X
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

২০০ বছর পর নদীতে নৌকা, আছে মাছও

আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪৫

মানচিত্র থেকে হারিয়েই গিয়েছিল ‘মরা তিস্তা’ আর ঘিরনই। ১৮ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ছিল কেবল নিচুভূমি। মরা নদীতে গড়ে ওঠে বসতি ও স্থাপনা। অবশেষে দখলমুক্ত হয়েছে সেসব। নদীতে এসেছে পানি। দুইশ’ বছর আগের মরা তিস্তা এখন প্রাণবন্ত তিস্তা হয়েছে।

এ নদীর গল্প এ প্রজন্মের বাপ-দাদারা শুনেছিল তাদেরই পূর্বপুরুষদের কাছে। আগে ছিল দুটো নদী। ‍দুটোই হারিয়ে গিয়েছিল। বরেন্দ্র বহুমুখী কতৃপক্ষের (বিএমডিএ) দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর মরা তিস্তা ও ঘিরনই আবার জেগে উঠেছে। দুইশ’ বছর পর আবার সেই নদীতে চলছে নৌকা। জেলেরা ধরছে মাছ। পানিতে চরে বেড়াচ্ছে জলচর পাখি ও হাঁস।

বরেন্দ্র বহুমুখী কর্তৃপক্ষ বলছে এবার শুধু খনন নয়, দুই পাড় সংরক্ষণ ও পরিবেশ উন্নয়নে তীরের পাশে ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছ রোপণ করা হয়েছে।

চলতি বর্ষায় পানিতে থই থই করছে নদীগুলোতে। বেড়েছে বক, পাতি সরালি, মাছরাঙাসহ নানান প্রজাতির পাখির আনাগোনা।

বরেন্দ্র বহুমুখী কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তা আদনান আসিফ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ১৭৭৬ সালের রেনেল মানচিত্রে প্রদর্শিত তিস্তা নদীর একটি শাখা ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ির দক্ষিণ থেকে প্রবাহিত হয়ে বাংলাদেশের নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলা দিয়ে প্রবেশ করে। নদীটি নীলফামারী জেলা পেরিয়ে রংপুরের তারাগঞ্জ, বদরগঞ্জ দিয়ে মিঠাপুকুর উপজেলার শেষভাগে করতোয়ার সঙ্গে মিশেছে।

 মরা তিস্তায় এখন নৌকা ভাসে, ফিরেছে মাছ

 

ইতিহাসবিদ আবু জাহেদ জানান, কাগজপত্র দেখে এবং নদ-নদীর ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ১৭৮৭ সালে রংপুরসহ আশপাশের এলাকাসহ ভারতের একাংশজুড়ে ভয়াবহ ভূমিকম্প ও বন্যা হয়েছিল। যার কারণে গতিপথ বদলে যায় তিস্তার। এতে উত্তরাঞ্চলের নদীগুলো স্বাভাবিক গতিপথ হারায়। মূল তিস্তা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তৈরি হয় মরা তিস্তা। সেটও বিলুপ্ত হয়ে যায় দ্রুত।

পানি শুকিয়ে যেতেই মরা তিস্তা বেদখল হতে থাকে। গড়ে ওঠে বসতি ও স্থাপনা। শুরু হয় চাষাবাদও।

আগে বন্যার সময় চিকলী ও যমুনেশ্বরীর (মরা তিস্তার শাখা) প্রবাহ থাকতো। পরে সেটাও বন্ধ হয়ে যায়। এতে বছরে প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমি জলাবদ্ধতার শিকার হয়। নদী না থাকায় অনেক মৎস্যজীবী বদলে ফেলেন পেশা।

এমন পরিস্থিতিতে নদী উদ্ধার ও দখলমুক্তকরণে পরিকল্পনা শুরু করে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ)। তাদের উদ্যোগে পানির সর্বোত্তম ব্যবহার ও বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের ৫ জেলায় সেচ সম্প্রসারণ প্রকল্পের (ইআইআরপি) মাধ্যমে খাল, ছোট নদী খনন কার্যক্রম শুরু হয়। এরই অংশ হিসেবে বদরগঞ্জের হারিয়ে যাওয়া মরা তিস্তা নদীর প্রবাহ এলাকা শনাক্ত করে চলতি বছর ফেব্রুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত সাড়ে ১৩ কিলোমিটার খনন করা হয়। আর এতেই ফিরে আসে পানি।

এ ব্যাপারে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প রংপুরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান খান জানান, ‘দীর্ঘ দিন সংস্কারের অভাবে অনেক নদী ভরাট হয়ে গেছে। গোচারণভূমি হয়েছে। এখানে পানি বাড়লে বন্যা হতো, ফসলের ক্ষতি হতো। জলাবদ্ধ থাকা জমিগুলো এখন চাষের উপযোগী। মরা তিস্তাও হারানো যৌবন ফিরে পেয়েছে। ২০টি গ্রামের ৫ হাজার হেক্টর জমি চাষ উপযোগী আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নদী ও বিল খননের ফলে এলাকাবাসীর দৈনন্দিন কাজে ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের সুযোগ হয়েছে। স্থানীয়রা নদী উদ্ধারের সুফল ভোগ করছেন। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে নদীর দুপাশে গাছ লাগানো হচ্ছে।’

বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সিনিয়র উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফজলুল হক বলেন, ‘মরা তিস্তা ছিল অস্তিত্বহীন। মানচিত্র ধরে এ নদীর সন্ধান করেছি। অনেকেই এটাকে বাপ-দাদার সম্পত্তি বানিয়ে নিয়েছিল। আর তাই নদী উদ্ধার করে খনন প্রক্রিয়া বেশ চ্যালেঞ্জের কাজ ছিল। আমরা এলাকাবাসীর সঙ্গে একাধিক সভা করেছি। তাদের নদীর গুরুত্ব ও প্রভাব বোঝাতে পেরেছি। তাই তারা জমি ছেড়েছেন। পরে প্রশাসন ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় খনন করা হয়েছে। এখন মানুষ নতুন এ তিস্তার সুবিধা পাবেন যুগ যুগ ধরে।’

বরেন্দ্র কর্তৃপক্ষ বলছে, হারিয়ে যাওয়া ঘিরনই নদীটি করতোয়া নামে রংপুর-দিনাজপুর সীমানা বরাবর ৩৬ কিলোমিটার প্রবাহিত হয়ে বদরগঞ্জের বকসীগঞ্জ ব্রিজের উজানে দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা থেকে প্রবাহিত হয়ে সোনারবান (সোনারবন্ধ) নামে অপর একটি নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। এই মিলিত প্রবাহ ঘিরনই নামে বদরগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণপুর ও লোহানীপাড়া ইউনিয়নের সীমানা দিয়ে প্রবাহিত হয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলার বিনোদনগর ইউনিয়নে করতোয়ার সঙ্গে মিলিত হয়েছে। এর দৈর্ঘ্য ৪৮ কিলোমিটার। চলতি বছর (২০২০-২০২১) এই নদীর ৩ দশমিক ২৬৫ কিলোমিটার পুনঃখনন করা হয়েছে। খনন করা অংশের দুপাড়ে চারটি গ্রামের দৈনন্দিন গৃহস্থালীর কাজে নদীর পানি ব্যবহারের সুযোগ তৈরি হয়েছে।

কালুপাড়া ইউনিয়নের শংকরপুর ডাংগারপাড়ার গ্রামের কৃষক মোতালেব, আব্বাছ আলীসহ অনেকেই জানালো—‘শুনেছিলাম দাদার দাদার আমলে নদী ছিল। আমরা অনেক মাছ ধরেছি। এখন নদীতে পানি আছে। অথচ কিছু দিন আগেও এটা ছিল খালের মতো। নদীর পাশে যারা চাষ করতাম তাদের জন্য সুবিধা হয়েছে।’

রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নদী গবেষক ও রিভারাইন পিপল বাংলাদেশের পরিচালক অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদ জানান, ‘এই অঞ্চলের কৃষি, জীব বৈচিত্র্য এবং পরিবেশের অভাবনীয় ফল বয়ে আনবে মরা তিস্তার এই পুনরুদ্ধার প্রকল্প। দেশের প্রত্যেকটি নদীকে বাঁচাতে সরকারের পক্ষ থেকে আরও জোরালো উদ্যোগ নিতে হবে।’

 

/এফএ/

সম্পর্কিত

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

নিজ ঘরে মিললো ভ্যানচালকের অর্ধগলিত লাশ 

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪৪

চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে সমশের আলী নামে এক ভ্যানচালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাতে উপজেলার সীমান্ত ইউনিয়নের ধান্যখোলা গ্রামের তার বসতঘরে বৈদ্যুতিক তারের সঙ্গে পেচানো অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করা হয়।

ভ্যানচালক সমশের আলী (৪৫) জীবননগর সীমান্ত ইউনিয়নের ধান্যখোলা স্কুল পাড়ার মল্লিক মন্ডলের ছেলে।

পুলিশ জানায়, ভ্যানচালক সমশের আলী পরিবারের সদস্যদের থেকে আলাদা হয়ে একা একা থাকতো। সে সেখানে অনেকটা অরক্ষিতভাবে হাই ভোল্টেজ বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবহার করে রান্নার কাজ করতো। এছাড়া ইলেকট্রিক ভ্যানেও চার্জ দিতো। ধারণা করা হচ্ছে ওই সংযোগে অসাবধানতাবশত জড়িয়ে তার মৃত্যু হয়। 

তবে পরিবারের সঙ্গে না থাকায় কখন এবং কীভাবে  তার মৃত্যু হয়েছে তা কেউ সঠিকভাবে বলতে পারছে না। 

জীবননগর থানার ওসি আব্দুল খালেক বলেন, স্বজনদের কোনও অভিযোগ না থাকায় লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

/টিটি/

সম্পর্কিত

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

পুনরায় হামলা-লুটপাটের আতঙ্কে গ্রাম ছাড়ছেন তারা

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

আবাসিক হোটেলে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ, স্বামী আটক

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

বাগেরহাটে ১৮টি হরিণের চামড়াসহ আটক ২

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

মাগুরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৪

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার দুর্গম বালু চরের কাশবনে ছবি তোলার কথা বলে এক কিশোরীকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত প্রেমিকসহ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে সাঘাটা উপজেলার ভাঙ্গামোড় এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

গ্রেফতাররা হলেন কথিত প্রেমিক মাহবুব রহমান (২১) ও তার বন্ধু পলাশ মিয়া (২০)। তাদের বাড়ি সাঘাটা উপজেলায়। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ফুলছড়ি থানার ওসি কাওসার আলী। তিনি বলেন, গাইবান্ধা জেলা শহরের এক কিশোরীর সঙ্গে সাঘাটা উপজেলার মাহবুব নামের এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। শুক্রবার বিকালে মাহবুব তার বন্ধু পলাশকে নিয়ে মেয়েটির সঙ্গে দেখা করতে আসে। পরে মেয়েটিকে ফুসলিয়ে ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া চরে নিয়ে যায়।

এ সময় দুর্গম চরের কাশবনে ছবি তোলার সময় প্রেমিক মাহবুব প্রথমে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। পরে তার বন্ধু পলাশও কিশোরীকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেয়।

ওসি আরও জানান, ঘটনা ধামাচাপা থাকলেও শনিবার রাতে বিষয়টি জানাজানি হয়। পরে মেয়েটির মা থানায় অভিযোগ দিলে অভিযান চালিয়ে প্রেমিক মাহবুব ও তার বন্ধু পলাশকে গ্রেফতার করা হয়।

রাতেই কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে তার মা বাদী হয়ে ফুলছড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ডভুক্ত করা হয়েছে। রবিবার (১৭ অক্টোবর) সকালে গ্রেফতার দুই আসামিকে আদালতে নেওয়া হবে বলেও জানান ওসি।

/টিটি/

সম্পর্কিত

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

স্বামীকে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

মুহিবুল্লাহ হত্যা: বান্দরবানে রোহিঙ্গা যুবক আটক

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২৩:০৫

আলোচিত রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার সন্দেহে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে আবদু নবী (৪০) নামের এক রোহিঙ্গা যুবক‌কে আটক করা হয়েছে। সে কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প-১ এর বাসিন্দা ইমাম হোসেনের ছেলে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে এনএসআই-এর সদস্যরা উপজেলার বিছামারা এলাকা থেকে তাকে আটক করে পুলিশে দেয়। আটক আবদু নবী মহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ও সশস্ত্র রোহিঙ্গা মুসলিম গোষ্ঠী আরসার সদস্য বলে সন্দেহ করছে গোয়েন্দারা।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে আরসার সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকারও করেছে। সম্প্রতি রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডের পর জড়িতদের আটকে ক্যাম্প এলাকায় বিশেষ অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ধারণা করা হচ্ছে, গ্রেফতার এড়াতে আরসার এই সদস্য বান্দরবা‌নের নাইক্ষ্যংছড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল।

নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ওসি (তদন্ত) মো. শরীফ ইবনে আলম জানান, আবদু নবী নামে এক আসামিকে নাইক্ষ্যংছড়ি থানা থেকে উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে সে আরসার সদস্য কি-না জানেন না তিনি।

/এফআর/

সম্পর্কিত

কুমিল্লার সেই ভিডিও আমাদের কাছে আছে: হাছান মাহমুদ

কুমিল্লার সেই ভিডিও আমাদের কাছে আছে: হাছান মাহমুদ

কুমিল্লায় বাস-সিএনজি সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ জনের

কুমিল্লায় বাস-সিএনজি সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ জনের

পেঁয়াজ আমদানি নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠক

পেঁয়াজ আমদানি নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠক

‘ঘটনা ঘটান আপনারা আর বলেন বিএনপির হাত আছে’

‘ঘটনা ঘটান আপনারা আর বলেন বিএনপির হাত আছে’

নিখোঁজের ৯ ঘণ্টা পর বুড়িগঙ্গা থেকে মাদ্রাসাছাত্রের লাশ উদ্ধার

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২৩:৩৯

ফতুল্লার বরফকল এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীতে পড়ে নিখোঁজ হওয়া আতিফ আফনানের (১২) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যায় লাশটি উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা।

এর আগে সকাল ৯টায় সে নিখোঁজ হয়। আফনান বাবা-মায়ের সঙ্গে ফতুল্লার হরিহরপাড়া আমতলা এলাকায় থাকতো। সে ধর্মগঞ্জ ইসলামীয়া আরাবিয়া দাখিল মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, শনিবার সকালে সে মাদ্রাসা থেকে সহপাঠীদের সঙ্গে নদীর তীরে ঘুরতে যায়। এরপর নদীতে নোঙর করা এক বাল্কহেড থেকে আরেক বাল্ডহেডে লাফিয়ে যাওয়ার সময় পড়ে গিয়ে নিখোঁজ হয়। পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল তল্লাশি চালিয়ে সন্ধ্যায় লাশ উদ্ধার করে।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি মো. রাকিবুজ্জামান ঘটনাটি নিশ্চিত করে বলেন, ‘লাশ উদ্ধার করে ওই ছাত্রের পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

টিকিট ছাড়া ট্রেনে ওঠায় ৩২৮ যাত্রীকে জরিমানা

টিকিট ছাড়া ট্রেনে ওঠায় ৩২৮ যাত্রীকে জরিমানা

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

‘মোস্তফা’ পুরস্কার নিতে ইরান যাচ্ছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী

‘মোস্তফা’ পুরস্কার নিতে ইরান যাচ্ছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক ব্যক্তিকে হত্যা

কুমিল্লার সেই ভিডিও আমাদের কাছে আছে: হাছান মাহমুদ

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:৫৮

কুমিল্লার ঘটনার পেছনে বিএনপির ইন্ধন ছিল বলে অভিযোগ করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মির্জা ফখরুল বলেছেন সরকার নাকি দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তার এই বক্তব্যের মাধ্যমে প্রমাণিত হয় কুমিল্লার ঘটনার পেছনে তাদের ইন্ধন ছিল। এই কথার মধ্য দিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব কি বাংলাদেশের সব মানুষকে বোকা ভেবেছেন। তিনি মনে করেছেন এই কথা বলে দেশের মানুষকে বোকা বানাবেন। তার কথায় দেশের মানুষ যেমন হাসছে, হনুমানও হাসে।

শনিবার (১৬ অক্টোবর) বিকালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নুরুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন তপু। সাধারণ সম্পাদক শিমুল গুপ্তের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রেজাউল করিম।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আজকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে, কুমিল্লার ঘটনায় কারা মিছিল বের করেছে, সেই ভিডিও ফুটেজ আমাদের কাছে আছে। তারা কোন দলের সমর্থক, তারা কোন মতাদর্শে বিশ্বাস করে সেগুলো বের করে সবার সামনে প্রকাশ করবো। এদেশের শান্তি-শৃঙ্খলা কোনোভাবেই নষ্ট হতে দেবো না।

তিনি বলেন, যারা বিশৃঙ্খলার সঙ্গে যুক্ত ছিল, এখনও যুক্ত আছে, ফেসবুকে যারা অপপ্রচার চালিয়েছে কিংবা চালাচ্ছে, সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কারা ঘটনা ঘটিয়েছে তা পরিষ্কার হয়ে যাবে, তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে সরকার বদ্ধপরিকর।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার প্রশংসা পছন্দ হয়নি বিধায় নানা ধরনের ষড়যন্ত্র হয়। বিএনপি-জামায়াত রাজনৈতিকভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে নানা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছে। কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটিয়ে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক উসকানি দেওয়া হয়েছে, এর পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল। এর পেছনে বিএনপি-জামায়াতসহ ধর্মান্ধ গোষ্ঠী যুক্ত। তারা এই ঘটনা ঘটিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চেয়েছিল। শেখ হাসিনার সরকার বিশৃঙ্খলা দমন করেছে।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার অনুরোধ জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতায় থাকলে বিনয়ী হতে হয়। ছাত্রলীগের তরুণ ভাইবোনদের বিনয়ী হতে হবে। কারণ উদ্যত আচরণ কেউ পছন্দ করে না। পাশাপাশি লেখাপড়ায় মনোযোগ দিতে হবে। লেখাপড়া বাদ দিয়ে শুধু ছাত্রলীগের কাজ করার প্রয়োজন নেই।

বর্তমানে বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখে পাকিস্তান দীর্ঘশ্বাস ফেলে জানিয়ে হাছান মাহমুদ  বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়নের প্রশংসায় বিশ্বময় পঞ্চমুখ। এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা আগেই অর্জন করার জন্য জাতিসংঘ আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে পুরস্কৃত করে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী স্বীকার করে বলেছেন মানব উন্নয়ন, সামাজিক ও অর্থনৈতিকসহ সব সূচকে আজকে বাংলাদেশ পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে। মানব উন্নয়ন, সামাজিক সূচকসহ মাথাপিছু আয়ের ক্ষেত্রে আমরা ভারতকেও পেছনে ফেলেছি।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ নেতা স্বজন কুমার তালুকদার, আবুল কাশেম চিশতী, শাহজাহান সিকদার, নজরুল ইসলাম তালুকদার, মুহাম্মদ আলী শাহ, ডা. মোহাম্মদ সেলিম, আকতার হোসেন খাঁন, শফিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার, গিয়াস উদ্দিন খাঁন স্বপন ও যুবলীগের সভাপতি আরজু সিকদার প্রমুখ।

/এএম/

সম্পর্কিত

মুহিবুল্লাহ হত্যা: বান্দরবানে রোহিঙ্গা যুবক আটক

মুহিবুল্লাহ হত্যা: বান্দরবানে রোহিঙ্গা যুবক আটক

কুমিল্লায় বাস-সিএনজি সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ জনের

কুমিল্লায় বাস-সিএনজি সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ জনের

পেঁয়াজ আমদানি নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠক

পেঁয়াজ আমদানি নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈঠক

‘ঘটনা ঘটান আপনারা আর বলেন বিএনপির হাত আছে’

‘ঘটনা ঘটান আপনারা আর বলেন বিএনপির হাত আছে’

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

হিলি স্থলবন্দরে ৩ মাসে রাজস্ব ঘাটতি ২৩ কোটি টাকা

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে বজ্রাঘাতে ২ জনের মৃত্যু

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

৪২ টাকার নিচে নামছে না পেঁয়াজের দাম

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

শুধু বাহবায় বড় ক্রিকেটার হওয়া যায় না, সাদিদ প্রসঙ্গে তার মা 

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

কুমিল্লার ঘটনায় কাদের যোগসাজশ তা বের হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

বৃষ্টি উপেক্ষা করে সোনাপাহাড়ে ৩ জনের জানাজায় হাজারো মানুষ

বৃষ্টি উপেক্ষা করে সোনাপাহাড়ে ৩ জনের জানাজায় হাজারো মানুষ

আজ রুদ্রের জন্মদিন

আজ রুদ্রের জন্মদিন

এবার উপকূল এক্সপ্রেসে পাথর নিক্ষেপ, শিশুসহ আহত ৩ 

এবার উপকূল এক্সপ্রেসে পাথর নিক্ষেপ, শিশুসহ আহত ৩ 

সর্বশেষ

খালেদা জিয়াকে দেখে এলেন মির্জা ফখরুল, দুপুরে সংবাদ সম্মেলন

খালেদা জিয়াকে দেখে এলেন মির্জা ফখরুল, দুপুরে সংবাদ সম্মেলন

নিজ ঘরে মিললো ভ্যানচালকের অর্ধগলিত লাশ 

নিজ ঘরে মিললো ভ্যানচালকের অর্ধগলিত লাশ 

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

ছবি তোলার কথা বলে প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে কাশবনে ধর্ষণ 

টিকায় ভালো পরিকল্পনার ঘাটতি আছে: অধ্যাপক ডা. বে-নজির

টিকায় ভালো পরিকল্পনার ঘাটতি আছে: অধ্যাপক ডা. বে-নজির

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

বাঙালিদের শুভেচ্ছা নিয়ে জাপানে রওয়ানা দেন বঙ্গবন্ধু

© 2021 Bangla Tribune