X
মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮

সেকশনস

একনেকে চার হাজার কোটি টাকা খরচে ১০ প্রকল্প অনুমোদন

আপডেট : ২২ জুন ২০২১, ১৫:০৭

চার হাজার ১৬৬ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ের ১০টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। পাস হওয়া প্রকল্পগুলোর সবগুলোই নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়িত হবে। এর মধ্যে সরকার দেবে ৪ হাজার ১২৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা এবং বাকি ৪০ কোটি ৭৯ লাখ টাকা সংস্থার নিজস্ব ফান্ড থেকে ব্যয় হবে।

মঙ্গলবার (২২ জুন) একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে প্রকল্পগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়। একনেক সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের সামনে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে সাতটি নতুন এবং তিনটি সংশোধিত।

নতুন প্রকল্পগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘নোয়াখালী সড়ক বিভাগাধীন ক্ষতিগ্রস্ত কবিরহাট-ছমির মুন্সীরহাট-সোনাইমুড়ী সড়ক এবং সেনবাগ-বেগমগঞ্জ গ্যাসফিল্ড-সোনাইমুড়ী সড়ক উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৩৭১ কোটি ১৬ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ‘গোপালগঞ্জ জেলার পল্লী এলাকার নিরাপদ পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ২৬১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৩ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে। এই মন্ত্রণালয়ের ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশনের জন্য এবং বিভিন্ন অঞ্চলে বাস-ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণের নিমিত্তে জমি অধিগ্রহণ’ প্রকল্পটি ৭৮২ কোটি ২৫ লাখ টাকা। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ‘গাজীপুর জেলা পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্পটি ৬৮৫ কোটি খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৫ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে। এছাড়া এ মন্ত্রণালয়ের ‘গুরুত্বপূর্ণ গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প: জেলা টাঙ্গাইল’ প্রকল্পটি ৮৬৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৫ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের ‘উন্নতমানের আগর রেজিন সঞ্চয়ন প্রযুক্তি উদ্ভাবন’ প্রকল্পটি ৬৭ কোটি ৯২ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৫ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ‘রংপুর, নীলফামারী, পীরগঞ্জ শহর ও আশপাশের এলাকায় গ্যাস বিতরণ পাইপলাইন নেটওয়ার্ক নির্মাণ’ প্রকল্পটি ২৫৮ কোটি ১১ লাখ টাকা খরচে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

সংশোধিত প্রকল্পগুলোর মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ‘সাপোর্ট টু জয়দেবপুর-দেবগ্রাম-ভুলতা-মদনপুর সড়ক (ঢাকা বাইপাস) পিপিপি’ প্রকল্পটির প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ২৩৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা। প্রকল্পটির ৪৩৮ কোটি ২৪ লাখ টাকা খরচ বাড়িয়ে ৬৭৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকা অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রকল্পটি শুরু হয়েছে ২০১৬ সালের মার্চে। শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের জুনে। এখন সময় বাড়িয়ে করা হলো ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ‘বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস এর উন্নয়ন (প্রথম পর্যায়)’ প্রকল্পটির প্রথম সংশোধন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ৮০৫ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। ৯০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বাড়িয়ে এর খরচ ৮৯৬ কোটি ৫২ লাখ টাকা। প্রকল্পটি শুরু হয়েছে ২০১৮ সালের জুলাইয়ে। শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২১ সালের জুনে। এখন এর মেয়াদ বাড়িয়ে করা হলো ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত।

একই বিভাগের ‘বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস এর উন্নয়ন’ প্রকল্পটির দ্বিতীয় সংশোধন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটির মূল খরচ ছিল ২৫৬ কোটি ৮৮ লাখ, প্রথম সংশোধনীতে করা হয় ৩০২ কোটি ১২ লাখ এবং দ্বিতীয় সংশোধনীতে ৩৪৬ কোটি ৩২ লাখ টাকা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬৪৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। প্রকল্পটি ২০১৫ সালের জুলাইয়ে শুরু হয়েছে। শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে। এখন তা বাড়িয়ে করা হলো ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত।

/ইএইচএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

আপডেট : ২৭ জুলাই ২০২১, ০৮:০০

(বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে বঙ্গবন্ধুর সরকারি কর্মকাণ্ড ও তার শাসনামল নিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে বাংলা ট্রিবিউন। আজ পড়ুন ১৯৭৩ সালের ২৭ জুলাইয়ের  ঘটনা।)

বাংলাদেশ ও যুগোস্লাভিয়ার মাঝে সরকারি পর্যায়ে আলোচনা আজ (২৭ জুলাই) শেষ হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং যুগোস্লাভিয়ার প্রধানমন্ত্রী মিস্টার জালাল বিয়েদিসের মধ্যে আলোচনার পর দুই দেশের  সরকারি পর্যায়ে আলোচনার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। আলোচনায় দুই প্রধানমন্ত্রী পরস্পর ঐকমত্যে পৌঁছান। বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার বিশেষ সংবাদদাতা জিয়াউল করিম বেলগ্রেড থেকে এসব তথ্য জানান।

উপমহাদেশের মানবিক সমস্যাগুলো সমাধানে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ ঘোষণা, আলজিয়ার্স জোটনিরপেক্ষ দেশগুলোর সদস্য হিসেবে বাংলাদেশের যোগদানের প্রচেষ্টাসহ বাংলাদেশের নেতৃত্বের প্রতি যুগোস্লাভিয়া সর্বাত্মক সমর্থন পুনরায় ঘোষণা করে। বাংলাদেশ ও যুগোস্লাভিয়ার মাঝে সরকারি পর্যায়ের আলোচনায় আন্তর্জাতিক রাজনীতির সার্বিক পরিস্থিতি এবং বিশেষ করে উপমহাদেশের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হয়। উভয়পক্ষের সহযোগিতার সম্প্রসারিত ক্ষেত্র সম্পর্কে পরস্পর একমত হয়েছে বলেও জানানো হয়। এদিন বেলগ্রেডে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল হোসেন এবং যুগোস্লাভিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে আলোচনার পরেই প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ের আলোচনা শুরু হয়।

এদিকে বাংলাদেশের জাতীয় পরিকল্পনা কমিশনের ডেপুটি চেয়ারম্যান অধ্যাপক নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ও লুদভিজারের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল পৃথকভাবে বৈঠকে অংশ নেয়। বাংলাদেশ ও যুগোস্লাভিয়ার মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতার ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত করার জন্য এবং দুটি দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ আরও বৃদ্ধির উপায় উদ্ভাবনের বিষয়েও এখানে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

দৈনিক ইত্তেফাক, ২৮ জুলাই ১৯৭৩ ভারত-পাকিস্তান আলোচনায় সাফল্যের উজ্জ্বল সম্ভাবনা

ভারত-পাকিস্তান দুই পর্যায়ে বৈঠকে অগ্রগতির সম্ভাবনা উজ্জ্বল হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বিশেষ দূত পিএন হাকসারের প্রতিনিধিদল বৈঠক জারি রেখেছেন। বৈঠক শেষ করে বিপুল সংখ্যক সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘দুই দেশের প্রতিনিধিদল আবারও বসবে এবং তাদের আলোচনা শুরু করবেন।’ এই বৈঠকের ফলাফল সম্পর্কে তিনি আশান্বিত কিনা জিজ্ঞেস করা হলে হাকসার বলেন, ‘আমি এখানে আশা নিয়ে এসেছি। সে আশা এখনও হারায়নি।’ এই বৈঠকে সহযোগিতা করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আজিজ আহমেদ ও পররাষ্ট্র সচিব আগাশাহী। রাওয়ালপিন্ডি থেকে পিটিআই পরিবেশিত খবরে প্রকাশ—পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলী ভুট্টো বিদেশ সফর থেকে ফিরলেন। তিনি ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হয়ে ন্যায়বিচারভিত্তিক সব সমস্যার সমাধানের জন্য সব রকম চেষ্টা চালাবেন বলেও উল্লেখ করেন। বিমানবন্দরে প্রেসিডেন্ট ভুট্টো বিমান থেকে নামলে তার দেশে ভারতের প্রতিনিধিদলের প্রধান পিএন হাকসার তাকে অভ্যর্থনা জানান। এ সময় প্রেসিডেন্ট ভুট্টোর সঙ্গে তাকে কিছুক্ষণ কথা বলতে দেখা যায়।

ডেইলি অবজারভার, ২৮ জুলাই ১৯৭৩ বাঙালিদের আটকে রাখলে পরিস্থিতি জটিল হবে

জনগণতান্ত্রিক ইয়েমেন প্রজাতন্ত্রের ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, ‘পাকিস্তানে বাঙালিদের আটক অব্যাহত থাকলে উপমহাদেশের পরিস্থিতি আরও জটিল হবে। সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার কাজে নিয়োজিত হওয়া গুরুত্বপূর্ণ।’ আব্দুল্লাহ রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবনে সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলছিলেন। বেলগ্রেড যাওয়ার পথে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এই অতিথি ভবনে স্বল্পকালে অবস্থান করেন। ইয়েমেনি ডেপুটি  প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানে আটক বাঙালিদের জন্য সহানুভূতি প্রকাশ করে বলেন, ‘এই মানবিক সমস্যাটির সমাধান হওয়া উচিত।’ এই মানবিক সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের ভূমিকা এবং বাংলাদেশ-ভারত যৌথ ঘোষণার প্রতি পূর্ণ সমর্থন জ্ঞাপন করেন তিনি। ইয়েমেনি ডেপুটি  প্রধানমন্ত্রী আবদুল্লাহ সুস্পষ্টভাবে বলেন, ‘স্বীকৃতি ছাড়া আলোচনার কোনও অর্থ হয় না। বাংলাদেশ সরকার ইয়েমেনে শিগগিরই একজন রাষ্ট্রদূত নিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়।

শুরু হতে যাচ্ছে যুব উৎসব

জার্মান গণতান্ত্রিক সাধারণতন্ত্রের রাজধানী বার্লিনে দশম বিশ্ব যুব-ছাত্র উৎসব শুরু হতে যাচ্ছে। ১৩৫টি দেশের হাজার হাজার তরুণপ্রাণে মুখরিত হয়ে উঠবে চারপাশ। বার্লিনের উৎসবে বাংলাদেশ থেকে ৮৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল অংশগ্রহণ করে। উৎসবে এ বছরের স্লোগান ‘সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে একাত্মতা শান্তি ও বন্ধুত্ব’। এবারের উৎসবে জাতীয় স্বাধীনতার জন্য সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামরত আরব বিশ্ব ও ইন্দোচীনের জনগণের সমর্থন জ্ঞাপনের জন্য বিভিন্ন সভা অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানানো হয়।

/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

‘জনসাধারণকে লকডাউন মানানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

‘জনসাধারণকে লকডাউন মানানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ২৩:৩০

দেশে সোমবার (২৬ জুলাই) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২৪৭ জন। গত দেড় বছরের করোনা মহামারিকালে একদিনে এত মৃত্যু আর দেখেনি বাংলাদেশ। এর আগের দিন ২৫ জুলাই ২২৮ জনের মৃত্যুর কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর। ঈদের ছুটির আগের দিন ২০ জুলাই ২০০ মানুষের মৃত্যু হয়। ঈদের দিন মারা যান ১৭৩ জন, ২২ জুলাই ১৮৭ জন, ২৩ জুলাই ১৬৬ জন এবং ২৪ জুলাই মারা যান ১৯৫ জন। এছাড়া জুলাই মাসের শুরু থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত প্রায় প্রতিদিনই মৃতের সংখ্যা দুইশ’র বেশি বা দুইশ’র কাছাকাছি ছিল। মৃত্যুর রেকর্ড ভাঙা-গড়ার মধ্য দিয়ে শেষ হতে যাচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ঘোষিত ‘কঠিন’ জুলাই মাস।

মৃত্যুর এই ঊর্ধ্বগতির মধ্যে গত ২৪ জুলাই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ১৯ হাজার ছাড়ায়। আর শেষ এক হাজার মৃত্যু ছাড়াতে অর্থ্যাৎ ১৮ থেকে ১৯ হাজার মৃত্যু ছাড়াতে সময় নেয় মাত্র পাঁচ দিন। তার আগে গত ১৯ জুলাই মৃত্যু ১৮ হাজার ছাড়ায়।

দেশে গত বছরের ৮ মার্চে প্রথম তিন জন করোনা আক্রান্ত রোগীর কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর। তার ঠিক ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু কথাও জানায় অধিদফতর। মার্চে অনিয়মিত হলেও চার এপ্রিল থেকে প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়।

বিশ্বে যেসব দেশে করোনায় দৈনিক মৃত্যু সবচেয়ে বেশি হচ্ছে, সেই তালিকায় বর্তমানে দ্বাদশ অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।

করোনার ভয়াবহতার মধ্যেই ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিধিনিষেধ শিথিল করেছিল সরকার। ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ফের কঠোর বিধিনিষেধও দেওয়া হয়েছে। তবে বিধিনিষেধ শিথিলে কোরবানির পশুর হাট, শপিং মল, মার্কেটে স্বাস্থ্যবিধি মোটেও মানা হয়নি। অনেকেই ঢাকা থেকে বাস, ট্রাক, লঞ্চে গাদাগাদি করে ঈদ করতে গেছেন গ্রামে। ঈদ শেষে ২৩ জুলাই ঢাকায় ফিরেছেনও তারা। এমনকি কঠোর বিধিনিষেধের তৃতীয় দিন রবিবারও (২৫ জুলাই) ঢাকায় ফিরেছেন অনেকে। ফেরি, বাসে ছিল না স্বাস্থ্যবিধির বালাই। গণমাধ্যমের খবর বলছে, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে এখনও পদ্মা পার হচ্ছে মানুষ। আর এতে করে দেশে করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে মৃত্যুও নতুন রেকর্ড গড়ছে।

এদিকে, দেশের আট বিভাগের মধ্যে সাত বিভাগেই করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তির নমুনা থেকে জিনোম সিকোয়েন্সে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে। জার্মানির গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ অন শেয়ারিং অল ইনফ্লুয়েঞ্জা ডেটা (জিআইএসএআইডি) অনুযায়ী, দেশের সাতটি বিভাগে এখন পর্যন্ত ১৫০টি নমুনায় ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট বি-১৬১৭ পাওয়া গেছে। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সামাজিক সংক্রমণে জর্জরিত এখন পুরো দেশ। গত আট দিনে মারা গেছেন এক হাজার ২৮৯ জন এবং শনাক্ত হয়েছেন ৭৫ হাজার ৯৬১ জন। ইতোমধ্যে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, বর্তমান সংক্রমণে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টই বেশি।

করোনায় শূন্য মৃত্যু লক্ষ্যমাত্রা রেখে কাজ করা দরকার মন্তব্য করে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনায় কেন এবং ঠিক কোন পরিস্থিতিতে মৃত্যু হচ্ছে তার পর্যালোচনা দরকার, তাতে অন্তত কিছু মৃত্যু কমানো সম্ভব হতো বা হবে। একইসঙ্গে মৃত্যু কমানোর জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের গঠন করা পাবলিক হেলথ অ্যাডভাইজারি কমিটি করোনায় মৃত্যু কমানোর উদ্যোগ নিতে হবে জানিয়ে বলেছিল, করোনায় শূন্য মৃত্যুর টার্গেট নিয়ে কাজ করতে হবে। আর এ জন্য গত ১৭ জুন তারা একটি লিখিত প্রতিবেদন দেন, যেখানে কাজটি কীভাবে করতে হবে তার কিছু দিকনির্দেশনা ছিল।

কিন্তু সেই অনুযায়ী কাজ হচ্ছে না, যদি হতো তাহলে মৃত্যু কমানো যেত বলে জানান পাবলিক হেলথ অ্যাডভাইজারি কমিটির সদস্য অধ্যাপক আবু জামিল ফয়সাল।

‘সংক্রমণ বেশি হলে মৃত্যুও বেশি হবে’ এটাই নিয়ম মন্তব্য করে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরার্মশক কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘যে ভ্যারিয়েন্ট দেশে ছড়াবে বেশি, সেটা যদি অধিক মাত্রায় ক্ষতিকারক হয় তাহলে মৃত্যু বেশি হবে।’

‘সেইসঙ্গে রাজধানীর ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলো করোনায় মৃত্যু ঠেকাতে প্রস্তুত নয়। আমরা গত দেড় বছরেও হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা বাড়াতে পারিনি, ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ নেই। যখন জটিল রোগীদের আইসিইউ দরকার হয় তখন তাদের ঢাকায় পাঠাতে হয়। ঢাকার হাসপাতালগুলোতেও আইসিইউ পাওয়া যাচ্ছে না। তারপরও যারা পাচ্ছেন, কিন্তু সেটা শেষ মুহূর্তে। আর শেষ মুহূর্তে চিকিৎসা দিয়ে আসলে রোগীকে বাঁচানো যায় না’—বলেন অধ্যাপক নজরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘সেইসঙ্গে বর্তমানে যে লকডাউন দেওয়া হচ্ছে সেটা নন-মেডিক্যাল লকডাউন। এই নন-মেডিক্যাল লকডাউন দিয়ে মেডিক্যাল ব্যবস্থায় কোনও উন্নতি করা সম্ভব না। তাতে করে রোগী শনাক্তের সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যু বাড়বে এবং সেটাই হচ্ছে।’

‘লকডাউন না মেনে শহর থেকে গ্রাম, গ্রাম থেকে শহরে ফিরেছে মানুষ। আর এতে করে শনাক্তের সঙ্গে বাড়ছে মৃত্যু’ জানিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ও এই হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে দায়িত্বপালনকারী চিকিৎসক ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাছান চৌধুরী মারুফ বলেন, ‘রোগীরা শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসছে। আর যে রোগী দেরিতে হাসপাতালে আসবে তার মৃত্যু অপেক্ষাকৃত অনেক বেশি, যে রোগী ‘আর্লি’ হাসপাতালে আসবে তার চেয়ে। বেশি সময় ধরে শরীরে অক্সিজেনের অভাব থাকলে তার ফিরে আসার সম্ভাবনা কমে যায়।’

অধিক সংক্রমণ এবং টেস্ট না করার প্রবণতার কারণে মৃত্যু বাড়ছে জানিয়ে ডা. ফরহাদ উদ্দিন হাছান চৌধুরী বলেন, ‘টেস্ট না করালে করোনা শনাক্ত হচ্ছে না। শনাক্ত না হওয়ার কারণে রোগী ধরা পড়ছে না এবং যখন ধরা পরছে তখন আর চিকিৎসার কিছু থাকে না।’

‘জেলা হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা ব্যবস্থা নেই, এ কারণে রোগীরা সেখানে চিকিৎসা পাচ্ছেন না’—বলেন আরেকটি করোনা হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসক। ‘এ কারণে ঢাকার বাইরে থেকে আসা রোগীদের মৃত্যু হচ্ছে বেশি’—নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন তিনি।

 

/জেএ/আইএ/

সম্পর্কিত

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

করোনা নিয়ন্ত্রণে করণীয় নির্ধারণে জরুরি বৈঠক মঙ্গলবার

করোনা নিয়ন্ত্রণে করণীয় নির্ধারণে জরুরি বৈঠক মঙ্গলবার

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ২২:৩২
document

দেশে করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পর থেকে সোমবার (২৬ জুলাই) পর্যন্ত টিকা দেওয়া হয়েছে এক কোটি ২০ লাখ ৮৭ হাজার ৮৭৩ ডোজ। এরমধ্যে এক ডোজ নিয়েছেন ৭৭ লাখ ৭৭ হাজার ৪৩০ জন এবং দুই ডোজ নিয়েছেন ৪৩ লাখ ১০ হাজার ৪৪৩ জন। এগুলো অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলায় ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি কোভিশিল্ড, চীনের তৈরি সিনোফার্ম, ফাইজার এবং মডার্নার ভ্যাকসিন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের টিকাদান বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। কেবল সোমবার  টিকা দেওয়া হয়েছে মোট ২ লাখ ২১ হাজার ৫৩৬ জনকে।      

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, এ পর্যন্ত কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ২০ হাজার ৩৩ জন।  দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪২ লাখ ৯৮ হাজার ৮৬ জন। জানা যায়, কোভিশিল্ড প্রথম ডোজ নেওয়া ৫৮ লাখ ২০ হাজার ৩৩ জনের মধ্যে সাড়ে ১৪ লাখের মতো মানুষের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া নিয়ে তৈরি হয়েছে সংকট। এদের অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকারই দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে। কেননা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এখনও দুই কোম্পানির দুই ডোজের টিকা গ্রহণের বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত দেয়নি।  

পাশাপাশি সোমবার ফাইজারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ১২ জনকে। আর এখন পর্যন্ত এই টিকা দেওয়া হয়েছে মোট ৫০ হাজার ৫২৩ জনকে।

এছাড়া সিনোফার্মের দেওয়া হয়েছে এ পর্যন্ত  ১৪ লাখ ৯৭ হাজার ৫৮১ ডোজ। এরমধ্যে সোমবার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ১ লাখ ৫৯  হাজার জনকে, আর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪ হাজার ৪৭৮ জনকে।

মডার্নার টিকা এ পর্যন্ত মোট দেওয়া হয়েছে মোট ৪ লাখ ২১ হাজার ৯৫০ ডোজ, আর সোমবার দেওয়া হয়েছে ৫৮ হাজার ৪৬ ডোজ।

সারা দেশে টিকার জন্য এ পর্যন্ত মোট নিবন্ধন করেছেন ১ কোটি ২৬ লাখ ১২ হাজার ৪৪৭ জন।

 

/এসও/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

করোনা নিয়ন্ত্রণে করণীয় নির্ধারণে জরুরি বৈঠক মঙ্গলবার

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ২৩:৪১

করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে করণীয় নিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার আবারও জরুরি বৈঠকে বসছেন সরকারের নীতিনির্ধারকরা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে অনুষ্ঠিত হবে এই সভা।

সোমবার (২৬ জুলাই) মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি জানিয়েছেন, মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে লকডাউন দিয়ে রাখলেও সংক্রমণ-মৃত্যু কোনোটিই কমছে না। এই পরিস্থিতিতে করণীয় কী, তা ঠিক করতেই এই সভার আয়োজন করা হয়েছে।

সচিব জানিয়েছেন, চলমান ‘কঠোর লকডাউন’ ৫ আগস্ট  পর্যন্ত চলবে। সংক্রমণ কমাতে বিশেষজ্ঞরা লকডাউনের পক্ষে বললেও তা আবার মানুষকে জীবিকার সংকটে ফেলছে। বিষয়টি নিয়েও সরকারকে ভাবতে হচ্ছে।

চলমান লকডাউনের মেয়াদ ৫ আগস্টের পর আবারও বাড়ানো হবে কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানিয়েছেন, মঙ্গলবারের সভায় বিষয়টি ফাইনাল হবে।

 

/এসআই/এফএএন/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

একদিনে ঢাকা বিভাগেই শনাক্ত প্রায় ৮ হাজার

একদিনে ঢাকা বিভাগেই শনাক্ত প্রায় ৮ হাজার

জোড়া রেকর্ড: মৃত্যু ২৪৭, শনাক্ত ১৫ হাজার

জোড়া রেকর্ড: মৃত্যু ২৪৭, শনাক্ত ১৫ হাজার

আদালতের আদেশে সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন স্থগিত করলো ইসি

আপডেট : ২৬ জুলাই ২০২১, ২০:০৭

আদালতের রায় অনুযায়ী সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সোমবার (২৬ জুলাই) সন্ধ্যায় ইসি থেকে নির্বাচন স্থগিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সেই অনুযায়ী রিটার্নিং কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়।

নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম-সচিব ফরহাদ আহম্মদ খান বাংলা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী কমিশন নির্বাচন স্থগিত করেছে। সিদ্ধান্তটি সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়ে দিয়ে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা সিলেট জেলা প্রশাসক কাজী এম এমদাদুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, নির্বাচন স্থগিতে কমিশনের নির্দেশনা পেয়েছি এবং সেই অনুযায়ী ইতোমধ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এর আগে সোমবার দুপুরে করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে আগামী ২৮ জুলাই অনুষ্ঠেয় সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচন আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত স্থগিতের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। হাইকোর্টের নির্দেশনা পাওয়ার পর ফাইল নোট উপস্থাপনের মাধ্যমে কমিশন নির্বাচন স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ ওই সময় বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছিলেন, আদালতের আদেশের বিষয়টি তারা জেনেছেন। কমিশন এ বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত নেবে তারা তা বাস্তবায়ন করবে। সংবিধান অনুযায়ী এ আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য ইসির হাতে ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় রয়েছে।

/ইএইচএস/এমআর/

সম্পর্কিত

যে কারণে করোনার ঝুঁকিতে উপনির্বাচন

যে কারণে করোনার ঝুঁকিতে উপনির্বাচন

আরপিও’র বাংলা পাঠ প্রকাশ

আরপিও’র বাংলা পাঠ প্রকাশ

রাজনৈতিক দলগুলো শর্ত মানছে তো? জানতে চায় ইসি

রাজনৈতিক দলগুলো শর্ত মানছে তো? জানতে চায় ইসি

করোনাকালে ভোটের বিপক্ষে জেলা প্রশাসন, অনড় ইসি

করোনাকালে ভোটের বিপক্ষে জেলা প্রশাসন, অনড় ইসি

সর্বশেষ

‘হতভম্ব’ জাতীয় কমিটি এবার ‘হতাশ’

‘হতভম্ব’ জাতীয় কমিটি এবার ‘হতাশ’

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৬ মৃত্যু

শের-ই বাংলা মেডিক্যালে আরও ১৬ মৃত্যু

গর্ভবতী নারীদের টিকার বিষয়ে সিদ্ধান্ত কী?

গর্ভবতী নারীদের টিকার বিষয়ে সিদ্ধান্ত কী?

অলিম্পিকে প্রথম রাউন্ডে রোমানের জয়

টোকিও অলিম্পিকঅলিম্পিকে প্রথম রাউন্ডে রোমানের জয়

খুলনার চার হাসপাতালে ১৩ মৃত্যু

খুলনার চার হাসপাতালে ১৩ মৃত্যু

আশুলিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার চেষ্টা

আশুলিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মহত্যার চেষ্টা

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

ঈদের আগের লকডাউনে বেশি কঠোর ছিল পুলিশ

ঈদের আগের লকডাউনে বেশি কঠোর ছিল পুলিশ

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৭ দিনে ৪৭৪ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিক্যালে ২৭ দিনে ৪৭৪ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৯ মৃত্যু

ময়মনসিংহ মেডিক্যালে আরও ১৯ মৃত্যু

ভালো নেই নেত্রকোনার মিলন বয়াতি

ভালো নেই নেত্রকোনার মিলন বয়াতি

ফেরিঘাট সরানো পদ্মা সেতুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ: প্রকৌশলী

ফেরিঘাট সরানো পদ্মা সেতুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ: প্রকৌশলী

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

বেলগ্রেডে বঙ্গবন্ধুর ব্যস্ত দিন

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসায় মৃত্যু বাড়ছে

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

এক কোটি ২১ লাখ টিকা দেওয়া শেষ

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

৮ বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় কত শনাক্ত, কত মৃত্যু

‘জনসাধারণকে লকডাউন মানানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

‘জনসাধারণকে লকডাউন মানানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

একদিনে ঢাকা বিভাগেই শনাক্ত প্রায় ৮ হাজার

একদিনে ঢাকা বিভাগেই শনাক্ত প্রায় ৮ হাজার

করোনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ প্রথম টার্গেট

করোনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ প্রথম টার্গেট

জোড়া রেকর্ড: মৃত্যু ২৪৭, শনাক্ত ১৫ হাজার

জোড়া রেকর্ড: মৃত্যু ২৪৭, শনাক্ত ১৫ হাজার

মোবাইল থেকেই দেওয়া যাবে আয়কর রিটার্ন

মোবাইল থেকেই দেওয়া যাবে আয়কর রিটার্ন

করোনায় এখন আর মানুষের ভীতি নেই: তথ্যমন্ত্রী

করোনায় এখন আর মানুষের ভীতি নেই: তথ্যমন্ত্রী

© 2021 Bangla Tribune