X
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি পর্ব-৩

ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০২১, ১০:১৬

ব্যাংকিং খ্যাতের নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে মাত্রাতিরিক্ত ঋণ ও অনৈতিক সুবিধা দিয়েছে জনতা ব্যাংক। ব্যাংকটির আর্থিক কেলেঙ্কারি নিয়ে বাংলা ট্রিবিউন-এর ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ থাকছে তৃতীয় পর্ব।

নীতিমালা ভেঙে এমকেট্রেড ইন্টারন্যাশনালকে শত কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে জনতা ব্যাংকের যশোরের এম কে রোড করপোরেট শাখা। এতে প্রতিষ্ঠানটির ৬৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের যোজসাজশেই এ অনিয়ম ঘটেছে। সরকারের একটি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানের প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। বাংলা ট্রিবিউনের কাছে পৌঁছা একাধিক প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

তাতে দেখা গেছে, ক্যাশ ক্রেডিট হাইপোথিকেশন-এর (সিসি হাইপ) বিপরীতে কোনও মালামাল নেই। এ ছাড়া লোন এগেইনস্ট ইমপোর্ট মার্চেন্ডাইজ (লিম) ঋণের বিপরীতে মালামাল গোডাউনে না রেখে আত্মসাৎ করা হয়েছে। পাশাপাশি প্লেজ মালামালের গুণগত মান নষ্ট হওয়াতেও ব্যাংকের ক্ষতি হয়েছে।

নিরীক্ষায় ব্যাংকটির ঋণ সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০১৬ মালের ১৮ আগস্টের স্টক রিপোর্ট অনুযায়ী ৯৫টি লিমের বিপরীতে আমদানিকৃত মালামাল গোডাউনে নেই। পণ্য বিক্রির টাকা গ্রাহক ঋণ হিসাবে জমা না করে আত্মসাৎ করেছে। এতে ব্যাংকের ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৪৫ কোটি ২১ লাখ টাকা।

আরও দেখা গেছে, স্টক রিপোর্ট অনুযায়ী সাত কোটি টাকার ঋণসীমার বিপরীতেও কোনও জামানত নেই। জামানতের মালামাল গ্রাহক বিক্রি করে দিয়েছেন।

গ্রাহকের অনুকূলে ১৫ কোটি টাকার সিসি (প্লেজ) ঋণের বিপরীতে সরবরাহকৃত ১৫ কোটি ৫৭ লাখ টাকার মালামালের মধ্যে ১২ কোটি ৯২ লাখ টাকা মূল্যের টিএসপি এবং এমওপি সার ২০১১ ও ২০১২ সালে মজুতকৃত বলে এর গুণগত মান নষ্ট হয়। সবমিলিয়ে তিনটি ঋণ বাবদ গ্রাহকের কাছে ব্যাংকের মোট পাওনা প্রায় সাড়ে ৬৬ কোটি টাকা। এরপরও এমকেট্রেড ইন্টারন্যাশনালের বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি ব্যাংক।

আরও দেখা যায়, গুদামে মালামাল না থাকার পরও ওই গ্রাহককে ঋণ নবায়ন করা হয়েছে। প্রধান কার্যালয় ও আঞ্চলিক কার্যালয় বিষয়টি জেনেও কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। উল্টো প্রতিবছর প্লেজ ঋণ নবায়ন করেছে।

নথিতে আরও বলা হয়েছে, আমদানিকৃত মালামাল ব্যাংকের গুদামে না রেখে শাখার কর্মকর্তারা চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিয়েছেন।

জবাবে জনতা ব্যাংক বলেছে, ২০১৭ সালের ১ ফেব্রুয়ারি পর্ষদের ৪৬০তম সভায় অনুমোদন এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০১৭ সালের ২ মার্চের অনাপত্তিক্রমে ৪৮টি কিস্তিতে পরিশোধের শর্তে গ্রাহকের লিম দায় পুনঃতফসিল করা হয়।

গ্রাহক নিয়মিত কিস্তি পরিশোধ না করায় ঋণটি বিএল শ্রেণিকৃত হয়। সিসি (হাঃ) ঋণের মালামালের মালিকানা যেহেতু গ্রাহকের, তাই মালিক তা বিক্রি করে দেয়। গ্রাহকের প্লেজ গুদামে রক্ষিত মালামাল বিক্রি করে ঋণ হিসাবে জমা করা হয়।

ব্যাংকটির এমন জবাবে সন্তুষ্ট নয় নিরীক্ষা দল। তারা জানায়, মালামাল আত্মসাতের জন্য গ্রাহকের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের না করে পুনঃতফসিল করা ঠিক হয়নি। এমনকি দায়ীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থাও নেওয়া হয়নি।

সিক্স সিজনসের কাছে ২০০ কোটি
অধিগ্রহণকৃত ঋণ বারবার পুনঃতফসিলের সুবিধা দিয়েও মেসার্স সিক্স সিজনস অ্যাপার্টমেন্ট লিমিটেডকে দেওয়া ঋণের প্রায় দুই শ’ কোটি টাকা আদায় করা যায়নি। দায়ের তুলনায় জামানত কম হওয়ায় এতে ব্যাংকটির ক্ষতি হয়েছে ১৯৭ কোটি ২১ লাখ টাকারও বেশি।

ওই প্রতিষ্ঠান ২০১৩ সালের ১৯ অক্টোবর হতে ব্যবসা শুরু করলেও নিরীক্ষার সময় পর্যন্ত গ্রাহক কোনও টাকা পরিশোধ করেনি।

২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর ২৪ কোটি ৪২ লাখ টাকার পরিবর্তে নামমাত্র ডাউন পেমেন্ট ৩০ লাখ টাকা দিয়ে দ্বিতীয়দফায় ঋণ পুনঃতফসিলি করা হয়। এরপরও গ্রাহকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। 

জনতা ব্যাংক বলেছে, সিক্স সিজনস অ্যাপার্টমেন্ট লিমিটেডের অনুকূলে সকল নিয়ম মেনে ঋণ মঞ্জুর হয়েছে। ঋণ আদায়ের ব্যাপারে গ্রাহকের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করা হচ্ছে।

নিরীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের জবাব গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ গ্রাহকের ব্যবসার অভিজ্ঞতা ও আর্থিক সামর্থ্য যাচাই না করে বাববার পুনঃতফসিল করে কালক্ষেপণ করা এবং ঋণের দায় বাড়ানো আইনসম্মত নয়।

খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবারও ঋণ!
‘স্বভাবগত খেলাপি’ গ্রাহক মেসার্স লিতুন ফেব্রিক্স লিমিটেডকে বারবার পুনঃতফসিল দিয়ে ঋণ মঞ্জুর করেছে জনতা ব্যাংক। এতে ব্যাংকটির প্রায় ৭২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে।

লিতুন ফেব্রিক্সের ঋণের নথি নিরীক্ষা করে দেখা যায়, ২০০২ সালের ২৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত ব্যাংকের পর্ষদের ৭৬৫তম সভায় ওই গ্রাহকের অনুকূলে ১৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকা প্রকল্প ঋণ এবং ২০০৩ সালের ৪ ডিসেম্বর ৫ কোটি টাকা সিসি (হাঃ) ঋণ মঞ্জুর করে পরে সাত কোটি টাকায় বর্ধিত করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ২০১২ সালের সার্কুলার অনুযায়ী ঋণ পুনঃতফসিলের পর নতুন ঋণ পেতে হলে বিদ্যমান স্থিতির ১৫ শতাংশ কম্প্রোমাইজড এমাউন্ট গ্রহণ ছাড়াই ২০১৫ সালের ৫ নভেম্বর  বিএমআরই ঋণ বাবদ ৩৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা ঋণ মঞ্জুর করা হয়। যা ঋণ মঞ্জুরি ক্ষমতা বিধির পরিপন্থী। তদুপরি কম্প্রোমাইজড এমাউন্ট ৩৩ দশমিক ৮৮১ কোটি টাকার পরিবর্তে মাত্র দুই কোটি টাকা আদায় করা হয়।

ঋণ মঞ্জুরের পর বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি না নিয়ে এবং বন্ধকিকৃত সম্পত্তির দলিলায়ন না করে ব্যাংকের এমডির নির্দেশনায় ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর পাঁচ কোটি টাকা এবং একই বছরের ১ ডিসেম্বর আট কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়। বিতরণকৃত ঋণের দায়ভার ব্যবস্থাপনা পরিচালক এড়াতে পারেন না বলেও নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

জনতা ব্যাংক বলেছে, গ্রাহকের আবেদন, ক্রেডিট কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে পর্ষদে লিতুন ফেব্রিক্স লিমিটেডের অনুকূলে ডাউনপেমেন্ট ও কম্প্রোমাইজড এমাউন্ট গ্রহণের বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি গ্রহণ সাপেক্ষে ঋণ মঞ্জুর করা হয়।

পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রবিধি ও নীতি বিভাগ বিশেষ বিবেচনায় নিতুন ফেব্রিক্সের অনুকূলে নতুন ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে কম্প্রোমাইজড এমাউন্ট গ্রহণের পরামর্শ দেয়। এক্সিট পলিসির আওতায় সুদ মওকুফের জন্য আবেদন করেছে গ্রাহক, যা প্রক্রিয়াধীন।

নিরীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনাপত্তি গ্রহণ করা হয়েছে কিনা সে সম্পর্কে কোনও মন্তব্য দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের যে সূত্র উল্লেখ করা হয়েছে তারও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। প্রায় ১৬ মাস পার হলেও ঋণের অর্থ আদায়ের অগ্রগতি সম্পর্কে নিরীক্ষাকে জানায়নি ব্যাংক।

অনিয়মগুলোর বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর অগ্রিম অনুচ্ছেদ জারি করা হয় এবং তাগিদপত্র দেওয়া হয়। ২০১৯ সালের ১৮ মার্চ সচিব বরাবর আধাসরকারি পত্র দেওয়া হলেও জবাব পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কথা বলতে পারবো না।’

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘অডিট অধিদফতর এই অভিযোগ দিয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকেরও নিজস্ব অডিট উইং রয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক যখন কোনও ব্যাংকে অডিটে যায় তখন এক্সটারনাল-ইন্টারনাল অডিট সব দেখে। এরপর পদক্ষেপ নেয়।’

/এফএ/
টাইমলাইন: জনতা ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি
০৫ আগস্ট ২০২১, ১৫:০০
ঋণগ্রহীতার গুদামেই জামানত, খেলাপি প্রতিষ্ঠানকে আবার ঋণ!

সম্পর্কিত

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৩৬

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরে ১ হাজার ৬৫০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগ নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। এর ফলে ১ হাজার ৬৫০ জনের নিয়োগ বহাল রইলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। 

রিটকারীদের আবেদন খারিজ করে সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ। অন্যদিকে আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। 

এর আগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে অন্তত ২০টি রিটে জারি করা রুল খারিজ করে দেন। পরে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন রিটকারীরা। 

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারি ১ হাজার ৬৫০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সব ধরনের পরীক্ষা শেষে ২০২০ সালের ১৭ জানুয়ারি ফলাফল প্রকাশ করা হয়। কিন্তু এতে কোটা পদ্ধতি সঠিকভাবে অনুসরণ না করে প্রাথমিক ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে উল্লেখ করে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক বরাবরে আবেদন করেন মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ৩৪ প্রার্থী। এতে ফল না পেয়ে মো. রাশেদুল ইসলামসহ চাকরিপ্রার্থী ৩৪ জন হাইকোর্টে বেশ কয়েকটি রিট দায়ের করেন।

/বিআই/ইউএস/

সম্পর্কিত

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

পাসপোর্ট সংশোধনের সুযোগ চেয়ে মানববন্ধন

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:২৪

জাতীয় পরিচয়পত্র ও শিক্ষা সনদের সঙ্গে মিল রেখে পাসপোর্ট সংশোধনের সুযোগ করে দেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত ভুক্তভোগীরা। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে ভুক্তভোগীরা জানান, গত কয়েক বছর যাবৎ পাসপোর্টের সংশোধন করার প্রচেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হওয়ায় তাদের জরুরি কাজ ও স্বাভাবিক জীবনযাপন জটিল হয়ে পড়েছে। ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়াসহ সরকারি দফতরগুলোতেও নিজের পরিচিতি নিয়েও বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। অনেকে দেশের বাইরে উচ্চশিক্ষার জন্য চাইলেও যেতে পারছেন না বলেও অভিযোগ করেন তারা।

কুষ্টিয়া থেকে আসা আবুল হোসেন নামে এক ভুক্তভোগী জানান, দালালের মাধ্যমে তিনি পাসপোর্ট করান। পরে তাকে নামজনিত ঝামেলায় পড়তে হয়েছে। দুই বছর ধরে তিনি এই সমস্যা সমাধানে দ্বারে-দ্বারে ঘুরেও কোনও সুরাহা করতে পারেননি। বর্তমানে তার ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর্যায়ে।

মানববন্ধন থেকে দাবি জানানো হয়, জাতীয় পরিচয়পত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের তথ্যের সাথে মিল রেখে পাসপোর্ট সংশোধনের সুযোগ প্রদান করা হোক।

মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মসূচিতে প্রায় ৭০ জন ভুক্তভোগী উপস্থিত উপস্থিত ছিলেন।

/জেডএ/ইউএস/

সম্পর্কিত

পাসপোর্ট অধিদফতরের দুই কর্মকর্তাকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

পাসপোর্ট অধিদফতরের দুই কর্মকর্তাকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

বিআরটিএ ও পাসপোর্ট অফিসে র‍্যাবের অভিযান: ৫১ দালাল আটক

বিআরটিএ ও পাসপোর্ট অফিসে র‍্যাবের অভিযান: ৫১ দালাল আটক

পাসপোর্ট অধিদফতরের অক্ষমতা: প্রবাসীদের ভোগান্তির শেষ হবে কবে?

পাসপোর্ট অধিদফতরের অক্ষমতা: প্রবাসীদের ভোগান্তির শেষ হবে কবে?

বিদেশে একে একে বন্ধ হচ্ছে পাসপোর্ট সেবা!

বিদেশে একে একে বন্ধ হচ্ছে পাসপোর্ট সেবা!

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫০

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক গাড়িচালক আব্দুল মালেককে অস্ত্র আইনের মামলার ‍দুটি ধারায় ১৫ বছর করে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। দুই ধারার সাজা একসঙ্গে অর্থাৎ ১৫ বছরের কারাভোগ করবেন তিনি। তবে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ‘ন্যায় বিচার পাননি’ বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলমের আদালত এ রায় ঘোষণা করেন। রায় শেষে তাকে আবারও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

আদালত থেকে বের হওয়ার সময় আব্দুল মালেক সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে বলেছেন, ‘আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। র‌্যাব আমার বাসা থেকে কোনও কিছুই পায়নি। আমি ন্যায়বিচার পাইনি, আমি মিথ্যা মামলায় জেল খাটবো। কোনও অস্ত্র পায়নি আমার বাসা থেকে।

আদেশের দিন আদালত প্রাঙ্গণে উপস্থিত ছিলেন মালেকের স্বজনরা। রায় ঘোষণার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তারা। আর মামলার রায়ে ‘অসন্তোষ’ প্রকাশ করে উচ্চ আদালতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তার আইনজীবীরা।

/এমএইচজে/ইউএস/

সম্পর্কিত

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:২০

কুমিল্লা-৭ আসনের উপ-নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত।

আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কুমিল্লার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার একক প্রার্থী হওয়ায় ডা. প্রাণ গোপালকে বিজয়ী ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. দুলাল তালুকদার বলেন, ১৯ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল। জাতীয় পার্টি ও ন্যাপের প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রাণ গোপাল দত্তই ছিলেন। এই অবস্থায় একক প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম চূড়ান্ত করা হয়। যেহেতু একজন প্রার্থী, তাই আর প্রতীক দেওয়ার কোনও বিধান নেই। এই অবস্থায় প্রাণ গোপাল দত্তকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এরপর গেজেট প্রকাশ করার জন্য নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে পাঠানো হবে।

গত ৩০ জুলাই কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মো. আলী আশরাফের মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৭ অক্টোবর ওই আসনে ভোট গ্রহণের কথা ছিল।

/ইএইচএস/ইউএস/

সম্পর্কিত

সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে

সিলেট-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত চেয়ে রিট

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত চেয়ে রিট

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভার মালেকের ১৫ বছরের সাজা

আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৭

স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক গাড়িচালক আব্দুল মালেক ওরফে মালেক ড্রাইভারের বিরুদ্ধে দায়ের করা অস্ত্র আইনের মামলার দুই ধারায় ১৫ বছর করে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তবে তিনি একই সঙ্গে এই সাজা ভোগ করবেন বলে রায়ে জানিয়ে দিয়েছেন আদালত, ফলে মোট ১৫ বছরের কারাভোগ করতে হবে তাকে।

আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলমের আদালত এ রায় ঘোষণা করেন। রায় শেষে আব্দুল মালেককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

রায় ঘোষণার সময় আদালত প্রাঙ্গণে উপস্থিত ছিলেন মালেকের স্বজনরা। তারা সাজা শোনার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তারা। এদিকে মামলার রায়ে ‘অসন্তোষ’ প্রকাশ করে উচ্চ আদালতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তার আইনজীবীরা।

আদালত থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় আব্দুল মালেক সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে বলেছেন, ‘আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। র‌্যাব আমার বাসা থেকে কোনও কিছুই পায়নি। আমি ন্যায়বিচার পাইনি, আমি মিথ্যা মামলায় জেল খাটবো। কোনও অস্ত্র পায়নি আমার বাসা থেকে।’

এর আগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলমের আদালত রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেন।

গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর তুরাগ থানাধীন কামারপাড়াস্থ ৪২ নম্বর বামনেরটেক হাজী কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলার বাসা থেকে আব্দুল মালেককে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, পাঁচ রাউন্ড গুলি, দেড় লাখ বাংলাদেশি জাল নোট, একটি ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় র‌্যাব-১ এর পুলিশ পরিদর্শক আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে মামলা দুটি দায়ের করেন।

চলতি বছর ১১ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মেহেদী হাসান চৌধুরী ড্রাইভার মালেককে একমাত্র আসামি করে অস্ত্র মামলায় চার্জশিট আদালতে দাখিল করেন।

পরে গেল ১১ মার্চ ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত আসামি মালেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে মামলাটির বিচারের জন্য আদেশ দেন। 

করোনার প্রাদুর্ভাব কিছুটা কমে গেলে ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায় শেষ করেন। মামলাটির ১৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত।

এরপর ৬ সেপ্টেম্বর মামলাটি ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলম এর আদালতে পরবর্তী বিচার কাজের জন্য বদলির আদেশ দেন মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত।

র‌্যাবের ভাষ্য, তিনি পেশায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিবহন পুলের একজন ড্রাইভার এবং তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত। তিনি ১৯৮২ সালে সর্বপ্রথম সাভার স্বাস্থ্য প্রকল্পে ড্রাইভার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ১৯৮৬ সালে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিবহন পুলে ড্রাইভার হিসেবে চাকরি শুরু করেন।

/এমএইচজে/ইউএস/

সম্পর্কিত

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

১৬৫০ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিয়োগে হাইকোর্টের রায় বহাল

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

কনস্টেবল নিয়োগে জালিয়াতির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি টিআইবি’র

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

ফাঁসানো হয়েছে, দাবি ড্রাইভার মালেকের

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

বিমানবন্দরে ল্যাবের বিষয়ে ইউএই'র সম্মতি আসতে পারে আজ: বেবিচক

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

১৬০ ইউপি নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মালেকের বিরুদ্ধে মামলার রায় আজ

ইউপি নির্বাচন অবাধ-নিরপেক্ষ হবে: আশা ইসির

ইউপি নির্বাচন অবাধ-নিরপেক্ষ হবে: আশা ইসির

আইসিটি আইনের মামলায় বিএনপি সমর্থিত ১১ আইনজীবীর জামিন

আইসিটি আইনের মামলায় বিএনপি সমর্থিত ১১ আইনজীবীর জামিন

নট ফর সেল ক্লাব: মধু পূর্ণিমায় উন্মুক্ত হচ্ছে ‘বুদ্ধ’

নট ফর সেল ক্লাব: মধু পূর্ণিমায় উন্মুক্ত হচ্ছে ‘বুদ্ধ’

নকল ওষুধসহ গ্রেফতার ৩

নকল ওষুধসহ গ্রেফতার ৩

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাবরের আত্মপক্ষ সমর্থন ২১ সেপ্টেম্বর

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাবরের আত্মপক্ষ সমর্থন ২১ সেপ্টেম্বর

সাংবাদিক রোজিনার পাসপোর্ট-মোবাইল ফেরতের আবেদন নামঞ্জুর

সাংবাদিক রোজিনার পাসপোর্ট-মোবাইল ফেরতের আবেদন নামঞ্জুর

সর্বশেষ

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপির আন্দোলনের বর্তমান প্রয়াসও নিষ্ফল হবে: ওবায়দুল কাদের

টেকনাফে সংঘাত, দুই কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

টেকনাফে সংঘাত, দুই কেন্দ্রে ভোট স্থগিত

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঠিকভাবে কাজ করানোর দায়িত্ব আমার: এলজিআরডিমন্ত্রী

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঠিকভাবে কাজ করানোর দায়িত্ব আমার: এলজিআরডিমন্ত্রী

পারিশ্রমিকে ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে কঙ্গনা

পারিশ্রমিকে ইতিহাস গড়তে যাচ্ছে কঙ্গনা

জুয়ার আসর থেকে ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৬

জুয়ার আসর থেকে ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৬

© 2021 Bangla Tribune