X
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

খালেদা জিয়ার ক্ষমা চাওয়ার প্রশ্নই আসে না: বিএনপি

আপডেট : ০১ জুলাই ২০২১, ১৭:১৩

‘যিনি কোনও অপরাধই করেননি, তার (খালেদা জিয়া) ক্ষমা চাওয়ার কোনও প্রশ্নই আসে না’, বলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের দেওয়া বক্তব্যের জবাব দিয়েছে বিএনপি। দলটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স দলের এ অবস্থান তুলে ধরেন।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) রাজধানীর নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন প্রিন্স। বুধবার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের প্রদত্ত ‘ক্ষমা চেয়ে বিদেশে চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ আছে খালেদা জিয়ার’ শীর্ষক বক্তব্যের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে এ সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি।

আইনমন্ত্রীর বক্তব্যকে ‘সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা এবং খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার ক্ষেত্রে সরকারের ইচ্ছাকৃত প্রতিবন্ধকতা’ বলে উল্লেখ করেন প্রিন্স।

তিনি বলেন, আইনমন্ত্রী ‘দোষ স্বীকার করে ক্ষমা না চাইলে বিদেশে যাওয়ার’ সুযোগ দেখছেন না, কিন্তু খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যেতে আবেদন করা হলে তিনি (আইনমন্ত্রী) বলেছিলেন, ‘সরকার যে শর্তে তাকে মুক্তি দিয়েছে, সেই শর্ত শিথিল করলে খালেদা জিয়ার বিদেশে যেতে আইনগত কোনও বাধা থাকে না। এটা নির্ভর করছে একেবারেই সরকারের সিদ্ধান্তের ওপরে।’

প্রিন্স যোগ করেন, ‘‘আইনমন্ত্রী আরও বলেছিলেন, ‘সরকার বিষয়টি ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছে।’ আইনমন্ত্রীর এই বক্তব্য দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে সে সময় ফলাও করে প্রচারিত হয়েছিল। কিন্তু ২/১ দিন পরই তিনি ইউটার্ন নিয়ে বলেছেন, ‘সম্ভব নয়’ এবং এখন বলছেন ‘ক্ষমা চাইতে হবে’। এগুলো সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ এবং রাজনীতিকে নিয়ন্ত্রিত ও কলুষিত করার ব্যর্থ চেষ্টা ছাড়া কিছুই নয়।’’

প্রিন্স বলেন, ‘আমরা আইনমন্ত্রীর সংসদে প্রদত্ত বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান জানাচ্ছি।’

এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, ‘১/১১’র সরকার বাংলাদেশকে বিরাজনীতিকরণের অংশ হিসেবে মাইনাস-টু ফর্মুলার বাস্তবায়ন ঘটাতে  খালেদা জিয়া ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের মাধ্যমে  তাদের দণ্ডিত করে রাজনীতি থেকে মাইনাস করার ষড়যন্ত্র করেছিল।’

‘২০০৮ সালে ১/১১’র সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসে শেখ হাসিনার মামলাগুলো বিভিন্নভাবে শেষ করে। অপরদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলাগুলো জিইয়ে রাখা হয় এবং ১/১১-এর সরকারের দায়ের করা চারটি মামলার সঙ্গে পরে আরও ৩২টি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে। পরে সেগুলোকে তড়িঘড়ি করে বুলেটের গতিতে চূড়ান্ত রায়ের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এর মধ্য থেকে দুটি মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ফরমায়েসি রায় দিয়ে তাকে ২৫ মাস অন্যায়ভাবে আটক রাখা হয়। এমনকি তার জামিনের ন্যায্য অধিকার কেড়ে নিয়ে কারাবাস দীর্ঘায়িত করা হয়’ বলে উল্লেখ করেন প্রিন্স।

বিএনপি নেতা অভিযোগ করেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলন সরকার ফ্যাসিবাদী কায়দায় দমন করতে যারপরনাই চেষ্টা করেছে এবং এখনও তা অব্যাহত রেখেছে।

/এসটিএস/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

সার্চ কমিটিও একটি আইনি প্রক্রিয়া, বলছে আওয়ামী লীগ

সার্চ কমিটিও একটি আইনি প্রক্রিয়া, বলছে আওয়ামী লীগ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে খেলাফত মজলিস?

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:১৫

গত আগস্ট মাসেই আলোচনায় ছিল বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট ছেড়ে দিচ্ছে খেলাফত মজলিস। সেই আলোচনা এখন জোরালো হয়ে উঠেছে দলটিতে। আগামী শুক্রবার (১ অক্টোবর) অনুষ্ঠেয় দলের কেন্দ্রীয় শুরার বৈঠক থেকে এমন ঘোষণা আসতে পারে বলে গুঞ্জন রয়েছে। মজলিসের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির প্রভাবশালী একাধিক দায়িত্বশীলের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানা গেছে।

মজলিস নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৯ সালে দলের মজলিসে শুরার বৈঠকেই বিএনপি জোট থেকে বেরিয়ে আসার মৌলিক সিদ্ধান্ত ছিল। ওই সিদ্ধান্ত এখন চূড়ান্ত করে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানোর পরিকল্পনা রয়েছে দলটির।

জানতে চাইলে মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এগুলো এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। শুক্রবার শুরার বৈঠক রয়েছে। বৈঠকে যা সিদ্ধান্ত হবে, তা-ই হবে। অগ্রিম বলা যাচ্ছে না।’

কিন্তু ২০১৯ সালে শুরার সিদ্ধান্ত ছিল—অকার্যকর হওয়ায় ২০ দলীয় জোটে আর যাবে না মজলিস। এ প্রসঙ্গে মুহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘হ্যাঁ, শুরার মতামত এমন ছিল।’

মজলিসের একাধিক নেতার সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই বিএনপি-জোট নিষ্ক্রিয় ও অকার্যকর। আর এই জোটে থাকার রাজনৈতিক মূল্যায়নও পায়নি মজলিস। সর্বশেষ হেফাজতের ঘটনায় দলটির মহাসচিব অধ্যাপক আহমদ আবদুল কাদের গ্রেফতার হয়ে কারাগারে রয়েছেন। এ বিষয়টি নিয়ে দলে নানা মত রয়েছে বলে জানান দলটির একাধিক নেতা।

এর আগে, জোটের শরিক দলের যথাযথ মূল্যায়ন না করাসহ কয়েকটি কারণ দেখিয়ে গত ১৪ জুলাই বিএনপি জোট ছেড়ে দেয় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম। এরপর ১৮ জুলাই থেকে মুক্তি পেতে শুরু করেন ওই দলের কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির নেতারা। বর্তমানে জমিয়তের অধিকাংশ নেতা জামিনে কারাগার থেকে বেরিয়ে এসেছেন।

এ বিষয়ে দলের আমির মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক বলেন, ‘আমরা মহাসচিবের মুক্তির জন্য আইনি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তার বাড়িঘরের খবর নেওয়া হচ্ছে।’

তবে খেলাফত মজলিসের জোট ত্যাগ করার পেছনে রাজনৈতিক কারণই প্রধান বলে জানান একাধিক নেতা। তারা বলছেন, রাষ্ট্রীয় চাপ ও আন্তর্জাতিক বাস্তবতায় ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিয়ে নতুন আঙ্গিকে চিন্তা করার প্রয়োজন রয়েছে। একই সঙ্গে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখেও পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনার চিন্তাভাবনা চলছে মজলিসে।

মজলিসের কেন্দ্রীয় নেতারা,  মহাসচিব বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন (ফাইল ফটো) দলীয় সূত্র জানায়, আগামী শুক্রবার পুরানা পল্টনের কালভার্ট রোড এলাকার একটি হোটেল মিলনায়তনে খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় শুরার বৈঠক অনুষ্ঠান হবে। অন্তত দুই শতাধিক শুরা সদস্য এতে অংশ নেবেন।

সূত্র জানায়, বৈঠকে দলের সাংগঠনিক পরিস্থিতি, দেশের বিরাজমান পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন শুরা সদস্যরা। বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলন ডাকতে পারেন দলটির নেতারা।

মজলিসের নির্ভরযোগ্য কয়েকজন নেতা জানান, দেশের চলমান রাজনৈতিক বাস্তবতায় দলের অনুসারী ও নেতাকর্মীদের সামনে মজলিসের সর্বশেষ রাজনৈতিক অবস্থান ও জোটগত রাজনীতি নিয়ে দলের সিদ্ধান্ত আনুষ্ঠানিকভাবে ব্রিফ করতে পারেন দলের শীর্ষ নেতারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমির আহমদ আলী কাসেমী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘একটি রাজনৈতিক দলের শুরার বৈঠক হচ্ছে—অবশ্যই এর তাৎপর্য আছে। যেহেতু আমরা রাজনৈতিক দল, সেহেতু রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত থাকতেই পারে। আশা করি, বৈঠকে দুই শতাধিক সদস্যের কাছাকাছি অংশগ্রহণ করবেন।’

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯ সালের ৬ জানুয়ারি জাতীয় পার্টি, জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ঐক্যজোটকে সঙ্গে নিয়ে ‘চারদলীয় জোট’ গঠন করেছিল বিএনপি। পরে এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি বেরিয়ে গেলে যুক্ত হয় নাজিউর রহমান মঞ্জুর বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি)। পরবর্তীতে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল নতুন ১২টি দলের সংযুক্তির মাধ্যমে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে থাকা চারদলীয় জোট কলেবরে বেড়ে দাঁড়ায় ১৮ দলীয় জোটে। এরপর জোটের পরিধি দাঁড়ায় ২০ দলে।

তবে ২০ দলীয় জোট থেকে ইসলামী ঐক্যজোট, এনপিপি, ন্যাপ ও এনডিপি বেরিয়ে গেলেও একই নামে এসব দলের একাংশকে জোটে রেখে দেয় বিএনপি। জোট ছেড়ে যায় আন্দালিভ রহমান পার্থের বিজেপিও। সর্বশেষ, গত ১৮ জুলাই জমিয়ত বেরিয়ে গেলেও একই নামে আরেকটি অংশ রয়েছে জোটে। তবে খেলাফত মজলিস বেরিয়ে গেলে এই নামে কোনও অংশকে জোটে রাখবে কিনা বিএনপি, এমন কোনও পরিকল্পনার কথা মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত জানা যায়নি।

আরও পড়ুন:

এবার বিএনপি-জোট ছাড়ার আলোচনা খেলাফত মজলিসে

/এপিএইচ/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

‘উপজেলা প্রশ্নে হাইকোর্টের নির্দেশনা ঐতিহাসিক রায়’

‘উপজেলা প্রশ্নে হাইকোর্টের নির্দেশনা ঐতিহাসিক রায়’

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই: রিজভী

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৯

বিএন‌পির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, এই সরকারের হাত থেকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রি‌পোর্টার্স ইউনিটিতে মানবসেবা সংঘের উদ্যোগে "নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ও বহুদলীয় গণতন্ত্র” শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির সিনিয়র এই নেতা বলেন, আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন ‑ সাহস থাকলে তারেক রহমান দেশে আসুক। তাদেরকে বলি ‑ সাহস থাকলে নির্দলীয় নিরপেক্ষ নির্বাচন দেন। আপনাদের সাহস থাকলে একটা শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন দেন। সেই সাহস আপনাদের নেই। নিজেরা পদত্যাগ করে নির্দলীয় সরকারের হাতে ক্ষমতা দেন। দেখি আপনাদের সাহস আছে কিনা।

তিনি বলেন, যারা এখন ক্ষমতায় আছে, তারা এক দানবীয় পন্থায় ক্ষমতায় রয়েছে। নানা হুমকি দিয়ে, নানা কালাকানুন তৈরি করে, মিডিয়াকে ভয় দেখিয়ে তারা ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করছে। আবার নিজেদের কিছু মিডিয়া দিয়ে অনর্গল মিথ্যা বলে যাচ্ছে।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, এই ফ্যাসিস্ট সরকারের হাত থেকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই।

সংগঠ‌নের সভাপতি সঞ্জয় দে রিপনের সভাপ‌তি‌ত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ‑ বিএন‌পির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, বিএন‌পির পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক এড. গৌতম চক্রবর্তী, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দ‌লের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কা‌দির ভূইয়া জু‌য়েল, ছাত্রদ‌লের সহসভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম প্রমুখ।

/জেডএ/এমএস/

সম্পর্কিত

বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে খেলাফত মজলিস?

বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে খেলাফত মজলিস?

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে তামাশা করেছিল বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে তামাশা করেছিল বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না: মির্জা ফখরুল

হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না: মির্জা ফখরুল

জনগণের প্রতি সরকারের কোন মায়া-দয়া নেই: খন্দকার মোশাররফ

জনগণের প্রতি সরকারের কোন মায়া-দয়া নেই: খন্দকার মোশাররফ

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে তামাশা করেছিল বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:০৩

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতন্ত্রের নামে গণতন্ত্রকে হত্যা করেছিল বিএনপি। বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে বিএনপি এই তামাশা করেছিল। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জনগণের ভোটে বিজয়ী হয়ে কেন সংসদে আসেনি—এটা কোন গণতন্ত্র?

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সব নেতাকর্মীকে শপথ নিতে হবে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। দলের মধ্যে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। ত্যাগী কর্মীদের দিয়ে দল সাজাতে হবে। যারা অপকর্মের সঙ্গে জড়িত তারা আগামীতে আওয়ামী লীগের টিকিট পাবেন না।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে আরও আধুনিক স্মার্ট আওয়ামী গড়ে তুলতে চাই। এজন্য দলের মধ্যে কোনও বসন্তের কোকিল নয়, ত্যাগীদেরই জায়গা করে দিতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনা আজ একটি ব্র্যান্ডের নাম। শেখ হাসিনা নিজেই একটি ইতিহাস। ইতিহাসের প্রয়োজনে শেখ হাসিনার জন্ম হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা দীর্ঘ লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে ওঠে এসেছেন। দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বনেতার কাতারে পৌঁছেছেন শেখ হাসিনা। তাই তো শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্ব ও জাতিসংঘের বক্তব্য বিশ্বে প্রশংসিত।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা বেঁচে আছেন বলেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে, দেশের এত উন্নয়ন হয়েছে। দেশের মানুষ ভালো আছেন। শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বের কারণেই বাংলায় আজ সোনালি আকাশ। দারিদ্র্য বিমোচনে বিশ্বে রোল মডেল শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে। বিএনপি সিরিজ সভা করছে, তারা নাকি আন্দোলন করবে। দেশের মধ্যে আন্দোলনের নামে কোনও সহিংসতা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সমুচিত জবাব দেওয়া হবে। এ জন্য আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

আগামী নির্বাচনে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই শীর্ষ নেতা বলেন, আপনাদের (বিএনপিকে উদ্দেশ করে) নেতা কে? পলাতক আসামি? যদি আপনারা পলাতক আসামিকে নেতা বানান দেশের মানুষ কখনও গণতন্ত্রের নেতা হিসেবে তাকে মেনে নেবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, আব্দুর রাজ্জাক, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, শাজাহান খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, ড. হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খান, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিনসহ কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

/পিএইচসি/এমএস/এমওএফ/

সম্পর্কিত

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: জয়

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: জয়

আন্দোলনে বিএনপির নেতা কে, জানতে চান ওবায়দুল কাদের

আন্দোলনে বিএনপির নেতা কে, জানতে চান ওবায়দুল কাদের

শেখ হাসিনা না জন্মালে ভোট ও ভাতের অধিকার পেতাম না: শেখ পরশ

শেখ হাসিনা না জন্মালে ভোট ও ভাতের অধিকার পেতাম না: শেখ পরশ

হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না: মির্জা ফখরুল

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৪৪

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় জাতীয়তাবাদী যুবদলের আনন্দ মিছিলে পুলিশ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীদের বাসা-বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা ও নেতাকর্মীদের ওপর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তথা পুলিশি হামলা ও তাণ্ডব আওয়ামী ফ্যাসিবাদী চরিত্রের নগ্ন বহিঃপ্রকাশ। হামলা-মামলা-গ্রেফতার করে আন্দোলন থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না।’

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব এসব কথা বলেন। বিবৃতিতে অভিযোগ করা হয়, গতকাল (সোমবার) ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাধীন কসবা উপজেলায় জাতীয়তাবাদী যুবদলের মিছিলে পুলিশ হামলা করেছে।

বিবৃতিতে নোয়াখালী জেলাধীন সোনাইমুড়ি উপজেলার ২ নং নদোনা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, সোনাইমুড়ি উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন সানির বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আন্দোলন ও পতনের ভয়ে ভীত বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার দমন-পীড়ন চালিয়ে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদেরকে পর্যুদস্ত করার ষড়যন্ত্র করছে। পুলিশ ও দলীয় সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের ওপর এবং তাদের বাড়ি-ঘরে হামলা চালাচ্ছে। এই হামলা, নির্যাতন ও নিপীড়ন করে কোন স্বৈরাচার সরকারই টিকে  থাকতে পারেনি। বর্তমান ফ্যাসিবাদী এই সরকারও টিকে থাকতে পারবে না।’

/এসটিএস/এমএস/

সম্পর্কিত

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলামকে দেখতে হাসপাতালে মির্জা ফখরুল

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলামকে দেখতে হাসপাতালে মির্জা ফখরুল

এত খারাপ সময় আর দেখিনি: মির্জা ফখরুল

এত খারাপ সময় আর দেখিনি: মির্জা ফখরুল

রোহিঙ্গা ইস্যুতে পশ্চিমা বিশ্বের সুবিধাগুলো নিতে চায় সরকার: মির্জা ফখরুল

রোহিঙ্গা ইস্যুতে পশ্চিমা বিশ্বের সুবিধাগুলো নিতে চায় সরকার: মির্জা ফখরুল

২১-২৩ সেপ্টেম্বর বিএনপির মতবিনিময়

২১-২৩ সেপ্টেম্বর বিএনপির মতবিনিময়

জনগণের প্রতি সরকারের কোন মায়া-দয়া নেই: খন্দকার মোশাররফ

আপডেট : ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩১

যারা ভোট ডাকাতি করে, গায়ের জোরে ক্ষমতায় থাকে,  জনগণের প্রতি তাদের কোন মায়া-দয়া নেই ‑ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী কৃষকদল আয়োজিত "কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করুন এবং সার, বীজ, কীটনাশক, ডিজেল ও বিদ্যুতের দাম কমানোর দাবি" শীর্ষক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, কৃষক তাদের পণ্যের ন্যায্যমূল্য পায় না। সার, কীটনাশক, সেচের জন্য বিদ্যুৎ ‑ সবকিছুর দাম বাড়িয়ে সরকার কৃষির প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে। অথচ দেশের জনগণ ন্যায্যমূল্যে পণ্য পায় না দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে। এর জন্য সারা বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে হতাশা।

বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, এই সরকারের বৈষম্যমূলক অর্থনীতির কারণে ধনী আরও ধনী হয়েছে, মধ্যবিত্ত নিম্ন মধ্যবিত্ত হয়ে যাচ্ছে, নিম্ন-মধ্যবিত্ত গরিব হয়ে যাচ্ছে, গরিব অতিদরিদ্র হয়ে যাচ্ছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। মানুষ অনাহারে, না খেয়ে দিন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা ভোট ডাকাতি করে, জনগণের সমর্থন না নিয়ে, গায়ের জোরে ক্ষমতায় রয়েছে ‑ তাদের জনগণের প্রতি কোনও দায়িত্ব নেই। জনগণের প্রতি তাদের কোন মায়া-দয়া নাই। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে এই সরকার কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না। কেননা এই মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে যারা লাভবান হচ্ছে তারা সবাই আওয়ামী লীগ অথবা আওয়ামী লীগ সমর্থক।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, জাতীয়তাবাদী কৃষিকদলের সভাপতি হাসান জাফির তুহিন, জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুলসহ আরও অনেকে।

/জেডএ/এমএস/

সম্পর্কিত

বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে খেলাফত মজলিস?

বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে খেলাফত মজলিস?

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই: রিজভী

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই: রিজভী

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে তামাশা করেছিল বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে তামাশা করেছিল বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না: মির্জা ফখরুল

হামলা করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরত রাখা যাবে না: মির্জা ফখরুল

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

শেখ হাসিনাকে জাসদের শুভেচ্ছা

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

নদী দখলকারীদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান

সার্চ কমিটিও একটি আইনি প্রক্রিয়া, বলছে আওয়ামী লীগ

সার্চ কমিটিও একটি আইনি প্রক্রিয়া, বলছে আওয়ামী লীগ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণে আইন অপরিহার্য: ইনু

বৈঠকেই ‘কাউন্সিল’ সেরে নিয়েছে বিএনপি!

বৈঠকেই ‘কাউন্সিল’ সেরে নিয়েছে বিএনপি!

দলীয় প্রতীকেও নির্বাচন করার চাপ জাসদে

দুই দিনব্যাপী কেন্দ্রীয় কমিটির সভাদলীয় প্রতীকেও নির্বাচন করার চাপ জাসদে

‘সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার কমায় আয় সংকটে পড়বে মানুষ’

‘সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার কমায় আয় সংকটে পড়বে মানুষ’

নেতাদের সঙ্গে দ্বিতীয় দফার শেষ বৈঠকে বিএনপি

নেতাদের সঙ্গে দ্বিতীয় দফার শেষ বৈঠকে বিএনপি

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান হাসপাতালে ভর্তি

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান হাসপাতালে ভর্তি

৫ বিভাগের সদস্যদের সঙ্গে বিএনপির রুদ্ধদ্বার বৈঠক

৫ বিভাগের সদস্যদের সঙ্গে বিএনপির রুদ্ধদ্বার বৈঠক

সর্বশেষ

‘সামাজিক মাধ্যমে জঙ্গিবাদসহ অপশক্তির পুনরুত্থান নিরাপত্তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ’

‘সামাজিক মাধ্যমে জঙ্গিবাদসহ অপশক্তির পুনরুত্থান নিরাপত্তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ’

‘উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

‘উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’

কলকাতার একাদশে সাকিবের ফেরা আরও কঠিন হয়ে উঠলো

কলকাতার একাদশে সাকিবের ফেরা আরও কঠিন হয়ে উঠলো

সাজিদুরের মৃত্যুর খবরে প্রাণ গেলো মেয়ে ও নাতনির

সাজিদুরের মৃত্যুর খবরে প্রাণ গেলো মেয়ে ও নাতনির

আফগানিস্তানে মার্কিন নিপীড়ন তদন্ত করবে না আইসিসি

আফগানিস্তানে মার্কিন নিপীড়ন তদন্ত করবে না আইসিসি

© 2021 Bangla Tribune