X
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

পাহাড় থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরাতে অভিযান শুরু

আপডেট : ১৪ জুন ২০২১, ১৩:০৪

চট্টগ্রামের বিভিন্ন পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীদের সরিয়ে দিতে অভিযান শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। সোমবার (১৪ জুন) সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর বায়েজিদ লিংক রোডে জেলা প্রশাসনের ছয় জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বাংলা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের সরিয়ে নিতে অভিযান শুরু হয়েছে। ছয় জন ম্যাজিস্ট্রেট তিনটি দলে বিভক্ত হয়ে লিংক রোডের তিনটি অংশে অভিযান পরিচালনা করছেন। বিকাল ৩টা পর্যন্ত এ অভিযান চলবে।

১৪ বছরেও থামেনি পাহাড় ধসে মৃত্যুর মিছিল

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, লিংক রোডের কাট্টলী অংশে চান্দগাঁও সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মামনুন আহমেদ অনীক ও কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ ইনামুল হাসান অভিযান পরিচালনা করবেন।

অন্যদিকে লিংক রোডের হাটহাজারী অংশে হাটহাজারী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শরীফ উল্যাহ ও পতেঙ্গা সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এহসান মুরাদ অভিযান পরিচালনা করবেন।

এছাড়া লিংক রোডের সীতাকুণ্ড অংশে সীতাকুণ্ড উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রাশেদুল ইসলাম ও সদর সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাসুমা জান্নাত অভিযান পরিচালনা করবেন।

তবে স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রতি বছর বৃষ্টির আগে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীদের উচ্ছেদে অভিযান চালায় প্রশাসন। এরপর বাকি দশ মাস আড়ালে চলে যায় তাদের কার্যক্রম। পাহাড় ধসকে নির্মম নিয়তিনির্ভর ঘটনা মনে করে প্রশাসনের নিরবতা নির্লিপ্ততায় রূপ নিয়েছে।

পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি, অভিযান অভিযান খেলায় প্রশাসন

জানা যায়, গত ১৪ বছরে পাহাড় ধসে সাড়ে তিনশ’র বেশি মানুষ মারা গেছেন। ২০০৭ সালের ১১ জুন চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় ৪২৫ মিলিমিটারের মতো বৃষ্টিপাত হয়। ওই বৃষ্টিতে চট্টগ্রামের সেনানিবাস এলাকা, লেডিস ক্লাব, কাছিয়াঘোনা, ওয়ার্কশপঘোনা, শহরের কুসুমবাগ, মতিঝর্ণা, বিশ্ববিদ্যালয় এলাকাসহ প্রায় সাতটি এলাকায় পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। ওইদিন ভোরবেলা সামান্য সময়ের ব্যবধানে এসব পাহাড় ধসে নারী, শিশুসহ ১২৭ জনের মৃত্যু হয়।

২০০৮ সালের ১৮ আগস্ট চট্টগ্রামের লালখানবাজার মতিঝর্ণা এলাকায় পাহাড় ধসে চার পরিবারের ১২ জনের মৃত্যু হয়। ২০১১ সালের ১ জুলাই চট্টগ্রামের টাইগার পাস এলাকার বাটালি হিলের ঢালে পাহাড় ও প্রতিরক্ষা দেয়াল ধসে ১৭ জনের মৃত্যু হয়।

২০১২ সালের ২৬-২৭ জুন পাহাড় ধসে চট্টগ্রামে ২৪ জনের প্রাণহানি ঘটে। ২০১৩ সালে মতিঝর্ণায় দেয়াল ধসে দুই জন মারা যান। ২০১৫ সালের ১৮ জুলাই বায়েজিদ এলাকার আমিন কলোনিতে পাহাড় ধসে মারা যান তিন জন, একই বছরের ২১ সেপ্টেম্বর বায়েজিদ থানার মাঝিরঘোনা এলাকায় পাহাড় ধসে মা-মেয়ের মৃত্যু হয়।

২০১৭ সালের ১২ ও ১৩ জুন রাঙামাটিসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামের পাঁচ জেলায় পাহাড় ধসে প্রাণ হারান ১৫৮ জন। ২০১৮ সালের ১৪ অক্টোবর নগরীর আকবরশাহ থানাধীন ফিরোজশাহ কলোনিতে পাহাড় ধসে মারা যান চার জন। ২০১৯ সালে কুসুমবাগ এলাকা পাহাড় ধসে এক শিশুর মৃত্যু হয়। বিচ্ছিন্ন দুই-এক বছর বাদ দিয়ে এভাবে প্রায় প্রতিবছরই বর্ষায় পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।

নগরীর বাসিন্দাদের অভিযোগ, প্রশাসনের উদাসীনতা, রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতাদের লেজুড়বৃত্তি, তদন্ত কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়ন না করাসহ সমন্বিত উদ্যোগ না থাকায় পাহড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস রোধ করা যাচ্ছে না। তাদের নির্লিপ্ততার কারণে ছিন্নমূল, বানেভাসা, নদীভাঙা, জলবায়ু তাড়িত, ভাগ্যবিড়ম্বিত মানুষগুলো নগরীতে এসে কম টাকায় থাকতে গিয়ে জীবনের ঝুঁকিতে পড়ছেন। যে কারণে প্রতিবছর বর্ষায় চট্টগ্রামের কোনও না কোনও এলাকায় পাহাড় ধসে মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে।

এর পেছনে নগরবাসী সরকারের তিনটি পৃথক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের অবহেলার অভিযোগ তুলেছেন। তাদের দাবি, পাহাড়ের পাদদেশে বসবাস করা পাহাড়গুলোর মালিক ভূমি মন্ত্রণালয়। ওইসব পাহাড়ে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার দায়িত্ব পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের। আর এসব এলাকায় ঘর, বাড়ি ও বস্তি নির্মাণের বিষয়ে আপত্তি ও অনাপত্তি বিষয়টি দেখার দায়িত্ব গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের। কিন্তু এই তিন মন্ত্রণালয় কখনও পাহাড়গুলোর খোঁজ খবর রাখেনি। তাদের উদাসীনতার সুযোগে এক শ্রেণির অসাধু মহল পাহাড় দখল করে সেখানে ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে খেটে খাওয়া মানুষের কাছে ভাড়া দিচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৫৯

কুমিল্লার চান্দিনায় ট্রাকচাপায় মো. সালমান (৮) নামের এক মাদ্রাসাছাত্র নিহত হয়েছে। সোমবার (২৫ অক্টোবর) ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া বাস স্টেশন এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত সালমান চান্দিনা উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে। সে বসন্তপুর খাদিজা (রা.) আদর্শ মাদ্রাসার ছাত্র ছিল।

স্থানীয় বাসিন্দা জামাল জানান, সালমান তার চাচা তোফাজ্জলের সঙ্গে রাস্তা পার হচ্ছিলো। এ সময় দাঁড়িয়ে থাকা ছোট মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দেয় বালুবাহী একটি ট্রাক। ওই মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে ছিটকে পড়ে সালমান। তারপর বালুবাহী ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই সালমান নিহত হয়। আহত হন চাচা তোফাজ্জল হোসেনও। তাকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

হাইওয়ে পুলিশ ইলিয়টগঞ্জ ফাঁড়ির এসআই মো. শাকিল আহমেদ বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুর্ঘটনাকবলিত মাইক্রো ও ট্রাক আটক করা হয়েছে।

/এফআর/

সম্পর্কিত

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

‘জুড়ীতে সাফারি পার্ক হলে পাহাড়-জীববৈচিত্র্য রক্ষা পাবে’

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৪

মৌলভীবাজারের জুড়ীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদন অনুমোদন করেছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।  

সোমবার (২৫ অক্টোবর) বিকালে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত সভায় রিপোর্টে কিছু পর্যবেক্ষণ অন্তর্ভুক্তি সাপেক্ষে অনুমোদন দেওয়া হয়। 

সভায় পরিবেশমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেন, সাফারি পার্কের প্রস্তাবিত এলাকায় অনেক জায়গা অবৈধ দখলে চলে গেছে। এখানে সাফারি পার্ক নির্মিত হলে আর কেউ অবৈধ অনুপ্রবেশ করতে পারবে না। ফলে এখানকার পাহাড় ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা পাবে। বর্তমানে প্রস্তাবিত লাঠিটিলার জড়িছড়া ও লালছড়া গ্রামের ২৭০ একর সাফারি পার্ক এলাকায় অবৈধভাবে বসবাসকারী ৩৭টি পরিবারকে স্থানান্তরের জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। জাতির পিতার নামে নির্মিতব্য সাফারি পার্কের মহাপরিকল্পনা ও ডিপিপি প্রণয়নের কাজ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহমদ শামীম আল রাজী, অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার ভৌমিক, অতিরিক্ত সচিব কেয়া খান, বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমীর হোসাইন চৌধুরী এবং সম্ভাব্যতা যাচাই কমিটির প্রধান তপন কুমার দেসহ মন্ত্রণালয় ও বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু

মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু

সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

সাম্প্রদায়িক হামলায় আ.লীগ-ছাত্রলীগ জড়িত: মির্জা ফখরুল

সাম্প্রদায়িক হামলায় আ.লীগ-ছাত্রলীগ জড়িত: মির্জা ফখরুল

স্বামীকে নির্যাতনের অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৯

৫০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েও নুরে আলম (৩০) নামের এক মোটরসাইকেল মেকানিককে থানায় নিয়ে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া থানার ওসি হাসান আলীর বিরুদ্ধে। চাঁদা নেওয়ার বিষয়ে ডিআইজির কাছে নালিশ করায় বালু ব্যবসায়ীকে দিয়ে নুরে আলম বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা মামলা’ দিয়ে হাজতে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে নুরে আলমের স্ত্রী রাজিয়া বেগম বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ তোলেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ওসি হাসানের অপরাধের শাস্তি ও তার স্বামী সুষ্ঠু বিচার না পেলে তিনি ফেসবুক লাইভে এসে দুই শিশু সন্তানকে বিষপানে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করবেন।

তবে অভিযোগের বিষয়ে ওসি বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং ষড়যন্ত্রমূলক। আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য করা হয়েছে।’

লিখিত বক্তব্যে রাজিয়া বেগম জানান, তার স্বামী নূরে আলম দুপচাঁচিয়া বন্দরে দীর্ঘদিন ধরে মোটরসাইকেল মেকানিক হিসেবে কাজ করে সংসার পরিচালনা করে আসছেন। তিনি অত্যন্ত সহজ সরল ও নিরীহ প্রকৃতির। গত ২৯ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে দুপচাঁচিয়া থানার এসআই মোসাদ্দেক দোকানে এসে মামলা থাকার কথা বলে নূরে আলমকে থানায় ডেকে নিয়ে যান। সেখানে ওসি হাসান আলী তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। অন্যথায় হত্যা, মাদক, চোরাকারবারিসহ বিভিন্ন মামলায় আদালতে চালান দেওয়ার হুমকি দেয়। পরে খবর পেয়ে রাজিয়া থানায় গিয়ে ওসিকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে স্বামীকে ছাড়িয়ে আনেন। পরে এ ঘটনায় নূরে আলম পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের জিআইজির কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। এ অভিযোগ করার পর থেকে ওসি হাসান আলী, স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী প্রভাবশালী আমিনুল ইসলাম বুলুসহ বেশ কয়েকজন তার পরিবারের ওপর নানাভাবে অত্যাচার চালিয়ে আসছেন। বুলু ১৬ অক্টোবর থানায় নূরে আলম ও তার ভাইসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মিনিবাস ভাঙচুরের মামলা করেন। গত ১৯ অক্টোবর আদালতে জামিন নিতে যান ভুক্তভোগী। আদালত কয়েকজনকে জামিন দিলেও নূরে আলমসহ তিন জনকে কারাগারে পাঠান। এদিকে ওসি হাসান আলী ওইদিন নূরে আলম ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা রেকর্ড করেন। এজাহারে ধর্ষণের তারিখ দেখানো হয়েছে ১২ অক্টোবর।

এ নারী আরও বলেন, ‘স্বামী ও তার ভাইয়েরা জেলে থাকায় বাড়িতে শুধু শিশু ও নারীরা রয়েছেন। কিন্তু ওসি হাসান আলীর লেলিয়ে দেওয়া লোকজন নানাভাবে অত্যাচার ও হয়রানি করে আসছেন। এমনকি শিশু ছেলেকে ট্রাকের নিচে পিষিয়ে হত্যার হুমকি দিচ্ছেন। তাদের হুমকির মুখে ১০ বছরের শিশুর মাদ্রাসায় যাওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিবারের সদস্যরা বাড়িতে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে ওই নারীর চাচা শ্বশুর বেলাল হোসেন, ফিরোজ, রনি সরদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

/এফআর/

সম্পর্কিত

চলনবিলে ফাঁদমুক্ত হলো শতাধিক পাখি

চলনবিলে ফাঁদমুক্ত হলো শতাধিক পাখি

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুশূন্য রামেকের করোনা ইউনিট

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুশূন্য রামেকের করোনা ইউনিট

কারাগারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যু

কারাগারে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামির মৃত্যু

ট্রাকচাপায় প্রাণ গেলো সেনা সদস্যের

ট্রাকচাপায় প্রাণ গেলো সেনা সদস্যের

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৯:২৮

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার ষষ্ঠ দফায় পুলিশের এসআই আমিনুল ইসলামসহ আট জনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার (২৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল সাড়ে ৫টায় শেষ হয়। এ নিয়ে এই মামলায় মোট ৪৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে।

সোমবার সাক্ষ্য দেওয়া আট জনের মধ্যে রয়েছেন– কনস্টেবল পলাশ ভট্টাচার্য, পুলিশ সদস্য আবু সালাম, হিরো মিয়া ওসালা মারমা, নবী হোসেন, আবুল কালাম ও শহীদ উদ্দিন।

এর আগে সকাল ১০টায় ওসি প্রদীপসহ এই মামলার ১৫ আসামিকে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আদালতে নিয়ে আসা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, সোমবার মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলার ষষ্ঠ দফায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে। সিনহার মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করা পুলিশের এসআই আমিনুল ইসলামের সাক্ষ্যগ্রহণের মধ্য দিয়ে মামলার কার্যক্রম শুরু হয়। এ দিন এসআই আমিনুল ইসলাম ছাড়াও মোট ১৯ জন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করা হয়। 

এস আই আমিনুল ইসলাম আদালতে জবানবন্দিতে জানান, ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে ঘটনার দিন তিনি কক্সবাজার সদর থানায় কর্মরত ছিলেন। ওইদিন রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে ডিউটিতে যান। সে সময় তার সঙ্গে ছিলেন কনস্টেবল পলাশ ও শুভ। তিনি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের ডোম মনু ও ধলার সহযোগিতায় মেজর সিনহার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন। প্রতিবেদন তৈরির সময় মেজর সিনহার ব্যবহৃত দ্রব্য-সামগ্রীর জব্দ তালিকা তৈরি করেন। পরদিন ১ আগস্ট বিকালে রামু ক্যান্টনমেন্টের সার্জেন্ট জিয়াউর রহমান ও আনিসুর রহমানের কাছে মেজর সিনহার লাশ হস্তান্তর করি। মামলার তদন্তকালে আইওর কাছে এ ব্যাপারে জবানবন্দি দিয়েছেন।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫৬

চট্টগ্রাম বন্দরে কোকেন জব্দের ঘটনায় চোরাচালান আইনে দায়ের করা মামলার চার্জ গঠন পিছিয়েছে। আগামী ১০ নভেম্বর মামলাটির পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। সোমবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ (তৃতীয়) মো. জসিম উদ্দিন এ আদেশ দেন। 

মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. ফখরুদ্দিন আহমদ বলেন, ‘কোকেন উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের করা চোরাচালান মামলায় আজ আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠনের দিন ধার্য ছিল। শারীরিক অসুস্থ বোধ করায় আজ বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদুল আলম সাক্ষ্য প্রদানে অনীহা প্রকাশ করায় আজ শুনানি হয়নি। আদালত আগামী ১০ নভেম্বর মামলাটির পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন।’

২০১৫ সালের ৬ জুন চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশের তৎকালীন অতিরিক্ত উপকমিশনার এস এম তানভির আরাফাতের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কোকেন সন্দেহে চট্টগ্রাম বন্দরে সূর্যমুখী তেলের চালান জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর। এরপর ২৭ জুন তেলের চালানের ১০৭টি ড্রামের মধ্যে একটি ড্রামের নমুনায় কোকেন শনাক্ত হয়। বলিভিয়া থেকে আসা চালানটির প্রতিটি ড্রামে ১৮৫ কেজি করে সূর্যমুখী তেল ছিল। পরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি), মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের রাসায়নিক পরীক্ষাগারসহ চারটি পরীক্ষাগারে তেলের চালানের দুটি ড্রামের নমুনায় কোকেন শনাক্ত হয়। পরে এ ঘটনায় চট্টগ্রামের বন্দর থানায় ওই বছরের ২৭ জুন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়। একই মামলায় চোরাচালান আইনে আরেকটি মামলা দায়ের করা হয়। দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ২৫ জুন ওই মামলায় চট্টগ্রাম চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রসিকিউশন শাখায় অভিযোগপত্র জমা দেয় মামলার তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাব-৭। আজ ওই মামলায় চার্জ গঠনের কথা ছিল।

মামলায় অভিযুক্ত ১০ জন হলেন– আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের খানজাহান আলী লিমিটেডের চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ ও তার ভাই মোস্তাক আহমদ, কসকো-বাংলাদেশ শিপিং লাইনসের ব্যবস্থাপক এ কে এম আজাদ, সিকিউরিটিজ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মেহেদী আলম, সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, আবাসন ব্যবসায়ী মোস্তফা কামাল, প্রাইম হ্যাচারির ব্যবস্থাপক গোলাম মোস্তফা সোহেল, পোশাক রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান মণ্ডল গ্রুপের বাণিজ্যিক নির্বাহী আতিকুর রহমান, লন্ডন প্রবাসী চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের ফজলুর রহমান ও মৌলভীবাজারের বকুল মিয়া।

তাদের মধ্যে গোলাম মোস্তফা সোহেল ও আতিকুর রহমান কারাগারে আছেন। জামিনে আছেন– মেহেদী আলম, এ কে এম আজাদ, সাইফুল ইসলাম ও মোস্তফা কামাল। জামিনে গিয়ে পালিয়ে গেছেন নুর মোহাম্মদ। এ ছাড়া মোস্তাক আহমদ, ফজলুর রহমান ও বকুল মিয়া শুরু থেকেই পলাতক আছেন।

/এমএএ/

সম্পর্কিত

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

সিনহা হত্যা মামলা: এসআই আমিনুলসহ ৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

কোকেন মামলার চার্জ গঠন পেছালো

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

চট্টগ্রামে পূজামণ্ডপে হামলাচেষ্টা মামলার ১৬ আসামি রিমান্ডে 

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

নোয়াখালীতে হামলা: বিএনপি-জামায়াত নেতাসহ গ্রেফতার ১১

অপহরণের ৫ মাসেও খোঁজ মেলেনি নুর উদ্দিনের

অপহরণের ৫ মাসেও খোঁজ মেলেনি নুর উদ্দিনের

৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া মাদ্রাসাশিক্ষকের জামিন

৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া মাদ্রাসাশিক্ষকের জামিন

আমদানি কমায় বাড়লো পেঁয়াজের দাম  

আমদানি কমায় বাড়লো পেঁয়াজের দাম  

হাজীগঞ্জে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় গ্রেফতার ৫৪

হাজীগঞ্জে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় গ্রেফতার ৫৪

ফেনীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় ২ যুবকের জবানবন্দি 

ফেনীতে বিশৃঙ্খলার ঘটনায় ২ যুবকের জবানবন্দি 

সর্বশেষ

ফৌজদারি কার্যবিধি আধুনিকায়নে ৯ সদস্যের কমিটি

ফৌজদারি কার্যবিধি আধুনিকায়নে ৯ সদস্যের কমিটি

গত সপ্তাহে মৃতদের ৮৭ শতাংশই টিকা নেননি

গত সপ্তাহে মৃতদের ৮৭ শতাংশই টিকা নেননি

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

মাইক্রোর ধাক্কায় মহাসড়কে পড়া ছাত্রকে পিষে দিলো ট্রাক

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

যাত্রাবাড়ীর দুই প্রতিষ্ঠানকে আট লাখ টাকা জরিমানা

ফেসবুক মেসেঞ্জারে নতুন ইফেক্টস

ফেসবুক মেসেঞ্জারে নতুন ইফেক্টস

© 2021 Bangla Tribune