X
শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সেকশনস

মুহিবুল্লাহকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিল রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের শীর্ষ নেতারা

আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৫৯

রোহিঙ্গাদের শীর্ষনেতা মো. মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে দুই মিনিটে। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা করেছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ত ১৯ জন। সরাসরি অংশ নেয় পাঁচ জন। পাহারায় ছিল তিন জন। এদের চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের একজন আজিজুল হক। গ্রেফতারের পর ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আজিজুল আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নকে জানিয়েছে, মুহিবুল্লাহ উঠ বলেই তার বুকে চারটি গুলি চালিয়েছে রোহিঙ্গা অস্ত্রধারীরা। ওই সময় পাহারায় ছিল আজিজুল।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর এই হত্যাকাণ্ড ঘটে। শনিবার (২৩ অক্টোবর) ভোরে উখিয়ার কুতুপালং লাম্বাশিয়া লোহার ব্রিজ এলাকা থেকে একটি ওয়ান শুটারগানসহ আজিজুলকে গ্রেফতার করা হয়। তার স্বীকারোক্তিতে মোহাম্মদ রশিদ প্রকাশ মুর্শিদ আমিন, মো. আনাছ ও নুর মোহাম্মদকে গ্রেফতার করা হয়।

এ নিয়ে দুপুর ১টায় ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক ও পুলিশ সুপার (এসপি) নাঈমুল হক সংবাদ সম্মেলন করে ঘটনার বিস্তারিত জানান। সাংবাদিকদের নাঈমুল হক বলেন, মুহিবুল্লাহকে হত্যার পরপরই ছায়াতদন্ত শুরু করে এপিবিএন। তদন্তে ১৯ জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেয় পাঁচ জন। হত্যার দুই দিন আগে মরগজ পাহাড়ে বৈঠক করেছিল তারা।

আজিজুল হক জিজ্ঞাসাবাদে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নকে জানায়, ২৭ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে লাম্বাশিয়ার মরগজ পাহাড়ে বৈঠক হয়। বৈঠকে আজিজুলসহ আরও চার উপস্থিত ছিল। সেখানে মুহিবুল্লাহকে হত্যার জন্য পাঁচ জনকে দায়িত্ব দেয় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের শীর্ষপর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। কারণ হিসেবে বলা হয়, মুহিবুল্লাহ রোহিঙ্গাদের বড় নেতা হয়ে উঠেছে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বিশেষ ভূমিকা রাখায় দিনে দিনে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হয়ে উঠছে। তাকে থামাতে হবে। 

পরিকল্পনা অনুযায়ী ওই দিন এশার নামাজের পর মুহিবুল্লাহকে ঘর থেকে ডেকে আনে রশিদ প্রকাশ মুর্শিদ আমিন। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে কিছু লোক কথা বলবে জানিয়ে তাকে অফিসে নিয়ে আসা হয়। মুহিবুল্লাহ অফিসে আসার বিষয়টি মো. আনাছ ও নুর মোহাম্মদকে জানিয়ে সটকে পড়ে মুর্শিদ। এরপর আনাছ ও নুর মোহাম্মদ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অফিসে আসার সংকেত দেয়। আগেই থেকেই আরটিসিসি অফিস সংলগ্ন সি/৮ ব্লকের পেঁপে বাগানে অবস্থান করেছিল সন্ত্রাসীরা। সংকেত পেয়ে ডি/৮ ব্লকের রাস্তা দিয়ে পাঁচ অস্ত্রধারী মুহিবুল্লাহর কক্ষে প্রবেশ করে। তখন আনাছ, নুর মোহাম্মদ, আজিজুল ও আরও একজন মুহিবুল্লাহর অফিসের দরজায় অবস্থান নেয়। ওই সময় মুহিবুল্লাহর আশেপাশে ১০-১৫ জন রোহিঙ্গা নেতা প্লাস্টিকের চেয়ারে বসেছিলেন।

১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ও পুলিশ সুপার নাঈমুল হকের সংবাদ সম্মেলন

এ সময় অস্ত্রধারীদের একজন বলে মুহিবুল্লাহ উঠ। তখন মুহিবুল্লাহ চেয়ার থেকে উঠে দাঁড়ালে প্রথমে এক অস্ত্রধারী মুহিবুল্লাহর বুকে গুলি চালায়, দ্বিতীয় অস্ত্রধারী দুটি এবং তৃতীয় অস্ত্রধারী একটি গুলি চালায়। গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মুহিবুল্লাহ। 

ঘটনার পরই আজিজুল হক, আনাছ এবং নুর মোহাম্মদসহ পাঁচ অস্ত্রধারী অফিস সংলগ্ন রাস্তা হয়ে পেঁপে বাগান দিয়ে পালিয়ে যায়। গ্রেফতার এড়াতে বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে চলে যায় এবং সবাই মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেয়। হত্যাকাণ্ডের পর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সাঁড়াশি অভিযান চালায় এপিবিএন। ছায়াতদন্ত করে এরই মধ্যে ঘটনায় জড়িত চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ও পুলিশ সুপার নাঈমুল হক বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য এসব সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা জরুরি। ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এর আগে সন্দেহভাজন পাঁচ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে মোহাম্মদ ইলিয়াছ নামের এক রোহিঙ্গা কক্সবাজার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

/এএম/

সম্পর্কিত

পাহাড় ধসিয়ে বালু বিক্রি করছে ঠাকুর জসিম  

পাহাড় ধসিয়ে বালু বিক্রি করছে ঠাকুর জসিম  

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা ব্যক্তির বাড়িতে লাল পতাকা

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা ব্যক্তির বাড়িতে লাল পতাকা

বেড়ানোর সুযোগ পেলেন ভাসানচরের রোহিঙ্গারা

বেড়ানোর সুযোগ পেলেন ভাসানচরের রোহিঙ্গারা

গৃহবধূকে হত্যা, স্বামী-শ্বশুর-ননদ আটক

গৃহবধূকে হত্যা, স্বামী-শ্বশুর-ননদ আটক

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

পাহাড় ধসিয়ে বালু বিক্রি করছে ঠাকুর জসিম  

পাহাড় ধসিয়ে বালু বিক্রি করছে ঠাকুর জসিম  

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা ব্যক্তির বাড়িতে লাল পতাকা

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা ব্যক্তির বাড়িতে লাল পতাকা

বেড়ানোর সুযোগ পেলেন ভাসানচরের রোহিঙ্গারা

বেড়ানোর সুযোগ পেলেন ভাসানচরের রোহিঙ্গারা

গৃহবধূকে হত্যা, স্বামী-শ্বশুর-ননদ আটক

গৃহবধূকে হত্যা, স্বামী-শ্বশুর-ননদ আটক

৬০ হাজার ইয়াবাসহ পাচারকারী গ্রেফতার

৬০ হাজার ইয়াবাসহ পাচারকারী গ্রেফতার

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: আরও এক আসামি গ্ৰেফতার

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: আরও এক আসামি গ্ৰেফতার

কারাগারে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ৫ শিক্ষার্থী

কারাগারে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ৫ শিক্ষার্থী

শান্তি চুক্তির ২ যুগ পরেও পাহাড়ে থামেনি সংঘাত

শান্তি চুক্তির ২ যুগ পরেও পাহাড়ে থামেনি সংঘাত

সর্বশেষ

বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ঢাবির যত আয়োজন

বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ঢাবির যত আয়োজন

শিক্ষকের মৃত্যুর জেরে বন্ধ হলো কুয়েট

শিক্ষকের মৃত্যুর জেরে বন্ধ হলো কুয়েট

রামপুরায় আজও শিক্ষার্থীদের অবস্থান 

রামপুরায় আজও শিক্ষার্থীদের অবস্থান 

বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকলে ইতিহাস বিকৃত হয়: শিক্ষামন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকলে ইতিহাস বিকৃত হয়: শিক্ষামন্ত্রী

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

© 2021 Bangla Tribune