X
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

সোশ্যাল মিডিয়া এখন আয়েরও মাধ্যম

আপডেট : ২৫ জুলাই ২০২১, ১১:০০

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের বেশিরভাগ অংশ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিনের কিছু না কিছু সময় কাটান।  অনেক গবেষণায় দেখা গেছে, ব্যবহারকারীরা সাধারণত এক থেকে দেড় ঘণ্টা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যয় করেন।  তবে যারা আসক্ত তাদের ক্ষেত্রে সময়টা অনেক বেশি।

এখনকার দিনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পড়ে থাকাটাও খারাপ নয় যদি আপনি সেখান থেকে আয়ের রাস্তা খুঁজে বের করতে পারেন।  বর্তমানে প্রায় সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকেই আয়ের সুযোগ আছে।  তবে সেজন্য আপনাকে হতে হবে পরিশ্রমী এবং উদ্ভাবনী মনের অধিকারী।

দিন দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে আয়ের ক্ষেত্র আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। এইতো কয়েকদিন আগে নতুন একটি ওয়েবসাইট চালুর ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক।  বুলেটিন নামের এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে লেখকরা ফ্রি এবং পেইড নিউজলেটার তৈরি ও শেয়ার করতে পারবেন।  অর্থাৎ, এই প্ল্যাটফর্মটির মাধ্যমেও আয় করা যাবে।

বুলেটিনের লেখকদের সাবস্ক্রিপশন থেকে যে আয় আসবে তার পুরোটাই রাখতে পারবেন।  নতুন এ ওয়েবসাইট সম্পর্কে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, আমাদের লক্ষ্য হলো সৃজনশীল কাজের মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষ যেন জীবিকা নির্বাহ করতে পারে সেই বিষয়টিতে সমর্থন দেওয়া।

এ তো গেল ফেসবুকের আলাদা একটি সাইটের কথা।  এই সাইটের পাশাপাশি সরাসরি ফেসবুক থেকেও আয়ের সুযোগ রয়েছে।  এছাড়া অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন- স্ন্যাপচ্যাট, টিকটক, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ক্লাবহাউস ইত্যাদি থেকেও আয় করতে পারবেন ব্যবহারকারীরা।

স্ন্যাপচ্যাট

সম্প্রতি সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, স্ন্যাপচ্যাটে দৈনিক যেসব কনটেন্ট তৈরি হয় সেগুলোর বিপরীতে ১ মিলিয়ন ডলার প্রদান করে প্রতিষ্ঠানটি।  কোনও ব্যবহারকারীর কনটেন্ট স্ন্যাপচ্যাটের শর্ত পূরণে সক্ষম হলে এটি শেয়ার করা হয়।

এর মানে হলো অন্য ব্যবহারকারীরা স্টোরি এবং সার্চ রেজাল্টস উভয় জায়গাতেই পাবে সেই স্ন্যাপ।  এভাবে কারও স্ন্যাপ ভাইরাল হয়ে গেলে সংশ্লিষ্ট ব্যবহারকারীর কাছে একটি নোটিফিকেশন যাবে এরকম- ‘আপনি স্পটলাইট পেআউট’ গ্রহণের যোগ্য।  তখন তিনি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ পাবেন।

টিকটক

টিকটকের ক্রিয়েটররা বিনোদন দেয়, উৎসাহ যোগায় এবং নিজেদের বিভিন্নভাবে তুলে ধরে। ক্রিয়েটরদের এমন কাজের জন্য তাদের সমর্থন ও পুরস্কার দেয় টিকটক কর্তৃপক্ষ।  টিকটকের দেওয়া পুরস্কার পেতে চাইলে নির্ধারিত কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে।

এসব শর্তের মধ্যে আছে- সর্বনিম্ন ১০ হাজার প্রকৃত অনুসারী থাকতে হবে। পাশাপাশি সর্বশেষ ৩০ দিনে থাকতে হবে এক লাখ প্রকৃত ভিডিও ভিউ।  শর্তগুলো পূরণ হলে নির্দিষ্ট কিছু দেশের টিকটক ব্যবহারকারীরা সহজেই অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

ইউটিউব

ইউটিউবের অফিসিয়াল ব্লগে দেওয়া তথ্যানুযায়ী, ইউটিউব শর্টস’র জন্য নির্ধারিত ফান্ডের আর্থিক মূল্য ১০০ মিলিয়ন ডলার।  এই অর্থ ২০২১ ও ২০২২ সালে বিতরণ করা হবে।  ইউনিক ইউটিউব শর্টস কনটেন্ট নির্মাতারা এখান থেকে অর্থ পেতে পারেন।

এছাড়া ইউটিউবে দীর্ঘ ভিডিও থেকেও আয় করতে পারবেন ক্রিয়েটররা।  এখান থেকে আপনি কী পরিমাণ আয় করবেন তা নির্ভর করবে আপনার সাবস্ক্রাইবার কেমন আছে এবং ভিডিওর কেমন ভিউ হচ্ছে তার ওপর।  ইউটিউবে সর্বশেষ ১২ মাসে ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার এবং ৪ হাজার পাবলিক ওয়াচ আওয়ার সম্পন্ন হলে আপনি আয় শুরু করতে পারবেন।  ক্রিয়েটর অ্যাকাডেমি ওয়েবসাইট থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।  এছাড়া ইউটিউবে সুপার চ্যাটের মাধ্যমে আয় করা সম্ভব।  কোনও ব্যক্তি বা তারকার ফ্যান, সাবক্রাইবার বেড়ে গেলে তিনি কখনও লাইভে এলে সেখানে প্রশ্নের মাধ্যমে আয় করা সম্ভব।  ধরা যাক, কোনও তারকা লাইভে এলেন। তখন অনেকই তাকে প্রশ্ন করেন।  ওই তারকার পক্ষে সবার প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হয় না।  তখন যিনি প্রশ্ন করতে চান তিনি নির্দিষ্ট অংকের অর্থের বিনিময়ে প্রশ্ন করতে পারবেন। এখান থেকে ওই তারকা বা বিখ্যাত ব্যক্তি আয় করতে পারবেন।

ইনস্টাগ্রাম

ইনস্টাগ্রামের কনটেন্ট ক্রিয়েটররা আর্থিক সহায়তার অপশনটি দেখাতে চাইলে লাইভ ভিডিও চলাকালে ব্যাজ কিনতে পারবেন।  অনুসারীরা সেই লাইভে প্রবেশ করা মাত্র আর্থিক সহায়তার অপশনটি দেখতে পাবেন এবং চাইলে যেকোনও পরিমাণ অর্থ প্রদান করতে পারবেন।

টুইটার

টুইটারের টিপ জারের সাহায্যে অর্থ প্রেরণ ও গ্রহণ করা যায়।  অ্যান্ড্রয়েড এবং আইফোন উভয় ব্যবহারকারীই টিপ পাঠাতে ও গ্রহণ করতে পারবেন।  বর্তমানে এই ফিচারটি অসংখ্য ব্যবহারকারীর জন্য চালু আছে।  বিশেষ করে ক্রিয়েটর, সাংবাদিক, বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ও অলাভজনক সংস্থাগুলো এই ফিচার ব্যবহার করে অর্থ আয় করতে পারবে।

ক্লাবহাউস

‘ক্রিয়েটর ফার্স্ট’ প্রোগ্রামের সাহায্যে ব্যবহারকারীদের অর্থ আয়ের সুযোগ দেয় ক্লাবহাউস।  একজন ক্রিয়েটর ক্লাবহাউস থেকে যে অর্থ আয় করেন তার পুরোটাই তাকে দিয়ে দেওয়া হয়। অর্থাৎ, ক্লাবহাউস কর্তৃপক্ষ এখান থেকে কোনও অংশ কেটে রাখে না।  ভবিষ্যতে প্রতিষ্ঠানটি অর্থ আয়ের আরও উপায় চালু করবে।  এ সম্পর্কে জানতে ব্যবহারকারীদের নিয়মিত খোঁজ রাখতে পরামর্শ দিয়েছে ক্লাবহাউস। সূত্র: গেজেটস নাউ, মেক আস ইউজ, সিএনবিসি

 

/এমআর/

সম্পর্কিত

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৯

মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিক্রি ও সেবনের দায়ে ৫২ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইফতেখারুল ইসলাম বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে ২৩ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

তিনি বলেন, গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে ৪২ হাজার ৭২৪ পিস ইয়াবা, ১৮৩ গ্রাম ১ হাজার ২০ পুরিয়া হেরোইন, দেশি মদ ১৭ বোতল, ৫০ কেজি ৩০৫ গ্রাম গাঁজা ও ৮ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধারের পর জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৪১টি মামলা হয়েছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

/আরটি/ইউএস/

সম্পর্কিত

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

ফকিরাপুলে ভিওআইপি সরঞ্জামসহ গ্রেফতার ৪

সাক্ষাৎকারে ড. ফেরদৌসী কাদরী 

‘করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে’

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০০
করোনা নিয়ে যতটা গবেষণা হওয়া উচিৎ ততটা হচ্ছে না। এটা বাড়ানো উচিৎ। করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে আমাদের নিজেদের গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে। এমনটা জানিয়েছেন এশিয়ার নোবেলখ্যাত ম্যাগসাইসাই পুরস্কারজয়ী আইসিডিডিআরবি’র বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী। তার সঙ্গে কথা বলেছেন বাংলা ট্রিবিউন-এর জেষ্ঠ্য প্রতিবেদক জাকিয়া আহমেদ।

 

বাংলা ট্রিবিউন: দেশের করোনা পরিস্থিতি বলা যায় ভালোর দিকে, করণীয় কী?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: দেশের সব ‘পারফেক্ট’ নয়। কিন্তু করোনা আমাদের শিক্ষা দিয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রে যার যার জায়গা থেকে যা করার ছিল সে সেটাই করেছে। সেইসঙ্গে সরকারের তরফ থেকেও অনেক সমর্থন দেওয়া হয়েছে।

দেশে করোনায় প্রতিদিন যে মৃত্যুর সংখ্যা স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো হয়, সেটা নিশ্চিত মৃত্যু। কিন্তু এর বাইরে পোস্ট কোভিড, লং কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন অনেকে। অনেকে আনডিটেকটেড থাকছেন। সবাই পরীক্ষার আওতায় আসছেন না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, যত মৃত্যুর কথা আমরা জানি, তার তিন থেকে চারগুণ বেশি মৃত্যু হচ্ছে।

সবচেয়ে বড় কথা- পরীক্ষা আরও বাড়াতে হবে, চিকিৎসাকেন্দ্র বাড়াতে হবে এবং মানুষকে সচেতন হতে হবে।

ড. ফেরদৌসী কাদরী 

বাংলা ট্রিবিউন: দেশের ৫০-৬০ শতাংশ মানুষের হার্ড ইমিউনিটি হয়েছে বলে যে খবর প্রকাশ হয়েছে তা নিয়ে আপনার মন্তব্য কী?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: ৮ বিভাগে আইইডিসিআর (রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠা)-এর সঙ্গে এক যৌথ জরিপ থেকে বোঝা যাচ্ছে, ৬০ শতাংশ মানুষের অ্যান্টিবডি রয়েছে। কিন্তু সেটা হার্ড ইমিউনিটি নয়। করোনা প্রতিরোধের জন্য যে ধরনের অ্যান্টিবডি দরকার সেটা এই অ্যান্টিবডি দিয়েই হবে, তা আমি বলতে পারবো না।

হার্ড ইমিনিউটির ব্যাপ্তি অনেক। এটি কেবল সংক্রমিত হবার মাধ্যমে হয় না। ভ্যাকসিনেশন এবং ইনফেকশন-দুটো দিয়েই করতে হয়।

আমি কখনোই হার্ড ইমিউনিটির কথা বলি না। একটা দেশের মোট জনসংখ্যার ৬০-৮০ শতাংশের বেশি মানুষকে টিকা দেওয়া হলে এবং তাদের যদি অ্যান্টিবডি তৈরি হয়- তবে দুটো মিলিয়ে হার্ড ইমিউনিটি হয়।

নতুন যে ভ্যারিয়েন্ট আসছে, সেগুলোর মধ্যে পরিবর্তন হচ্ছে। যে পরিবর্তনে শরীরের ভেতর অ্যান্টিবডি তৈরি হলেও সেটা কাজ করছে না অনেক সময়। এই কারণেই একাধিক মানুষ একাধিকবার আক্রান্ত হচ্ছেন। কেউ একবার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট দিয়ে আক্রান্ত হলে তিনি যে অন্য ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হবেন না-তাও নয়।

ড. ফেরদৌসী কাদরী 

বাংলা ট্রিবিউন: টিকা নিলেই নিরাপদ?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: কোনও টিকাই শতভাগ নিরাপত্তা দিতে পারছে না। এখন পর্যন্ত গবেষণায় দেখা গেছে, টিকা নেওয়া থাকলে রোগীর অবস্থা জটিল হচ্ছে না। হাসপাতালে ভর্তি হতে হচ্ছে না। আইসিইউতেও যেতে হচ্ছে না। এজন্য টিকা অবশ্যই নিতে হবে।

আবার টিকাতেও তফাৎ রয়েছে। আমরা এখনও পুরোটা জানি না। টিকা আবিষ্কারের জন্য অনেক বছর গবেষণার দরকার। কিন্তু করোনার ক্ষেত্রে আমাদের সময় কম ছিল। অল্প সময়ে টিকা আবিষ্কার হচ্ছে। আবার সেটা বদলে যাচ্ছে বিভিন্ন ভ্যারিয়েন্টের কারণে।

করোনায় অনেক দেশেই সংক্রমণের হার বেশি ছিল। ডেল্টার তাণ্ডবে ভারতে হাসপাতালে রোগীদের জায়গা হয়নি। মৃতদেহের সৎকার হয়নি ঠিকমতো। ডেল্টার প্রকোপ বাংলাদেশেও চলেছে সমানতালে। জুলাইতে সর্বোচ্চ রোগী ও আগস্টে একদিনে সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারপরও যতটা আশঙ্কা ছিল সে অনুযায়ী করোনার প্রকোপ দেখতে হয়নি বাংলাদেশকে।

 

বাংলা ট্রিবিউন: কী কারণেদেশের পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়নি?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: আমরা দেরি করিনি কিছুতে। বাংলাদেশের প্রস্তুতি ভালো ছিল। আমাদের দেশে সিদ্ধান্তগুলো খুব তাড়াতাড়ি নেওয়া হয়েছে অন্য দেশের তুলনায়।

স্বাস্থ্যখাতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে রয়েছে। বিশেষ করে টিকার ক্ষেত্রে। বাংলাদেশে ১১টি টিকা রয়েছে টিকা কর্মসূচিতে। শিশু এবং মায়েদের টিকা দেওয়া হচ্ছে অনেক বছর ধরে।

ডেল্টার সময় আমরা টিকা পাইনি। তার আগে সংক্রমণের হারও কম ছিল। হঠাৎ করেই বেড়েছে। সবকিছু মিলিয়ে বাংলাদেশের স্ট্যাটাস অনেক ভালো ছিল। আমরা অনেক মৃত্যু দেখেছি-যা আগে দেখিনি। তারপরও মেক্সিকো, আমেরিকা, ব্রাজিল, ভারতের তুলনায় অনেক কম।

আমাদের অক্সিজেনের অভাবও হয়নি। ভারতে হয়েছে। যার কারণে ভারতে যেভাবে মৃত্যু দেখেছে বিশ্ববাসী, বাংলাদেশের ক্ষেত্রে দেখতে হয়নি।

আবার, বাংলাদেশের মানুষ পেয়ারা, আমড়া, আমলকির মতো ফল খেতে পারছে। এগুলো দেশে খুব কম দামে সবসময় পাওয়া যায়। এগুলো পুষ্টিগুণে ভরপুর। ভিটামিন-বি, সি রয়েছে। আছে আয়রন। এগুলোর জন্যও আমরা হেলদি। বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ অনেক পুষ্টিকর খাবার পায় কম দামে। যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

 

বাংলা ট্রিবিউন: এখনও যত পথ বাকি...।

ড. ফেরদৌসী কাদরী: বাংলাদেশের রোগ নির্ণয় অর্থাৎ ডায়াগনোসিস নিয়ে একটু আক্ষেপ রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কী বলছে, কোন দেশে কোন নতুন রোগ দেখা দিচ্ছে, সেই বিষয়ে চোখ-কান খোলা রাখতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিতে হবে। এখন যেটা রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) করছে। আইসিডিডিআরবিও তাদের সঙ্গে কাজ করে।

কোভিডের বেলায় শুরুতে একটি মাত্র পরীক্ষাগার থেকে আজ ৮১০টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। এসব পরীক্ষাগার যেন কখনও বন্ধ না হয়। তাদেরকে সেই সাপোর্ট দিতে হবে। প্রশিক্ষণ চালিয়ে যেতে হবে।

সবকিছু একা সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মান বাড়ানোর জন্য, যন্ত্রপাতির জন্য, রি-এজেন্টের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে যে সাহায্য পেয়েছি, যে ফান্ডিং এসেছে-সেটাও কম নয়। সেইসঙ্গে সরকারও খরচ করে যাচ্ছে। আমার কথা হলো, এই গতি যেন না কমে।

আমি যেহেতু গবেষণা করি, তাই বলছি-করোনা পরিবর্তন হয়ে আরেকটি নতুন রোগ আসতে পারে। তখন যেন পিছিয়ে না পড়ি, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

ড. ফেরদৌসী কাদরী 

বাংলা ট্রিবিউন: ডেল্টার মতো ভ্যারিয়েন্ট আরও আসতে পারে?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: দেশে করোনার বর্তমান পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। গত দুদিন শনাক্তের হার পাঁচ শতাংশের নিচে। এটা আবার বাড়তে পারে। ডেল্টার মতো অতি সংক্রমণশীল ভ্যারিয়েন্টও আসতে পারে। এ নিয়ে কেউ গ্যারান্টি দিতে পারে না।

 

বাংলা ট্রিবিউন: মানুষ তো আবার অবাধে চলতে শুরু করেছে, কোন বিষয়ে বেশি সতর্ক থাকতে হবে?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: এখন মাস্ক না পরাটা সবচেয়ে খারাপ হবে। প্রতিটি মানুষের সচেতন হওয়া উচিত। নিজের জন্য, পরিবারের জন্য, দেশের জন্য এটা কর্তব্য। সবার ‘রেসপনসিবিলিটি’ রয়েছে এখানে। কেন শুধু সরকারের একার দায়িত্ব হবে? আমাদের দায়িত্ববোধ কোথায়? মানুষতো অনেক ধরনের সমাজসেবা করে। দায়িত্বশীলরা মাস্ক ডোনেট করছে না কেন? পরতে পরতেই এটাকে অভ্যাস বানাতে হবে। মাস্ক কেবল করোনা থেকে নয়, ফুসফুসজনিত অনেক রোগ থেকেও আমাদের বাঁচায়।

যেসব অফিসে কর্মীরা মাস্ক পরছে না, সেখানে কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ব নিতে হবে। মাস্ক ছাড়া কেউ অফিসে ঢুকতেই পারবে না, এ নিয়ম জারি করতে হবে। নয়তো শাস্তির বিধান করতে হবে। এ ছাড়া বাঁচা যাবে না। সরকার এবং সামাজিক সংগঠনগুলোকেও এগিয়ে আসার অনুরোধ করবো আমি।

 

বাংলা ট্রিবিউন: গবেষণায় আগ্রহী হলেন কেন?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: পুরস্কার পাবো, এমনটা চিন্তা করিনি কখনও। সবসময় মানুষের জন্য কাজ করতে চাইতাম। দেশের কাজে লাগবে, এমন কিছু করতে চাইতাম।

বায়োকেমিস্ট্রি পড়লাম, পিএইচডি করলাম, দেশে ফিরে এলাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালাম। পড়াতে গিয়েই বুঝলাম, গবেষণা বেশি পছন্দ করছি। কিন্তু ‍যে সুযোগ দরকার ছিল তার ঘাটতি দেখলাম। সবসময় অভাব বোধ করতাম সেখানে।

এরপর ১৯৮৮ সালে আইসিডিডিআরবিতে যোগ দিই। সেখানেই কাজ করছি ৩৩ বছর ধরে। অনেক আনন্দের সঙ্গে কাজ করছি সহকর্মীদের নিয়ে। দেশ-বিদেশের অনেকের সহযোগিতা পাচ্ছি। এখানে রোজ শিখছি।

১ সেপ্টেম্বর স্বামীকে (সালেহীন কাদরী) হারিয়েছি। পারিবারিক কারণে অনেক কষ্টে রয়েছি। সেটাও কাজের মাধ্যমে ভুলে থাকতে পারছি। কাজ করলে ভালো থাকি।

 

বাংলা ট্রিবিউন: বিশ্বের টিকা ব্যবস্থাপনা নিয়ে আপনার পর্যালোচনা কী?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: অনেক ধনী দেশ করোনাভাইরাসের টিকা মজুত করে রেখেছে। অথচ উন্নয়নশীল দেশগুলোতে সংকট রয়ে গেছে। এটা খুবই দুঃখের বিষয়।

অনেক দেশে দরকারের চেয়ে চার-পাঁচগুণ বেশি টিকা রয়েছে। তারা রেখে দিয়েছে বুস্টার ডোজের জন্য। কিন্তু অনেক টিকা মেয়াদ হারাচ্ছে। এটা সহ্য করার মতো নয়। এ কারণে কোভ্যাক্স সুবিধা করা হয়েছে। বিশ্বের অনেক ধনী দেশ রয়েছে সেখানে, রয়েছে অনেক সংগঠন। কিন্তু তারাও এটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। এ বৈষম্য স্পষ্ট ধরা পড়ছে।

 

বাংলা ট্রিবিউন: বাংলাদেশে গবেষণার ক্ষেত্রে নারীদের অবস্থান কেমন?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: মেয়েরা এখন নয়টা-পাঁচটার ছক থেকে বের হয়ে চ্যালেঞ্জিং পেশায় আসছে। সত্যি খুব গর্ব করি তোমাদের নিয়ে (নারী সাংবাদিকদের উদ্দেশে)। তোমরা একটা ঝুঁকির্পূণ পেশা বেছে নিয়েছো। সবার বাসা থেকে এখানেও সাপোর্ট দেওয়া হয় না।

নারীর লড়াই কেবল বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে নয়। সারা বিশ্বেই চলছে। এ লড়াই অনেক কঠিন। নারীরা গবেষণায় একটু পিছিয়ে রয়েছে। এখানে এগিয়ে আসতে হবে।

 

বাংলা ট্রিবিউন: বাংলাদেশকে সামনে কোথায় দেখতে চান?

ড. ফেরদৌসী কাদরী: বাংলাদেশকে সবার উপরে দেখতে চাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার’ দিয়েছে জাতিসংঘের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট সল্যুশনস নেটওয়ার্ক (এসডিএসএন)। এটা দারুণ ব্যাপার। সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচিতে বাংলাদেশ সবার ওপরে। এখন কোথাও গেলে যখন শোনে আমি বাংলাদেশি, তখন বিস্ময় নিয়ে বলে, টিকা কর্মসূচিতে আমরা সফল। আমরা কীভাবে তা সম্ভব করলাম, সেটা জানতে চায়। আমাদের নেতৃত্বে যিনি আছেন, তার চিন্তা অনেক অগ্রগামী। তিনিই এগিয়ে নেবেন।

আমরা এখন অনেক কিছু রফতানি করি। তৈরি পোশাক থেকে শুরু করে মাছ, ফল-এমনকি আমাদের ওষুধও যাচ্ছে বাইরে। স্বপ্ন দেখি, একদিন আমাদের টিকাও রফতানি হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোয়ালিফিকেশনও পেয়ে যাবে শিগগিরই। যদি আমরা উন্নতমানের ওষুধ বানাতে পারি, তা হলে টিকাও পারবো।

একনজরে ড. ফেরদৌসী কাদরী

আইসিডিডিআরবি’র বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী। এ প্রতিষ্ঠানে সুনামের সঙ্গে গবেষণাধর্মী কাজ করছেন ৩৩ বছর ধরে। সম্প্রতি পেয়েছেন এশিয়ার নোবেলখ্যাত ম্যাগসাইসাই পুরস্কার। এ ছাড়া কলেরার টিকা নিয়ে গবেষণা এবং সাশ্রয়ী দামে সহজলভ্য করে লাখো প্রাণ রক্ষায় কাজ করেছেন তিনি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকাবিষয়ক বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্যও ছিলেন।

ছবি: সাজ্জাদ হোসেন

/এফএ/

সম্পর্কিত

দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ১ কোটি ৫৭ লাখ মানুষ 

দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ১ কোটি ৫৭ লাখ মানুষ 

৫ দিনের মধ্যে বড় পরিসরে টিকাদান কর্মসূচি

৫ দিনের মধ্যে বড় পরিসরে টিকাদান কর্মসূচি

অনূর্ধ ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

অনূর্ধ ১০ বছর বয়সী ডেঙ্গু রোগীই প্রায় ২৫ শতাংশ

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

করোনায় মৃত ২৪ জনের ১৪ জন নারী

শিগগিরই ২০ জেলায় উন্মুক্ত হচ্ছে সরকারি প্রকল্পের বিউটি পার্লার

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০৮

দেশের ২০টি জেলা শহরে খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিউটি পার্লার উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে। মহিলা অধিদফতরের বাস্তবায়নাধীন ‘উপজেলা পর্যায়ে মহিলাদের জন্য আয়বর্ধক (আইজিএ) প্রশিক্ষণ’ প্রকল্পের আওতায় বিউটি পার্লার ছাড়াও দেশের ৬৪টি জেলা শহরেই ‘সেলস ও ডিসপ্লে সেন্টারে’ পণ্য সমগ্রী বিক্রি ও প্রদর্শন চালু হবে। আগামী ১০ কর্মদিবসের মধ্যে সমস্ত কাজ শেষ করে জনসাধারণের জন্য তা উন্মুক্ত করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের গত মঙ্গলবারের (২১ সেপ্টেম্বর) অফিস আদেশে জানানো হয়, এর আগে বিউটি পার্লার এবং সেলস ও ডিসেপ্ল সেন্টারের ভেন্যু ভাড়া ও চুক্তি সম্পাদন করার লক্ষ্যে প্রশাসনিক আদেশ জারি করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ ২০২১ সালের জুন মাসে দেওয়া হয়েছে। সেলস ও ডিসপ্লে সেন্টারএবং বিউটিপার্লার স্থাপনের লেআউট ও থ্রিডি ডিজাইনও পাঠানো হয়েছে। ডিজাইন মোতাবেক সন্নিবেশ করার জন্য এবং উদ্যোক্তা নির্বাচনের জন্য ইতোপূর্বে প্রকল্প কার্যালয় থেকে নির্দেশনাও দেওয়া হয়।

আগামী ১০ দিনের মধ্যে সব কাজ শেষ করে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা অনুরোধ জানিয়ে বলা অফিস আদেশে বলা হয়, আগামী ১০ কর্মদিবসের পর যে কোনও দিন যে কোনও সময় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, সচিব, অতিরিক্ত সচিব, যুগ্মসচিব, উপসচিব, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক ও পরিচালক মহোদয়ের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি, প্রকল্প কার্যালয় এবং অডিট ভবন সরেজমিন বা অনলাইনে পরিদর্শন ও অডিট করবেন।

/এসএমএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

ঢামেকের সামনে থেকে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার

ঢামেকের সামনে থেকে বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার

আজও নারীর মৃত্যু বেশি

আজও নারীর মৃত্যু বেশি

পোশাকশ্রমিকদের প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হবে

পোশাকশ্রমিকদের প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হবে

অন্তঃসত্ত্বা নারীদের টিকার বিষয়ে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সিদ্ধান্তের প্রত্যাশা হাইকোর্টের

অন্তঃসত্ত্বা নারীদের টিকার বিষয়ে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সিদ্ধান্তের প্রত্যাশা হাইকোর্টের

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০০

দেবী আগমনের ঘণ্টা বাজবে মহালয়ায়। আগামী ৬ অক্টোবর মহালয়া। এর সঙ্গে সঙ্গেই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। পঞ্জিকা অনুযায়ী, দেবী এবার আসবেন ঘোড়ায় চড়ে এবং বিদায় নিবেন দোলায় চড়ে। মহালয়ার পাঁচদিন পর ইংরেজি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১১ অক্টোবর বোধনের মধ্য দিয়ে ষষ্ঠী পালিত হবে। আর ১৫ অক্টোবর হবে দেবী বিসর্জন। উৎসবকে ঘিরে তাই এখন প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা।   

সনাতন ধর্ম মতে, যা কিছু দুঃখ-কষ্টের বিষয়, যেমন– বাধাবিঘ্ন, ভয়, দুঃখ-শোক, জ্বালা-যন্ত্রণা এসব থেকে ভক্তকে রক্ষা করেন দেবী দুর্গা। শাস্ত্রকাররা দুর্গা নামের অর্থ করেছেন— দুঃখের দ্বারা যাকে লাভ করা যায়, তিনিই দুর্গা। দেবী দুঃখ দিয়ে মানুষের সহ্যক্ষমতা পরীক্ষা করেন। তখন মানুষ অস্থির না হয়ে তাকে ডাকলেই তিনি তার কষ্ট দূর করেন।

ধূপ, কাশা, ঘণ্টা আর ঢাকের তালে তালে শুরু হবে শারদীয় উৎসব। তাই শেষ সময়ে চলছে দেবী দুর্গার প্রতিমা তৈরির কাজ। সারা দেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পুরান ঢাকার শাখারিবাজারে প্রতিমা তৈরির কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন সনাতন সম্প্রদায়ের পালেরা (প্রতিমা তৈরীর মূল কারিগর)। সেখানের কয়েকটি পালবাড়ি ঘুরে দেখা যায়, বেশ কয়েকজন এই পেশার সঙ্গে জড়িয়ে আছেন বাবা-দাদার আমল থেকে। প্রতিবছর তারাই মূলত প্রতিমাগুলো তৈরি করেন। কারিগরদের সঙ্গে পরিবারের বাকি সদস্যরাও তখন যুক্ত হন। প্রথমে কাঠ-বাঁশ দিয়ে ফ্রেম তৈরি করে খড় দিয়ে মূর্তির আদল তৈরি করা হয়। তার ওপর দেওয়া হয় কাদা-মাটির প্রলেপ। এভাবে একের পর এক প্রলেপ লাগিয়ে শুকাতে হয়। সব শেষে রং লাগিয়ে পোশাক ও গহনা পরানো হয়। কারিগরেরা বলছেন, প্রতিমা তৈরিতে উপকরণ হিসেবে ব্যবহৃত হয় এঁটেল মাটি, বাঁশ, কাঠ, খড়, পাটের আঁশ।

কারিগরার জানান, প্রতিমা তৈরির খরচ প্রতিবছরই বাড়ছে। বর্তমানে আকারভেদে একেকটি প্রতিমা তৈরি করতে ২০ হাজার থেকে লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। কোনও কোনও মণ্ডপে লাখ টাকার বেশিও খরচ করেও প্রতিমা তৈরি করা হয়। কাজভেদে একেকজন কারিগর মৌসুমের প্রতি মাসে আয় করেন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা।  তারা আরও জানান,  কোনও কোনও মণ্ডপে প্রতিমার কাঠামো তৈরি করে মাটির কাজও শেষ হয়েছে। ১০-১২ দিন  পর থেকেই শুরু হবে প্রলেপ ও রং দেওয়ার কাজ। সব কাজ শেষ হবে পূজা শুরুর দুই একদিন আগে।

স্কুল জীবন থেকে প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন হরিপদ পাল। তার প্রতিষ্ঠান শিমুলিয়া ভাস্কর শিল্পালয়। বয়সের ভারে কাজ নেওয়া কমিয়ে দিয়েছেন বর্তমানে। তাছাড়া করোনা পরিস্থিতির কারণেও কাজ আসার পরিমাণ কম বলেও জানান তিন। বর্তমানে একটি দেবীর প্রতিমা তৈরি করছেন। সেটি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার পূজা মণ্ডপের জন্য বলে জানান তিনি। হরিপদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, যদি হাতের কাজ তৈরি করার পর পারি সম্ভব হয় তাহলে আরও দুই একটা কাজ নেব। কিন্তু এখন আর নিচ্ছি না। করোনার আগেও অনেক প্রতিমা তৈরির কাজ করেছি। কিন্তু এখন বয়সের কারণে আর আগের মতো কাজ করতে পারি না।

হরিপদ জানান, ঢাকার বনানী পূজামণ্ডপসহ সারাদেশেই অনেক প্রতিমা তৈরির কাজ করেছেন। চিকনগুনিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে আর সেখানে কাজ করা হয় না। দেশের বাইরে থেকেও আগে প্রতিমা তৈরির করার জন্য বায়না করা হতো, তবে সেটি এখন হয়না বলে জানান তিনি। ওয়াশিংটনসহ ভারতেও বায়নার কাজ করেছেন হরিপদ পাল। তিনি জানান, প্রতিমার কাজ অনেক আছে। কিন্তু করতে পারছি না বলে ফিরিয়ে দিচ্ছি।

নারায়ণগঞ্জের সুকৃতি শিল্পালয়ের প্রতিমাশিল্পী সুকুমার পাল এবার তৈরি করছেন বনানী পূজামণ্ডপের প্রতিমা। তিনি জানান, এবার চার-পাঁচটি কাজ পেয়েছি। অর্ডার কম কিন্তু যেসব আছে তাতে কাজ অনেক বেশি। তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জে চারটি প্রতিমা তৈরির কাজ আছে। আর বনানীতে একটি প্রতিমা তৈরির কাজ আছে।

প্রতিমা অঙ্গরাজ ভাস্কর শিল্পালয়ের প্রতিমাশিল্পী এস কে নন্দী জানান, আমাদের কাজ পুরদমে চলছে। আমার এখানে সাতটি প্রতিমার অর্ডার আছে। ঢাকার গোপীবাগে ভোলা নন্দগিরি আশ্রমের দুটি প্রতিমার কাজ চলছে আর সিলেটের পাঁচটি প্রতিমার কাজ করছি। গত বছরের চেয়ে এই বছর কাজ একটু বেশি। তারপরও অনেকে আমার কাছে আসছিল, কিন্তু আমার সক্ষমতা আর নেই। যার কারণে ফিরিয়ে দিতে হয়েছে। আগামিবার যদি পরিস্থিতি ভালো হয় তাহলে আরও আগে থেকে শুরু করবো কাজ।

এদিকে সারাদেশে সুষ্ঠুভাবে পূজা উদযাপনের লক্ষ্যে ১৮ দফা প্রস্তাবনা সরকারকে দিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সেগুলো নিয়ে পর্যালোচনা হবে। এর মধ্যে গতবছর করোনা পরিস্থিতির কারণে সীমিত করা কয়েকটি শর্ত শিথিলের কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, গতবার ৩৬ দফা প্রস্তাবনা ছিল এবার কমিয়ে ১৮ দফা দিয়েছি আমরা। উৎসবের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিষয় যেগুলো গতবার ছিল না, সেগুলো এবার থাকবে। পাশপাশি সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের বিষয়গুলো নিশ্চিত করা হবে। মাস্ক ছাড়া এবারও প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না মণ্ডপে। এবারও আলোকসজ্জা, ডিজে এবং প্রতিমা বিসর্জনের সময় যে শোভাযাত্রা করা হয় সেগুলো করা যাবে না। যার যার প্রতিমা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নিকটস্থ স্থানে বিসর্জন দিবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে।

তিনি আরও বলেন, সবকিছু যেহেতু মোটামুটি খোলা সেহেতু আশা করছি অনেক মানুষ এবার পূজায় অংশ নিবে। যদিও আমরা রেস্ট্রিকশন দিয়ে রেখেছি। ৩০ তারিখের বৈঠকে কিছু জিনিস শিথিলতার বিষয়ে আমরা বলবো। প্রশাসন যেন তাতে নজরদারি রাখে সেগুলো আমরা বলবো।

 

/এফএএন/

সম্পর্কিত

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০০

বারবার উদ্যোগ গ্রহণের পরও পুরোপুরি বাঁচানো যাচ্ছে না বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা ও বালু নদীকে। এক দিকে দখলমুক্ত করলেও অন্যদিকে ফের দখল করে নিচ্ছে নদীখেকোরা। সরকার এই চার নদীর অবৈধ দখল রোধ করতে চায়। একইসঙ্গে নদীর তীরের পরিবেশ উন্নয়নের পরিকল্পনাও রয়েছে। নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, অবকাঠামো নির্মাণ করে রাজধানীর চার নদীর দখলমুক্ত তীর রক্ষা, নাব্যতা, গভীরতা ও প্রশস্ততা বাড়ানো এবং নদীর দূষণ কমিয়ে আনার প্রকল্প নিয়েছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। প্রকল্পটি ২০১৮ সালে নেওয়া হলেও নানা কারণে বাস্তবায়িত হয়নি। সম্প্রতি এতে সংশোধনী আনা হয়েছে এবং জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে তা অনুমোদন পেয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা ও বালু নদীর তীরে পিলার স্থাপন, তীর রক্ষা, ওয়াকওয়ে ও জেটিসহ আনুষাঙ্গিক অবকাঠামো নির্মাণ (২য় পর্যায়) (১ম সংশোধিত) শীর্ষক প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৪৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের চার নদীর সীমানা পিলার ও ওয়াকওয়ে নির্মাণকাজের গতি হতাশাজনক। নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা আগামী বছরের জুনে। অগ্রগতি মাত্র ৪০-৪৫ শতাংশ। তাই সময় বাড়িয়ে সংশোধনের প্রস্তাব করতে উদ্যোগী হয়েছে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। 

পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, ওয়াকওয়ে সংলগ্ন ৩৫ দশমিক ৩৫৮ কিলোমিটার ড্রেন, ২ দশমিক ৬৫ কিলোমিটার নদী সংরক্ষণ বাঁধ, জেটির জন্য ২১ কিলোমিটার পার্কিং ইয়ার্ড ও ৪টি ঘাট নির্মাণ ডিপিপিতে নতুনভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অপরদিকে রেট সিডিউল পরিবর্তনের কারণে প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট অংশের ব্যয় ও পরিমাণ বাড়ানো এবং বাস্তবায়নের মেয়াদ ১ বছর বাড়ানোর জন্যই সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। 

বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) বলেছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ঢাকাকে ঘিরে রাখা বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা ও বালু নদীর তীরভূমিতে অবৈধ দখল রোধ, পরিবেশগত উন্নয়ন সাধন, সৌন্দর্য বর্ধন ও জনসাধারণের চলাচলের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের জুলাইয়ে শুরু হওয়া প্রকল্পটি বাস্তবায়নে এ পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে ১৭৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। এ অর্থ ব্যয়ের পর বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ নদীর তীরে প্রকল্পের কাজ অনেকটাই দৃশ্যমান। তবে বালু ও শীতলক্ষ্যার তীরে কাজের তেমন অগ্রগতি হয়নি।

পিলার স্থাপনে যেটুকু কাজ হয়েছে তাতেও অনিয়ম হয়েছে। পাইলিং না করে পিলার বসানোয় বেশ কয়েকটি পিলার উল্টে পড়েছে। এ অবস্থায় প্রকল্প ব্যয় ৩৩৩ কোটি টাকা বাড়িয়ে মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানোর প্রস্তাব করা হলে তা একনেকে অনুমোদন পায়।

পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, প্রকল্পের আওতায় ঢাকার সদরঘাট, উত্তরখান, তুরাগ, মোহাম্মদপুর, কামরাঙ্গীরচর, কোতায়ালী, মিরপুর, কেরাণীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, সদর বন্দর, সোনারগাঁও ও গাজীপুর সদর এলাকায় ১৮ দশমিক ২১ লাখ ঘনমিটার মাটি খনন ও অপসারণ করা হবে।

নদীর তীরভূমিতে ৩৩ দশমিক ৮৫ কিলোমিটার, তীরভূমির কলামের ওপর ১৭ দশমিক ৭৫ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে এবং ওয়াকওয়ে সংলগ্ন ৩৫ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার ড্রেন তৈরি হবে। ৮০টি আরসিসি সিঁড়ি বানানো হবে। ১০ দশমিক শূন্য ৪ কিলোমিটার কি-ওয়াল, ২৯১টি বসার বেঞ্চ ৮৫০ মিটার সীমানা প্রাচীর ও ৩৮৫০টি সীমানা পিলার, ৪টি ঘাট, ১৪টি জেটি ও ২৮টি স্পাড, ২ দশমিক ৬৫ কিলোমিটার নদী রক্ষা বাঁধ, ২১ হাজার বর্গমিটার পার্কিং ইয়ার্ড, ৩ দশমিক ৫ কিলোমিটার পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ও ৩টি ইকোপার্ক নির্মাণ করা হবে।

প্রকল্প প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, প্রকল্পটি ২০২২ সালের ৩০ জুনে শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারিত থাকলেও একবছর বাড়িয়ে ২০২৩ সালের ৩০ জুন শেষ করা হবে বলে জানিয়েছে পরিকল্পনা কমিশন।

কমিশন জানিয়েছে, সরকারের ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় দখলদারিত্ব রোধ ও আবর্জনা পরিষ্কারের মাধ্যমে নদীর প্রবাহ বজায় রাখাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম জানিয়েছেন, ‘এটি একটি বড় প্রকল্প। পুরোপুরি বাস্তবায়ন নির্ধারিত সময়ে সম্ভব নয়। প্রকল্পের ব্যয় ও মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। প্রকল্পটি শতভাগ বাস্তবায়ন হলে ঢাকার চার নদীর তীর বিনোদন কেন্দ্রও হবে।

/এফএ/

সম্পর্কিত

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

দুর্গাপূজাকে ঘিরে ব্যস্ত প্রতিমাশিল্পী,  উদযাপনের কিছু শর্ত শিথিল হতে পারে

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

নদীর দখল রোধে আবার পিলার

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

বাউবি’র স্থগিত বিএ ও বিএসএস পরীক্ষা  শুক্রবার শুরু

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

ভাষাসৈনিক আহমদ রফিকের পাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

গুলশানে তিন ফার্মেসিকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা

১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

১৪ নভেম্বর থেকে দাখিল পরীক্ষা শুরু

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

সরকারি কর্মচারীদের প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য হচ্ছে দিবাযত্ন কেন্দ্র

নেদারল্যান্ডস ভ্রমণের শর্ত শিথিল

নেদারল্যান্ডস ভ্রমণের শর্ত শিথিল

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

‘সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে’

সর্বশেষ

নিজ ঘরে রাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ

নিজ ঘরে রাবি শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীতে গ্রেফতার ৫২

‘করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে’

সাক্ষাৎকারে ড. ফেরদৌসী কাদরী ‘করোনা নিয়ে আরও কাজ হলে গবেষণার ক্ষেত্রটা বাড়বে’

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলায় হতাহত ১৩, হামলাকারীর আত্মহত্যা

© 2021 Bangla Tribune