকোনায় ৫৯, ময়মনসিংহে ৪৮, কুতুবদিয়ায় ৪৫, ভোলায় ৪৪, পটুয়াখালীতে ৪১, চাঁদপুরে ৩৯, সিলেটে ৩৮, মোংলা ও রাঙ্গামাটিতে ৩৭, শ্রীমঙ্গলে ৩৫, টাঙ্গাইলে ৩৩, বরিশালে ২৮, কক্সবাজারে ২৭, টেকনাফ ও কুমিল্লায় ২৫, হাতিয়ায় ২৪, যশোর ও মাদারীপুরে ১৯, চুয়াডাঙ্গায় ১৭, নিকলিতে ১৬, খেপুপাড়ায় ১৫, বদলগাছিতে ১৪, সাতক্ষীরা ও রাজশাহীতে ১২, খুলনায় ১০, তাড়াশে ৯, গোপালগঞ্জে ৭, কুমারখালীতে ৫, ফরিদপুরে ৩, ডিমলা ও ঈশ্বরদীতে ২ ও বগুড়ায় ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

/এমআর/এমওএফ/

সম্পর্কিত

চলতি সপ্তাহেই বন্যার শঙ্কা

চলতি সপ্তাহেই বন্যার শঙ্কা

শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

ভারী বৃষ্টিতে বেশ কিছু নদীর পানি দ্রুত বাড়বে, বন্যার শঙ্কা

ভারী বৃষ্টিতে বেশ কিছু নদীর পানি দ্রুত বাড়বে, বন্যার শঙ্কা

বাড়ছে নদীর পানি, বন্যার শঙ্কা

বাড়ছে নদীর পানি, বন্যার শঙ্কা

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

আপডেট : ০২ আগস্ট ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২ আগস্টের ঘটনা।)

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেলগ্রেড থেকে অটোয়ায় যাওয়ার সময় লণ্ডনে কিছু সময় অবস্থান করেন। সেখানে তিনি বিবিসি টেলিভিশনের সঙ্গে সাক্ষাৎকার দেন। অটোয়ার বিখ্যাত পত্রিকা গ্লোবের সঙ্গেও তিনি আরেক সাক্ষাৎকার দেন এবং এই দুই সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ, যুদ্ধাপারাধের বিচার, উপমহাদেশের শান্তি ও ভারতের সঙ্গে যুক্ত ঘোষণার নানা বিষয়ে নিজের ও দেশের অবস্থান স্পষ্ট জানিয়ে দেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেন যুদ্ধাপরাধের বিচারের ব্যাপারে বাংলাদেশের নীতির প্রশ্নে কোনও আপস হতে পারে না। তিনি বলেন যুদ্ধাপরাধের বিচারের অর্থ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ গ্রহণ নয়। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নয় বরং কীভাবে তারা পরিকল্পিত উপায়ে লাখ লাখ বাঙালিকে নির্বিচারে হত্যা করেছে বিশ্বের চোখে তা তুলে ধরার জন্যই যুদ্ধাপরাধের বিচার করা হবে। বিবিসি টেলিভিশন এর সঙ্গে সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ কথা বলেন। এক প্রশ্নের উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেন বাংলাদেশকে তার ৩০ লাখ মানুষকে হারাতে হয়েছে এবং এখন পাকিস্তানের উচিত বাস্তবতাকে মেনে নেওয়া। টেলিভিশনের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে বঙ্গবন্ধু বলেন পাকিস্তান প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে চলেছে এবং সাড়ে সাত কোটি মানুষের একটি সার্বভৌম জাতিকে অবজ্ঞা করে চলেছে। স্বীকৃতির প্রশ্নে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট পার্লামেন্টের ইত্যাদির ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেন কোনও একটি দেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য কাউকে দেশের পার্লামেন্টের অনুমোদন নিতে বলাটা অত্যন্ত তামাশার। তিনি প্রশ্ন করেন কোন দেশ স্বীকৃতি দানের জন্য আপনাদের প্রধানমন্ত্রী কি পার্লামেন্টের অনুমোদন প্রার্থনা করেন?

বঙ্গবন্ধু বলেন বিশ্বের একশ তিনটি দেশ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে এবং এখন প্রশ্ন হচ্ছে বাংলাদেশ পাকিস্তানকে স্বীকার করে কিনা। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উল্লেখ করেন যে বাংলাদেশ ভারত যুক্ত ঘোষণায় বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিতে বলা হয়নি। আমরা চেয়েছি উপমহাদেশের নিরঙ্কুশ শান্তি। তিনি বলেন পাকিস্তানকে তার মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। উপ-মহাদেশের অমীমাংসিত সমস্যাবলীর সমাধান এর অগ্রগতি হয়নি তার জন্য পাকিস্তানই দায়ী।



বিচারের প্রশ্নে আপস নয়

ভয়াবহ অতীতকে ভুলে যেতে পারেন কিনা এবং তিনি কী ভয়াবহ অতীতকে ভুলে গিয়ে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি দিতে পারেন কিনা এরূপ এক প্রশ্নের উত্তরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেন আমরা অনেক উদার। আমরা অনেক উদারতা দেখিয়েছি। তা না হলে বাংলাদেশ থেকে ৯৩ হাজার পাকিস্তানের যুদ্ধবন্দির একজন ভারতে যেতে পারত না। বঙ্গবন্ধু প্রশ্ন করেন কিন্তু আপনারা কি জানেন বাংলাদেশ কি ঘটেছে এবং কিভাবে পরিকল্পিত উপায়ে বাংলাদেশের যুদ্ধবন্দিদের নিধন করা হয়েছে? আমার জনগণের কাছে আমি কি জবাব দিব? বঙ্গবন্ধু বলেন ১৯৫ পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের ছেড়ে দিতে রাজি আছি কিন্তু তারা কেন তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিচ্ছে না? এই প্রশ্নে কোন আপস করা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন কখনও নীতির প্রশ্নে আপস করেননি। বঙ্গবন্ধু বলেন যুক্ত ঘোষণার পরেও পাকিস্তান আবার আমাদের লোকজনকে গ্রেফতার করেছে আটক করেছে।


গ্লোবের সঙ্গে সাক্ষাৎকার

বুধবার অটোয়ায় কানাডার একটি প্রভাবশালী দৈনিক পত্রিকার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের পর উদ্ভূত মানবিক সমস্যাবলীর সমাধান এবং নির্দিষ্ট অভিযোগে অভিযুক্ত ১৯৫ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধী ছাড়া সকল পাকিস্তানের যুদ্ধ বন্দি মুক্তির প্রশ্ন করেন। বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রশ্নে আবার ঘোষণা করেন যে ন্যায়বিচারের স্বার্থে পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা হবে।বঙ্গবন্ধু বলেন প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য নয় বাঙালিদের ওপর চরম বর্বরতা করা হয়েছে এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ করা হয়েছে বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরার জন্য যুদ্ধাপরাধের অভিযুক্ত পাকিস্তানি যুদ্ধ অপরাধ বিচার হওয়া প্রয়োজন।

আরেক প্রশ্নের উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেন আমরা বিশ্বশান্তির প্রতি বিশ্বাসী এবং আমরা অস্ত্র প্রতিযোগিতায় বিরোধী। তিনি বলেন বৃহৎ শক্তিবর্গের উচিত প্রতিযোগিতা বন্ধ করা এবং তাদের সম্পর্কে উন্নয়নশীল দেশগুলির লক্ষ লক্ষ মানুষের কল্যাণে ব্যয় করা। সম্মেলন সম্পর্কে এক প্রশ্নের উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেন কমনওয়েলথভুক্ত রাষ্ট্রসমূহ একটি সংযুক্ত প্রচেষ্টা বাঙালিদের দুর্গতির অবসান ঘটাবে। তিনি বলেন পাকিস্তানের শাসকদের হাতে আমরা বর্বর নির্যাতনের শিকার হয়েছি এবং আমাদের দেশ দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সর্বক্ষেত্রে উন্নত দেশগুলোর কাছ থেকে বিশেষ সুবিধা লাভে আমরা অধিকারী। বাংলাদেশকে খাদ্যসাহায্য কারিগরি ও অর্থনৈতিক সমর্থন দিতে কমনওয়েলথ এ ব্যাপারে এক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে। বঙ্গবন্ধু আশা প্রকাশ করেন যে কমনওয়েলথ এর মত একটি আন্তর্জাতিক ফোরামে বিশ্ব পরিস্থিতি আন্তর্জাতিক বিষয় এবং কামনায় দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক অগ্রগতি সহযোগিতাসহ দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে আলোচনা হবে।

 

 

/এফএএন/

সম্পর্কিত

প্রথমবারের মতো কমনওয়েলথ সম্মেলনে যোগ দিতে অটোয়ায় বঙ্গবন্ধু

প্রথমবারের মতো কমনওয়েলথ সম্মেলনে যোগ দিতে অটোয়ায় বঙ্গবন্ধু

এখনও শেষ হয়নি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার

এখনও শেষ হয়নি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার

শোকাবহ আগস্ট

শোকাবহ আগস্ট

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২১:১২

দেশে এখনও করোনার ঊর্ধ্বমুখী অবস্থা চলছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আমরা তো এখনও করোনা ফ্রি হইনি। বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে। বিধিনিষেধের মধ্যেই তা মেনে কাজ করতে হবে।

রবিবার (১ আগস্ট) মহাখালীর বিসিপিএস মিলনায়তনে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন করে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে তিনি এ মন্তব্য করেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, টিকা কর্মসূচি শুরু করেছি আমরা, এটাও একটা বড় হাতিয়ার করোনার বিরুদ্ধে। টিকা আমরা আগে সেভাবে পাইনি, যার ফলে দিতে পারিনি। এখন প্রত্যেক সপ্তাহে টিকা আসছে। আমরা টিকা দেওয়ার একটা বড় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।

এ ছাড়া পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, পোশাক শ্রমিকরা গাদাগাদি করে এসেছে। তিল ধারণের জায়গা ছিল না। এর মাধ্যমে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, আমরা সেটা স্বীকার করি আর না করি, স্বাস্থ্যবিধি ওখানে কোথাও মানা হয়নি। আমরা আশা করবো এ ধরনের অবস্থা ভবিষ্যতে যেন না হয়।

জীবন-জীবিকা অবশ্যই করতে হবে- মন্তব্য করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জীবনের জন্য জীবিকা দরকার, আবার জীবিকার জন্য জীবনও তো থাকতে হবে। এই দুইটা ব্যালেন্স আমাদের করতে হয়। সরকারের সবদিকেই সে ব্যালেন্স করে চলতে হয়। কিন্তু ব্যালেন্স সব সময় রাখা যায় না। সবকিছু ভেবেই এগুতে হবে যাতে সংক্রমণ বৃদ্ধি না পায়। কারণ, সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে মৃত্যুর হার বাড়বে।

 

/জেএ/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২০:৩২

পোশাক কারখানা খুলে দেওয়ায় সংক্রমণ বাড়বে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রবিবার (১ আগস্ট) মহাখালীর বিসিপিএস মিলনায়তনে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের এমবিবিএস প্রথম বর্ষের ক্লাস উদ্বোধন করে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জাহিদ মালেক বলেন, তারা গাদাগাদি করে এসেছে। তিল ধারণের জায়গা ছিল না। এর মাধ্যমে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে।

‘আমরা সেটা স্বীকার করি আর না করি, স্বাস্থ্যবিধি ওখানে কোথাও মানা হয়নি। আমরা আশা করবো এ ধরনের অবস্থা ভবিষ্যতে যেন না হয়’।

সংক্রমণের হার বাড়ছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, উত্তরবঙ্গে কিছুটা হার কমেছে, আর মধ্যাঞ্চলে এখনও স্থিতিশীল অবস্থা রয়েছে, অর্থাৎ হার কমেনি। আর দক্ষিণাঞ্চলে বাড়ছে। যেমন কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, সিলেটে বাড়ছে। সেখানে এখনও বাড়ছে।

শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরার সুযোগ দিতে সীমিত সময়ের জন্য লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রোববার সকালে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে ছিল ঢাকামুখী যাত্রীদের প্রচণ্ড ভিড়।

আমরা সেবা দেওয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যতটুকু বেড বাড়ানো সম্ভব, আমরা বাড়িয়েছি। হাসপাতালের ভেতরে আর একটা বেড ঢোকানোর জায়গা নেই। সে কারণে আমরা নতুন ভবনও খুঁজছি, তবে পাওয়া যাচ্ছে না। এ ছাড়া ভবন পাওয়া গেলেই হবে না, ডাক্তার, নার্স, যন্ত্রপাতিও থাকতে হবে।

আমরা সেটারও চেষ্টা করছি। প্রতিদিন দুইশ’র মতো মানুষ মৃত্যুবরণ করে। প্রায় ১০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। করোনায় দৈনিক শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা মৃত্যু-শনাক্ত কমিয়ে আনতে চাই। কিন্তু যদি স্বাস্থ্যবিধি না মানা হয় তাহলে এটা কমবে না।

তবে একইসঙ্গে আমাদের জীবন-জীবিকা অবশ্যই করতে হবে, মন্তব্য করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, জীবনের জন্য জীবিকা দরকার, আবার জীবিকার জন্য জীবনও তো থাকতে হবে। এই দুইটা ব্যালেন্স আমাদের করতে হয়। সরকারের সবদিকেই সে ব্যালেন্স করে চলতে হয়। কিন্তু ব্যালেন্স সব সময় রাখা যায় না।

জাহিদ মালেক বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ খুলে দিয়েছিল আবার বন্ধ করে দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় কারফিউ দিয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রে মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা তুলে দিয়েছিল কিন্তু আবার পরতে বলেছে। অনেক জায়গায় রেস্টুরেন্ট খুলে দিয়েছিল, আবার বন্ধ করে দিয়েছে। সব জায়গায় একই অবস্থা। সেজন্য আমাদেরও সাবধানে এগুতে হবে। সবকিছু ভেবেই এগুতে হবে যাতে সংক্রমণ বৃদ্ধি না পায়। কারণ, সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে মৃত্যুর হার বাড়বে।

শিল্পকারখানা খোলায় শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে কর্মস্থলে ফেরা দক্ষিণবঙ্গের শ্রমজীবীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

বিধিনিষেধ থাকবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিধিনিষেধ থাকতে হবে। আমরা তো এখনও করোনা ফ্রি হইনি। আমাদের দেশে এখনও করোনা ঊর্ধ্বমুখী। বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে। বিধিনিষেধের মধ্যেই তা মেনে কাজ করতে হবে। টিকা কর্মসূচি শুরু করেছি আমরা, এটাও একটা বড় হাতিয়ার করোনার বিরুদ্ধে। টিকা আমরা আগে সেভাবে পাইনি, যার ফলে দিতে পারিনি। এখন প্রত্যেক সপ্তাহে টিকা আসছে। আমরা টিকা দেওয়ার একটা বড় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।

 

 

/জেএ/এনএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা: শিল্পমন্ত্রী

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ১৯:৩২

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেন, বঙ্গবন্ধুর সারাজীবনের আত্মত্যাগ তখনই সার্থক হবে, যখন আমরা অসহায় মানুষের জন্য কোনও কাজ করতে পারবো। অসহায় ও মুমূর্ষু মানুষের জন্য রক্তদান আমাদের জন্য একটা বড় সুযোগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে। অসহায় ও মুমূর্ষু  মানুষকে রক্তদান একটি মানবিকতা। 

রবিবার (১ আগস্ট) একটি বেসরকারি টেলিভিশন কার্যালয়ে আয়োজিত শোকাবহ আগস্ট ২০২১ উপলক্ষে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মত্যাগের স্মরণে স্বেচ্ছা রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানানো হয়েছে। 

অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী বলেন, আগস্ট বাংলাদেশের সকল মানুষের জন্য একটি শোকাবহ মাস। আমি বিশ্বাস করি, শিল্প মন্ত্রণালয়সহ প্রতিটি মন্ত্রণালয় এবং যে সকল প্রচার সংস্থাসমূহ আছেন তারা যদি এ মহৎ উদ্যোগগুলিকে সারা বাংলাদেশের মানুষের কাছে নিয়ে যান, তাতে বঙ্গবন্ধু রক্তের ঋণ কখনও তো শোধ করা যাবে না। তবে মানবতার সেবায় এ রক্তদান কর্মসূচি বিশাল ভূমিকা রাখবে।

 

/এসআই/এনএইচ/

সম্পর্কিত

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বিধিনিষেধ অবশ্যই থাকতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতালের জন্য ভবন খুঁজছি, পাওয়া যাচ্ছে না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র সরানো হবে: স্বাস্থ্যের ডিজি

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২১, ২০:১৩

দেশে করোনার টিকাদান কেন্দ্র অচিরেই আরও বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম। তিনি বলেন, ‘আমরা চাচ্ছি হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র বের করে নিয়ে আসতে।’

রবিবার (১ আগস্ট) তিনি  এসব কথা জানান।

প্রসঙ্গত, আগামী ৭ আগস্ট থেকে সারাদেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হতে যাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে ডিজি বলেন, ‘টিকাদান কেন্দ্র বাড়বে। সিটি করপোরেশন এবং গ্রামের ওয়ার্ড পর্যায়ে যখন টিকা দেওয়া শুরু হবে, তখন টিকা গ্রহীতা অনেক বেড়ে যাবে। আমরা চাচ্ছি  হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র বের করে নিয়ে আসতে।’

হাসপাতালে টিকাদান কেন্দ্র করার কারণ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের এতদিন ধরে যে বড় ভয় ছিল, টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় কিনা, যার জন্য ইমিডিয়েট হাসপাতালের সাপোর্ট লাগবে, কিন্তু আমরা দেখলাম, গত কয়েক মাসে এত এত টিকা দেওয়া দেখলাম, সে রকম মেজর কোনও দুর্ঘটনার সম্মুখীন হইনি।’

ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশিদ আলম বলেন, ‘সেক্ষেত্রে যদি হাসপাতালগুলোকে ফ্রি না করি, তাহলে প্রতিটি হাসপাতালেই স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে। হাসপাতালের বাইরে আনলেই টিকাকেন্দ্র বেড়ে যাবে। আর কেন্দ্র বাড়লেই আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে টিকার আওতায় আনতে পারবো।’

গ্রামাঞ্চলে স্কুল-কলেজ-কমিউনিটি হেলথ ক্লিনিক আর ঢাকার ভেতরে মেডিক্যাল কলেজগুলোতে কেন্দ্র দিয়ে দিতে চাই জানিয়ে অধ্যাপক খুরশিদ আলম বলেন, ‘হাসপাতাল থেকে টিকাকেন্দ্র কলেজ বিল্ডিংগুলোতে ট্রান্সফার করতে চাচ্ছি। কলেজের জায়গা বড়, শিক্ষার্থীরাও নাই, সেখানে মাল্টিপল বুথ করে টিকা দিতে চাই।’

গ্রামাঞ্চলে টিকাদানের বিষয়ে ইতোমধ্যে মাইক্রোপ্ল্যান হয়ে গেছে, প্রশিক্ষণ চলছে। প্রশিক্ষণ শেষ হলেই আগামী ৭ আগস্ট থেকে টিকা দেওয়া শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ইউনিয়ন পর্যায়ে সম্প্রসারিত টিকাদান কেন্দ্রে যেভাবে টিকা দেয়, সেভাবেই টিকা দেওয়া হবে।’

সোমবার (২ আগস্ট) থেকে দেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম টিকা দেওয়া শুরু হবে। সেক্ষেত্রে যাদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার নির্ধারিত তিন মাস অতিবাহিত হয়েছে, কিন্তু এখন দেওয়া হলে কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে কিনা প্রশ্নে ডিজি বলেন, ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবার বলেছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার বেলায় গ্যাপটা বেশি হলে অ্যান্টিবডি টাইটার বাড়ে, তার মানে প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়।’

সেক্ষেত্রে তিন মাস খুব বেশি গ্যাপ না। আমরা আশা করছি, এতে কোনও ক্ষতি হবে না।’

 

/জেএ/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় বাড়লো মৃত্যু ও শনাক্ত

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর প্রজ্বলিত স্বাধীনতার দীপশিখা অনন্তকাল ধরে জ্বলবে: তথ্যমন্ত্রী

সর্বশেষ

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির প্রয়োজন কী?

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির প্রয়োজন কী?

ময়মনসিংহ হাসপাতালে ভর্তি ৪ ডেঙ্গু রোগী

ময়মনসিংহ হাসপাতালে ভর্তি ৪ ডেঙ্গু রোগী

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ২৩ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে একদিনে ২৩ মৃত্যু

যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া, পোশাকশ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ

যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া, পোশাকশ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে ৬ লাখ টাকা ছিনতাই

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে ৬ লাখ টাকা ছিনতাই

চট্টগ্রামে করোনায় আরও ১১ জনের মৃত্যু

চট্টগ্রামে করোনায় আরও ১১ জনের মৃত্যু

রোগী সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে রাজধানীর যে ৪ হাসপাতাল

রোগী সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে রাজধানীর যে ৪ হাসপাতাল

স্পারসোতে চাকরির সুযোগ

স্পারসোতে চাকরির সুযোগ

হেলেনা জাহাঙ্গীরের মামলা তদন্ত করবে ডিবি

হেলেনা জাহাঙ্গীরের মামলা তদন্ত করবে ডিবি

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ২ ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ২ ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাধীন

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

বিদেশে নিজের অবস্থান জানান দিলেন বঙ্গবন্ধু

মাদাগাস্কারে সেনা কর্মকর্তা আটক, প্রেসিডেন্ট হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ

মাদাগাস্কারে সেনা কর্মকর্তা আটক, প্রেসিডেন্ট হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

চলতি সপ্তাহেই বন্যার শঙ্কা

চলতি সপ্তাহেই বন্যার শঙ্কা

শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

ভারী বৃষ্টিতে বেশ কিছু নদীর পানি দ্রুত বাড়বে, বন্যার শঙ্কা

ভারী বৃষ্টিতে বেশ কিছু নদীর পানি দ্রুত বাড়বে, বন্যার শঙ্কা

বাড়ছে নদীর পানি, বন্যার শঙ্কা

বাড়ছে নদীর পানি, বন্যার শঙ্কা

আগামীকালও থাকবে দিনভর বৃষ্টি

আগামীকালও থাকবে দিনভর বৃষ্টি

দেশের যেসব এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে

দেশের যেসব এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে

সারাদেশে বৃষ্টির সম্ভাবনা, নদীতে ১ নম্বর সংকেত

সারাদেশে বৃষ্টির সম্ভাবনা, নদীতে ১ নম্বর সংকেত

সাগরে ৩, নদীতে ২ নম্বর সতর্ক সংকেত

সাগরে ৩, নদীতে ২ নম্বর সতর্ক সংকেত

গতিপথ বদলেছে ইয়াস, ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে ৪ জেলা

গতিপথ বদলেছে ইয়াস, ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে ৪ জেলা

সৃষ্টি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’, বাতাসের গতিবেগ ৮৮ কিলোমিটার

সৃষ্টি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’, বাতাসের গতিবেগ ৮৮ কিলোমিটার

© 2021 Bangla Tribune