X
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ৩১ আশ্বিন ১৪২৮

সেকশনস

সবচেয়ে দুষ্প্রাপ্য ফুল

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৮

নাম তার মিডলমিস্ট রেড। রঙটা কিন্তু লাল নয়, গোলাপি। আবার গোলাপের মতো মনে হলেও বেশ খানিকটা অমিলও আছে। বলা হয়, পরিচিত ফুলগুলোর মধ্যে এটিই সবচেয়ে দুষ্প্রাপ্য। পৃথিবীর মাত্র দুটো জায়গায় পাওয়া যাবে এটি-নিউ জিল্যান্ড ও যুক্তরাজ্য।

১৮০৪-০৫ সালের দিকে চীনে এ ফুল প্রথম আবিষ্কার করেন জীববিজ্ঞানী জন মিডলমিস্ট। তার নামেই রাখা হয় ফুলের নাম। কিন্তু আঁতুরঘর চীন থেকেই ধীরে ধীরে হারিয়ে যায় ফুলটি। পরে এটাকে বিশেষভাবে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এখন বেশ কিছু মিডলমিস্ট আছে ইংল্যান্ডের চিসউইক হাউস অ্যান্ড গার্ডেনস-এ। আর আছে নিউ জিল্যান্ডের ওয়েইটাংগি শহরের ট্রিটি হাউসে।

ফুলপ্রেমীরা হা-পিত্যেশ করেন, আহা যদি একখানা ডাল পাওয়া যেতো! তবে বিশেষ অনুরোধ ও বিশেষ দামে মিডলমিস্টের ডাল দেওয়া হয়েছে কয়েকটি দেশকে। এর মধ্যে সৌদি আরবের রিয়াদে অবস্থিত রাফাল ভবনেও গেছে এর একটি ডাল। যা থেকে ইতোমধ্যে শেকড় গজিয়েছে বলেও জানা গেছে।

এখন এ ফুলগাছের একটি ডালের দাম ঠিক জানা না গেলেও শ’ খানেক বছর আগে বিক্রি হতো প্রায় ৪৪০০ ডলারে (প্রায় তিন লাখ ৮৭ হাজার টাকা)।

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

আপডেট : ১০ অক্টোবর ২০২১, ২১:১০

তুরস্কের উত্তর-পশ্চিমের শহর ইনেগোল। বেহান মুতলুর বাড়ি সেখানেই। রাতে বন্ধুর সঙ্গে মদ গেলার পর ৫১ বছর বয়সী মুতলুর মনে হলো এবার বনবাসে চলে যাওয়া যায়। সিদ্ধান্তে অটল রইলেন। পাশেই বিস্তৃর্ণ জঙ্গল। সেখানে গিয়ে একটা ঘরও পেলেন যুৎসই। এরপর হারিয়ে গেলেন ঘুমের অতলে। এদিকে স্বামী রাতে ফেরেনি বলে থানায় হাজির মুতলুর স্ত্রী। অনুরোধ জানালেন ‘নিখোঁজ’ স্বামীকে খুঁজে বের করার।

ইনেগোল, তুরস্ক

পরদিন ভোরে ওই জঙ্গলেই শুরু হলো খোঁজাখুঁজি। ততক্ষণে ঘুম ভাঙে মুতলুর। বেরিয়ে দেখেন একদল লোক কাকে যেন খুঁজছে। সামাজিক দায়বদ্ধতার কথা ভেবে নিজেও যোগ দিলেন ওই দলে। এভাবে কেটে গেলো প্রায় আধাঘণ্টা। সবাই যখন ‘মুতলু’ বলে চিৎকার করছে তখন হুঁশ ফেরে তার। জানতে চাইলেন, লোকজন কোন মুতলুকে খুঁজছে। লোকজন জানালো— ‘বেহান মুতলুর সন্ধানে আছি।’ তারপর?

টি-২৪ নামের স্থানীয় এক গণমাধ্যমকে মুতলু বললেন, ‘নিজের নামটা শোনার পর পিঠ দিয়ে যেন শীতল স্রোত বয়ে গেলো। বললাম, আমিই বেহান মুতলু। কিন্তু ওরা আমার কথা বিশ্বাসই করলো না। তারা আমাকে খুঁজেই চললো! পরে আমার বন্ধু মেসুত যখন এলো তখন ঘটনা পরিষ্কার হয়।’

 

সূত্র: এপি

/এফএ/

সম্পর্কিত

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

আপডেট : ০৯ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩৮

২০০৬ সালে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই হাত হারান পোল্যান্ডের বারতেক ওস্তালোস্কি। বয়স তখন ২০ বছর। স্বপ্ন ছিল আন্তর্জাতিক মানের কার রেসার হবেন। কিন্তু দুহাত হারিয়ে যেখানে গাড়ি চালানোর কথাই ভাবা যায় না, সেখানে চালাবেন স্পোর্টস কার! অবশ্য স্বপ্নের কাছে বশ্যতা স্বীকার করলো ‘অসম্ভব’ শব্দটি। বারতেক এখন ট্র্যাকে নিয়মিত রেসিং কার চালাচ্ছেন। এক পায়ে সামলাচ্ছেন স্টিয়ারিং হুইল, অন্য পায়ে অ্যাকসিলারেটর ও ব্রেক।

‘দুর্ঘটনার পর একটা সমাধান খুঁজছিলাম। পোল্যান্ডের এমন একজনের কথা শুনেছিলাম, যার দু’হাত নেই। এও শুনলাম সে নাকি অবলীলায় রাস্তায় গাড়ি চালাচ্ছে পা দিয়ে। তার সঙ্গে দেখা করতেই আমার স্বপ্নটা প্রাণ ফিরে পেয়েছিল।’ বিজনেস ইনসাইডারকে জানালেন বারতেক।

এরপর চলে টানা তিন বছরের কঠিন প্রশিক্ষণ। নিজের মতো করে সাজিয়ে নেন একটি নিশান স্কাইলাইন জিটি-আর স্পোর্টস কার।

তিন বছরেই পায়ের ওপর ভরসা করে নেমে পড়েন রেসিংয়ে। পোলিশ রেসিং সার্কিটে মোটামুটি নিজের একটা অবস্থানও তৈরি করেন বারতেক ওস্তালোস্কি। এরপর কার রেসিংয়ের কঠিন চ্যালেঞ্জ খ্যাত ড্রিফ রেসিংয়েও নাম লেখান। হাতওয়ালা চালকরাই যে রেসিংয়ে হিমশিম খান, সেখানে বারতেক পা দিয়ে ড্রিফটিংও শিখে ফেললেন তরতর করে। ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাত পোলিশ ড্রিফটিং চ্যাম্পিয়নশিপ-এ ৫০ জনের মধ্যে হলেন নবম। তার আগে আন্তর্জাতিক চেক ড্রিফট সিরিজেও হয়েছিলেন চ্যাম্পিয়ন।

 

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অনেক কাজের সানগ্লাস

আপডেট : ০৮ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩৬

ফ্যাশন নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট চলছেই। আর বিচিত্র ফ্যাশনের প্রশ্নে বরাবরই এগিয়ে থাকে জাপানিরা। ছবিতে যেটা দেখতে পাচ্ছেন, সেটা আদতে করোনাভাইরাস ঠেকানোর মাস্ক নয়—আগাগোড়া একখানা সানগ্লাস। জাপানি যে প্রতিষ্ঠান এ সানগ্লাস তৈরি করেছে তার নামটাও অদ্ভুত—জেডজিএইচওয়াইবিডি।

প্রচণ্ড বাতাস কিংবা ধুলোবালি, দুটোই ঠেকাতে পারবে এই গ্লাস। উচ্চমানসম্পন্ন পলিকারবোনেট দিয়ে তৈরি চশমাটির আকার সাড়ে ১৬ বাই ১৪ সেন্টিমিটার। এমনকি এতে কুয়াশাও আটকাবে না। এমনকি এটি শুধু চোখ নয়, নাক ও মুখকেও বাঁচাবে ক্ষতিকর অতিবেগুণী রশ্মি থেকে।

সূর্যের অতিবেগুণী রশ্মি থেকে বাঁচাবে এ চশমা

এ ধরনের গ্লাস তৈরির একটা উদ্দেশ্যও আছে বৈকি। নির্জনে হাঁটাচলায় কেউ যেন ছিনতাইকারীর স্প্রের শিকার না হন সেটাও ভেবেছেন সানগ্লাসটির নির্মাতারা। সৈকতে যাওয়ার পর যদি দেখেন সানস্ক্রিন আনতে ভুলে গেছেন, তাতেও কাজে দেবে এ চশমা। আবার কোনও সেলিব্রেটি যদি নির্ঝঞ্জাটভাবে রাস্তায় হাঁটাহাঁটি করতে চান, এ চশমা পরলেই হলো।

ধুলাবালি থেকে গোটা মুখটাকেই বাঁচাবে এ চশমা  

আমাজন জাপানে এ চশমা বিক্রি হচ্ছে ২০০০ ইয়েনে। বাংলাদেশি টাকায় যা দেড় হাজার টাকার কিছু বেশি। কিনতে চাইলে এর সঙ্গে অবশ্য যোগ হবে শিপিং খরচটাও।

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৩৫

ঘটনা লিথুয়ানিয়ার। এক রোগী ভর্তি হলেন পেট ব্যথা নিয়ে। এক্সরে করে হা হয়ে গেলেন ডাক্তাররা। রোগীর পেট লোহালক্কড়ে ঠাসা! এরপর ক্লাইপেডা ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের অস্ত্রোপচার কক্ষে ঝাড়া তিন ঘণ্টা গলদঘর্ম হতে হলো সার্জনদের।

অস্ত্রোপচার করে পেটের ভেতর এটা ওটা পাওয়ার খবর প্রায়ই পাওয়া যায়। কিন্তু এ রোগীর পেট থেকে যে পরিমাণ লোহালক্কড় বের হলো তাতে ভরে গেলো সার্জিকেল থালাবাটি। গুনে দেখা মুশকিল, তাই ডাক্তাররা ওজন করে দেখলেন। কেজিখানেক পেরেক আর নাট-বল্টু গিলেছিলেন ওই লোক।

পেট থেকে উদ্ধারকৃত লোহালক্কড়ের মধ্যে কয়েক মিলিমিটারের নাট থেকে শুরু করে বড় স্ক্রু ও ব্লেডও ছিল। সৌভাগ্য যে, এগুলোর কোনওটি ওই লোকের ভেতরকার নাড়িভুঁড়ির ক্ষতি করেনি।

কেন তিনি এসব গিলেছেন এর উত্তর পাননি ডাক্তাররা। তবে জানা গেলো এক কেজি নাট-বল্টু গিলেছেন মাত্র এক মাসে। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর তাই ওই রোগীর মনের চিকিৎসাও করানো হবে বলে জানা গেলো ক্লাইপেডা হাসপাতালের ফেসবুক পেজে পাওয়া খবরে।  

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২১, ১৬:৩৪

ঘটনা আমেরিকার একটি হাসপাতালের। একটি আঁচিলের অস্ত্রোপচার করতে গিয়েছিলেন মিজ নামের এক নারী। ছুরি-কাঁচিতে ভীষণ ভয় তার। যতই চেতনানাশক দেওয়া হোক না কেন, মাস্ক পরা ডাক্তার আর নার্সদের হাঁটাচলা দেখেই বেচারি হয়ে যান নার্ভাস। কেঁদে ওঠেন ফুঁপিয়ে। তা দেখে ডাক্তাররা বেশ বিরক্তই হয়েছেন বলা যায়, তা না হলে কান্নাকাটির জন্য আলাদা করে ১১ ডলার চার্জ করে বসবেন কেন!

ঘটনা প্রকাশ করে হাসপাতালের বিলের কপি টুইটারে শেয়ার করতেই ভাইরাল হয়ে যায় সেটা। ছি ছি করে ওঠে সবাই। মার্কিন হেলথকেয়ার সিস্টেম নিয়ে আগে থেকেই যারা শাপ শাপান্ত করে আসছিলেন, তারাও পেয়ে গেলেন মওকা। মিজের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে কেউ লিখলেন, ‘কদিন পর দেখা যাবে শ্বাস নেওয়ার জন্য ১ ডলার, কথা বলার জন্য ৫ ডলার, দাঁড়ালে ১০ ডলার, নিজের অস্তিত্বের ফি ২ ডলার এসবও গুনতে হবে।’

আরেকজন লিখলেন, ‘আমেরিকার সেরা আবিষ্কারগুলোর মধ্যে একটা হলো রোগীর চিকিৎসার নামে টাকা খসানোর হাজারো উপায় খুঁজে বের করা।’

 

সূত্র: এনডিটিভি

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

নিজেকেই খুঁজলেন আধাঘণ্টা

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

হাত হারিয়েছেন, স্বপ্ন নয়

অনেক কাজের সানগ্লাস

অনেক কাজের সানগ্লাস

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

পেটের ভেতর এক কেজি লোহালক্কড়!

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

অপারেশন থিয়েটারে কাঁদলেই...

নকল করতে চপ্পল কাণ্ড, অতঃপর ধরা

নকল করতে চপ্পল কাণ্ড, অতঃপর ধরা

যে কাঠ হীরার চেয়েও দামি!

যে কাঠ হীরার চেয়েও দামি!

সুম্বা দ্বীপের নাচুনে গাছ! (ফটোফিচার)

সুম্বা দ্বীপের নাচুনে গাছ! (ফটোফিচার)

সৌদি আরবের রহস্য পাথর (ভিডিও)

সৌদি আরবের রহস্য পাথর (ভিডিও)

এত কঠিন মা!

এত কঠিন মা!

সর্বশেষ

ফেনীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফেনীতে ত্রিমুখী সংঘর্ষ, আহত ৩০

ফরিদা মজিদের কথা

ফরিদা মজিদের কথা

রাজধানীর নিকুঞ্জ থেকে চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার

রাজধানীর নিকুঞ্জ থেকে চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার

দিনে মনোনয়নপত্র জমা, রাতে গুলিতে আ.লীগ প্রার্থীর মৃত্যু

দিনে মনোনয়নপত্র জমা, রাতে গুলিতে আ.লীগ প্রার্থীর মৃত্যু

বাণিজ্য, নিরাপত্তা ও জলবায়ু ইস্যু গুরুত্ব পাবে

প্যারিসে হাসিনা-ম্যাখোঁর বৈঠকবাণিজ্য, নিরাপত্তা ও জলবায়ু ইস্যু গুরুত্ব পাবে

© 2021 Bangla Tribune