X
শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮

সেকশনস

নীলফামারীতে বৌদ্ধ মন্দিরের নিদর্শন আবিষ্কার

আপডেট : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, ১৩:২৩


প্রায় ৯শ’ বছরের পুরনো একটি বৌদ্ধ মন্দিরের সন্ধান পাওয়া গেছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার খেরকাটি ইউনিয়নের ধর্মপাল গ্রামে।
প্রত্নতত্ত্ববিদদের ধারণা, ১২ শতকের দিকে পাল বংশীয় রাজা দ্বিতীয় ধর্মপাল এটি নির্মাণ করেছিলেন। প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের একটি দল ঐতিহাসিক এ নিদর্শনটির খনন করছেন। সাত সদস্য বিশিষ্ট খননকারী দলের প্রধান বগুড়ার মহাস্থানগড় জাদুঘরের তত্ত্বাবধায়ক মুজিবুর রহমান জানান, তারা চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে খনন কাজ শুরু করেছেন ।
তিনি আরও জানান, মন্দিরটির উপরের অংশ পুরোটাই ধ্বংস হয়ে গেছে। এর নিচের কিছু অংশ এখনও মাটির নিচে রয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত স্থানটিতে ভাঙা কিছু মাটির পাত্র, সাদা মার্বেলের ফলক এবং পোড়া মাটির বড় বড় খণ্ড দিয়ে নির্মিত একটি দেয়ালের সন্ধান পাওয়া গেছে।
দেয়ালটি ২৫ মিটার দীর্ঘ এবং ০.৮৫ মিটার (প্রায় ৩৩.৫ ইঞ্চি) পুরু। মন্দিরটির চারপাশ ঘিরে রয়েছে একটি ১.২ মিটার প্রশস্থ রাস্তা। ধর্মীয় প্রার্থনার অংশ হিসেবে রাস্তাটি প্রদক্ষিণ করা হতো বলে ধারণা করা হচ্ছে।
সরকারের বাৎসরিক খনন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারিতে ধর্মপাল গড়ে কাজ শুরু করেন বলে তিনি জানান।

স্থানটির ঐতিহাসিক তাৎপর্যের কথা বিবেচনা করে ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশ সরকার এখানকার ময়নামতির কোট, খেরকাঠি পীরের আস্তানা এবং আরো একটি স্থানসহ মোট ৩০ একর জায়গা সংরক্ষিত প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান হিসেবে ঘোষণা করে।

মহাস্থানগড় জাদুঘরের সহকারী তত্ত্বাবধায়ক এসএম হাসনাত বিন ইসলাম জানান,ধর্মপালগড়ে প্রাপ্ত পোড়া মাটির খণ্ডগুলোর সঙ্গে মহাস্থানগড়ের পোড়া মাটির খণ্ডগুলোর সম্পূর্ণ মিল রয়েছে।

ঐতিহাসিক এ স্থানটি সম্পর্কে রংপুর জাদুঘরের তত্ত্বাবধায়ক এবং খননকারী দলের সদস্য আবু সায়েদ ইনাম তানভিরুল বলেন, ১৮০৭-১৮০৮ সালে ব্রিটিশ প্রত্নতত্ত্ববিদ ড.ফ্রান্সিস ধর্মপাল গড় ভ্রমণ করেছিলেন। এর পরের বছর তিনি সরকার এবং ইতিহাসবিদদের কাছে স্থানটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে একটি মানচিত্রও প্রস্তুত করে পাঠিয়েছিলেন। ১৮৭৬ সালে আরও এক ব্রিটিশ গবেষক মেজর রেনেল এখানে এসেছিলেন। তিনি এখানে একটি জরিপ চালান এবং নিদর্শনটির খনন কাজ সম্পর্কে একটি বইও লিখেছেন। ঐতিহাসিক তথ্যমতে, দ্বিতীয় ধর্মপাল এখানে তার রাজ্যের রাজধানী স্থাপন করেছিলেন এবং তার নামানুসারেই স্থানটির নামকরণ করা হয়েছে ধর্মপাল গড়।

পাল বংশীয় রাজা দ্বিতীয় ধর্মপাল ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের বাংলা অঞ্চলের দ্বিতীয় শাসক। তিনি ছিলেন পাল রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা গোপালের ছেলে। পৈত্রিক রাজত্বের সীমানা তিনি বহুলাংশে বৃদ্ধি করেছিলেন। পাশাপাশি পাল সাম্রাজ্যকে উত্তর ও পূর্ব ভারতের প্রধান রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত করেছিলেন।

বর্তমান জেলার জলঢাকা উপজেলার উত্তর-পশ্চিমে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে তিনি রাজধানী স্থাপন করেন। বহিঃশত্রুর হাত থেকে রক্ষার জন্য তিনি প্রাসাদের বাইরে মাটির উঁচু প্রাচীর নির্মাণ করেন। সেই থেকে স্থানটির নাম হয় ধর্মপালগড়। ধর্মপালের রাজত্বকাল ছিল আনুমানিক ৭৮১-৮২১ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত। তার রাজত্বকালে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হচ্ছে ত্রিপক্ষীয় যুদ্ধ। উত্তর ভারতে আধিপত্য বিস্তারের জন্য দাক্ষিণাত্যের রাজকূট এবং মালব ও রাজস্থানের গুর্জর-প্রতীহারদের সঙ্গে বাংলার পালগণ দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিলেন।

স্থাপনাটি দেখার জন্য প্রতিদিন এখানে কয়েক হাজার লোক ভিড় জমাচ্ছেন। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এ স্থানে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে পুলিশের অতিরিক্ত সদস্য।

/জেবি/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০২

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কক্সবাজারে আটক ইকবাল হোসেনকে কুমিল্লায় আনা হচ্ছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে তাকে নিয়ে কুমিল্লার উদ্দেশে রওনা হয় পুলিশ। 

গত ১৩ অক্টোবর ভোরে নানুয়াদিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়া যায়। এরপরই দেশের কয়েক স্থানে সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনার জেরে ওই দিন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচ জন নিহত হন। পরদিন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে মন্দির, মণ্ডপ ও দোকানপাটে হামলা–ভাঙচুর চালানো হয়। সেখানে হামলায় দুই জন নিহত হন। এরপর রংপুরের পীরগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বসতিতে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। এরইমধ্যে শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকেও চিহ্নিত করে। 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা কে এই ইকবাল?

 

/এএম/

সম্পর্কিত

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৪

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১০ জন। হতাহত সবাই রোহিঙ্গা। আহতদের মধ্যে চার জনকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোরে উখিয়ার ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রোহিঙ্গারা হলেন, উখিয়ার বালুখালী-২ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা মো. ইদ্রীস (৩২), ইব্রাহীম হোসেন (২২), আজিজুল হক (২৬) ও মো. আমীন (৩২)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে চার জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। আমি ঘটনাস্থলে আছি। পরে বিস্তারিত জানাবো।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক পুলিশ সুপার শিহাব কায়সার বলেন, শুক্রবার ভোরে উখিয়া বালুখালী ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চার রোহিঙ্গা নিহত হয়। এ সময় আহত হয়েছে আরও ১০ রোহিঙ্গা। 

ঘটনার পরপরই এপিবিএন এবং জেলা পুলিশ বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার এবং অস্ত্রধারীদের আটকে অভিযান শুরু করেছে। পুলিশ এ পর্যন্ত একজনকে আটক করেছে বলে জানিয়েছেন শিহাব কায়সার।

/এএম/ইউএস/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি বদলি

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৮

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে এক অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, যারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি মেনে নিতে পারছে না, তারাই দেশে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে। বিভিন্ন স্থানে মণ্ডপে ভাঙচুর, হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনা ঘটাচ্ছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাদের সব মুখোশ উম্মোচন করা হবে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়ে আবারও এদেশে অপশক্তিকে বিতাড়িত করতে সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে।

বৃহস্পতিবার গাওসুল আযম বিএনএসবি আই হসপিটাল দিনাজপুর-এ গ্লুকোমা, রেটিনা ও কর্ণিয়া সাব-স্পেসিয়ালটি ইউনিট স্থাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, উন্নত চিকিৎসার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উদার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা জনগণের কল্যানের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর এই দেশের সব মানুষ শান্তিতে বসবাস করে আসছে। করোনাকালেও উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা পিছিয়ে যায়নি। সব ক্ষেত্রেই উন্নয়ন করেছেন শেখ হাসিনা। সাম্প্রদায়িক অপশক্তিরা উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতেই হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে বিবাদ তৈরি করছে। কিন্তু শেখ হাসিনা ভয় পাওয়ার মানুষ নয়, সব অপশক্তিকে প্রতিহত করা হচ্ছে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, রংপুর বিভাগীয় সমাজসেবা কার্যালয়ের পরিচালক আব্দুল মোতালেব সরকার, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুল লতিফ, সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস, বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি দিনাজপুরের সাধারণ সম্পাদক ডা. চৌধুরী মোসাদ্দেকুল ইজদানী প্রমুখ।

/এমপি/

সম্পর্কিত

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৩

নোয়াখালীর চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলার দায় রাজনৈতিক নেতারা এড়িয়ে যেতে পারেন না বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা।

বৃহস্পতিবার বিকালে নোয়াখালী সার্কিট হাউস মিলনায়তনে নোয়াখালীর সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের মতবিনিময় সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, চৌমুহনীর মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের মধ্য দিয়ে বোঝা গেলো দেশে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিকাশ ঘটছে। দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য তারা বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালাচ্ছে।তৃণমূল পর্যায়ে ১৪ দল এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করা না গেলে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে না।

সভায় ১৪ দল নেতৃবৃন্দ চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের শুক্রবার থেকে প্রয়োজনীয় খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি প্রশাসনিকভাবে পূর্ণ নিরাপত্তা দেওয়ার দাবি জানান।

সভায় আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এমপি, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি, জাসদের যুগ্ম সম্পাদক মো. মহসীন, জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ এএইচএম খায়রুল আনম সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদ উল্লাহ খানসহ সনাতন ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

এর আগে দুপুরে ১৪ দল নেতৃবৃন্দ চৌমুহনীতে ক্ষতিগ্রস্ত মন্দির পরিদর্শন করেন এবং সনাতন সম্প্রদায়ের লোকজনের খোঁজখবর নেন।

/এএম/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

বেগমগঞ্জে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটের ঘটনায় সুজনের স্বীকারোক্তি 

আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪১

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী বাজারে পূজামণ্ডপ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িতে হামলা চালানোর ঘটনায় আব্দুর রহিম সুজন (১৯) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে তার বাড়ি থেকে লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় সুজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) দুপুরে তাকে নোয়াখালী  আদালতে সোপর্দ করা হয়। এর আগে বুধবার দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার আব্দুর রহিম সুজন বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার করিমপুর গ্রামের খালপাড় ইউসুফ মিয়ার বাড়ির মৃত আবুল কাশেমের ছেলে।

জেলা পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম জানিয়েছেন, গ্রেফতারকৃত আসামির বাড়ি থেকে লুণ্ঠিত লাক্স সাবান ছয়টি, টুথপেস্ট ছয়টি, দুধের প্যাকেট একটি, শ্যাম্পু ১৩টি, কফি, ডিটারজেন্ট পাউডার চারটি, ভিম সাবান তিনটি ও হুইল সাবান একটি উদ্ধার করা হয়।গ্রেফতারকৃত আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। 

/এএম/

সম্পর্কিত

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

'হামলার দায় এড়াতে পারেন না রাজনৈতিক নেতারা'

সর্বশেষসর্বাধিক
quiz

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

‘স্বাধীনতাবিরোধীরাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে’

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

ভারতে পাচারকালে স্বর্ণের বারসহ আটক এক

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

‘ফেসবুক পোস্ট নিয়ে বাড়িঘরে আগুন মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

কিশোরীর সঙ্গে বাল্যবিয়ে, বরের মামলায় চেয়ারম্যান-কাজি কারাগারে

শিক্ষিকাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

শিক্ষিকাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

পীরগঞ্জে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার ৩৭ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

পীরগঞ্জে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার ৩৭ আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

হিলি রেলস্টেশন আবার বন্ধ ঘোষণা, দুর্ভোগে যাত্রীরা

হিলি রেলস্টেশন আবার বন্ধ ঘোষণা, দুর্ভোগে যাত্রীরা

এখনও পানিবন্দি ৩০ গ্রামের ৩৫ হাজার মানুষ

এখনও পানিবন্দি ৩০ গ্রামের ৩৫ হাজার মানুষ

তিস্তার পানিতে গঙ্গাচড়া-কাউনিয়ার ৪০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি

তিস্তার পানিতে গঙ্গাচড়া-কাউনিয়ার ৪০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি

বাড়িতে বসতো মাদকের আসর, স্ত্রীর অভিযোগে স্বামী কারাগারে

বাড়িতে বসতো মাদকের আসর, স্ত্রীর অভিযোগে স্বামী কারাগারে

সর্বশেষ

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবালকে কক্সবাজার থেকে কুমিল্লায় আনছে পুলিশ 

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য মক্কার দুই মসজিদে ব্রেইল কোরআন শরিফ

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য মক্কার দুই মসজিদে ব্রেইল কোরআন শরিফ

৮০ কোটি টাকায় যেভাবে বদলে যাবে ধূপখোলা মাঠ

৮০ কোটি টাকায় যেভাবে বদলে যাবে ধূপখোলা মাঠ

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

রেসিপি : কোরিয়ান বুলগগি

রেসিপি : কোরিয়ান বুলগগি

© 2021 Bangla Tribune